পরিবেশবান্ধব তন্তু পাট

 পরিবেশবান্ধব তন্তু পাট

বিশ্বব্যাপী পাটের সোনালী সুদিন ফিরে আসছে। পাট পণ্যের জাগরণ শুরু হয়েছে নতুন করে। প্লাস্টিক ও সিনথেটিক পণ্যের পরিবেশ বিধ্বংসী আগ্রাসন ঠেকাতে পাটের প্রতি মনোযোগী হয়ে উঠেছে বিশ্বের সচেতন মানুষ। ফলে, দেশের এক সময়ের প্রধান অর্থকরী ফসল পাটের কদর বাড়ছে বিশ্বব্যাপী। এক সময় বাংলাদেশের পাটের বাজার হিসেবে পরিচিত ছিল, ভারত, চীন ও পাকিস্তান। বর্তমানে সেই বাজার বিস্তৃত হয়েছে প্রায় ৬০টি দেশে। বাংলাদেশ এখন আর শুধু পাটের বস্তা উৎপাদনেই সীমাবদ্ধ নেই। নিরবচ্ছিন্ন গবেষণার মাধ্যমে এখন পাট থেকে ২৮৫ ধরনের পাট পণ্য দেশে-বিদেশে বিক্রি করে বাংলাদেশ। ১৭টি পণ্য মোড়কজাতে ‘ম্যান্ডেটরি প্যাকেজিং অ্যাক্ট’ বাস্তবায়ন করায় পাটের অভ্যন্তরীণ বাজার বেড়েছে কয়েকগুণ। পাট থেকে মিহি কাপড় তৈরির গবেষণায় দেশের বিজ্ঞানিরা অনেকটাই এগিয়ে গেছেন। পাট পাতার তৈরি চা রপ্তানি শুরু হয়েছে জার্মানিতে। জামালপুরে পাট পাতার চায়ের ফ্যাক্টরি প্রতিষ্ঠায় কাজ চলছে। বিশ্ববাজারে এই খাতের রপ্তানি আয় প্রতিনিয়ত বাড়ছে। চলতি ২০১৭-১৮ অর্থ বছরের প্রথম সাত মাসে (জুলাই-জানুয়ারি) পাট এবং পাটজাত পণ্য রপ্তানি থেকে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন হয়েছে প্রায় ৫ হাজার ৫২৬ কোটি টাকা। সিনথেটিক নিষিদ্ধ হওয়ার পর আমাদের অভ্যন্তরীণ বাজারেই এখন প্রতি বছর প্রায় ১০০ কোটি টাকার পাটের বস্তার অতিরিক্ত চাহিদা সৃষ্টি হয়েছে। সারা বিশ্বে প্রতি বছর ৫০০ বিলিয়ন পিস ব্যাগের চাহিদা আছে। এই বাজারের ২ শতাংশ যদি বাংলাদেশ ধরতে পারে, তাহলে দেশের পাট খাতের চেহারার আমূল পাল্টে যাবে। পরিবেশ বান্ধব তন্তু পাটের ব্যবহার বাড়াতে আমাদের আন্তর্জাতিক বাজারে প্রচারণার ব্যবস্থা নিতে হবে।