খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নিরপেক্ষ সরকার ইস্যু

জনমত জোরালো করতে ইফতারে গুরুত্ব বিএনপির

 জনমত জোরালো করতে ইফতারে গুরুত্ব বিএনপির

রাজকুমার নন্দী : বিএনপি চেয়ারপারসন কারাবন্দি বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলন এবং নির্বাচনকালীন নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকার ব্যবস্থার জন্য জনমত আরো জোরালো করতে ইফতার অনুষ্ঠানে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে বিএনপি। দলটি মনে করছে, এই দুই ইস্যুতে দাবি আদায়ে ভবিষ্যতে আন্দোলনের প্রয়োজন হতে পারে। সেজন্য ইফতার মাহফিলকে কেন্দ্র করে সংগঠন গুছিয়ে আন্দোলনের জন্য বিএনপিকে প্রস্তুত করতে চায় দলটির হাইকমান্ড। একইসঙ্গে এর মধ্য দিয়ে আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতিও নিতে চায় বিএনপি। তাই দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে রাজধানীতে ইফতারের কেন্দ্রীয় কর্মসূচি শেষে বিএনপির শীর্ষ নেতারা এখন তৃণমূলে যাচ্ছেন। স্থানীয় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীদের সাথে কথা বলে আন্দোলনের কৌশল প্রসঙ্গে মতামত নিচ্ছেন তারা। একইসঙ্গে আগামী নির্বাচন নিয়ে দলের বার্তাও তাদের কাছে পৌঁছে দিচ্ছেন। ঢাকার বাইরে কুমিল্লার লাকসামে স্থানীয় বিএনপির এক ইফতারে ইতোমধ্যে অংশ নিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। দলের অন্য শীর্ষ নেতারাও তৃণমূলে যাওয়ার প্রক্রিয়ায় রয়েছেন। তারা নিজ নির্বাচনী এলাকা ছাড়াও সাংগঠনিক প্রয়োজনে অন্য এলাকায়ও যাবেন। পুরো রমজানজুড়ে এই প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবে। এদিকে, জাতীয় নির্বাচনের আর মাত্র কয়েক মাস বাকি থাকায় রোজায় নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় ইফতার মাহফিল আয়োজনের মধ্য দিয়ে নিজেদের প্রার্থিতার কথা জানান দিচ্ছেন মনোনয়নপ্রত্যাশী বিএনপির তরুণ নেতারা।

জানতে চাইলে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু দৈনিক করতোয়াকে বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াসহ বিএনপির অনেক নেতা-কর্মী মিথ্যা মামলায় এখন কারাগারে আছেন। তাদের মুক্তি এবং নির্বাচনকালীন নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকার ব্যবস্থার জন্য আন্দোলনের প্রয়োজন হতে পারে। ইফতার মাহফিলকে কেন্দ্র করে সংগঠন গুছিয়ে ভবিষ্যৎ আন্দোলনের জন্য বিএনপিকে প্রস্তুত করা হচ্ছে। সেজন্য বিএনপির কেন্দ্রীয় এবং মনোনয়নপ্রত্যাশী তরুণ নেতারা এখন তৃণমূলে যাচ্ছেন। স্থানীয়ভাবে হামলা-মামলা-নির্যাতন অনেক কিছু আছে। কেন্দ্রীয় নেতারা সেগুলোর খোঁজ-খবর নিবেন এবং তাদেরকে  সহযোগিতা করবেন। এছাড়া সংগঠনে যদি কোনো পারস্পরিক মতভেদ থাকে, সেগুলোকে যতদূর সম্ভব মেকআপ করবেন। আগামী নির্বাচন নিয়ে তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের প্রস্তুত ও সজাগ করবেন। তিনি আরো বলেন, নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে বেগম খালেদা জিয়াকে নিয়েই আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে চায় বিএনপি।

বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল দৈনিক করতোয়াকে বলেন, এবারের ইফতারের মাধ্যমে দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি আরও জোরালো করা হচ্ছে। জেলা, মহানগর, উপজেলা, ইউনিয়ন পর্যায়ে ইফতার অনুষ্ঠান করা হচ্ছে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে যারা নির্বাচন করতে চায়, তারাও সবাই এবার এলাকায় যাচ্ছেন। এক কথায় এ ইফতার অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নেত্রীর মুক্তি ও নিরপেক্ষ সরকারের দাবি জোরালো হচ্ছে।

সাবেক মন্ত্রী-এমপির বাইরে নতুন করে অনেকেই এবার মনোনয়নপ্রত্যাশী বিএনপিতে। নিজ নির্বাচনী এলাকায় ইফতার মাহফিল আয়োজনের মধ্য দিয়ে নিজের প্রার্থিতার বিষয়টি জানান দিতে চান তারা। তরুণ নেতাদের মধ্যে বিএনপির সহ-দফতর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু নাটোর-১ (লালপুর ও বাগাতিপাড়া), মুনির হোসেন পটুয়াখালী-২ (বাউফল), সহ-প্রচার সম্পাদক আমিরুল ইসলাম খান আলিম সিরাজগঞ্জ-৫ (বেলকুচি ও চৌহালী), কেন্দ্রীয় নেতা আবদুল মতিন নওগাঁ-৪ (মান্দা), বদলগাছী উপজেলা বিএনপির সভাপতি ফজলে হুদা বাবুল নওগাঁ-৩ (মহাদেবপুর-বদলগাছী), বগুড়া জেলা বিএনপির শিশুবিষয়ক সম্পাদক মোশাররফ হোসেন চৌধুরী বগুড়া-১ (সারিয়াকান্দি ও সোনাতলা),  জেলা বিএনপির সদস্য মোশারফ হোসেন বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম), ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক রাজিব আহসান চৌধরী পাপ্পু ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ (নবীনগর) আসন থেকে দলের মনোনয়নপ্রত্যাশী। এবারের রমজানে তারা ঢাকা ছাড়াও নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় ইফতার পার্টি দিচ্ছেন। এ লক্ষ্যে অনেকেই ইতোমধ্যে নিজ এলাকায় অবস্থান করছেন। অনেকে আবার নির্বাচনী এলাকায় যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

জানতে চাইলে নওগাঁ-৩ আসন থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী বদলগাছী উপজেলা বিএনপির সভাপতি ফজলে হুদা বাবুল দৈনিক করতোয়াকে বলেন, প্রতি রমজানে নির্বাচনী এলাকায় তিনি একাধিক ইফতার মাহফিলের আয়োজন করে থাকেন। এরই ধারাবাহিকতায় এবারের রমজানেও মহাদেবপুর ও বদলগাছীর পাশাপাশি দুই উপজেলার অধীন ১৮টি ইউনিয়নেও পৃথকভাবে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করছি। এবারের রমজানে নিজ নির্বাচনী এলাকায় একাধিক ইফতার মাহফিলের আয়োজন করছেন বলে জানিয়েছেন বগুড়া-১ আসন থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী জেলা বিএনপির শিশুবিষয়ক সম্পাদক মোশাররফ হোসেন চৌধুরী। এ লক্ষ্যে আজ বৃহস্পতিবার নির্বাচনী এলাকায় যাচ্ছেন বলে জানান তিনি। বগুড়া-৪ আসন থেকে দলীয় মনোনয়নপ্রত্যাশী জেলা বিএনপির সদস্য মোশারফ হোসেন দৈনিক করতোয়াকে বলেন, এবারের রমজানে কাহালু ও নন্দীগ্রাম ছাড়াও দুই থানার ১৪টি ইউনিয়নে তিনি ইফতার মাহফিলের আয়োজন করছেন।

রমজানে অনেকে আবার নিজ নির্বাচনী এলাকায় এতিম শিক্ষার্থী এবং ছিন্নমূল মানুষদের নিয়ে ইফতার করছেন। এদের মধ্যে রয়েছেন ছাত্রদলের রাজিব আহসান চৌধুরী পাপ্পু। তিনি এবারের রমজানে নিজ নির্বাচনী এলাকার এতিম শিক্ষার্থী ও ছিন্নমূল মানুষদের নিয়ে ইফতার করবেন বলে দৈনিক করতোয়াকে জানিয়েছেন। এদিকে বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে থাকায় দলের বেশিরভাগ নেতা এবার নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় ঈদ করবেন বলে জানা গেছে।