সকাল ৮:০৭, বুধবার, ১৮ই অক্টোবর, ২০১৭ ইং
/ ফুটবল

ফুটবল

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ
রিয়াল মাদ্রিদ-টটেনহাম
সরাসরি, রাত ১২.৪৫ মি.
সনি টেন ২
স্পার্টাক-সেভিয়া
সরাসরি, রাত ১২.৪৫ মি.
সনি ইএসপিএন
মারিবোর-লিভারপুল
সরাসরি, রাত ১২.৪৫ মি.
সনি টেন ১
ম্যানসিটি-নাপোলি
সরাসরি, রাত ১২.৪৫ মি.
সনি টেন ৩

কাবাডি

ইন্ডিয়ান প্রো কাবাডি লিগ
ব্যাঙ্গালুর-যোদ্ধা
সরাসরি, রাত ৮.২০ মি.
পুনেরি-হারিয়ানা
সরাসরি, রাত ৯.৩০ মি.
স্টার স্পোর্টস ২

র‍্যাংকিংয়ের শীর্ষে জার্মানি, দুইয়ে ব্রাজিল

ফিফা র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন জার্মানি। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে নেইমারের ব্রাজিল। আর বাছাইপর্বে দারুণ পারফরম্যান্সের পুরস্কার স্বরূপ প্রথমবারের মত শীর্ষ দশে জায়গা করে নিয়েছে পেরু।

এবারের ফিফা র‌্যাংকিংয়ে প্রভাব পড়েছে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচগুলোর। ইউরোপ অঞ্চলে বিশ্বকাপ বাছাইয়ে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপের টিকিট নিশ্চিত করেছে জার্মানি। ফিফা র‌্যাংকিংয়েও এক নম্বর স্থানটা আছে বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের দখলেই।

দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের বাছাইপর্বে দাপট ছিলো ব্রাজিলের। র‌্যাংকিংয়ের দুই নম্বর স্থানটা সেলেসাওদের দখলেই আছে। রোনালদোর পর্তুগাল আছে তিন নম্বর স্থানে।

এবার রাশিয়া বিশ্বকাপে খেলা অনেকটা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছিলো আর্জেন্টিনার। তবে শেষ পর্যন্ত শেষ ম্যাচে এসে কপাল খুলেছে মেসিদের। আলবিসেলেস্তেদের অবস্থান র‌্যাংকিংয়ের চারে। পঞ্চম, ষষ্ঠ ও সপ্তম স্থানে আছে যথাক্রমে বেলজিয়াম, পোল্যান্ড ও ফ্রান্স। তিন ধাপ এগিয়ে আট নম্বরে আছে স্পেন

বিশ্বকাপের টিকিট না কাটতে পারলেও দুই ধাপ উন্নতি হয়ে চিলি আছে নবম স্থানে। এছাড়া নিজেদের ফুটবল ইতিহাসে প্রথমবারের মত দশ নম্বর স্থানে জায়গা করে নিয়েছে পেরু।

ফুটবল ক্যারিয়ায়ের ইতি টানলেন কাকা

আগেই ঘোষণা দিয়েছিলেন ওরল্যান্ডো সিটির সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ বাড়াবেন না। তাই এমএলএসে কলম্বাস ক্রিউ-য়ের বিপক্ষে ম্যাচটি ছিলো তার ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচ। আর ওই হার দিয়েই দীর্ঘ ১৬ বছরের ফুটবল ক্যারিয়ায়ের ইতি টানলেন কাকা।

নিজের শেষ ম্যাচে মাঠে নামার আগে আবেগঘন হয়ে পড়েন ৩৫ বছর বয়সী এই ফুটবলার। মাঠের খেলাতে অবশ্য তার কোনো ছাপ পড়েনি। দারুণ পেশাদারিত্বের পরিচয় দিয়ে খেলেছেন ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচ।

তবে বিদায়টা হাসি মুখে নিতে পারেন নি। ওলা কামারার একমাত্র গোলে ১-০ ব্যবধানের হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় কাকা’র দলকে। এদিন কাকাকে সম্মাননা জানায় পুরো ওরল্যান্ডো সিটি ক্লাব।

বর্ণাঢ্য ক্লাব ক্যারিয়ারে রিয়াল মাদ্রিদ ও এসি মিলানের মত ক্লাবে খেলেছেন কাকা। জিতেছেন উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগও। ২০০৭ সালে ফিফার বর্ষসেরা ফুটবলারও নির্বাচিত হন ২০০২ সালের ব্রাজিলের হয়ে বিশ্বকাপ জেতা এই ফুটবলার।

ভক্তদের সুখবর দিলেন মেসি

আর্জেন্টিনাকে রাশিয়া বিশ্বকাপে সরাসরি খেলার সুযোগ তৈরি করে এক প্রকার বিশ্বজয় করেছেন লিওনেল মেসি। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে এখনও চলছে মেসি বন্দনা।

দারুণ এক হ্যাটট্রিকে আর্জেন্টিনাকে বিশ্বকাপের টিকিট দেওয়ার পর বার্সেলোনার জার্সিতে নিজেকে রাঙাতে পারেননি মেসি। অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে লা লিগায় ম্যাচ ড্র করে মেসিরা। সুয়ারেজের শেষ মুহূর্তের গোলে হার এড়ায় বার্সেলোনা। তবে ম্যাচের ফলাফলে বার্সেলোনা সন্তুষ্ট। কারণ ২২ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলে এখনও শীর্ষে। দুইয়ে থাকা চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদ থেকে ৫ পয়েন্ট এগিয়ে তারা।


বার্সেলোনাকে জয় উপহার দিতে না পারলেও ভক্তদের দারুণ এক সুখবর দিয়েছেন ফুটবল জাদুকর। তৃতীয় সন্তানের বাবা হতে যাচ্ছেন লিওনেল মেসি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মেসি জানিয়েছেন তার স্ত্রী আন্তোনেল্লা রোকুজ্জো অন্তঃসত্ত্বা।

আন্তোনেল্লা রোকুজ্জো ইন্সটাগ্রামে লিখেছেন,‘পাঁচজনের পরিবার।’ ২৫ বছরের প্রেমের পর চলতি বছরের ৩০ জুন বিয়ের পিঁড়িতে বসেন মেসি ও রোকুজ্জো। রোজারিওর একটি বিলাসবহুল হোটেলে ঘটা করেই বিয়ের এই অনুষ্ঠান সারেন মেসি। তাদের বিয়ে ‘শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ বিয়ে’ খেতাব অর্জন করে। বিয়ের পিড়িতে বসার আগেই এই জুটি ২০০৮ সাল থেকে একসঙ্গে থাকা শুরু করেন। তাদের ঘরে আছে দুই ছেলে, থিয়াগো ও মাতেও। থিয়াগোর বয়স চার বছর। মাতেও সেপ্টেম্বরে দুই বছর পূর্ণ করেছে। বিয়ের চার মাসের মধ্যেই নতুন সন্তান আগমণের বার্তা দিয়েছেন মেসি ও রোকুজ্জো।

নাটকীয় জয়ে শীর্ষস্থান অক্ষুন্ন রাখল পিএসজি

পিএসজির জালে হঠাৎ গোল করে বসে ডিজন এফসিও। ম্যাচের ৮৭ মিনিটে গোল খেয়ে হকচকিয়ে যায় পিএসজি। ম্যাচে ১-১ গোলে সমতা।

আবারও কি ড্রয়ের স্বাদ পেতে হবে? ম্যাচের আছে মাত্র ৩ মিনিট। অতিরিক্ত সময় কত মিনিটের তাও তখন জানা নেই। ৯০ মিনিটের পর ৩ মিনিট অতিরিক্ত সময় পেল পিএসজি। তাতেই বাজিমাত। দ্বিতীয় মিনিটে গোল করে পিএসজিতে লিগের অষ্টম জয়ের স্বাদ দিলেন থমাস মুনিয়ের। ঘরের মাঠে ২-১ গোলে জয় পায় পিএসজি।

এ জয়ে চলতি মৌসুমে লিগে জয়ের রেকর্ড অক্ষুন্ন রেখেছে পিএসজি। পাশাপাশি পয়েন্ট তালিকার শীর্ষেও রয়েছে তারা। ৯ ম্যাচে ৮ জয় নিয়ে ২৫ পয়েন্ট অর্জন করেছে নেইমার-কাভানিরা। তাদের থেকে ৬ পয়েন্ট পিছিয়ে মোনাকো।

কাভানিকে ছাড়া মাঠে নেমে ফিনিশারের অভাব অনুভব করে পিএসজি। ম্যাচের শুরু থেকে একাধিক গোল মিস করেন ফরোয়ার্ডরা। প্রথমার্ধ গোলশূন্য থাকার পর দ্বিতীয়ার্ধের ৭০ মিনিটে বেলজিয়ামের তারকা থমাস মুনিয়ের গোল করে দলকে এগিয়ে নেন। নেইমারের নেওয়া শট ফিরে আসার পর তাতে শট নেন মুনিয়ের। দ্বিতীয়বার ডিজনের গোলরক্ষক বল ফেরাতে পারেনি। লিড পেয়ে সাচ্ছ্বন্দ্যেই ছিল পিএসজি।

কিন্তু ৮৭ মিনিটে ৩০ গজ দূর থেকে শট নিয়ে গোল করেন বেনজামিন জেয়োনট। দারুণ ভলিতে বল লক্ষ্যভেদ করেন জিয়োনট। এরপর পিএসজির ত্রাতা হয়ে অতিরিক্ত সময়ে গোল করেন থমাস মুনিয়ের

প্রথম হারের স্বাদ নিল চট্টগ্রাম আবাহনী

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ ফুটবলে আজ শুক্রবার হাইভোল্টেজ ম্যাচে মুখোমুখি হয় ঢাকা আবাহনী ও চট্টগ্রাম আবাহনী। দুই আবাহনীর হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের ম্যাচে জয় পেয়েছে ঐতিহ্যবাহী ঢাকা আবাহনী। তারা ১-০ গোলে হারিয়েছে চট্টগ্রাম আবাহনীকে। লিগের একাদশ রাউন্ডে এসে প্রথম হারের স্বাদ পেল চট্ট্রলার দলটি। 

আগের দশ ম্যাচে মাঠে নেমে ৮টিতে জিতেছিল, ড্র করেছিল ২টিতে। অবশ্য প্রথম হারের স্বাদ নিলেও পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থানটি চট্টগ্রাম আবাহনীর দখলেই রয়েছে। ১১ ম্যাচ থেকে ২৬ পয়েন্ট নিয়ে সবার উপরে তারা। ২৪ করে পয়েন্ট সংগ্রহ করে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব ও ঢাকা আবাহনী যথাক্রমে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে রয়েছে।

শুক্রবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে প্রথমার্ধে গোলের দেখা পায়নি কোনো দল। অবশ্য উভয় দলই বেশ কিছু সুযোগ পেয়েছিল। প্রথমার্ধের শেষ দিকে নাবীব নেওয়াজ জীবনের নেওয়া হেড মিস হয়। তার পর পরই নাসিরউদ্দিন চৌধূরীর নেওয়া হেড ক্রসবারের ওপর দিয়ে বাইরে চলে যায়। তাতে গোলশূন্য ড্রয়ে শেষ হয় প্রথমার্ধের খেলা।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই এগিয়ে যাওয়ার বেশ কিছু সুযোগ পেয়েছিল দ্রাগো মামিচের ঢাকা আবাহনী। কিন্তু কোনোটিই গোলে রূপান্তরিত হয়নি। ম্যাচের ৭৮ মিনিটে জয়সূচক গোলটির দেখা পায় আকাশী-নীল জার্সিধারীরা। এ সময় ডান দিক থেকে রায়হানের থ্রো থেকে বল পেয়ে যান নাসিরউদ্দিন। তিনি হেড দিয়ে বল জালে জড়ান। এগিয়ে যায় আবাহনী। বাকি সময়ে ঢাকা আবাহনীকে আর ছুঁতে পারেনি চট্টগ্রাম আবাহনী। ফলে ১-০ ব্যবধানের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে দ্রাগো মামিচের শিষ্যরা।

এদিকে শুক্রবার দিনের প্রথম ম্যাচে ফরাশগঞ্জ স্পোর্টিং ক্লাবকে ৫-০ গোলে হারায় শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব। ম্যাচে শেখ জামালের খেলোয়াড় রাফায়েল ওডোইন হ্যাটট্রিকসহ চার গোল করেন।

রাশিয়া বিশ্বকাপে রোনালদোর বিশ্বরেকর্ড গড়ার হাতছানি

পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থেকে রাশিয়া বিশ্বকাপের টিকিট পেয়েছে পতুর্গাল। শেষ ম্যাচে সুইজারল্যান্ডকে ২-০ ব্যবধানে হারিয়ে শীর্ষে উঠে পর্তুগাল। দুই দলই সমান ২৭ পয়েন্ট অর্জন করেছিল। তবে গোল ব্যবধানে এগিয়ে থেকে পর্তুগাল শীর্ষে উঠে এবং সরাসরি বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে।

পর্তুগালকে বিশ্বকাপে উঠানোর বড় কৃতিত্ব দলটির সেরা তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর। ইউরোর বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা কোয়ালিফাইং রাউন্ডে দারুণ পারফরম্যান্স করেছিল। এ সাফল্যের রূপকার ছিলেন রোনালদো।

২০০৩ সালে পর্তুগালের জার্সি গায়ে জড়ানোর পর থেকে পুরো দলটিকে পাল্টে দিয়েছেন রোনালদো। গত ১৪ বছরে পর্তুগাল মেজর টুর্নামেন্টগুলোর নিয়মিত মুখ। এর আগে ৭৩ বছরেও এতো বড় সাফল্য ছিল না। ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে অষ্টমবারের মতো মেজর কোনো টুর্নামেন্ট খেলতে যাচ্ছেন রোনালদো। এর আগে ৭৩ বছরে মাত্র ছয়বার মেজর টুর্নামেন্ট খেলেছিল পর্তুগাল। এর মধ্যে ১৯৩০ সালে বিশ্বকাপও রয়েছে।

রাশিয়া বিশ্বকাপে নতুন এক বিশ্বরেকর্ড গড়ার অপেক্ষায় ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। আগের সাত টুর্নামেন্টের প্রত্যেকটিতেই রোনালদো গোলের স্বাদ পেয়েছেন। রাশিয়া বিশ্বকাপে একটি গোল করলেই প্রথম ফুটবলার হিসেবে টানা আট মেজর টুর্নামেন্টে গোল করার কীর্তি গড়বেন সিআর সেভেন। এর আগের তিন বিশ্বকাপ এবং চার  ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে রোনালদো ১২ গোল করেছেন।

২০০৪ ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপে পর্তুগালের হয়ে প্রথম গোল করেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। গ্রিসের বিপক্ষে গোল করেও দলকে জয়ের স্বাদ দিতে পারেননি। ওই টুর্নামেন্টের ফাইনালে গ্রিসের কাছেই হেরেছিল পর্তুগাল। পুচকে রোনালদোর কান্নাভেজা মুখ এখনও ফুটবলপ্রেমীদের চোখে লেগে আছে। ২০০৪ ইউরোর সেমিফাইনাল ম্যাচে নেদারল্যান্ডের বিপক্ষে গোল পেয়েছিলেন রোনালদো।

২০০৬ বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে অংশ নেন রোনালদো। ইরানের বিপক্ষে নিজের দ্বিতীয় ম্যাচে লক্ষ্যভেদ করেন রোনালদো। ২০০৮ ইউরো এবং ২০১০ বিশ্বকাপে একটি করে গোলের স্বাদ পান চারবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী রোনালদো। সময়ের সঙ্গে রোনালদো হয়েছেন আরও পরিণত, আরও উন্নত।

২০১২ ইউরোতে রোনালদো তিন গোল করে দলকে শিরোপা দিতে পারেননি। কিন্তু ২০১৬ সালে স্বপ্নের মতো কাটে ৩২ বছর বয়সি এ ফুটবলারের। দলকে শিরোপা জেতানোর পাশাপাশি তিন গোল করেছিলেন। মাঝে ব্রাজিল বিশ্বকাপেও পেয়েছিলেন এক গোল।

ক্লাবের সাফল্যের পাশাপাশি জাতীয় দলের জার্সিতে রোনালদোর অবদান কম নয়। সর্বকালের সেরা ফুটবলারের খেতাব রোনালদো পেয়েছেন বহু আগেই। এবার রাশিয়া মঞ্চে নিজের শ্রেষ্ঠত্ব আরেকবার দেখানোর পালা। একটি গোল রোনালদোর সাফল্যের মুকুটে এনে দিবে নতুন পালক। রোনালদো ভক্তরা সেই মাহেন্দ্রক্ষণের অপেক্ষায়। কীর্তিমানের কীর্তি দেখার অপেক্ষায় রাশিয়াও।

রাশিয়া বিশ্বকাপের পর অবসরে মাসচেরানো

অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন হাভিয়ের মাসচেরানো। ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপের পর আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসরে যাবেন আর্জেন্টিনার এই রক্ষণাত্মক মিডফিল্ডার।

বাছাইপর্বের শেষ ম্যাচে গত মঙ্গলবার রাতে লিওনেল মেসির হ্যাটট্রিকে ইকুয়েডরকে ৩-০ গোলে হারিয়ে সরাসরি রাশিয়া বিশ্বকাপের টিকিট নিশ্চিত করে দুবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা।

মাসচেরানো আর্জেন্টিনার হয়ে এখন পর্যন্ত ১৩৯ ম্যাচ খেলছেন। দেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলার রেকর্ড থেকে আর চার ম্যাচ দূরে আছেন ৩৩ বছর বয়সি তারকা। ১৪৩ ম্যাচ খেলে রেকর্ডটা প্রাক্তন ডিফেন্ডার হাভিয়ের জানেত্তির।

অবসর নিয়ে বৃহস্পতিবার আর্জেন্টাইন টিভি চ্যানেল টিওয়াইসি স্পোর্টসকে মাসচেরানো বলেছেন, ‘রাশিয়াতে জাতীয় দলের হয়ে আমার চক্র পূর্ণ হবে। এটাই আমার ক্যারিয়ারের শেষ বিন্দু।’

রাশিয়া বিশ্বকাপে দলে জায়গা পেতে আশাবাদী বার্সেলোনার এই ডিফেন্ডার। তবে সিদ্ধান্তটা তিনি কোচ হোর্হে সাম্পাওলির ওপরই ছেড়ে দিতে চান, ‘এসব সিদ্ধান্ত কোচই নেন এবং তিনিই ঠিক করবেন আমি রাশিয়ায় যাব কি না।’

‘এই ছয়-সাত মাস আমি নিজেকে প্রস্তুত করার চেষ্টা করব। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন সাম্পাওলি। আমি কোচের সিদ্ধান্তকে যথেষ্ট সম্মান করি’- বলেন মাসচেরানো।

আর্জেন্টিনা-ব্রাজিলের সঙ্গে বিশ্বকাপে যারা

সবার আগে লাতিন আমেরিকা অঞ্চল থেকে বিশ্বকাপ নিশ্চিত করেছে ব্রাজিল। এরপর বাছাই পর্বের শেষ ম্যাচে এসে জানা গেল বাকি দলগুলোর নাম। সেলেসাওদের সঙ্গে সরাসরি বিশ্বকাপে জায়গা পেয়েছে উরুগুয়ে, আর্জেন্টিনা ও কলম্বিয়া। আর পঞ্চম দল হিসেবে পেরুর আশা টিকে আছে প্লে অফ ভাগ্যের ওপর।

 

ব্রাজিল:

এ বছরের ২৮ মার্চ প্রথম দল হিসেবে লাতিন আমেরিকা থেকে রাশিয়ার টিকিট নিশ্চিত করে ব্রাজিল। আরও স্পষ্ট করে বললে স্বাগতিক রাশিয়ার পর প্রথম দল হিসেবে সেলেসাও নিশ্চিত করে বিশ্বকাপ। তাই বিশ্বকাপ নিয়ে তাদের চিন্তা মোটেও ছিল না শেষ ম্যাচে, যেখানে তারা মুখোমুখি হয়েছিল চিলির। উল্টো ৩-০ গোলে জিতে বিশ্বকাপ স্বপ্ন শেষ করে দিয়েছে তারা কোপা আমেরিকা চ্যাম্পিয়নদের। শীর্ষে থেকে বাছাই পর্ব শেষ করা ব্রাজিলের ১৮ ম্যাচে পয়েন্ট ৪১।

উরুগুয়ে:

পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে থেকে বাছাই পর্বের মিশন শেষ করেছে উরুগুয়ে। যাতে সরাসরি পেয়েছে বিশ্বকাপের টিকিট। শেষ ম্যাচে নামার আগে তাদের নিশ্চিত ছিল প্লে অফ। তবে বলিভিয়াকে ৪-২ গোলে হারিয়ে সরাসরিই পেয়েছে মূল আসরের টিকিট। ১৮ ম্যাচ শেষে উরুগুয়ের পয়েন্ট ৩১।

আর্জেন্টিনা:

কঠিন সমীকরণ সামনে রেখে ইকুয়েডরের মাঠে নেমেছিল আর্জেন্টিনা। তা থাকবেই বা না কেন! শেষ ম্যাচের আগে পয়েন্ট টেবিলে তারা ছিল ষষ্ঠ স্থানে, সেই তারাই বাছাই পর্ব মিশন শেষ করলো তিন নম্বরে থেকে। লিওনেল মেসির দুর্দান্ত হ্যাটট্রিকে আলবিসেলেস্তেরা ৩-০ গোলে হারায় ইকুয়েডরকে। একই সঙ্গে অন্য দলগুলোর ফলও আসে তাদের পক্ষে। যাতে ১৮ ম্যাচ শেষে ২৮ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় হয়ে সরাসরি বিশ্বকাপে জায়গা করে নিয়েছে দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

কলম্বিয়া:

ব্রাজিলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতেই পারে কলম্বিয়া। চিলিকে সেলেসাওরা হারিয়ে দেওয়ায় পেরুর সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেও সরাসরি বিশ্বকাপের টিকিট পেয়েছে হোসে পেকারম্যানের দল। পেরুর সঙ্গে ড্র করায় চিলি যদি ব্রাজিলের সঙ্গে পয়েন্ট ভাগাভাগিও করতো, তাতেও সরাসরি বিশ্বকাপে সুযোগ পেতো না কলম্বিয়া। ১৮ ম্যাচ শেষে ২৭ পয়েন্ট নিয়ে তাই রাশিয়ার টিকিট পেয়েছে তারা।

পেরু: (প্লে অফ)

কলম্বিয়ার চেয়েও ব্রাজিলের প্রতি বেশি কৃতজ্ঞ থাকবে পেরু। চিলিকে যে তাদের ‘কাঙ্খিত’ ব্যবধানেই হারিয়েছে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। শেষ রাউন্ডের ম্যাচ শেষে পেরু ও চিলির সমান ২৬ পয়েন্ট। কিন্তু  ব্রাজিলের বিপক্ষে ৩-০ গোলে চিলি (-১) হেরে যাওয়ায় গোল ব্যবধানে এগিয়ে থেকে পঞ্চম স্থান পায় পেরু (+১)। তাই ঘরের মাঠে কলম্বিয়ার সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেও বেঁচে আছে পেরুর বিশ্বকাপ আশা। প্লে অফে নিউজিল্যান্ড বাধা পেরোতে পারলেই রাশিয়া বিশ্বকাপ।

লাতিন আমেরিকা অঞ্চলের পয়েন্ট টেবিল:

স্থান

দল

ম্যাচ

জয়

ড্র

হার

গোল পক্ষে

গোল বিপক্ষে

গোল ব্যবধান

পয়েন্ট

১.

ব্রাজিল

১৮

১২

৪১

১১

+৩০

৪১

২.

উরুগুয়ে

১৮

৩২

২০

+১২

৩১

৩.

আর্জেন্টিনা

১৮

১৯

১৬

+৩

২৮

৪.

কলম্বিয়া

১৮

২১

১৯

+২

২৭

৫.

পেরু

১৮

২৭

২৬

+১

২৬

৬.

চিলি

১৮

২৬

২৭

-১

২৬

৭.

প্যারাগুয়ে

১৮

১৯

২৫

-৬

২৪

৮.

ইকুয়েডর

১৬

১০

২৬

২৯

-৩

২০

৯.

বলিভিয়া

১৮

১২

১৬

৩৮

-২২

১৪

১০.

ভেনিজুয়েলা

১৮

১০

১৯

৩৫

-১৬

১২

বিশ্বকাপে চোখ মেসির

লিওনেল মেসি আগেই জানিয়েছিলেন রাশিয়া বিশ্বকাপে যেতে না পারলে আর্জেন্টিনাকে মানসিক যাতনায় ভুগতে হবে। যদিও শেষ পর্যন্ত তেমনটি আর হয়নি। ইকুয়েডরকে ৩-১ গোলে হারিয়ে হয়েছেন হ্যাটট্রিক হিরো। আর এই জয় থেকেই প্রেরণা নিচ্ছেন বিশ্বকাপ জয়ের। একেবারে পাখির চোখ করেছেন রাশিয়া বিশ্বকাপে, ‘আগে বিশ্বকাপ ও কোপা আমেরিকায় যা হয়েছে সেটা ন্যায্য ছিল না। এমনকি এই বিশ্বকাপে জায়গা পেতেও অনেক  ভুগতে হয়েছে। তবে আশা করছি আমরা আবারও সবার জন্য সেটা জিততে পরাবো।’ 

 

ম্যাচে উচ্চতা নিয়ে আগে থেকেই ভয় ছিল মেসিদের। এ নিয়ে আর্জেন্টাইন তারকা জানালেন, ‘এখানে সব সময় খেলতে আসার একটা ভয় থাকে। ভাগ্যক্রমে আমরা ভালোভাবেই কাটিয়ে উঠেছি। একই সঙ্গে ভালো খেলতেও পেরেছি।’

খেলা শুরুর আগে অনেক সমীকরণ নিয়ে খেলতে নেমেছিল আর্জেন্টিনা। পয়েন্ট টেবিলে ছিল ষষ্ঠ স্থানে। অথচ খেলা শুরুর ৩৮ সেকেন্ডে মনে হচ্ছিল আর্জেন্টিনার জাল কাঁপিয়ে প্লে অফে খেলার আশাতেও জল ঢেলে দিয়েছে ইকুয়েডর। যদিও সেময় শান্ত ও ধীর স্থির ছিল আর্জেন্টাইনরা, ‘আমরা শান্ত ছিলাম। পরে গোলের দেখা পেয়েছি, আর এটাই ছিল গুরুত্বপূর্ণ। সৃষ্টিকর্তাকে ধন্যবাদ যে আমরা লক্ষ্য পূরণ করতে পেরেছি।’

লাতিন বাছাইয়ে সর্বোচ্চ স্কোরার মেসি-সুয়ারেস

আর্জেন্টিনাকে বিশ্বকাপের টিকিট পাইয়ে দিয়েছেন মেসি। শুধু তাই নয় হ্যাটট্রিক করে লাতিন আমেরিকা অঞ্চলের সর্বোচ্চ স্কোরারও বনে গিয়েছিলেন সবার আগে। যদিও কিছু সময় পর তাকে ছুঁয়ে ফেলেন বার্সেলোনা সতীর্থ ও ‍উরুগুয়ে তারকা লুই সুয়ারেস।

 

এখন পর্যন্ত ৪৫টি বাছাই ম্যাচে ২১ গোল করেছেন মেসি। এই ম্যাচে আর্জেন্টিনাকে বিশ্বকাপের টিকিট পাইয়ে দিতে করেছেন হ্যাটট্রিক। ইকুয়েডরকে হারিয়েছে ৩-১ গোলে। সেখানে প্রথম গোলের মধ্য দিয়ে ছুঁয়েছিলেন স্বদেশি হারনান ক্রেসপো ও সুয়ারেসকে। তখন গোলের সংখ্যা ছিল ১৯। পরের গোলটি মেসিকে সর্বোচ্চ স্কোরার করে দিয়েছিল। এরপর দ্বিতীয়ার্ধে হ্যাটট্রিক করে সংখ্যা নিয়ে যান ২১-এ।

তবে একই দিন উরুগুয়ে ও বলিভিয়ার খেলায় দ্বিতীয়ার্ধে জোড়া গোল করেন সুয়ারেস। তাতেই সর্বোচ্চ গোলের তালিকায় মেসির পাশেই স্থান পান উরুগুয়ের এই তারকা। বলিভিয়াকে ৪-২ গোলে হারিয়েছে তার দল

অবসরে আরিয়েন রোবেন

বিশ্বকাপে টিকিট কাটতে পারেনি নেদারল্যান্ডস। বাছাইয়ে সুইডেনের বিপক্ষে ২-০ গোলে জয় পেলেও হিসাব অনুযায়ী পেতে হতো ৭ গোলের জয়। তাতে ব্যর্থ হওয়ায় আন্তর্জাতিক ফুটবলকে বিদায় বলে দিয়েছেন ডাচ তারকা আরিয়েন রবেন।  

 

অবশ্য দলের হয়ে দুই গোলই করেন ডাচ এই অধিনায়ক। সুইডেনের বিপক্ষে পাওয়া জয়ে দুটো গোলই ছিল তার। ১৬ মিনিটে পেনাল্টি থেকে লক্ষ্যভেদের পর ৪০ মিনিটে করেন দ্বিতীয় গোল।

এর আগে বিশাল ব্যবধানে জয় যে প্রায় অসম্ভব, ম্যাচের আগেই বলেছিলেন আরিয়েন রবেন। কিন্তু শেষ রক্ষা না হওয়ায় ব্যর্থতা কাঁধে নিয়েই অবসরে গেলেন ১১২ ম্যাচ খেলা তারকা। ক্যারিয়ারে ৯৬ ম্যাচে করেছেন ৩৭ গোল।  যাতে বানিয়ে দিয়েছেন ২৯ গোল।

৩৩ বছর বয়সী তারকা জাতীয় দলের হয়ে অভিষেক করেন ২০০৩ সালে। ডাচদের হয়ে এই সময়ে সাফল্যের প্রভাবক ছিলেন তিনি। ২০১০ সালে খেলেছিলেন বিশ্বকাপ ফাইনাল। যদিও স্পেনের কাছে হেরে গিয়েছিল তার দল।

মেসি জাদুতে বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা

 

দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের বাছাইপর্বের শেষ রাউন্ডে একুয়েডরকে ৩-১ গোলে হারিয়ে ভাগ্য নিজেদের হাতেই রেখেছিল আর্জেন্টিনা। অন্য ম্যাচে ব্রাজিলের কাছে চিলি হেরে যাওয়ায় আর কলম্বিয়া-পেরু ম্যাচ ড্র হওয়ায় তৃতীয় হয়ে সরাসরিই তাই ২০১৮ সালের বিশ্বকাপে উঠে গেল হোর্হে সাম্পাওলির দল।

 

২৮ বছর পর বিশ্বকাপে, আনন্দে ভাসছে মিশর

১৯৯০ সালে সবশেষ বিশ্বকাপে খেলেছিল আফ্রিকার দেশ মিশর। তার ২৮ বছর পর ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে খেলার টিকিট পেয়েছে মিশর। আফ্রিকা অঞ্চলের বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে কঙ্গোকে ২-১ গোলে হারিয়ে বিশ্বকাপে স্থান করে নেয় তারা।

মিশরের হয়ে জোড়া গোল করেছেন মোহাম্মদ সালাহ। লিভারপুলের এই ফরোয়ার্ড ম্যাচের ৬৩ মিনিটে গোল করে এগিয়ে নেন দলকে। কিন্তু ৮৭ মিনিটে কঙ্গো গোল করে ম্যাচে সমতা ফেরায়। আর ম্যাচের যোগ করা সময়ের অন্তিম মুহূর্তে (৯০+৫) পেনাল্টি থেকে গোল করে মিশরকে বিশ্বকাপের টিকিট পাইয়ে দেন।

মিশরের এই ম্যাচ দেখতে আকেজান্দ্রিয়ার মিলিটারি স্টেডিয়ামে হাজির হয়েছিল ৩০ হাজার দর্শক। ২-১ গোলের জয়ের পর আনন্দে ভাসছে গোটা মিশর। আনন্দ মিছিল চলছে দেশজুড়ে।

এই জয়ে আফ্রিকা অঞ্চলের বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ‘ই’ গ্রুপ থেকে এক ম্যাচ হাতে রেখেই রাশিয়া বিশ্বকাপে জায়গা করে নিল মিশর। পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে অবস্থান করছে ভূমধ্যসাগরের তীরবর্তী দেশটি। ৭ বারের আফ্রিকান চ্যাম্পিয়ন ও আফ্রিকা মহাদেশের সবচেয়ে সফল দলটি সবশেষ ১৯৯০ সালে ইতালিতে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে খেলেছিল। ১৯৯৪ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত বাছাইপর্ব অতিক্রম করতে পারেনি তারা। অবশেষে ২৭ বছর পর বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করল। ২৮ বছরের মাথায় গিয়ে আবার বিশ্বকাপ খেলতে রাশিয়ার মাঠে নামবে তারা।

ইতিহাস গড়ে বিশ্বকাপে আইসল্যান্ড

প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের মূলপর্বে উঠেছে আইসল্যান্ড। সেই সঙ্গে জনসংখ্যার দিক থেকে সবচেয়ে ক্ষুদ্রতম দেশ হিসেবে বিশ্বকাপে ওঠার রেকর্ড গড়েছে মাত্র ৩ লাখ ৩৫ হাজার মানুষের দেশটি।

ইউরোপিয়ান অঞ্চলের বাছাইপর্বের শেষ ম্যাচে সোমবার রাতে কসোভোকে ২-০ গোলে হারিয়ে ‘আই’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হিসেবে ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপের টিকিট নিশ্চিত করেছে আইসল্যান্ড। দশ লাখের কম জনসংখ্যার প্রথম দেশ হিসেবে বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করল তারা।

এর আগে সবচেয়ে ক্ষুদ্রতম দেশ হিসেবে বিশ্বকাপে খেলার রেকর্ড ছিল ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগোর। তারা যখন ২০০৬ বিশ্বকাপে খেলা নিশ্চিত করেছিল, তখন তাদের জনসংখ্যা ছিল ১.৩৭ মিলিয়ন।

কোসোভোকে হারানো ম্যাচে আইসল্যান্ডের হয়ে একটি করে গোল করেছেন গিলফি সিগার্ডসন ও জোহান গুডমান্ডসন। বাছাইপর্বে ১০ ম্যাচের ৭টিতেই জেতা দলটির পয়েন্ট ২২। এই গ্রুপের রানার্সআপ হিসেবে প্লে অফ নিশ্চিত করেছে ক্রোয়েশিয়া।

২০১৬ ইউরোর শেষ ষোলোতে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেই ইতিহাস গড়েছিল আইসল্যান্ড। এক বছর যেতে না যেতে এবার প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপেও জায়গা করে নিল তারা। অথচ নারী ও পুরুষ মিলিয়ে দেশটিতে নিবন্ধিত ফুটবলারের সংখ্যা মাত্র ২০ হাজার!

ক্ষুদ্রতম দেশ হিসেবে বিশ্বকাপে
আইসল্যান্ড (৩৩৫, ০০০)
ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগো (১.৩৭ মিলিয়ন)
নর্ডান আয়ারল্যান্ড (১.৮৫ মিলিয়ন)
স্লোভেনিয়া (২.০৮ মিলিয়ন)
জ্যামাইকা (২.৮৯ মিলিয়ন)
ওয়েলস (৩.১ মিলিয়ন) 

ওয়েলসের স্বপ্ন গুঁড়িয়ে প্লে-অফে আয়ারল্যান্ড

২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে খেলা হচ্ছে না ওয়েলসের। গ্যারেথ বেলের দেশের স্বপ্ন গুঁড়িয়ে বিশ্বকাপের প্লে-অফ নিশ্চিত করেছে রিপাবলিক অব আয়ারল্যান্ড।

সোমবার রাতে বাছাইপর্বের শেষ ম্যাচে ঘরের মাঠে আয়ারল্যান্ডের কাছে ১-০ গোলে হেরেছে ওয়েলস। ১৯ পয়েন্ট নিয়ে ‘ডি’ গ্রুপের রানার্সআপ হয়েছে আয়ারল্যান্ড। আরেক ম্যাচে জর্জিয়াকে ১-০ গোলে হারিয়ে এই গ্রুপ থেকে সরাসরি বিশ্বকাপের টিকিট পেয়েছে সার্বিয়া। তাদের পয়েন্ট ২১। ওয়েলসের ১৭ পয়েন্ট।


চোটের কারণে ওয়েলসের শেষ দুই ম্যাচেই খেলতে পারেননি রিয়াল মাদ্রিদ তারকা বেল। তাকে ছাড়া আগের ম্যাচ জিতলেও শেষ ম্যাচে আর পারল না ওয়েলস। এক সময় বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফুটবলার বেলকে দলের হার দেখতে হয়েছে কার্ডিফের ভিআইপি বক্সে বসে। ম্যাচের ৫৭ মিনিটে একমাত্র গোলটা করে আয়ারল্যান্ডের জয়ের নায়ক জেমস ম্যাকলিন।

‘যদি’-‘কিন্তুর’ বেড়াজালে আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ ভাগ্য

১৯৭০ সালের পর কখনো বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়েনি আর্জেন্টিনা। ৪৭ বছর পর কি বিশ্বকাপে দর্শক হয়ে থাকতে হবে আর্জেন্টিনাকে?

ইকুয়েডরের মাঠ কিটোয় গত ১৬ বছরে একটিও জয় নেই আর্জেন্টিনার। এবার কি জয় পাবে আর্জেন্টিনা? দুটি প্রশ্নের উত্তর মিলবে বুধবার ভোরে।

ইকুয়েডরের মাঠে রাশিয়া বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের শেষ ম্যাচ খেলবে আর্জেন্টিনা।বাংলাদেশ সময় ম্যাচটি শুরু হবে ভোর সাড়ে ৫টায়।
 


গত বিশ্বকাপের রানার্সআপ আর্জেন্টিনা। ইকুয়েডরের বিপক্ষে আগামীকাল জয় না পেলে বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের পথ আরও কঠিন হয়ে যাবে মেসিদের। ইকুয়েডরের বিপক্ষে মেসিদের ম্যাচটি তাই বাঁচা-মরার।বাছাই পর্বের শুরুতে ইকুয়েডরের মুখোমুখি হয়েছিল আর্জেন্টিনা। ২-০ ব্যবধানে হেরেছিল তারা। আজ শেষ ম্যাচেও প্রতিপক্ষ তারা। সেবার ঘরের মাঠে জয় পায়নি। এবারের ম্যাচটি ইকুয়েডরের মাঠে। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৯ হাজার ফুট ওপরে কিটোর মাঠে খেলা এমনিতেই কঠিন। এছাড়া কিটোর মাঠে শেষ চার ম্যাচে একটিতেও জয় নেই। তাই আর্জেন্টিনার আত্মবিশ্বাসও তলানিতে! আত্মবিশ্বাস তলানিতে যাওয়ার আরও কারণও আছে। আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডরা গোল করতে পারছেন না। লিওনেল মেসি, সার্জিয়ো আগুয়েরো, গনজালো হিগুয়াইনদের মতো তারকাদের নিয়ে ১৭ ম্যাচে মাত্র ১৬ গোল করেছে আর্জেন্টিনা। সেখানে ব্রাজিল গোল করেছে আর্জেন্টিনার দ্বিগুণেরও বেশি, ৩৮টি।

এ অঞ্চলে ব্রাজিল ছাড়া বিশ্বকাপের টিকিট পায়নি আর কেউ। তাই পেরু-কলম্বিয়া, ব্রাজিল-চিলি, প্যারাগুয়ে-ভেনিজুয়েলা, উরুগুয়ে-বলিভিয়া ম্যাচেও চোখ রাখতে হচ্ছে ফুটবল প্রেমিদের। আর্জেন্টিনা আটকে আছে ‘যদি’, ‘কিন্তুর’ বেড়াজালে।

১৭ ম্যাচে ২৫ পয়েন্ট নিয়ে ছয় নম্বরে আর্জেন্টিনা। সরাসরি বিশ্বকাপে যেতে আজ জিততেই হবে ইকুয়েডরের বিপক্ষে। যদি আর্জেন্টিনা জয় না পায় তাহলে কি হবে?


এক্ষেত্রে কলম্বিয়ার হারের প্রার্থনা করতে হবে মেসিদের এবং প্যারাগুয়েকে হারতে বা ড্র করতে হবে ভেনিজুয়েলার বিপক্ষে।আর্জেন্টিনা জিতলেই যে বিশ্বকাপে খেলবে এমনটা নয়। জিতলে আর্জেন্টিনার প্লে অফে খেলা নিশ্চিত। কিন্তু সরাসরি বিশ্বকাপে খেলতে পারে যদি পেরু ও কলম্বিয়ার ম্যাচটি ড্র হয় এবং ব্রাজিল-চিলির ম্যাচটি জিতে যায় ব্রাজিল। ইকুয়েডর হারলে আর্জেন্টিনার পয়েন্ট হবে ২৮। ব্রাজিল হারলে চিলির পয়েন্ট হবে ২৯। পেরুকে হারালে কলম্বিয়ার পয়েন্ট হবে ২৯। সে ক্ষেত্রে পাঁচ নম্বরে নেমে প্লে-অফ খেলবে আর্জেন্টিনা। প্লে-অফে তাদের প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড। দুই লেগে নিউজিল্যান্ডকে হারালেই আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপের টিকেট মিলবে।

যদি আজ হার-জিত না পেয়ে ইকুয়েডরের বিপক্ষে ড্র করে আর্জেন্টিনা তাহলে প্লে-অফ খেলার সুযোগ পাবে।  ড্র করলে মেসিদের পয়েন্ট হবে ২৬। কিন্তু এজন্য হারতে হবে পেরুকে।  এবং ভেনেজুয়েলা যেন জয় পায় প্যারাগুয়ের বিপক্ষে। পাশাপাশি পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদেরও হারতে হবে চিলির বিপক্ষে।

কোপা আমেরিকার ফাইনালে দলকে শিরোপা জেতাতে না পারায় মাঠ থেকেই অবসর নিয়েছিলেন মেসি। পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেন । বার্সেলোনার জাদুকর এবার যদি আর্জেন্টিনাকে বিশ্বকাপে নিয়ে যেতে না পারেন তাহলে কি করবেন?

১৯ বছরের রেকর্ড ভাঙল জার্মানি

রাশিয়া বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে নিজেদের আধিপত্য ধরে রেখেছে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন জার্মানি। বাছাই পর্বের দশ ম্যাচের দশটিতেই জিতে বিশ্বকাপের টিকেট পেয়েছে জোয়াকিম লোয়ের শিষ্যরা।

রোববার রাতে আজারবাইজানকে ৫-১ গোলে হারিয়েছে জার্মানি। বিশ্বকাপ নিশ্চিত করার পাশাপাশি বাছাই পর্বের খেলায় এক নতুন রেকর্ড গড়েছে জার্মানি। বিশ্বকাপে ইউরোপিয়ান বাছাই পর্বের ইতিহাসে সবথেকে বেশি গোল ব্যবধান জার্মানির। এবারের বাছাই পর্বে জার্মানি গোল করেছে ৪৩টি। গোল হজম করেছে মাত্র ৪টি। ৩৯ গোলের ব্যবধান ইউরোপিয়ান বাছাই পর্বে সর্বোচ্চ। ১৯৯৮ বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে সর্বোচ্চ ৩৩ গোলের ব্যবধান ছিল রোমানিয়ার। ১৯ বছরের রেকর্ড ভেঙে নতুন ল্যান্ডমার্ক তৈরি করেছে ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ দলটি। 
 


এ অঞ্চলে জার্মানি গোলের রেকর্ড গড়লেও গোল হজমের তিক্ত স্বাদ গ্রহণ করেছে সান মারিনো। বাছাই পর্বের দশ ম্যাচের দশটিতেই হারের স্বাদ পাওয়া সান মারিনো গোল হজম করেছে ৫১টি। প্রতিপক্ষের জালে বল পাঠিয়েছে মাত্র দুই বার। জার্মানি দুই ম্যাচে তাদের জালে বল পাঠিয়েছে ১৫ বার।

জার্মানি ৩০ পয়েন্ট নিয়ে বিশ্বকাপ নিশ্চিত করেছে। ‘সি’ গ্রুপের পরের স্থানটিতে রয়েছে নর্দান আয়ারল্যান্ড। জার্মানির থেকে ১১ পয়েন্ট পিছিয়ে নর্দান আয়ারল্যান্ড।

বিশ্বকাপের মূল পর্বে জার্মানি-ইংল্যান্ড

বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন বলে কথা! ফুটবলের শ্রেষ্ঠত্ব যাদের হাতে, তাদের পারফরম্যান্সও হতে হয় সে রকম। রাশিয়া বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে জার্মানি ছুটছে ঠিক বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের মতো করেই। ইউরোপ অঞ্চলের বাছাইয়ে কোনও ম্যাচ না হেরে রাশিয়া বিশ্বকাপের মূল পর্বও নিশ্চিত করেছে জার্মানরা। বৃহস্পতিবার রাতে নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডকে ৩-১ গোলে হারিয়ে ‌‘‌সি’ গ্রুপ থেকে ফুটবল মহাযজ্ঞের মূল পর্বে উঠে গেছে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা।

 

তাদের সঙ্গে রাশিয়ার টিকিট কেটেছে সাবেক চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড। স্লোভেনিয়াকে ১-০ গোলে হারিয়েছে ইংলিশরা। ‘‌এফ’ গ্রুপ থেকে বৃহস্পতিবার তারা নিশ্চিত করেছে রাশিয়া বিশ্বকাপের মূল পর্ব।

নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডের মাঠে দাপুটে ফুটবল খেলেছে জার্মানি। জিতলেই বিশ্বকাপ নিশ্চিত, এমন সমীকরণ সামনে রেখে মাঠে নামায় শুরু থেকেই গোলের জন্য মুখিয়ে ছিল জার্মানরা। কাঙ্খিত লক্ষ্যের জন্য বেশিক্ষণ অপেক্ষাও করতে হয়নি তাদের, সেবাস্টিয়ান রুডির লক্ষ্যভেদে দ্বিতীয় মিনিটেই গোলের দেখা পায় বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। ২১ মিনিটে সান্দ্রো ওয়াগনার জাল খুঁজে পেলে ব্যবধান দ্বিগুণ করে সফরকারীরা।

দ্বিতীয়ার্ধ ২-০ গোলে এগিয়ে থেকে শুরু করা জার্মানি ৮৬ মিনিটে তৃতীয় গোলের দেখা পায় যখন স্কোরশিটে নাম তোলেন কিমিচ। ইনজুরি টাইমে অবশ্য নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড এক গোল শোধ করেছিল, তাতে তাদের আক্ষেপ কেবল বেড়েছেই। বিপরীতে বিশ্বকাপের টিকিট নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়ে জার্মানি।

তাদের মতো বিশ্বকাপে উঠে গেছে ইংল্যান্ড। ঘরের মাঠে স্লোভেনিয়ার বিপক্ষে জয়টা অবশ্য এসেছে তাদের ঘাম ঝরিয়ে। দ্বিতয়ার্ধের ইনজুরি টাইমের চতুর্থ মিনিটে হ্যারি কেনের লক্ষ্যভেদে জয় নিশ্চিত হয় তাদের ১-০ গোলে। এই ব্যবধানটাই ইংলিশদের জন্য যথেষ্ট ছিল বিশ্বকাপে যাওয়ার জন্য।

পেরুর সঙ্গে ড্র করে আরও বিপদে আর্জেন্টিনা

আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপে খেলতে পারবে তো? প্রশ্নটা আরও জোরালো হলো পেরুর সঙ্গে গোলশূন্য ড্রতে। বাঁচা-মরার লড়াই বলা হয়েছিল যে ম্যাচটিকে সেখানে গোলের মুখই খুলতে পারেনি আর্জেন্টিনা! যাতে রাশিয়া বিশ্বকাপে  লিওনেল মেসিদের খেলাটা পড়ে গেল ঘোর সংশয়ের মুখে।

 

এই ড্রতে আর্জেন্টিনা নেমে গেছে পয়েন্ট টেবিলের ষষ্ঠ স্থানে। যাতে এখন আর প্লে অফ খেলার জায়গাতেও থাকলো না ২৫ পয়েন্টের আর্জেন্টিনা। কারণ ইকুয়েডরের বিপক্ষে চিলি ২-১ গোলে জিতে যাওয়ায় তারা উঠে গেছে তৃতীয় স্থানে। আর আর্জেন্টিনা নেমে গেছে ছয়ে।

‘আক্রমণ চালিয়ে যাব ম্যাচের পুরো সময়’- কথা রেখেছেন হোর্হে সাম্পাওলি। পেরুর বিপক্ষে মাঠে নামার আগে এটাও বলেছিলেন, ‘পেরুর অর্ধে গিয়ে খেলব আমরা সবসময়।‘ পুরো সময় না পারলেও বেশিরভাগ সময়ই খেলাটা হয়েছে পেরুর অর্ধে। এখানেও ‘ওয়াদা’ ভঙ্গ করেননি আর্জেন্টাইন কোচ। তবে শিষ্যদের জয়ের যে বাণী শুনিয়েছিলেন, সেটা আর করে দেখাতে পারলেন না। আর পারলেন না বলেই আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপে খেলার স্বপ্নের পথে খেল বড় ধাক্কা।

দুর্ভাগ্য জড়িয়ে ধরলে এমনই হয়। সেদিন মেসির পায়ের জাদু দেখা যায় না, বল আঘাত করে গোলপোস্টে, প্রতিপক্ষের গোলরক্ষক হয়ে দাঁড়ান চীনের প্রাচীর। বল পজেশন, আক্রমণ কিংবা সুযোগ তৈরি সব কিছুতেই এগিয়ে ছিল আর্জেন্টিনা। তাতে অবশ্য বিশ্বকাপে যাওয়ার টিকিট মিলবে না। সে জন্য দরকার ছিল গোল ও জয়। যে দুটোর একটাও পায়নি আর্জেন্টিনা ঘরের মাঠ স্তাদিও আলবার্তো হোসে আলমান্দোতে। আক্রমণ ঠিকই চালিয়ে গেছে গোটা ম্যাচে, কিন্তু ফুল আর ফোটাতে পারেনি। উল্টো কাঁটায় ক্ষতবিক্ষত হয়েছে আলবিসেলেস্তেরা আরেকবার।
১৩ মিনিটে যে সুযোগটা পেয়েছিল আর্জেন্টিনা, সেখানেই এগিয়ে যেতে পারতো তারা। আনহেল দি মারিয়ার নিচু কর্নারে মেসি বক্সের সামান্য ভেতর থেকে শট নিয়েছিলেন, গোলমুখেই ছিল বল, কিন্তু পেরুর এক খেলোয়াড়ের গায়ে লেগে বল চলে যায় বাইরে। সেই শুরু সুযোগ নষ্টের; এরপর একে একে ভালো সম্ভাবনাকে হতাশায় রূপ দিয়েছেন আলেহান্দ্রো গোমেস, দারিও বেনেদিতো, এভার বানেগা, এমিলিয়ানো রিগোনিরা।
হতাশাজনক প্রথমার্ধের পর ৬১ মিনিটে এমিলিয়ানো রিগোনি যে ভুলটা করলেন, সেটা আর্জেন্টাইনদের পোড়ালো সবচেয়ে বেশি। বক্সের সামনে থেকেও বল জড়াতে পারেননি তিনি জালে। চমৎকার ড্রিবলের পর মেসির ক্রস ছোট বক্সের সামনে থেকে জেনিত সেন্ট পিটার্সবার্গের মিডফিল্ডার পায়ে লাগালেও রাখতে পারেননি পোস্টের মধ্যে।
এর তিন মিনিট আগে আলেহান্দ্রো গোমেস মিস করেছেন সুবর্ণ সুযোগ। মেসির ডিফেন্সচিড়া পাস বক্সের ভেতর নিজের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছিলেন আতালান্তার এই উইঙ্গার। সামনে ছিলেন কেবল পেরুর গোলরক্ষক  পেদ্রো গায়েস, কিন্তু গোমেসের শট নেওয়া বল সরাসরি আঘাত করে তার মুখে।
অবশ্য বিরতি থেকে ঘুরে আসার পরই আর্জেন্টিনা পায় এগিয়ে যাওয়ার দুর্দান্ত সুযোগ। কিন্তু ফুটবলদেবতা আবারও ফিরিয়ে নিলেন মুখ। তা না হলে পোস্টে লেগে বল কেন প্রতিহত হবে! মেসির পাস ধরে দারিও বেনেদিতো শট করেছিলেন গোলমুখে, যদিও তা প্রতিহত হয় পেরুর গোলরক্ষকের গায়ে লেগে। ফিরতি বল পেয়ে মেসি শট করলে তা ফিরে আসে পোস্টে লেগে।

ভাগ্যের এই মারপ্যাচে মেসিদের বিশ্বকাপ পথটা হয়ে গেল আরও কঠিন। শেষ আশা হয়ে বেঁচে আছে এখন ইকুয়েডরের বিপক্ষে ম্যাচ। অবশ্য অ্যাওয়ে ওই ম্যাচটা জিতলেই হবে না, তাকিয়ে থাকতে হবে অন্য দলগুলোর ফলের দিকেও। তার মানে আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ ভাগ্য আর শুধু নিজেদের হাতে নেই।

নিলামে বিক্রি রোনালদোর ব্যালন ডি’অর!

সারা বিশ্বের অসুস্থ শিশুদের সহায়তাকারী প্রতিষ্ঠান মেক-এ-উইশ ফাউন্ডেশনের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে আছেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। এর মাধ্যমে আর্থিকভাবে সহায়তার পাশাপাশি শিশুদের শুভ কামনা জানাতে তৎপর থাকেন পর্তুগিজ ফুটবল তারকা। তবে এবার তিনি তাদের পাশে দাঁড়ালেন অভূতপূর্ব কায়দায়। নিজের চার ব্যালন ডি’অরের একটি নিলামে বিক্রি করে সেই অর্থ দিলেন মেক-এ-উইশ ফাউন্ডেশনকে।

 

লন্ডনের ডরচেস্টার হোটেলে ফাউন্ডেশনটির ‘আর্ট অব উইশেস’ নিলামে তোলা হয়েছিল রোনালদোর ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ব্যালন ডি’অরের আসল রেপ্লিকা। ২০১৩ সালে লিওনেল মেসিকে হারিয়ে ওই পুরস্কার পেয়েছিলেন রিয়াল মাদ্রিদ ফরোয়ার্ড।

ইসরায়েলি কোটিপতি ইদান ওফার কিনেছেন রোনালদোর সেই আকাঙ্ক্ষিত ট্রফিটি। বিক্রি হয়েছে ৬ লাখ ইউরোতে। পর্তুগিজ সংবাদপত্র কোরেইয়ো দা মানআ’র ছবিতে দেখা গেছে, পর্তুগালের ফরোয়ার্ডের এজেন্ট হোর্হে মেন্দেস ওই নিলামজয়ীর হাতে ট্রফি তুলে দিচ্ছেন।

লন্ডনের এই জমকালো আয়োজনে ছিলেন না রোনালদো। তবে সেখানে ছিলেন দুই ম্যানচেস্টারের কোচ হোসে মরিনহো ও পেপ গার্দিওলা। ইএসপিএনএফসি

আবারও বায়ার্নের কোচ হেইঙ্কেস!

ক্লাবের সফলতম কোচ ইয়ুপ হেইঙ্কেসকে আবারও দায়িত্ব দিচ্ছে বায়ার্ন মিউনিখ। বিল্ড ও কিকার তাদের রিপোর্টে জানিয়েছে এমনটাই। কার্লো আনচেলত্তির উত্তরসূরি হিসেবে বর্তমান মৌসুম শেষ হওয়া পর্যন্ত বুন্দেসলিগা চ্যাম্পিয়নদের সঙ্গে কাজ করবেন ৭২ বছর বয়সী সাবেক কোচ।

 

২০১৩ সালে বায়ার্নের জার্মান রেকর্ড শিরোপাসহ ট্রেবল জয়ের পর অবসরের ঘোষণা দেন হেইঙ্কেস। ওই মৌসুমে বহু প্রতীক্ষিত চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতেছিল বাভারিয়ানরা, সঙ্গে ছিল লিগ ও জার্মান কাপ। পেপ গার্দিওলা হন তার উত্তরসূরি।

জার্মান রিপোর্ট সত্যি হলে বায়ার্নে চতুর্থবার দায়িত্ব নেবেন হেইঙ্কেস। ১৯৮৭ থেকে ১৯৯১ সালে প্রথম দফায় দুইবার বুন্দেসলিগা জিতেছিলেন তিনি। ইয়ুর্গেন ক্লিন্সম্যান বরখাস্ত হলে ২০০৯ সালে মাত্র ৬ ম্যাচের জন্য অন্তর্বর্তীকালীন দায়িত্ব নেন। সর্বশেষ ২০১১ সালে লুই ফন গাল বিদায় নিলে তৃতীয়বারের মতো এলিয়েঞ্জ এরেনায় কোচ হন হেইঙ্কেস।

বায়ার্নকে দুর্দশা থেকে তুলে আনতে অভিজ্ঞ কোচের দ্বারস্থ হওয়ার খবর উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। চ্যাম্পিয়নস লিগে প্যারিস সেন্ত-জার্মেইয়ের কাছে হেরে গেছে বায়ার্ন। ইউরোপের সবচেয়ে বড় মঞ্চে ২১ বছরে প্রথমবার গ্রুপ পর্বে বড় ব্যবধানে হার এটা। আনচেলত্তির বিদায়ের পর সহকারী কোচ উইলিয় সাগনোলের অধীনে প্রথম ম্যাচেও হার্থা বার্লিনের সঙ্গে ড্র করেছে বায়ার্ন। বুন্দেসলিগায় এখন তারা শীর্ষস্থান থেকে ৫ পয়েন্ট দূরে। বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের সঙ্গে এই ব্যবধান কমাতে হয়তো হেইঙ্কেসকে সত্যিই আনতে যাচ্ছে বায়ার্ন।

আবারও ইনজুরিতে বেল

গত মৌসুমে রিয়ালের হয়ে খুব বেশি ম্যাচে মাঠে নামা হয়নি বেলের। তবে চলতি মৌসুমে শুরু থেকেই রিয়ালের জার্সিতে ফিরেছিলেন মাঠে। তবে ফেরাটা খুব বেশি দিনের জন্য হল না। আবারও ইনজুরিতে পড়েছেন ওয়েলসের এই তারকা। এর ফলে আরও এক মাস মাঠের বাইরে থাকতে হবে গ্যারেথ বেলকে।

রিয়ালে যোগ দেওয়ার পর থেকেই ইনজুরিকে নিত্য সঙ্গী করে নিয়েছেন বেল। এ পর্যন্ত ১৩তম বারের মত ইনজুরিতে পড়লেন এই ওয়েলস তারকা।

 

গত মৌসুমে গোড়ালীর ইনজুরির কারণে রিয়াল মাদ্রিদের ৬০ ম্যাচের ২৮টিতেই ছিলেন না সাবেক টটেনহ্যাম হটস্পারের এই তারকা ফুটবলার। তবে চলতি মৌসুমে রিয়াল মাদ্রিদ ইতোমধ্যেই ১১ ম্যাচে মাঠে ছিলেন।

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ থেকে স্পেনের রাজধানীর এই ক্লাবটিতে যোগদানের পর থেকে মোট ২৫০ দিন মাঠের বাইরে ছিটকে পড়েন বেল। আরও এক মাসের জন্য ইনজুরিতে পড়া বেলের এই সংখ্যাটা দাঁড়াবে অন্তত তিন’শ দিনে।

কান্নাভেজা চোখে পিকে যা বললেন

ম্যাচটা পিছিয়ে দেওয়ার আবেদন করেছিল বার্সেলোনা। স্প্যানিশ ফুটবল ফেডারেশন তা মানেনি। শেষ পর্যন্ত ম্যাচ হলো ঠিকই, কিন্তু ফাঁকা গ্যালারিতে। স্বাধীনতার দাবিতে সোচ্চার কাতালোনিয়ায় বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ায় কাল ন্যু ক্যাম্পে শূন্য গ্যালারিতে হয়েছে বার্সেলোনা-লাস পালমাস ম্যাচ। নিরাপত্তা শঙ্কায় দর্শকদের স্টেডিয়ামে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। বার্সেলোনার ৩-০ গোলে জয়ের ম্যাচের পর ডিফেন্ডার জেরার্ড পিকে কান্নাভেজা চোখে বলেছেন, স্পেনের ফুটবল ফেডারেশন যদি চায় তাহলে জাতীয় দল থেকে সরে দাঁড়াবেন তিনি।

পুলিশের বাধা আর বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষের মধ্যে দিয়ে স্বাধীনতার দাবিতে কাল গণভোটে অংশ নেয় কাতালোনিয়া। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে এদিন অন্তত ৪০০ মানুষ আহত হয়েছেন। বার্সেলোনা-লাস পালমাস ম্যাচের আগে পুলিশ বন্ধ করে দেয় স্টেডিয়ামের দরজা। কাতালোনিয়ার স্বাধীনতা প্রসঙ্গে বরাবরই সোচ্চার পিকে নিজেও গণভোটে অংশ নিয়েছেন ম্যাচের আগে। বার্সার স্প্যানিশ ডিফেন্ডার ম্যাচ শেষে নিজের রাগ লুকাতে পারেননি।

পিকে আগেই ঘোষণা দিয়েছেন, ২০১৮ বিশ্বকাপের পর আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসর নেবেন। তবে স্পেনের কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে কাতালোনিয়ার চলমান দ্বন্দ্বের কারণে অবসর নিতে পারেন বিশ্বকাপের আগেই। পিকে সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘যদি ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের কোনো পরিচালক কিংবা অন্য কেউ মনে করে আমি স্পেনের ফুটবল ফেডারেশনের জন্য সমস্যা, তাহলে আগামী বিশ্বকাপের আগেই সরে দাঁড়াব।’

ফাঁকা গ্যালারিতে ম্যাচ খেলাটাকে তার ফুটবল ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বাজে অভিজ্ঞতা বলে জানালেন বার্সা ডিফেন্ডার, ‘আমাদের দর্শকদের ছাড়া ম্যাচ খেলাটা খুব কঠিন। কিন্তু এটা হলো। পেশাদার ফুটবলার হিসেবে এটা আমার জীবনের সবচেয়ে বাজে অভিজ্ঞতা।’

কাতালোনিয়ার জনগণকে নিয়ে গর্বিত পিকে, ‘আমি নিজেকে কাতালান মনে করি। আজ আমি কাতালোনিয়ার জনগণকে নিয়ে গর্বিত। আমরা সংখ্যালঘু নই। লাখ লাখ মানুষ আমাদের সঙ্গে আছে। আমরা খারাপ মানুষ নই, আমরা শুধু ভোট চাই’- বলেন পিকে

নেইমার-কাভানি দ্বন্দ্বের অবসান যেভাবে

স্বার্থের সংঘাত ছিল। প্যারিস সেন্ট জার্মেইতে (পিএসজি) নেইমার আর এডিনসন কাভানির দ্বন্দ্বটা সহজে মিটে যাবে বলে মনে হচ্ছিল না। হঠাতই দেখা গেল, দৃশ্যপটে আমূল পরিবর্তন। কাভানি-নেইমার কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলছেন। যে পেনাল্টি নিয়ে ঘটনার সূত্রপাত, শনিবার রাতে সেই পেনাল্টি নিয়েও কারও মধ্যে অসন্তোষ দেখা গেল না।

বোর্দোর বিপক্ষে ম্যাচে ফ্রি কিক-পেনাল্টি; দুটোই করলেন নেইমার। পেলেন গোলও। ফ্রি কিকটা বড় কোনো ব্যাপার নয়। তবে ম্যাচের ৪০তম মিনিটে পিএসজি পেনাল্টি পেলে সবার চোখ ছিল দ্বন্দ্বে জড়ানো দুই তারকার দিকেই। শেষপর্যন্ত নেইমার পেনাল্টি নিলেন, গোলের পর কাভানি তাকে অভিনন্দন জানাতে ভুল করলেন না।

 

কিন্তু এত বড় দ্বন্দ্ব কিভাবে মিটে গেল এক নিমিষে? বোর্দোর বিপক্ষে পিএসজির ৬-২ গোলের বড় ব্যবধানে জয়ের পর দলের ডিফেন্ডার থমাস মুনিয়ের জানিয়েছেন, পেনাল্টি পেলে যে নেইমারই নেবেন, সেটা ম্যাচের আগেই ঠিক করে দিয়েছিলেন কোচ উনাই এমেরি।

কিন্তু নেইমারকে প্রাধান্য দিলে তো কাভানির সঙ্গে আবারও ঝামেলা তৈরি হওয়ার কথা। মুনিয়ের জানালেন, ‘যদি ম্যাচে আরেকটি পেনাল্টি হতো, তবে সেটা নিতেন এডি (কাভানি)। এটা আগে থেকেই নির্ধারিত ছিল।’

ব্যাপারটা বেশ মজার। দলের স্বার্থে দুই তারকাকে কাজ ভাগ করে দিয়েছেন উনাই এমেরি। উল্টে-পাল্টে পেনাল্টি নেয়ার দায়িত্ব দুজনই পালন করবেন, থাকবে না আর দ্বিধা-দ্বন্দ্ব।

হাইভোল্টেজ ম্যাচে রাতে মুখোমুখি চেলসি-ম্যানসিটি

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে আজ শনিবার রাতে হাইভোল্টেজ ম্যাচে মুখোমুখি হবে চেলসি ও ম্যানচেস্টার সিটি। বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে দশটায় শুরু হবে ম্যাচটি। যা সরাসরি সম্প্রচার করবে স্টার স্পোর্টস সিলেক্ট-১।

উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে উভয় দলই দারুণ জয় পেয়েছে। ছন্দে আছে দল দুটি। কিন্তু প্রিমিয়ার লিগের পয়েন্ট টেবিলে চেলসির চেয়ে এগিয়ে রয়েছে ম্যানচেস্টার সিটি। ৬ ম্যাচ থেকে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে অবস্থান করছে ম্যানসিটি। অন্যদিকে সমান ম্যাচ থেকে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে চেলসি। আজ ঘরের মাঠ স্টামফোর্ড ব্রিজে জয় পেলে পেপ গার্দিওলার দলকে ছুঁয়ে ফেলতে পারবে অ্যান্তোনিও কন্তের দল। আজ হারলে সেটা হবে চলতি মৌসুমে ম্যানসিটির প্রথম হার।

এই ম্যাচে অবশ্য খেলতে পারবেন না চেলসির ব্রাজিলিয়ান তারকা ডেভিড লুইস। আর্সেনালের বিপক্ষে লাল কার্ড দেখায় নিষেধাজ্ঞার মধ্যে আছেন তিনি। পাশাপাশি ইনজুরিতে আছেন দলে ভেড়ানো নতুন খেলোয়াড় ড্যানি ড্রিঙ্কওয়াটার। পেদ্রো যদিও সামান্য ইজুরিতে ভুগছেন, তবে আজ তাকে মাঠে নামাতে পারে।

এদিকে ম্যানচেস্টার সিটির হয়ে মাঠে নামতে পারবেন না সার্জিও আগুয়েরো। ইনজুরির কারণে ২ থেকে ৪ সপ্তাহ মাঠের বাইরে থাকতে হবে তাকে। বেঞ্জামিন মেন্ডিও খেলতে পারবেন না। হাঁটুর ইনজুরিতে ভুগছেন তিনি।  ভিনসেন্ট কোম্পানিও রয়েছেন ইনজুরিতে।

গেল মৌসুমে ঘরের মাঠে ও ম্যানচেস্টার সিটির মাঠে গার্দিওলার দলকে হারিয়েছিল চেলসি। এবারও তারা সেই পথে হাঁটে কিনা দেখার বিষয়। তাছাড়া চেলসির মাঠে ম্যানসিটির পরিসংখ্যানও ভালো না। স্টামফোর্ড ব্রিজে সবশেষ ২০ ম্যাচের মাত্র ২টিতে জিতেছে ম্যানসিটি। ড্র করেছে ৫টিতে। হেরেছে ১৩টিতে। জয়ের পাল্লাটা আজ একটু ভারী করতে পারবে কি গার্দিওলার শিষ্যরা?

গার্দিওলার কাছে আগুয়েরো ‘অন্যতম সেরা স্ট্রাইকার’

সের্হিয়ো আগুয়েরোর ম্যানচেস্টার সিটি ছাড়ার গুঞ্জন শোনা গিয়েছিল গত মৌসুমে। পেপ গার্দিওলার পরিকল্পনার আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডের না থাকার খবরও ছেপেছিল ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমগুলো। কিন্তু মৌসুম ঘুরতেই বদলে গেল সব। আগুয়েরো এখন গার্দিওলার ম্যানসিটির ‘অক্সিজেন’। চলতি মৌসুমে ইংলিশ ক্লাবটির সর্বোচ্চ গোলদাতার জন্য অপেক্ষা করছে বড় এক মুহূর্ত। আর মাত্র দুই গোল করলেই সিটিজেনদের হয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতার আসনে বসবেন আর্জেন্টাইন তারকা। শিগিগিরই সেই মুহূর্তের দেখা মিলবে বলে বিশ্বাস সিটি কোচ গার্দিওলার, যার কাছে আগুয়েরো ‘বিশ্বের অন্যতম সেরা স্ট্রাইকার’।

 

মঙ্গলবার রাতে চ্যাম্পিয়নস লিগে শাখতার দনেৎস্কের বিপক্ষে মাঠে নামবে ম্যানসিটি। ওই ম্যাচে একবার লক্ষ্যভেদ করলেই ক্লাবের সর্বোচ্চ গোলদাতাকে ছুঁয়ে ফেলবেন আগুয়েরো। এখন পর্যন্ত ম্যানসিটির সর্বোচ্চ গোলদাতা এরিক ব্রুক, যিনি সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলে গোল করেছিলেন ১৭৬টি। ক্রিস্টাল প্যালেসের বিপক্ষে প্রিমিয়ার লিগের সবশেষ ম্যাচে আগুয়েরো জাল খুঁজে পেলে তাকে ধরতে আর এক গোল চাই আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডের। সেটা শাখতারের বিপক্ষে চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচেই হয়ে যাবে বলে বিশ্বাস গার্দিওলার, ‘আশা করছি শিগগিরই সে (আগুয়েরো) রেকর্ডটা অর্জন করতে পারবে। তাতে অন্তত এই প্রসঙ্গ নিয়ে কথা বলা বন্ধ হবে। আমি নিশ্চিত পরের ম্যাচেই হয়ে যাবে সেটা (রেকর্ডটা)।’

আগুয়েরোর প্রতি বিশ্বাসটা এই মৌসুমে গার্দিওলার একটু বেশিই। তা হওয়ারই কথা। মৌসুমের শুরু থেকে ছন্দে আছেন সাবেক অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ তারকা। চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত আগুয়েরোর গোল সংখ্যা ৭। প্যালেসের বিপক্ষে সংখ্যাটা আরও বাড়তে পারতো বলে ধারণা গার্দিওলার, ‘শেষ ম্যাচে ও একটা গোল করেছিল, যদিও আর দুটো বা তিনটি ভালো সুযোগ তৈরি করেছিল। এটাই (সুযোগ) আসলে একটা স্ট্রাইকারের জন্য সবচেয়ে জরুরি।’ চলতি মৌসুমের আগুয়েরো তাই সাবেক বার্সেলোনা কোচের কাছে, ‘কোনও সন্দেহ নেই আগুয়েরো বিশ্বের অন্যতম সেরা স্ট্রাইকার।’ মার্কা

আর্সেনালের টানা জয়

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে টানা জয়ের ধারায় রয়েছে আর্সেনাল। ওয়েস্ট ব্রমউইচকে ২-০ গোলে হারিয়েছে তারা। এ নিয়ে লিগে টানা তিনটি জয় পেলো গানাররা।
ঘরের মাঠে এলেই অন্যরকম উত্তেজনায় থাকেন আর্সেনালের ফরাসি স্ট্রাইকার আলেক্সান্দ্রো লেকাজেট। ঘরের মাঠে প্রতিটি জয়েই গোল করেছেন। এই ম্যাচেও তার ব্যতিক্রম ছিলেন না। ২০ মিনিটে এগিয়ে নেন দলকে। দুর্দান্ত হেডে জালে বল জড়ান এই তারকা।
এরপরের গোলটি আসে পেনাল্টি থেকে। স্পট কিক থেকে এই গোলটিও করেন ফরাসি স্ট্রাইকার লেকাজেট। ডি বক্সে ক্যামেরুন ডিফেন্ডার নিওম ফাউল করেছিলেন মিডফিল্ডার অ্যারন রামসিকে।
এই জয় গানারদেরকে টেবিলে তুলে এনেছে সপ্তম স্থানে। ৬ ম্যাচে যাদের সংগ্রহ ১১ পয়েন্ট। সমান ম্যাচে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে ম্যানচেস্টার সিটি

পেনাল্টির দায়িত্ব ছাড়তে কাভানিকে অর্থের প্রস্তাব দেয়নি পিএসজি

পেনাল্টি নেওয়ার দায়িত্ব কার? নেইমার-কাভানির দ্বন্দ্বের পর এ নিয়ে মুখরোচক খবর চলছে সবখানেই। সবশেষ শোনা যাচ্ছে কাভানির কাছ থেকে এই দায়িত্ব নেইমারকে দিতে ১০ লাখ ইউরো প্রস্তাব করেছেন পিএসজি সভাপতি নাসের আল খেলাইফি! যদিও এই খবর সত্য নয় বলেই দাবি তার।

 

লিওঁর বিপক্ষে গত হোম ম্যাচে ঘটেছিল এই ঘটনা। স্পট-কিক নিয়ে মাঠে কথা-কাটাকাটি হয় নেইমার ও কাভানির। দ্বিতীয়ার্ধে ঘটে যাওয়া এই ঘটনাই পরে আলোচিত হয় সবচেয়ে বেশি। যেই ঘটনা গড়ায় ড্রেসিংরুমেও। পিএসজি কোচ উনাই এমেরিও অবশ্য সংবাদ সম্মেলনে দুই খেলোয়াড়কে বিষয়টি সমাধান করতে বলেছেন।

খেলার সময় নেইমার স্পট কিক নিতে চাইলেও তাতে রাজি হননি কাভানি। বলা হচ্ছে দ্বিতীয়বার এমন ঘটনা ঘটেছে দুজনের মাঝে। আর সেই ঝামেলা মেটাতেই মুখরোচক নানা খবর ভেসে বেড়াচ্ছে সংবাদ মাধ্যমে। এরপর নড়ে চড়ে বসে পিএসজি। ফরাসি পত্রিকা লে পেরিসিয়েন সোমবার জানিয়েছে, এমন খবর সত্য নয়।

টুইটারে ফরাসি এই পত্রিকা জানিয়েছে, ‘অর্থের বিনিময়ে কাভানির কাছ থেকে স্পক কিক ফিরিয়ে নেওয়ার যেই খবরটি রয়েছে তা আনুষ্ঠানিকভাবে নাকচ করেছে পিএসজি।’

গত সপ্তাহে মঁপেলিয়ের সঙ্গে গোল শূন্য ড্রয়ের ম্যাচে ছিলেন না নেইমার। তবে এই সপ্তাহে চ্যাম্পিয়নস লিগে বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে খেলার সম্ভাবনা রয়েছে কাভানি ও নেইমারের।



Go Top