আবেদের জীবন থেকে তরুণদের শিক্ষা নেওয়ার পরামর্শ ইউনূসের

আবেদের জীবন থেকে তরুণদের শিক্ষা নেওয়ার পরামর্শ ইউনূসের

সদ্য প্রয়াত স্যার ফজলে হাসান আবেদের জীবন থেকে তরুণ প্রজন্মকে শিক্ষা নেওয়ার আহ্বান জানালেন নোবেল বিজয়ী ড. মোহাম্মদ ইউনূস। আর সেই শিক্ষাকে কাজে লাগিয়ে নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করে এগিয়ে যেতে হবে তরুণদের। 


রোববার (২২ ডিসেম্বর) রাজধানীর বনানীতে আর্মি স্টেডিয়ামে ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা স্যার ফজলে হাসান আবেদের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ড. ইউনূস। এর আগে দীর্ঘদিনের বন্ধুবর আবেদকে স্মরণ করে এই অর্থনীতিবিদ বলেন, আবেদ শুধু প্রতিষ্ঠান তৈরি করেনি, প্রতিষ্ঠান কীভাবে চালাতে হয় সেই ব্যবস্থাপনা সিস্টেমও দেখিয়েছে। তার জীবন থেকে তরুণরা শিক্ষানিক। এতগুলো মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে তিনি কাজ করেছেন। এর থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে তরুণ প্রজন্মকে উদ্যোগ গ্রহণ করে এগিয়ে যেতে হবে। 

এসময় বেশ আবেগাপ্লুত কণ্ঠে স্যার আবেদ সম্পর্কে ইউনূস বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসের সঙ্গে, এই দেশের মানুষের সঙ্গে ওঁতপ্রোতভাবে আবেদ জড়িয়ে রয়েছে। এই দেশ এখন যেকোনো দেখছে তার সবকিছুর সঙ্গে জড়িত। এমনিতে হিসাবরক্ষক হলেও হেন বিষয় নেই যেগুলোতে তিনি জড়িত হননি। তার এই চলে যাওয়ায় আমি মর্মাহত, এ এক বিরাট শূন্যতা। তবে সে যে ঘুমিয়ে গেল তা না। সে আমাদের সবার মাঝে রয়েছে। 

স্মৃতিস্বাক্ষর বইতে স্বাক্ষর দিচ্ছেন ড. ইউনূসএর আগে স্যার ফজলে হাসান আবেদের স্মরণে এক স্মৃতিস্বাক্ষর বইয়ে স্বাক্ষর করেন ইউনূস। সেখানে তিনি লেখেন, আবেদের সঙ্গে এদেশের মানুষের ইতিহাস অঙ্গাঅঙ্গীভাবে জড়িত। তার বিদায়ে এদেশের মানুষ এক বন্ধু হারালো। তার অবদান এদেশের মানুষ কৃতজ্ঞতা সঙ্গে চিরদিন স্মরণ রাখবে।  

এরপর ব্যক্তিগতভাবে এবং গ্রামীণ ব্যাংকের পক্ষ থেকে আবেদের মরদেহের প্রতি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ড ইউনূস।

এর আগে, শুক্রবার (২০ ডিসেম্বর) রাত ৮টা ২৮ মিনিটে রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার অ্যাপোলো হাসপাতালে মারা যান স্যার ফজলে হাসান আবেদ। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর। তিনি স্ত্রী, এক মেয়ে, এক ছেলে, তিন নাতি-নাতনিসহ বিশ্বজুড়ে কোটি কোটি শুভানুধ্যায়ী রেখে গেছেন।