ইংরেজি বারো মাসের নাম কিভাবে এল?

ইংরেজি বারো মাসের  নাম কিভাবে  এল?

নবীন চৌধুরী  : ইংরেজি বারোটি মাসের নাম কি করে এসেছে তা আমরা অনেকেই জানি না। তাই ইংরেজি বারো মাসের নাম কিভাবে এল তা জেনে নিই। ‘জানুস’ নামের এক দেবতা যার সামনে এবং পিছনে দু’দিকেই চোখ ছিল। সামনে চোখ দিয়ে সে ভবিষ্যতকে দেখতে এবং পেছনের চোখ দিয়ে সে অতীতকে দেখতে পেত। এই দেবতার নাম থেকেই হয়েছে খ্রিস্টিয় মাস জানুয়ারি। ‘ফেব্রুয়া’ নামে রোমানদের এক দেবতা ছিল। সে ছিল প্রবণতার প্রতীক। তার নামেই এ মাসের নামকরণ ফেব্রুয়ারি মাস।‘মারস’ দেবতার নামে মার্চ মাসের নাম। ‘মারস’ ছিল ভীতি ও যুদ্ধের প্রতীক। তার হাতে থাকত লম্বাবর্শা। রোমানরা এ দেবতার কাছে বৃষ্টি প্রার্থনা করত। প্রকৃতির সঙ্গে জড়িত এপ্রিল মাসের নাম। এপ্রিল অর্থ উন্মুক্তকারী। এ মাসেই চির জাগরুক বসন্ত আসে। রোমানদের এক দেবীর নাম ‘মাইয়া’। তার নাম থেকেই এসেছে মে মাস। ‘মাইয়ার পিতার নাম ছিল এটলাস। এ এটলাসের সাত সাতটির মেয়ের মধ্যে ‘মাইয়া’ ছিল সব থেকে খ্যাতনামা।
রোমান দেবী ‘জুনোর’ নামে জুন মাসের নাম। এই নাম করা নিয়ে অনেকের মধ্যে বিভেদ
দেখা যায়। কেউ কেউ বলেছেন, জুলিয়াস সীজারের নামে জুন মাস হয়েছে। রোম সম্রাট
জুলিয়াস সিজারের নামে জুলাই মাসের নামকরণ করা হয়েছে। এ মাসেই সিজারের জন্ম হয়। তাই জুলাই মাসের সঙ্গে জুলিয়াস সিজারের নাম আজ পর্যন্ত যুক্ত হয়ে আছে। জুলিয়াস সিজারের ছেলে অগাস্টাস- এর নাম থেকে ‘আগস্ট মাসের নামকরণ করা হয়েছে। অগাস্টস অর্থ হল মহৎ।
সেপ্টেম্বর, অক্টোবর, নভেম্বর ও ডিসেম্বর এর নামকরণ হয়েছে সংখ্যা থেকে। সেপ্টেম্বর মানে ৭, অক্টোবর মানে ৮, নভেম্বর মানে ৯ এবং ডিসেম্বর মানে ১০। শুরুর দিকে মাস গণনার তালিকায় এগুলো সংখ্যার নামানুপাতেই সাজানো ছিল। পরবর্তীতে জুলিয়াস সিজার
এ মাসগুলোর পুনঃ ক্রমবিন্যাস
করেন। অর্থাৎ সেই থেকেই সেপ্টেম্বরের স্থান হল নবম,
অক্টোবর হল দশম, নভেম্বর হল একাদশ আর ডিসেম্বর হল দ্বাদশ মাসের নাম। সেই থেকে
এ নিয়মেই চলে আসছে ইংরেজি গণনা মাস।