ময়মনসিংহে যুবলীগ নেতা হত্যা: ধর্মমন্ত্রীর ছেলের বিরুদ্ধে মামলা

 ময়মনসিংহে যুবলীগ নেতা হত্যা: ধর্মমন্ত্রীর ছেলের বিরুদ্ধে মামলা

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি : ময়মনসিংহে যুবলীগ নেতা আজাদ হত্যায় অবশেষে আদালতের নির্দেশে এক মাস পর থানায় মামলা হয়েছে, যেখানে ধর্মমন্ত্রীর ছেলেকে প্রধান আসামি করা হয়। শুক্রবার রাতে আজাদ শেখের স্ত্রী দিলারা আক্তার বাদী হয়ে মামলা করেন বলে জানান কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি মাহমুদুল ইসলাম।  গত ৩১ জুলাই ময়মনসিংহ শহরের আকুয়া মহল্লায় মহানগর যুবলীগ সদস্য আজাদ শেখকে (৩২) কুপিয়ে ও গলাকেটে হত্যা করে প্রতিপক্ষের লোকজন।মামলায় ধর্মমন্ত্রীর ছেলে ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোহিতুর রহমান শান্তকে প্রধান আসামি করে ২৫ জনকে আসামি করা হয়।  এর আগে এ হত্যাকান্ডের বিচার ও আসামিদের গ্রেপ্তারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন, মানববন্ধন, রাস্তা অবরোধ, মৌন মিছিল, স্মারকলিপি প্রদানসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে আজাদ সমর্থকরা।

কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি মাহমুদুল ইসলাম বলেন, “মামলা নিতে বৃহস্পতিবার হাই কোর্ট নির্দেশ দিয়েছে। শুক্রবার রাতে ধর্মমন্ত্রীর ছেলে মোহিত উর রহমার শান্তকে প্রধান আসামি করে মামলা নেওয়া হয়।আজাদের বড় ভাই সালাহ উদ্দিন শেখ শামীম সাংবাদিকদের বলেন, আজাদ শেখ আগে শান্তর গ্রুপে রাজনীতি করতেন। কিন্তু শান্ত তাকে টেন্ডারবাজি ও মাদক ব্যবসা করতে বললে আজাদ গ্রুপ বদল করে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল এবং পৌর মেয়র ইকরামূল হক টিটু গ্রুপে যোগ দেন। “এতে ক্ষিপ্ত হয়ে শান্ত তাকে হত্যা পরিকল্পনা করেন এবং তার নির্দেশেই অনুগত সন্ত্রাসীরা এ হত্যাকান্ড ঘটায়।আজাদের স্ত্রী দিলারা আক্তার বলেন, “নিজ দলের নেতার নির্দেশেই আমার স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে। আজ মামলা করতে পেরে স্বস্তি পাচ্ছি। তবে নিরাপত্তা নিয়ে সংশয় বোধ করছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের নিরাপত্তাসহ আমার স্বামী হত্যার বিচার চাই।এ ব্যাপারে ধর্মমন্ত্রীর ছেলে মোহিত উর রহমার শান্ত বলেন, “প্রকাশ্য দিবালোকে হত্যকান্ড ঘটেছে। কারা কী করেছে পুলিশ সব জানে। এ মামলায় আমাকে ফাঁসানো হয়েছে।”