প্রধানমন্ত্রীর উপলব্ধি যথার্থ : রিজভী

 প্রধানমন্ত্রীর উপলব্ধি যথার্থ : রিজভী

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও এই সরকারের প্রতি ভোটারদের কোনো আস্থা নেই। এই কথাটা আমরা বারবার বলে আসছি। আমি মনে করি, শুক্রবার গণভবনে আওয়ামী লীগ পার্লামেন্টারি বোর্ডের সভায় ভাষণে নিজ দলের নেতা-কর্মীদের ভোটারদের আস্থা অর্জনসহ ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে বলার মধ্য দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এতোদিনে সেটা যথার্থই উপলব্ধি করেছেন।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন রিজভী। তিনি বলেন, লুটপাট, দখল, ডাকাতি, ব্যাংকের টাকা তছরুপ, খুন, জখম, বেআইনি হত্যা, গুম, সন্ত্রাসীদের লালন-পালন, ভোট জালিয়াতি এবং একের পর এক ভোটারবিহীন নির্বাচন করাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও এই সরকারের প্রতি ভোটারদের আস্থা শূন্যের কোঠায় চলে গিয়েছে। এখন প্রধানমন্ত্রী আর একটু উপলব্ধি করতে পারলে তা দেশের গণতন্ত্রের জন্য মঙ্গলজনক হবে। সেটি হলো- নিজের ক্ষমতা ছেড়ে দিয়ে নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করা। কেবলমাত্র তাহলেই ভোটারদের আস্থা কিছুটা ফিতে আসতে পারে। শেখ হাসিনা ক্ষমতা কুক্ষিগত রাখলে কখনোই অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে না বলে দাবি করেন এই বিএনপি নেতা।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, আওয়ামী লীগ পার্লামেন্টারি বোর্ডের ওই সভায় শেখ হাসিনা আরো বলেছেন- সামরিক একনায়করা নির্বাচনী কারচুপির মাধ্যমে জনগণের রায়কে ছিনিয়ে নিয়েছে। আমি বলতে চাই-অনেক সামরিক মহানায়কেরা আবার বেসামরিক ফ্যাসিস্টদের কাছ থেকে জনগণকে ক্ষমতা ফিরিয়ে দিয়েছেন, বহুদলীয় গণতন্ত্র কায়েম করেছেন। বাংলাদেশসহ পৃথিবীর দেশে দেশে এর দৃষ্টান্ত ভুরি ভুরি। সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের রাজনীতির পার্থক্য তুলে ধরেন রিজভী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন-বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা এবিএম মোশাররফ হোসেন, তাইফুল ইসলাম টিপু, বেলাল আহমেদ, শামসুজ্জামান সুরুজ, আমিনুল ইসলাম, মৎস্যজীবী দল নেতা আরিফুর রহমান তুষার প্রমুখ।