আঁখি আলমগীরের জন্মদিনে ভালোবাসাময় সন্ধ্যা

আঁখি আলমগীরের জন্মদিনে ভালোবাসাময় সন্ধ্যা

বিনোদন প্রতিবেদক : একজন আঁখি আলমগীরকে কে কতোটা ভালোবাসেন যেন তা প্রমাণেরই প্রতিযোগিতায় মেতে উঠেছিলেন সবাই গেলো ৭ জানুয়ারিতে আঁখি আলমগীরেরই জন্মদিনে। রাজধানীর গুলশানের ‘গুলশান ক্লাব’-এ আঁখি আলমগীরের জন্মদিনের বিশেষ আয়োজন করা হয়। জন্মদিনের বিশেষ অনুষ্ঠানে আঁখি আলমগীরকে শুভেচ্ছা জানাতে ও দোয়া করতে উপস্থিত হয়েছিলেন আঁখি আলমগীরের বাবা নায়ক, প্রযোজক, পরিচালক আলমগীর, তার ছোট বোন তুলতুল, আঁখির দুই মেয়ে ¯েœহা ও আারিয়া’সহ তার পরিবারের আরো অনেকে। বাংলাদেশের সংস্কৃতি অঙ্গনের অনেক তারকাও উপস্থিত হয়েছিলেন আঁখি আলমগীরকে শুভেচ্ছা জানাতে। স্বপ্নীল সজীবের উপস্থাপনায় নানান আঙ্গিকে আগত অতিথিরা আঁখি আলমগীরকে শুভেচ্ছা জানান  এবং আঁখি আলমগীরকে নিয়ে কিছু কথামালা তুলে ধরেন। আঁখি আলমগীরের বাবা নায়ক আলমগীর আঁখিকে নিয়ে বলেন,‘ দেখতে দেখতে সেই ছোট্ট মেয়েটিই এতো বড় হয়ে গেলো, টেরই পাইনি। ছোট বেলায় যেমন আঁখিকে আমি ধমক দিতাম, এখনো ধমক দেই-এইটা কেন করলে, ঐটা কেন করলে? তবে এই ধমকের মধ্যে ভালোবাসা আছে, আদর আছে, মায়া আছে। মহান আল্লাহর কাছে শুধু এতোটুক্ইু চাই আল্লাহ যেন তাকে সুস্থ রাখেন, ভালো রাখেন। সবাই আঁখির জন্য দোয়া করবেন।’ স্বপ্নীল সজীবের আহ্বানে এক সময় মঞ্চে এসে পুতুল গান শোনান সবাইকে।

 তারপর মঞ্চে আসেন প্রতীক হাসান ও কনা। তাদের দু’জনের গানে নেচে গেয়ে সবাইকে মুগ্ধ করেন চিত্রনায়ক ওমরসানী, অভিনেত্রী আশনা হাবিব ভাবনা ও চিত্রনায়িকা পূজা চেরী। জাজ’র কর্ণধার আব্দুল আজিজ আঁখি আলমগীরকে জন্মদিনের উপহার স্বরূপ তার নতুন সিনেমায় শওকত আলী ইমনের সুর সঙ্গীতে একটি প্লে-ব্যাক করার ঘোষণা দেন। আঁখি আলমগীরকে নানান সময়ে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে উপস্থিত হয়েছিলেন প্রযোজক নাসির উদ্দিন দিলু, কুমার বিশ্বজিৎ, সাদিয়া ইসলাম মৌ, ফরিদ আহমেদ, রিজিয়া পারভীন, তারিন, নিপুণ, এসডি রুবেল ও তার স্ত্রী, রবি চৌধুরী, ধ্রুব গুহ, কবির বকুল, শফিক তুহিন, মৌটুসী পার্থ, গাজী মাজহারুল আনোয়ারের ছেলে উপল, দিঠি আনোয়ার, দিনাত জাহান মুন্নী, জুয়েল মোর্শেদ, কণা, জেনি-তানভীর, কর্ণিয়া, পূজা, ইবরার টিপু, বিন্দু কণা, ইউসুফ, পুলক, কোনাল, ফারহানা নিশো, বাপ্পী চৌধুরী, প্রযোজক-প্রকাশক দেওয়ান হাবিবুর রহমান, সাংবাদিক মনিরুল ইসলাম, তুষার আদিত্য,  সৈকত সালাহ উদ্দিন, জাহিদ আকবর, নিপু বড়–য়া, আলী আফতাব, কামরুজ্জামান মিলু, লিমন আহমেদ, মিঠু হালদার, মনজুর কাদের জিয়া’সহ আরো অনেকে।

 প্রত্যেকের সঙ্গেই আলাদাভাবে চিত্রগ্রাহকদের ক্যামেরার ফ্রেমে বন্দী হন আঁখি আলমগীর। আবার যখন সবাই যার যার টেবিলে বসে খাওয়া দাওয়া করছিলেন সবাই, সবার কাছে গিয়েই সময় দেবার চেষ্টা করেছেন। সবাই নিজেদের কাছে কাছেই রাখতে চাচ্ছিলেন আঁখি আলমগীরকে। নিজেদের মোবাইলের ফ্রেমে বন্দী করার ভালোবাসাময় এক অন্যরকম চেষ্টাই যেন বারবার চলছিলো আঁখি আলমগীরকে ঘিরে। এই প্রতিযোগিতার মাঝ খান থেকে কখনো কখনো হঠাৎ হঠাৎ কেউ এসে আবার আঁখিকে নিয়ে ছুটে চলে যান হলের অন্য কোন প্রান্তে। এপাশ ওপাশ যেতে একটুও ক্লান্ত ছিলেন না আঁখি আলমগীর। আঁখি আলমগীর বলেন,‘ সবার উপস্থিতি, সবার ভালোবাসায় আমি মুগ্ধ। আজ নতুন করে নিজেকে আবিষ্কার করলাম যে সবাই আমাকে এত্তো ভালোবাসে। এর প্রতিদান কোনভাবেই আমার পক্ষে দেয়া সম্ভব নয়। আমার ভক্ত দর্শকের কাছে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা। কারণ তারা আমাকে ফেসবুকে শুভচ্ছো জানাচ্ছেন, দোয়া করছেন। এটা অনেক বড় আশীর্বাদ। সবার আশীর্বাদের ছায়া তলেই আমি থাকতে চাই সারাটা জীবন।’  ছবি ঃ আলিফ হোসেন রিফাত