অবশেষে জলবায়ু সম্মেলনে ঐকমত্য

অবশেষে জলবায়ু সম্মেলনে ঐকমত্য

বর্তমান পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দুর্যোগ জলবায়ু পরিবর্তন। এর ক্ষতিকর প্রভাব, তা পৃথিবীকে কতটুকু বিপর্যয়ের সম্মুখিন করবে, মানুষকে কতটা আশ্রয়হীন অথবা বিপর্যয়ের মুখে ফেলে দেবে তা জানতে আজ কারো বাকি নেই। গত কয়েক দশক ধরেই লক্ষ্যযোগ্য মাত্রায় তা জানান দিচ্ছে। উন্নত-অনুন্নত সব দেশই প্রকৃতির এ বিচিত্র আচরণের শিকার হচ্ছে প্রায় সমানভাবে। এ কারণে বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধিজনিত প্রাকৃতিক বিপর্যয় কীভাবে কমিয়ে আনা যায়, কীভাবে প্রকৃতির বিচিত্র আচরণকে সামাল দেয়া যায় এনিয়ে উদ্বিগ্ন রাষ্ট্র নেতাগণ, আহাওয়াবিদ, প্রকৃতিবিদ ও পেশাজীবীরা। বিশেষজ্ঞদের নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে জলবায়ু সম্মেলনে মিলিত হচ্ছেন তারা। বিভিন্ন কর্মপন্থা গ্রহণ করছেন। আশার কথা হল, সম্প্রতি শেষ হওয়া কপ-২৪ (পোল্যান্ড সম্মেলনে) ১৯৬টি দেশের প্রতিনিধিরা একটি সমঝোতায় পৌছেছে।

এতে বলা হয়েছে ২০১৮ সালের ডিসেম্বর নাগাদ গ্রিন হাউস গ্যাস নির্গমনের হার বাড়বে অন্তত ২ শতাংশ। ২০১৭ সালে বেড়েছিল ১.৬ শতাংশ। ডিসেম্বরের ৩১ তারিখ পর্যন্ত বিশ্বে গ্রিন হাউস গ্যাস নির্গমনের পরিমাণ দাঁড়াবে ৩৭১ গিগাটন। পোল্যান্ড সম্মেলনে বিশ্ব উষ্ণায়ন হ্রাসের ব্যাপারে একটি কমন রুলবুক তৈরি করা গেছে। নতুন এই বিধি অনুযায়ী উন্নয়নশীল দেশগুলি সহ সকল সদস্য দেশকেই নিয়মিতভাবে গ্রিনহাউস গ্যাস নি:সরণ হ্রাসে তাদের নেওয়া প্রচেষ্টার বিস্তারিত প্রতিবেদন জমা দিতে হবে। জলবায়ু পরিবর্তনের মতো এত বড় এবং বিশ্বব্যাপী প্রভাব বিস্তারকারী ইস্যু কারো একার পক্ষে মোকাবিলা করা সম্ভব নয়। এ জন্য প্রয়োজন সবার সমন্বিত উদ্যোগ। পোল্যান্ড সম্মেলনের সমঝোতা এ উদ্যোগের পথে বড় পদক্ষেপ। জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলার কাজটিতে অগ্রাধিকার দিতে হবে, সমঝোতা মাফিক কর্মসূচিকে এগিয়ে নিতে হবে।