‘একসময় মানুষ দুর্নীতি করার সাহস হারিয়ে ফেলবে’

‘একসময় মানুষ দুর্নীতি করার সাহস হারিয়ে ফেলবে’

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, কর্মকর্তাদের মনোভাব, আচার-আচরণ, কৌশল ও চলন-বলনের পরিবর্তনের মাধ্যমেই কমিশনের সক্ষমতার বিকাশ ঘটাতে হবে। একইসঙ্গে সঠিক পদক্ষেপের মাধ্যমে কমিশনকে এমন একটা জায়গায় নিয়ে দাঁড় করাতে হবে, যেনো একটা সময় মানুষ দুর্নীতি করার সাহস হারিয়ে ফেলে। আর এই সময় হয়তো বেশি দূরে নয়।

বুধবার (৩১ জুলাই) সংস্থাটির প্রধান কার্যালয়ে ‘দুর্নীতির অভিযোগ অনুসন্ধান ও  তদন্ত’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ কোর্সে দুর্নীতি দমন কমিশনের কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্য করে তিনি এ কথা বলেন।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশন হতে হবে এমন, যেনো সমাজের উঁচু-নিচু সব স্তরের মানুষের কাছে বার্তা দেওয়া যায়, দুর্নীতি করলে পরিণতি সুখকর হবে না। বর্তমানে কমিশন দৃঢ়ভাবে এই বার্তা পৌঁছানোরই চেষ্টা করছে। এ কারণেই প্রতিদিনই দেশের কোথাও না কোথাও দুর্নীতি প্রতিরোধে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। এ অভিযান অব্যাহত রাখা হবে। এভাবে পর্যায়ক্রমে এমন সময় হয়তো আসবে, যেদিন দুর্নীতিবাজরা দুর্নীতি করার সাহসই হারিয়ে ফেলবে।

কমিশনের কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্য করে দুদক প্রধান বলেন, কমিশনের কর্মকর্তাদের আচরণ হতে হবে সর্বোচ্চ বিনয়ী। জিজ্ঞাসাবাদে কৌশলগত কারণেই জ্ঞান, বুদ্ধি এবং স্বীয় বিবেচনার নির্মোহ প্রয়োগ ঘটাতে  হবে। এক্ষেত্রে উদ্ভাবনীমূলক কৌশল প্রয়োগের মাধ্যমে  অপরাধীদের অপরাধের তথ্য সঠিকভাবে পাওয়া যেতে পারে। তবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পর্যাপ্ত হোমওয়ার্ক করার কোনো বিকল্প নেই।

ইকবাল মাহমুদ বলেন ,এই প্রতিষ্ঠানের একটি অঙ্গীকার রয়েছে। আপনাদের প্রত্যেকের এই অঙ্গীকার রক্ষা করতে হবে। প্রতিষ্ঠানের প্রতি অঙ্গীকার ও মমত্ববোধ না থাকা কাঙ্ক্ষিত নয়। প্রতিষ্ঠানের ভিশন-মিশনের সঙ্গে আপনাদের কাজকর্ম সংগতিপূর্ণ না হলে, ওই প্রতিষ্ঠান থেকে নেওয়া বেতন কী বৈধ হয়? তাই সততা ও নৈতিকতার সর্বোচ্চ মানদণ্ড বজায় রেখে স্ব-স্ব দায়িত্ব পালন করতে হবে।

প্রশিক্ষণ কোর্সে কমিশনের পরিচালক, উপ পরিচালক, সহকারী পরিচালক ও উপ সহকারী পরিচালক পদমর্যাদার ৩০ জন কর্মকর্তা অংশ নেন।