‘আমরা টেস্ট খেলতে আবারও আসব’

‘আমরা টেস্ট খেলতে আবারও আসব’

বাংলাদেশ দল পাকিস্তান যাবে কী যাবে না এ নিয়ে গত দুই সপ্তাহ আগেও নিশ্চিত ছিল না বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) থেকে শুরু করে খেলোয়াড়রাও।
শেষ পর্যন্ত দুই দেশের ক্রিকেট বোর্ডের সমঝোতায় তিন দফা পাকিস্তান সফরে রাজি হয় বিসিবি। তার প্রথম ধাপে ছিল তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) বাংলাদেশ দলকে দেয় প্রেসিডেন্সিয়াল নিরাপত্তা।
চার্টার্ড বিমানে (বিশেষ বিমান) করে গত ২২ জানুয়ারি রাতে লাহোরের উদ্দেশে রওয়ানা করে টিম বাংলাদেশ। আজ শেষ হয়েছে সিরিজ। ২৮ জানুয়ারি বাংলাদেশে ফেরার কথা থাকলেও আজ রাতেই ফিরছে টাইগাররা। শেষ ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেস্তে যাওয়ায় বলা যায় সুবিধাই হয়েছে।
প্রায় দশ হাজার নিরাপত্তা কর্মীর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে চলছে সিরিজ। হোটেল থেকে মাঠ, মাঠ থেকে হোটেল। ছয় দিনের এই সফরে বাংলাদেশ দলের সীমাবদ্ধতা ছিল হোটেল-মাঠ, মাঠ-হোটেল। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদদের গণ্ডি ছিল এটুকই।
লাহোরের পাঁচ তারকা হোটেল পার্ল কন্টিনেন্টালকে ‘ফাইভ স্টার কারাগার’ বললেও ভুল বোধহয় হবে না।
তবুও সন্তুষ্টের ঢেঁকুর তুলেছেন টাইগার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তৃতীয় ম্যাচ পণ্ড হলেও সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ অধিনায়ক জানান নিরাপত্তা নিয়ে সন্তুষ্টির কথা। জানিয়ে দেন, টেস্ট সিরিজেও পাকিস্তান যাবার কথা।
‘হ্যাঁ, পাকিস্তানের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে আমরা সন্তুষ্ট। লাহোর সবসময়ই অসাধারণ শহর। এখানকার আতিথেয়তা মুগ্ধ করার মতো। এখানকার নিরাপত্তাও বেশ। আমরা টেস্ট খেলতে আবারও আসব।’
নিরাপত্তা যেমনই হোক, অনুষ্ঠিত হওয়া দুই ম্যাচের দুটিতে হেরে বাড়ি ফিরছে বাংলাদেশ দল। মাহমুদউল্লাহর কাছে প্রশ্ন ছিল, এই সিরিজে বাংলাদেশ দলের প্রাপ্তি কি?
‘প্রাপ্তির জায়গাটা আমি মনে করি একটু কম। কারণ আমি যদি প্রাপ্তির কথাটা বলতে পারি সেটা তামিমের ব্যাটিং।  কারণ, উইকেট যেমন ছিল সে সেটা বুঝেই ব্যাটিং করেছে।’