ঈদে টিকিট বিড়ম্বনা

 ঈদে টিকিট বিড়ম্বনা

আসন্ন ঈদে বাসের কাঙ্খিত সময়ের টিকিট দুই দিনেই শেষ। বিশেষ করে উত্তরবঙ্গগামী বাসের টিকিটে চলছে চরম আকাল। বিক্রির দ্বিতীয় দিন গত শনিবারই টিকিট শেষ হয়ে যাওয়ায় চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ভুক্তভোগী যাত্রীরা। তারা বলেছেন, কাউন্টারগুলিতে অন্যান্যবারের মত ভিড় না থাকলেও জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে টিকিট নেই। আর বড় বড় পরিবহন কোম্পানিগুলো বলছে, অধিকাংশ টিকিট অনলাইনে বিক্রি হয়ে গেছে। তাই এখন টিকিট দেওয়া যাচ্ছে না। অপরদিকে (গতকাল সোমবার) থেকে বিআরটিসি বাসের আগাম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। এছাড়া ঘোষনার আগেই লঞ্চের টিকিট বিক্রি শুরু হয়ে গেছে। সোমবার থেকে বিআরটিসির সংশ্লিষ্ট ডিপো হতে ঈদের আগাম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে এবং ১০ জুন পর্যন্ত ঈদ স্পেশাল সার্ভিসের এই বাস চলাচল করবে। ঈদ উপলক্ষে কবে থেকে লঞ্চের কেবিনের আগাম টিকিট বিক্রি শুরু হয়ে গেছে। রেল ও বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি নিয়ে আমাদের পূর্ব অভিজ্ঞতা খুব একটা সুখকর নয়। প্রায় প্রতিবছরই এমনটি দেখা গেছে। অগ্রিম টিকিট বিক্রির একদিনের মধ্যেই সব টিকিট নিঃশেষ।

এমনকি রেলের অগ্রিম টিকিট বিক্রির দিন থেকেই কাউন্টারে টিকিট পাওয়া যায়নি। অথচ একই সময়ে কালোবাজারে অধিক মূল্যে টিকিট বিক্রি হয়েছে। এতে প্রিয়জনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ উপভোগ করার আশা দুরাশায় পরিণত হয়। এ দেশে ঈদ, পূজা-পার্বনে ঘরমুখো মানুষের স্রোত নতুন কিছু নয়। প্রতিবছর সরকার উদ্যোগ নেয়, এরপরও যাত্রীদের কেন বিড়ম্বনার শিকার হতে হবে-এটাও আমাদের প্রশ্ন। প্রতিবছরই আমরা লক্ষ্য করি, ঈদ এলে বাস, রেল, লঞ্চের অগ্রিম টিকিট উধাও হয়ে যায়। আবার চড়া মূল্যে কালোবাজারিদের কাছ থেকে টিকিট সংগ্রহও করা যায়। আমরা মনে করি, ঘরমুখো যাত্রীদের বছরের পর বছর একই ধরনের অরাজকতার অবসান হওয়া দরকার। যাত্রী বিড়ম্বনা নিশ্চিতে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের ক্ষেত্রে সরকারের আন্তরিক ও অনড় অবস্থানই দেশবাসীর প্রত্যাশা।