ই-নথিতে আড়াই বছরে ২৫ বার প্রথম ইআরডি

ই-নথিতে আড়াই বছরে ২৫ বার প্রথম ইআরডি

 ই-নথি বা ই-ফাইলিং ডিজিটাল বাংলাদেশে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে সরকারি কার্যক্রমকে আরও সহজতর করার একটি সফটওয়্যার সিস্টেম। এর মাধ্যমে সরকারি দফতরের সবকাজ অনলাইনভিত্তিক করা হয়। কয়েক বছর ধরেই ই-নথি কাযর্ক্রমে সফলতা দেখিয়ে আসছে অর্থ মন্ত্রণালযয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি)। এবারও সবার শীর্ষে রয়েছে ইআরডি।


উন্নয়ন সহযোগিদের সঙ্গে দ্রুত যোগাযোগ রক্ষার্থে সব কিছুই ই-নথিতে হচ্ছে ইআরডিতে। ফলে সব কাযর্ক্রম সবসময় সচল রাখছে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ সংস্থাটি। বড় ক্যাটাগরির আটটি বিভাগের মধ্যে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে ই-নথি কার্যক্রমে শীর্ষে রয়েছে ইআরডি। আগের ধারাবাহিকতায় ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসেও সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মধ্যে ই-ফাইলিংয়ের প্রথম স্থান অধিকার অব্যাহত রেখেছে। এ নিয়ে গত ২০১৭ সালের জুলাই থেকে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত ৩০ মাসের মধ্যে ইআরডি ২৫ বার প্রথমস্থান অধিকার করে সরকারের ই-ফাইলিং কার্যক্রমে অনন্য রেকর্ড স্থাপন করেছে। ডিসেম্বর মাসে ইআরডিতে মোট ৬ হাজার ৪৬৬টি ডাক আসে। এগুলো ই-নথিতে নিষ্পন্ন করা হয়।

ইআরডির সচিব মনোয়ার আহমেদ  বলেন, গত ৩০ মাসে ২৫ বার ই-নথিতে আমরা শীর্ষ অবস্থান ধরে রেখেছি। এটা রেকর্ড সাফল্য। এজন্য আমি অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের পক্ষ থেকে বিভাগের সব কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি। ইআইডির ১০টি অনুবিভাগের মধ্যে প্রশাসন ও মধ্যপ্রাচ্য অনুবিভাগ ২০১৯ সালের ডিসেম্বর ৯ মাসেও ই-ফাইলিংয়ে প্রথমস্থান অধিকার অব্যাহত রেখেছে। এ নিয়ে গত ৩০ মাসে ৩০ বারের মধ্যে প্রশাসন ও মধ্যপ্রাচ্য অনুবিভাগ মোট ২৫ বার ই-ফাইলিং কার্যক্রমে ইআরডি'র মধ্যে প্রথমস্থান অধিকার করে অনন্য রেকর্ড স্থাপন করেছে। এ জন্য প্রশাসন ও মধ্যপ্রাচ্য অনুবিভাগের সব কর্মকর্তা ও কর্মচারীকেও অভিনন্দন জানাচ্ছি। ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে আমাদের এ আন্তরিক কর্মপ্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে ইনশাআল্লাহ। আমার বিশ্বাস সব কাযর্ক্রম এগিয়ে নিতে পারলে অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।’