এগোচ্ছে বাংলাদেশ

 এগোচ্ছে বাংলাদেশ

২০১৯ সালে বিশ্বের ৪১তম বৃহত্তম অর্থনীতির দেশে উন্নীত হয়েছে বাংলাদেশ। এ তালিকায় বাংলাদেশ গত এক বছরে দুই ধাপ এগিয়েছে। আর দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশ এখন দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ। এই ধারাবাহিকতায় ২০৩৩ সালের মধ্যে বাংলাদেশ ২৪তম স্থান দখল করে বিশ্বের শীর্ষ ২৫টি বৃহত্তম অর্থনীতির দেশের তালিকায় প্রবেশ করবে। আমাদের পেছনে থাকবে মালয়েশিয়া, সুইডেন, সুইজারল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, ভিয়েতনাম ও দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দেশ। আগামী ১৫ বছর দেশের মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি সাড়ে ৭ শতাংশ থাকবে। য্ক্তুরাজ্য ভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর ইকোনমিক্স অ্যান্ড বিজনেস রিসার্চ (সিইবিআর) প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এই সম্ভাবনার কথা বলা হয়েছে। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক লিগ টেবিল ২০১৯ শীর্ষক এই প্রতিবেদনে ১৯৩টি দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার চ্যালেঞ্জ ও সম্ভাবনার উল্লেখ আছে। গত ২৬ ডিসেম্বর এই প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়েছে। সাধারণত জিডিপির আকার বিবেচনায় এনে অর্থনীতির আকার নির্ধারণ করা হয়। গবেষণা প্রতিষ্ঠানটির প্রতিবেদনটি প্রস্তুত করা হয়েছে বাংলাদেশের বর্তমান অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হার সামনে রেখে। সেই অর্থে ২০৩২ সাল নাগাদ বাংলাদেশ বিশ্বের শীর্ষ ২৫টি অর্থনীতির একটি হবে কিনা তা প্রবৃদ্ধির বর্তমান ধারা অব্যাহত থাকা না থাকার ওপর নির্ভরশীল। সিইবিআর মনে করে, একুশ শতক হবে এশিয়ার শতক, ২০৩৩ সালে যুক্তরাষ্ট্রকে পেছনে ফেলে শীর্ষে উঠে যাবে চীন। এশিয়ায় আরো কিছু দেশ এগিয়ে যাবে। প্রতিবেদনে বলা হয়, এশিয়ার অন্য অনেক দেশের মতো আগামী ১৫ বছরে বাংলাদেশে তাৎপর্যপূর্ণ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ঘটবে। গত এক বছরে বাংলাদেশ ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক লিগ টেবিলের ৪৩তম স্থান থেকে ৪১তম স্থানে উঠে এসেছে। আগামী ১৫ বছরে বাংলাদেশ ১৯ ধাপ এগিয়ে যাবে। রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা থাকলে প্রবৃদ্ধির বর্তমান হার আরও বাড়বে - এমনটিই আশা করা যায়।