এটিএম বুথ ও টিভি চ্যানেলে সংযুক্ত বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট

এটিএম বুথ ও টিভি চ্যানেলে  সংযুক্ত বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট

মোঃ মামুন-উর-রশিদ : বাংলাদেশের মানুষ অত্যন্ত আশাবাদী মানুষ। প্রতিবাদী মানুষ ও বটে। আশাবাদী হয়ে দেশের জন্য, দশের জন্য কাজ বা শ্রম দেয় মনে প্রাণে। যে আশা-আকাঙ্খা থেকে ১৯৭১ সালে দীর্ঘ ৯ মাস যুদ্ধ করে দেশকে স্বাধীন করেছিলেন বাংলার মুক্তিকামী বীর সেনারা, বাংলা মায়ের শ্রেষ্ঠ সন্তানরা। তাঁদের যে আশা তাঁদেরকে তাড়িত করেছিল, তারই ধারাবাহিকতা তাঁদের বর্তমান প্রজন্মরা আবারো আশাবাদী হয়েছে যখন জাতীর জনক, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ সন্তান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাই বাংলা দেশের পক্ষ থেকে প্রথম স্যাটেলাইট মহাশূন্যে উৎক্ষেপনের মাধ্যমে যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে উৎক্ষেপন করে মহাকাশ প্রযুক্তি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান, স্পেস এক্স। সময়ক্ষণ ছিল ২০১৮ সালের ১১ই মে রাত ২টা ১৪ মিনিট।
বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটর মাধ্যমে মহাকাশের কক্ষপথে ঘুর্ণনের মধ্য দিয়ে এদেশের সতের কোটি মানুষের হৃদয়ের আকাঙ্খা আরো বেড়ে গেছে, বেড়ে গেছে চাওয়া পাওয়া। তারা ভেবেছিল তথ্য প্রযুক্তির যুগে আমরা যেন এই স্যাটেলাইটের সহযোগিতা নিয়ে বাংলাদেশকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাই। পৌছে দিতে পারি উন্নত রাষ্ট্রগুলোর দোর গোড়ায়। যেখানে আমাদের দেশের মানুষের মেধায় কোন ঘাটতি নেই, নেই কোন পিছুটান। তাই তথ্য প্রযুক্তির ক্ষেত্রে আরও স্বাক্ষর দিতে চার বাঙালির মেধাবী সন্তানরা। তারই প্রমাণ হিসেবে নাসা, মাইক্রোসফ্ট, এ্যাপলস, সহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিকভাবে খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠানগুলোতে স্থান করে নিয়েছেন ইতিমধ্যে। যেখানে বাংলাদেশের মতো গরিব দেশকে লক্ষ লক্ষ ডলার প্রদান করতে হতো উন্নত দেশগুলোকে, সেদেশ গুলোর স্যাটেলাইট ব্যবহারের জন্য। সেক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে এক অনিবার্য ভূমিকা রাখবে বলে এটাই সকলের প্রত্যাশা।

সাধারণ জনগণের এ রকম প্রত্যাশা পুরণে আর এক ধাপ এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। তারই অংশ হিসেবে বাংলাদেশ কর্তৃক উৎক্ষেপিত বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট (বিএস-১) যুক্ত হচ্ছে অটোমেটেড টেলার মেশিনের (এটিএম) বুথ ও বিভিন্ন টিভি চ্যানেল এর সঙ্গেঁ। দেশি টেলিভিশন চ্যানেল গুলোকে স্যাটেলাইট ইন্টারনেটের আওতায় আনার পাশাপাশি নিরাপদ ব্যাংকিং সেবা পৌঁছে দিতে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট (বিএস-১) বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখবে। বর্তমান সরকার তথ্য ও প্রযুক্তিকে বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ইন্টারনেট সুবিধা পৌছে দেওয়ার জন্য বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট এ উৎক্ষেপনের এক বছর পূর্তি উপলক্ষে এক মহতি উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানী লিমিটেড (বিসিএসসিএল) প্রাপ্ত তথ্য মতে আজ ১৯ শে মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি বেসরকারী ব্যাংক (ডাচবাংলা ব্যাংক) এটিএম বুথ এবং অনলাইনে আর্থিক লেনদেন স্যাটেলাইট ইন্টারনেটের সঙ্গে যুক্ত করবেন আজ ঢাকায় একটি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে। পাশাপাশি দেশি টেলিভিশন চ্যানেলগুলো স্যাটেলাইট এবং ইন্টারনেট সেবা পৌছে যাবে প্রত্যন্ত অঞ্চলে। কারণ স্যাটেলাইট ইন্টারনেট সেবা ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের তুলনায় অনেক বেশী নিরাপদ, কার্যকর ও  দ্রুত। তাছাড়া স্যাটেলাইট ইন্টারনেট ব্যবস্থা থেকে কোন তথ্য ফাঁস হওয়ার সুযোগ নেই, বলে দাবি করেন তথ্য ও প্রযুক্তি বিশেজ্ঞরা।
প্রসঙ্গত বলা দরকার, বাংলাদেশের প্রায় ৪০টির বেশি টেলিভিশন চ্যালেন এবং বিভিন্ন সরকারি ও বাণিজ্যিক ব্যাংকের ৭ হাজারের বেশি এটিএম বুথ আছে সারা বাংলাদেশে। এর ফলে শুধু দেশের সীমানা ছাড়িয়ে বাংলাদেশের বাহিরেও বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের বাণিজ্যিক কার্যক্রম পরিচালনার সুযোগ হবে। তাই বর্তমান সরকারের কাছে আমি ব্যক্তিগত ভাবে আবেদন করবো, এই বলে আসুন আমরা উন্নত দেশের স্যাটেলাইট এর ব্যবহারের মতো বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটকেও সঠিক ভাবে ব্যবহার করে তথ্য ও প্রযুক্তিকে এগিয়ে নিয়ে যাই।
লেখক: সাংবাদিক-প্রভাষক
০১৭১১-০১০১২১