আত্রাইয়ে ঢাকাগামী আন্তঃনগর ট্রেনের স্টপেজ না থাকায় যাত্রীদের দুর্ভোগ

আত্রাইয়ে ঢাকাগামী আন্তঃনগর ট্রেনের স্টপেজ না থাকায় যাত্রীদের দুর্ভোগ

আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর আত্রাইয়ে ঢাকাগামী আন্তঃনগর ট্রেনের স্টপেজ না থাকায় যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। নওগাঁ জেলার আত্রাইয়ের আহসানগঞ্জ স্টেশনের উপর দিয়ে প্রতিদিন ঢাকাগামী ৫ জোড়া আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করলেও মাত্র একটি ছাড়া ঢাকাগামী অন্য কোন ট্রেনের স্টপেজ এখানে নেই। ফলে ঢাকাগামী যাত্রীদের যারপর নেই দুর্ভোগের শিকার হতে হয়। জানা যায়, ঢাকাগামী আন্তঃনগর ট্রেনের মধ্যে কেবলমাত্র নীলসাগর এক্সপ্রেসের স্টপেজ এ স্টেশনে রয়েছে। এতে আসন সংখ্যা বরাদ্দ রয়েছে ৫০টি। অথচ আত্রাই থেকে প্রতিদিন ঢাকা যাতায়াত করেন প্রায় ২শতাধিক যাত্রী। ফলে সীমিত সংখ্যক আসনের জন্য হিমশিম খেতে হয় স্টেশন কর্তৃপক্ষকেও। সাম্প্রতিক সময়ে ঈদ মৌসুমের ফলে ঢাকাগামী যাত্রীদের চাপ বেড়ে যাওয়ায় এ দুর্ভোগ আরও প্রকট আকার ধারণ করেছে। এদিকে নীলসাগর এক্সপ্রেস ছাড়াও আত্রাইয়ের উপর দিয়ে প্রতিদিন দ্রুতযান/একতা এক্সপ্রেস, রংপুর এক্সপ্রেস, লালমনি এক্সপ্রেস নামে আরও ৪টি আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করে। এ ছাড়াও অতি সম্প্রতি চলাচল করছে স্বল্প বিরতির পঞ্চগড় এক্সপ্রেস নামের আরও একটি আন্তঃনগর ট্রেন। অথচ এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি সত্ত্বেও এসব আন্তঃনগর ট্রেনের স্টপেজ কার্যকর না হওয়ায় একদিকে যাত্রীরা হচ্ছেন দুর্ভোগের শিকার অন্যদিকে সরকার বঞ্চিত হচ্ছে মোটা অংকের রাজস্ব আয় থেকে। উপজেলার বিহারীপুর গ্রামের রিপন হোসেন বলেন, প্রতিদিন আত্রাই থেকে যেসব যাত্রী ঢাকায় যাতায়াত করেন তাদের আসন সংখ্যা এ স্টেশনে পর্যাপ্ত পরিমাণ না থাকায় হয় সান্তাহার না হয় নাটোরে গিয়ে সড়ক পথে ঢাকা যেতে হয়। এতে করে একদিকে সময়ের ব্যাপক অপচয় অন্যদিকে অর্থও অনেক বেশি খরচ হয়।

 তাই এ স্টেশনে ঢাকাগামী অন্যান্য ট্রেনের স্টপেজ কার্যকর করলে এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দুর্ভোগ লাঘব হবে। আত্রাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী গোলাম মোস্তফা বাদল বলেন, আত্রাইয়ে ঢাকাগামী কমপক্ষে আরও একটি ট্রেনের স্টপেজ দিতে আমরা দীর্ঘদিন থেকে দাবি জানিয়ে আসছি। এ ব্যাপারে তদানীন্তন যোগাযোগ ও রেলমন্ত্রী (বর্তমান সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী) ওবায়দুল কাদেরের নিকট লিখিত আবেদনও করা হয়েছিল। আমাদের স্থানীয় এমপি ইসরাফিল আলম ডিও লেটার পর্যন্ত দিয়েছিলেন। তারপরও বিষয়টি কার্যকর না হওয়ায় আমরা হতাশ হয়েছি। এলাকাবাসীর বৃহত্তর স্বার্থে এবং সরকারের রাজস্বের স্বার্থে আত্রাইয়ে কমপক্ষে ঢাকাগামী আরও একটি ট্রেনের স্টপেজ দিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করছি। আহসানগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার ছাইফুল ইসলাম বলেন, বর্তমানে এ স্টেশনে প্রতি মাসে ১৪ থেকে ১৫ লাখ টাকা আয় হয়। ঢাকাগামী আর একটি ট্রেনের এবং খুলনাগামী আন্তঃনগর সীমান্ত এক্সপ্রেসের স্টপেজ কার্যকর হলে রাজস্ব আয় দ্বিগুণ হবে বলে আশা করা যায়।