বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে দুদকের অনুসন্ধানে হস্তক্ষেপ করছে না সরকার: কাদের

 বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে দুদকের অনুসন্ধানে হস্তক্ষেপ করছে না সরকার: কাদের

বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দুদকের অনুসন্ধানে সরকার হস্তক্ষেপ করছে না বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।  বুধবার ধানমন্ডিতে প্রিয়াংকা কমিউনিটি সেন্টারে মুজিবনগর দিবস উদযাপন উপলক্ষে আওয়ামী লীগের প্রস্তুতি কমিটির বৈঠক শেষে তিনি এ সব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, এখানে সরকারের কোনো হাত নেই। দুদক তার নিয়মমাফিক কাজ করছে। বিএনপি নেতারা ১২৫ কোটি টাকার লেনদেন করেছে। তাদের এই লেনদেনের বিষয়ে তদন্ত করতেই বিএনপি নেতাদের ডেকেছে দুদক। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকেও দুদক তলব করেছে। এমনকি আওয়ামী লীগের এক এমপিকে দুদকের তদন্তের পর জেলে পাঠানো হয়েছে। সরকার তো কোনো হস্তক্ষেপ করেনি। কাদের বলেন, দুদক একটি স্বাধীন প্রতিষ্ঠান, স্বাধীনভাবে কাজ করছে। অতীতে কোনো সরকারের সময় রাষ্ট্রীয় কোনো প্রতিষ্ঠান স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারেনি। আসলে বিএনপি কথায় কথায় সরকারের হস্তক্ষেপ আবিষ্কার করে। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপি তো এখন আত্মস্বীকৃত দুর্নীতিবাজ দল। হঠাৎ করে দলের গঠনতন্ত্র থেকে ৭ ধারা বাদ দিয়েছে। এতে বলা ছিল দুনীতির দায়ে দণ্ডিতরা দলের নেতা হতে পারবেন না। এটা বাদ দিয়ে এখন দলটি আত্মস্বীকৃত দুনীতিবাজ দলে পরিণত হয়েছে।

যৌথসভায় ওবায়দুল কাদের ১৭ এপ্রিল ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবস যথাযথ মর্যাদায় পালন এবং মুজিবনগরের কর্মসূচিতে বিপুল জনসমাগম ঘটাতে সংশ্লিষ্ট জেলার নেতাদের নির্দেশ দেন। এছাড়া বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হওয়ায় আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে উৎসবমুখর কর্মসূচি নেওয়ারও ঘোষণা দেন। কেন্দ্রীয়ভাবে উদযাপনের পাশাপাশি জেলা, উপজেলা পর্যায়ে কর্মসূচি নেওয়ার আহ্বান জানান। যৌথ সভায় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম, মতিয়া চৌধুরী, সাহারা খাতুন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, এনামুল হক শামীম, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, দপ্তর সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ, আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা এবং মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গা ও কুষ্টিয়া জেলার নেতারা।