উন্নয়নে ধারাবাহিক শাসন ব্যবস্থা প্রয়োজন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

উন্নয়নে ধারাবাহিক শাসন ব্যবস্থা প্রয়োজন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস: দেশের সফল উন্নয়নের ধারা বজায় রাখতে ধারাবাহিক শাসন ব্যবস্থা প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। এ জন্য শেখ হাসিনাকে আবার প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসানোর আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।  বৃহস্পতিবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ১৮তম কমিউনিটি ক্লিনিক প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ধারাবাহিক শাসন ব্যবস্থার প্রয়োজনীয়তা থাকা সত্ত্বেও ইতিহাস অনুসারে বাঙালি পরিবর্তনে বিশ্বাসী। এক সরকার দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকার ইতিহাস খুব কম। আওয়ামী লীগ টানা দুই মেয়াদে ক্ষমতায় থাকার কারণে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের জোয়ারে ভাসছে। তার প্রমাণ আমরা দেখছি ও আমরা ছাড়াও তার বিবরণে পঞ্চমূখ হয়ে আছেন আন্তর্জাতিক অর্থনীতিবিদরা। ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের সাবেক অর্থনীতিবিদ কৌশিক বসু এক বিবৃতিতে বাংলাদেশের দারুণ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির বর্ণনা দিয়েছেন।

কমিউনিটি ক্লিনিকের স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু আর তা বাস্তবায়ন করেছেন তার কন্যা শেখ হাসিনা উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবায় অভূতপূর্ব উন্নতি সাধনের ক্ষেত্রে কমিউনিটি ক্লিনিকের ব্যাপক অবদান রয়েছে। আর এ স্বপ্নটি বঙ্গবন্ধু দেখেছিলেন। আর তা বাস্তবায়ন করে হাজার হাজার কমিউনিটি ক্লিনিকের কর্মীদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিছুদিন আগে আপনাদের আন্দোলনের মাধ্যমে প্রকাশিত দাবি মেনে নেওয়ার জোরালো আশ্বাসও তিনি দিয়েছেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে কমিউনিটি ক্লিনিকের কর্মীরা ক্লিনিকের বাইরে গিয়েও তাদের সেবা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। কিন্তু মনে রাখবেন মাঝখানে অন্য সরকার এসে আপনাদের চাকরি খেয়েছিলো। কিন্তু আপনাদের আবার ফিরিয়ে দিয়েছেন শেখ হাসিনা। তাই আপনাদের আরও উন্নতি চাইলে এই সরকারকে আবার ক্ষমতায় আনতে হবে। তিনি বলেন, উন্নত দেশগুলোর মতো আমাদের অত বেশি অর্থ নেই। তারপরও আমাদের যতটুকু সাধ্য আছে তা দিয়ে আমরা এ কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছি।

কিছুদিন আগেও আমরা সারাদেশে ১০ হাজার নার্স ও ৬ হাজার ডাক্তার নিয়োগ দিয়েছি। আমরা আরও ১০ হাজার ডাক্তার নিয়োগ দেবো। ওষুধ শিল্পে আমরা ব্যাপক সফলতা ও উন্নতি লাভ করেছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর সাকে স্বাস্থ্য উপদেষ্টা ডা. সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব ডা. ফয়েজ আহমেদ, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বাংলাদেশ প্রতিনিধি ডা. ভ্যালেরিয়া, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব বাবলু কুমার সাহাসহ প্রমুখ। এদিকে পরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী আগারগাঁওস্থ চক্ষু হাসপাতাল মিলনাতনে ভিশন সেন্টার এবং অপথালমোলজিক্যাল নার্সদের ট্রেনিং কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। চক্ষু হাসপাতালের পরিচালক অদ্যাপক ডা. গোলাম মোস্তফার সভাপতিত্বে সভায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. দীন মোহাম্মদ নুরুল হক, বিএসএমএমইউএর উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ডা. শরফুদ্দিন আহম্মেদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।