ইমরানের প্রতি কৃতজ্ঞ আতিয়া আনিসা

ইমরানের প্রতি কৃতজ্ঞ আতিয়া আনিসা

বিনোদন প্রতিবেদক : ‘মেঘেরই খামে’, ‘যদি একদিন’, ‘চুপকথা’ তিনটি গান এখন শ্রোতা দর্শকের খুউব প্রিয় গান। আমাদের দেশের সঙ্গীতাঙ্গনের এই সময়ের শীর্ষ তারকা সঙ্গীতশিল্পী ইমরানের সঙ্গে এই তিনটি গানেই তার সহশিল্পী হিসেবে ছিলেন আতিয়া আনিসা। শ্রোতা দর্শকের কাছে গানে জুটি হিসেবেও এরইমধ্যে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছেন ইমরান-আনিসা। আর তাই তাদের কাছ থেকে শ্রোতা দর্শকেরা নতুন নতুন গানও প্রত্যাশা করছেন এখন। তাই ইমরানও আনিসাকে নিয়ে নতুন নতুন গান করছেন, আবার নতুন নতুন গান করার পরিকল্পনাও করছেন। আতিয়া আনিসার কাছে এই পুরো বিষয়টিই এখনো স্বপ্নের মতোই যেন মনে হয়। তিনি নিজে এখনো বিশ^াস করতে পারেন না যে সিনেমার গানে তিনি কন্ঠ দিয়েছেন। ছোটবেলা থেকেই আতিয়া আনিসার স্বপ্ন ছিলো সিনেমায় গান করার।

 কিন্তু সেই স্বপ্ন যে সত্যি সত্যিই ইমরানের হাত ধরেই পূর্ণ হয়ে যাবে তা তিনি ভাবতেও পারেননি। মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ পরিচালিত সম্প্রতি মুক্তিপ্রাপ্ত ‘যদি একদিন’ সিনেমার জন্য রবিউল ইসলাম জীবনের লেখা ‘যদি একদিন’ গানে প্রথম মৌলিক কোন গানে কন্ঠ দেন আতিয়া আনিসা। ইমরানের সুর সঙ্গীতে ইমরানেরই সঙ্গে এ গানে কন্ঠ দেন আনিসা। একই সিনেমার ‘চুপকথা’ গানেও কন্ঠ দেন তারা দু’জন। এ গানটি লিখেছেন জনি হক এবং সুর সঙ্গীত করেছেন ইমরান। আনিসা জানান ‘যদি একদিন’ গানটির জন্য ভীষণ সাড়া পাচ্ছেন ইমরান এবং তিনি নিজে। শিগগিরই ইমরান ও আনিসাকে নিয়ে গানটির নতুন করে মিউজিক ভিডিও করে প্রকাশ করা হবে। এদিকে এরইমধ্যে শাকিব খান অভিনীত ‘শাহেনশাহ’ সিনেমার জন্যও ¯েœহাশীষ ঘোষ’র লেখা ও ইমরানের সুর সঙ্গীতে ইমরানের সঙ্গে ‘ভালোবাসার ফুল’ শিরোনামে আরেকটি প্লে-ব্যাক করেছেন আনিসা।

 তবে এই জুটির প্রথম সাড়া ফেলা গান হচ্ছে ‘মেঘেরই খামে’ গানটি। গানটি লিখেছেন রবিউল ইসলাম জীবন এবং সুর সঙ্গীত করেছেন ইমরান। খুউব সহজে বলতে গেলে বলা যায় আতিয়া আনিসার গানের ভুবনে পথচলাটা ইমরানের হাত ধরেই এগিয়ে যাচ্ছে। অবশ্য এটা নিজেও স্বীকার করেন আনিসা। ইমরান প্রসঙ্গে আনিসা বলেন, ‘ আমি মহান আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করি। সেইসাথে ইমরান ভাইয়ার মতো একজন সুপারস্টারের সঙ্গে একের পর এক গান গাইতে পারবো এটা এখনো আমার কাছে স্বপ্নের মতো মনে হয়। আমি ইমরান ভাইয়ার প্রতি কৃতজ্ঞ যে তিনি আমার প্রতি আস্থা রেখেছিলেন, বিশ^াস রেখেছিলেন যে আমি ভালো করতে পারবো। আমি এখন যা কিছুই করতে পারছি সঙ্গীতাঙ্গনে তা শুধু ইমরান ভাইয়ার কারণেই করতে পারছি। তার কাছে সত্যিই আমি অনেক ঋণী হয়েগেলাম।

 আমি কৃতজ্ঞ আমার বাকি স্যারের কাছে। কারণ যখন পরিবার থেকে গানের জন্য সাপোর্ট পাইনি, তখন আমাকে বাকি স্যার বিনা পারিশ্রমিকে আমাকে গান শিখিয়েছিলেন। আমার প্রয়াত নানা আব্দুল হাই আমাকে প্রথম হারমোনিয়াম কিনে দিয়েছিলেন। এটাও সত্যি আমার বাবা আনোয়ার উল্লাহ এখন আমাকে ভীষণ সাপোর্ট করছেন। আমি আমার আজকের অবস্থান নিয়ে সন্তুষ্ট।’ এদিকে আতিয়া আনিসা বর্তমানে চ্যানেল আইয়ের ‘গানের রাজা’ রিয়েলিটি শো’র শিক্ষক হিসেবেও কাজ করছেন। ছোটবেলায় তিনি ক্ষুদে গান রাজ, মার্কস অলরাউ-ার, ২০১৭ সালে সেরাকেন্ঠ এবং ২০১৮ সালে ‘সারেগামাপা’য় অংশগ্রহণ করে শীর্ষ স্থানে ছিলেন। ছবি : গোলাম সাব্বির।