রেলক্রসিং নিরাপদ করুন

 রেলক্রসিং নিরাপদ করুন

নাটোরের ৫৬ কিলোমিটার রেলপথের অন্তত ২০টি স্থানে অরক্ষিত লেভেল ক্রসিং রয়েছে। এসব লেভেল ক্রসিংয়ে কোন গেট বা গেটম্যান না থাকায় ঝুঁকি নিয়ে পথচারীসহ যানবাহন চলাচল করছে। সতর্কীকরণ সাইন বোর্ড দিয়েই দায়িত্ব শেষ করছে রেল কর্তৃপক্ষ। দেশের রেলক্রসিংগুলো নিরাপদ নয়। নিরাপত্তার অভাবে প্রায়ই রেলক্রসিংয়ে দুর্ঘটনা ঘটে থাকে। তাতে করে অসংখ্য মানুষ প্রাণ হারায়। সহযোগী একটি দৈনিকের প্রতিবেদন অনুযায়ী দেশের পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মোট ১ হাজার ২৪৯টি রেলক্রসিংয়ের মধ্যে ১ হাজার ২৮টি রেলক্রসিং সম্পূর্ণ অরক্ষিত। এ অঞ্চলে সুরক্ষিত রেলক্রসিংয়ের সংখ্যা মাত্র ২২১টি। অন্যদিকে অরক্ষিত এসব রেলক্রসিংয়ের মধ্যে ৭৫৭টি অনুমোদন দিলেও আর্থিক সংকটের কারণে রেল কর্তৃপক্ষ এগুলোর সবকটিতে এখনো পাহারাদার নিযুক্ত করতে পারেনি। ফলে রেলক্রসিংগুলো নেই কোন গেটম্যান এমনকি এসব গেটে কোন গেট বেরিয়ারও নেই।

নেই ডিভাইস পদ্ধতির সিগন্যাল সিস্টেমও। ফলে ঝুঁকি নিয়ে যেমন রেলপথে চলছে রেল, তেমনিভাবে রেলক্রসিং পার হচ্ছে শত শত মানুষ ও যানবাহন। আর এই ঝুঁকির মুখে বেশ দৌড়ঝাঁপ দেখা যায়। কিন্তু তারপর আবারও পুরনো অবস্থায় ফিরে যায়। অরক্ষিত রেলক্রসিং যেমন সুরক্ষিত রেলক্রসিংয়েও যানবাহন চালকদের অসতর্কতা, সিগন্যাল না মানা, তেমনি ক্রসিংয়ের গেট লাগানোর পরও যানবাহন নিয়ে বেরিয়ে যাওয়ার চেষ্টার কারণে দুর্ঘটনা ঘটছে। আমরা মনে করি, অরক্ষিত রেলক্রসিংগুলোর সুরক্ষার উদ্যোগ নিতে হবে। এ ক্ষেত্রে রেলওয়ের যে আর্থিক অসঙ্গতি রয়েছে তা পূরণে প্রয়োজনীয় বরাদ্দের পাশাপাশি রেলক্রসিংগুলোতে পাহারাদার নিয়োগের ব্যবস্থা করা জরুরি।