খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় ঘাটতি কি, প্রশ্ন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

 খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় ঘাটতি কি, প্রশ্ন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

জেলকোড অনুযায়ী বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় সব ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। তিনি বলেছেন, জেলকোড অনুযায়ী জেলখানার বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের পরামর্শ অনুযায়ী যখন যা যা দরকার তার সবকিছু করা হচ্ছে। জেলের ডাক্তারদের প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী তাকে হাসপাতালেও নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এখানে চিকিৎসার ঘাটতির কি দেখলেন?  রোববার দুপুরে রাজধানীর তেজগাঁওয়ে বাংলাদেশ দলিল লেখক সমিতির নব নির্বাচিত কমিটির সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী একথা জানান।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতাল বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সরকারি হাসপাতাল, যেখানে সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা রয়েছে। সব বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা এখানে রয়েছেন। আপনারা এখানে ঘাটতির কি দেখলেন? তিনি বলেন, ডাক্তারদের পরামর্শ অনুযায়ী যখন যেটুকু প্রয়োজন জেলকোড অনুযায়ী সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। তার চিকিৎসার কোনো ঘাটতি হচ্ছে না। এর আগে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বকে সারা বিশ্ব সমীহ করছে। দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে শেখ হাসিনার বিকল্প শেখ হাসিনা। বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে তার বিকল্প নেই। আগামী নির্বাচনেও নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে শেখ হাসিনাকে নির্বাচিত করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, দেশকে যদি আবার অন্ধকারে নিমজ্জিত করতে না চান, আবার দুর্নীতিতে ডোবাতে না চান তাহলে নৌকার বিকল্প নেই, শেখ হাসিনার বিকল্প নেই।

দলিল লেখকদের বিভিন্ন দাবি-দাওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আপনারা বিভিন্ন দাবির কথা বলছেন। এটা শেখ হাসিনার বাংলাদেশ, এখানে যৌক্তিক সব দাবি মেনে নেওয়া হবে। শেখ হাসিনার বাংলাদেশে নো বলে কোনো শব্দ নেই। দেশের হতদরিদ্র মানুষ কোথায় গেলো এমন বিস্ময় প্রকাশ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দেশের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্ত চষে বেড়াচ্ছি। দারিদ্রতা আর দেখতে পাচ্ছি না। বর্তমানে ১২ শতাংশ মানুষ হতদরিদ্র রয়েছে, যা ২০১৯ সালের মধ্যে সিঙ্গেল ডিজিটে নেমে আসবে। গৃহ নাই বা না খেয়ে মানুষ মরে এমন দরিদ্রতো আর নেই।