অনুমতি ছাড়া হাসপাতালের তথ্য-ছবি তোলা ও প্রকাশ করা যাবে না

অনুমতি ছাড়া হাসপাতালের তথ্য-ছবি তোলা ও প্রকাশ করা যাবে না

দেশের সরকারি হাসপাতালগুলোর তথ্য সংগ্রহ এবং প্রকাশের ক্ষেত্রে বিধি-নিষেধ আরোপ করে দিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ।


তথ্য সংগ্রহের ক্ষেত্রে এবং সংবাদের বস্তুনিষ্ঠতার বিষয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে অবহিত করতে হবে। একইসঙ্গে হাসপাতালের ভেতরে বিনা অনুমতিতে কোনো চিত্র বা ভিডিও ধারণ করাও যাবে না।
 
স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ থেকে সরকারি সব স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে পাঠানো এক চিঠিতে রোববার (১২ জানুয়ারি) এসব নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।
 
দেশের কয়েকটি হাসপাতালে যন্ত্রপাতি এবং সরঞ্জমাদি কেনায় দুর্নীতির খবর প্রকাশের পর নানা সমালোচনার মধ্যে এই নির্দেশনা এলো।
 
‘সরকারি হাসপাতালের দর্শনার্থী ব্যবস্থাপনা’ শিরোনামের চিঠিতে এতে বলা হয়, গবেষণা, জরিপ অন্য কোনো তথ্য বা সংবাদ সংগ্রহের জন্য তথ্য সংগ্রহকারী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে অবহিত করবেন। সংগৃহীত তথ্য বা সংবাদের বস্তুনিষ্ঠতা বিষয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে অবহিত করবেন। বিনা অনুমতিতে হাসপাতালের ভেতরে রোগী বা স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রমের কোনো স্থিরচিত্র বা ভিডিওচিত্র ধারণ করতে পারবেন না। সংগৃহীত তথ্য প্রকাশের আগেই বস্তুনিষ্ঠতা বিষয়ে কর্তৃপক্ষের সম্মতি গ্রহণ করতে হবে।
 
চিঠিতে দর্শনার্থীদের প্রবেশের বিষয়েও সুনির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছে।
 
এতে বলা হয়, প্রত্যেক হাসপাতালে দর্শনার্থী পাস চালু করতে হবে এবং প্রতিটি পাসের জন্য নিরাপত্তা জামানত চালু করা যেতে পারে। রোগীর অসুস্থতা বিবেচনায় একজন রোগীকে সহায়তার জন্য সর্বোচ্চ দুইজন দর্শনার্থীকে পাস দেওয়া যেতে পারে। হাসপাতাল ত্যাগের আগেই পাস জমা দিয়ে নিরাপত্তা জামানত ফেরত নিতে পারবেন।
 
হাসপাতালের সব চিকিৎসক, নার্সসহ কর্মচারীদের বৈধ পরিচয়পত্র দৃশ্যমানভাবে ঝুলিয়ে রাখার বিষয়েও নির্দেশনা দেওয়া হয় চিঠিতে।
 
চিঠিতে আরো বলা হয়, আগত দর্শনার্থীদের জন্য পাস ইস্যু করার সময় নাম, ঠিকানা, মোবাইল নম্বর, পরিদর্শনের কারণ ইত্যাদি তথ্য সম্বলিত রেজিস্টার সংরক্ষণ করা যেতে পারে। দর্শনার্থী বিষয়ক নিয়মাবলী রোগী ও রোগীর সহায়তাকারীদের অবহিত করতে হবে। এছাড়া এসব নিয়মাবলী সহজে দৃষ্টিগোচর হয় এমন স্থানে প্রদর্শন করতে হবে।
 
চিঠিতে বলা হয়, দেশের সব সরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে মানসম্মত চিকিৎসা সেবা প্রদান সরকারের অন্যতম লক্ষ্য। প্রধানমন্ত্রীর গতিশীল নেতৃত্ব ও নির্দেশনায় এ খাতের অগ্রগতি বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত। মানসম্মত ও নিরাপদ চিকিৎসা প্রদান করতে হলে রোগীর সঙ্গে আগত দর্শনার্থীদের নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি। কেননা তাদের স্বাস্থ্য বিষয়ক অভিজ্ঞতা এবং জীবাণু সংক্রমণ রোধে করণীয় বিষয়ে সাম্যক জ্ঞানের অভাবে অধিকাংশ সময় কাঙ্ক্ষিত পরিবেশ বা পরিস্থিতির অবনতি হয়।
 
এছাড়া ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত দর্শনার্থী হওয়ায় হাসপাতালে নিরাপত্তা, পরিচ্ছন্নতা, ইউটিলিটি সার্ভিস, রোগীর গোপনীয়তায় এবং চিকিৎসা সেবীদের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হয় বলেও চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে।
 
নির্দেশনাটি স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক, দেশের সব সরকারি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, হাসপাতাল ও ক্লিনিকের পরিচালক, বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য), সিভিল সার্জন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাদের পাঠানো হয়েছে।