আওয়ামী লীগ নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছে: রিজভী

আওয়ামী লীগ নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছে: রিজভী

স্টাফ রিপোর্টার : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু না হলেও আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা নৌকার পক্ষে প্রচারণা চালাচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। গতকাল শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১টায় নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন। রিজভী বলেন, আপনারা দেখেছেন বৃহস্পতিবার নারায়নগঞ্জে শামীম ওসমান বিশাল প্রচারণা সভা করেছেন। কিশোরগঞ্জের ভৈরবে নাজমুল হাসান পাপনের পক্ষে মাইকিং করে সমাবেশ অব্যাহত রাখা হয়েছে। এছাড়া সব জেলা, উপজেলা, পৌরসভা ও ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মিছিল করে, সমাবেশ করে নৌকার পক্ষে ভোট চাচ্ছে। অন্যদিকে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থীদের এলাকায় যেতে বাধা দিচ্ছে পুলিশ ও আওয়ামী সন্ত্রাসীরা। ঘরোয়া বৈঠক করতে চাইলে সেখানে চলছে সশস্ত্র হামলা। বিএনপির লোক ঘরের ভেতর সভা করতে পারছে না। অথচ আওয়ামী লীগ নির্বাচন কমিশনের চোখের সামনে বড় বড় সমাবেশ করছে, নৌকার পক্ষে প্রচারণা চালাচ্ছে। নির্বাচনীবিধি ভঙ্গ করে সারাদেশ আওয়ামী লীগের ফেস্টুন, ব্যানার ও পোস্টারে ছেয়ে গেছে।

 তিনি বলেন, প্রশাসন ও পুলিশে কর্মরত বির্তর্কিত ও দলবাজ কর্মকর্তাদের প্রত্যাহার করতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশন বরাবর আবেদন করলে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সভায় বলেছেন, কোনো কর্মকর্তাকে বদলি করা হবে না। বিরোধী দলগুলোর পক্ষ থেকে বির্তকিতদের সরানোর আহ্বানের বিপরীতে সিইসির এ ধরনের বক্তব্যে দলবাজ কর্মকর্তাদের আরও বেপরোয়া করে তুলবে। তিনি অভিযোগ করেন, গতকাল নির্বাচন ভবনে উচ্চপদস্থ পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের বৈঠকে সিইসি কে এম নূরুল হুদার নির্দেশসমূহ এবং উপস্থিত কিছু পুলিশ কর্মকর্তার বক্তব্যে মনে হয় উভয়পক্ষই সরকারের অনুকূলে একতরফা নির্বাচনেরই একটা গোপন ছক তৈরি করে রেখেছে। এর আগে পুলিশ কমিশনার বলেছিলেন যে, তফশীল ঘোষণার পরে গায়েবি মামলা দেওয়া হবে না, অথচ এখন অব্যাহতভাবে গায়েবি মামলা দায়ের করা হচ্ছে বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে।

 এই বৈঠকে একজন নির্বাচন কমিশনার সারাদেশে পুলিশের দায়ের করা গায়েবি মামলা দায়েরের বিষয়ে তুমুল আপত্তি তুললেও সেটিকে গ্রাহ্য করা হয়নি। রিজভী বলেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক এমপি গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরী মিথ্যা মামলায় বৃহস্পতিবার জামিন নিতে গেলে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবেই তার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে এবং কারাবন্দি করা হয়েছে। বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী এহসানুল হক মিলনকে গত রাতে গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ। এছাড়া রুপনগর থানা বিএনপি নেতা মো. আবুল কাশেম, মোহাম্মদপুর থানা বিএনপি নেতা আব্দুর রহমান ও মো. মাসুমকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।