সকাল ৬:০২, শুক্রবার, ২০শে অক্টোবর, ২০১৭ ইং
/ ঢাকা

ঢাকার সাভারের আশুলিয়ায় একটি হোটেলে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে এক নারী শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। ডিইপিজেড ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার আব্দুল হামিদ মিয়া জানান, আশুলিয়ার বাইপাইল এলাকার মা হোটেল অ্যান্ড রেস্টুরেন্ট-২ এ শনিবার গভীর রাতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতের নাম মালেকা বেগম (৩৮) বলে জানালেও তার বিস্তারিত পরিচয় নিশ্চিত করতে পারেনি পুলিশ।  হোটেলের মালিক জাহেদুল ইসলাম বলেন, হোটেলের রান্নার কাজের জন্য শনিবার মালেকাকে নিয়োগ দেওয়া হয়। রাতে হোটেলের রান্নাঘরে তরকারি গরম করছিলেন তিনি।

“এ সময় সিলিন্ডারটি বিস্ফোরিত হয়ে আগুন লেগে যায়;পরে দ্রুতই তা রান্নাঘরে ছড়িয়ে পড়ে। আগুনে দগ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মালেকার মৃত্যু হয়।” এ সময় দৌঁড়ে বের হতে গিয়ে হোটেলের দুই পুরুষ শ্রমিকও আহত হয়েছেন বলে জাহেদুল জানান ।

ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তা আব্দুল হামিদ বলেন, খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এরপর হোটেলের রান্নাঘর থেকে এক নারীর পোড়া লাশ তারা উদ্ধার করেন।

আশুলিয়া থানার ওসি আবদুল আউয়াল বলেন, যে ব্যক্তি ওই নারীকে কাজের জন্য  নিয়ে আসে তাকে খবর পাঠানো হয়েছে। তার কাছ থেকে পরিচয় নিশ্চিত করা যাবে।

লাশ থানায় রাখা হয়েছে বলে এ পুলিশ কর্মকর্তা জানান।  

 

টঙ্গীতে তরুণকে কুপিয়ে হত্যা

গাজীপুরের টঙ্গীতে ‘পূর্বশত্রুতার জেরে’ এক তরুণকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। টঙ্গী থানার এসআই মো. আশরাফুল হাসান জানান, শুক্রবার রাত ১০টার দিকে টঙ্গীর মোক্তারবাড়ি এলাকায় হত্যাকাণ্ডের এ ঘটনা ঘটে।

নিহত সৈকত (২৪) দত্তপাড়া টেকবাড়ি এলাকার কবির হোসেনের ছেলে। এসআই আশরাফুল এলাকাবাসীর বরাতে বলেন, মোক্তারবাড়ির এক্সিলেন্ট স্কুল রোড এলাকার একটি গলিতে কয়েকজন লোক সৈকতকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা তাকে ঢাকার উত্তরা আধুনিক মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

“তার মাথায় ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। পূর্বশত্রুতার জেরে হত্যাকাণ্ডের এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।”

খুনি গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে জানিয়ে তিনি বলেন, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 

সাভারে পাওনা টাকার জন্য ‘নির্যাতনের পর হত্যা’

ঢাকার সাভার উপজেলায় দোকানের বকেয়া টাকা পরিশোধ করতে না পারায় এক নারীশ্রমিককে রাস্তা থেকে ধরে নিয়ে আটকে রেখে নির্যাতনের পর হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

আশুলিয়া থানার এসআই আব্দুল আজিজ জানান, নিশ্চিন্তপুর এলাকার কোন্ডবাগ মহল্লার সাইদুলের বাড়ি থেকে শুক্রবার বিকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।

নিহত মর্জিনা আক্তার (৩৬) রংপুরের কোতোয়ালি থানার সম্মানপুর এলাকার মো. শাহেদের স্ত্রী। তিনি আশুলিয়ার ঘোষবাগ এলাকায় নাসা গ্রুপের পোশাক কারখানায় চাকরি করতেন। ওই কারখানার পেছনে রফিকের বাড়িতে ভাড়া থাকতেন।

এসআই আজিজ প্রতিবেশীদের বরাতে বলেন, কয়েক মাসে আগে মর্জিনার স্বামী অসুস্থ হয়। এরপর থেকে চিকিৎসা ও পরিবারের খরচ মেটাতে প্রতিমাসে তাকে হিমশিম খেতে হয়। ফলে আশপাশের বিভিন্ন দোকানে দেনা পড়তে শুরু করে। কয়েক মাসে প্রায় ৩০ হাজার টাকা দেনা হয়। পাওনাদাররা প্রায়ই তাকে গালমন্দ করত।

এরপর বুধবার মর্জিনাকে রাস্তা থেকে ধরে নেওয়া হয় বলে তার কিশোরী মেয়ে শারমিন আক্তারের অভিযোগ। শারমিন বলেন, “গ্রাম থেকে এসেছিলাম মায়ের সঙ্গে থেকে চাকরি করার জন্য। অনেক দিন বসে থেকেও চাকরি না পাওয়ায় বাড়িতে ফিরে যাচ্ছিলাম । মা আমাকে বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত এগিয়ে দিচ্ছিল।

“পথে এলাকার রফিক, জসিম, কাসেম, হৃদয়সহ আরও কয়েকজন তাদের দোকানের বকেয়া টাকার জন্য মাকে ও আমাকে ধরে নিয়ে যায়। তারা মাছ বিক্রেতা সাইদুলের বাড়িতে ধরে নিয়ে আমাদের মারধর করে। পরে আমাকে ছেড়ে দিয়ে মাকে একটি ঘরে ঢুকিয়ে দরজায় তালা দিয়ে রাখে।”

শারমিন টাকা যোগাড়ের জন্য দুই দিন চেষ্টা করার পর শুক্রবার বিকালে ওই বাড়িতে যান। কিন্তু মায়ের কোনো সাড়া না পেয়ে এলাকাবাসীকে জানান। এলাকাবাসী সাইদুলের বাড়ির একটি ঘরে গলায় ওড়না পেঁচানো ঝুলন্ত লাশ দেখে পুলিশে খবর দেয়।

শারমিনের অভিযোগ, নির্যাতনের পর তার মাকে হত্যা করে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। তিনি তার মায়ের হত্যাকারীর শাস্তি দাবি করেন।

আশুলিয়া থানার ওসি আবদুল আউয়াল বলেন, এ ঘটনায় যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের কথা শোনা যাচ্ছে তারা সবাই পলাতক রয়েছে। তাদের আটকের চেষ্টা চলছে। এ ব্যাপারে আশুলিয়া থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 

গাজীপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে কৃষকের মৃত্যু

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। মাওনা ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. নুরুল ইসলাম জানান, মঙ্গলবার সকালে তার ইউনিয়নের ইন্দ্রপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ফেলু মিয়া (৪২) ওই এলাকার হোসেন মিয়ার  ছেলে। নুরুল ইসলাম বলেন, ইন্দ্রপুর-বারতোপা রাস্তার পাশ দিয়ে কড্ডা থেকে মাওনা এলাকায় বিদ্যুতের লাইন রয়েছে। লাইনটির খুঁটি যাতে হেলে না পড়ে তার জন্য বিভিন্ন স্থানে মাটির সঙ্গে খুটিতে টানা দেওয়া আছে।

“ইন্দ্রপুর এলাকায় খুটির টানা তার একটি কাঠালগাছে সংযুক্ত করে মাওনা পল্লীবিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ। সম্প্রতি খুঁটিটি হেলে গেলে বিদ্যুতের তার কাঠাল গাছের সঙ্গে খুটির টানা তারে যুক্ত হয়ে বিদ্যুতায়িত হয়ে পড়ে।”

তিনি বলেন, “মঙ্গলবার সকালে ওই কাঠাল গাছের নিচে গরুর জন্য ঘাস কাটতে গেলে ফেলু ওই টানা দেওয়া তারে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান।”

মাওনা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের এজিএম মো. তাজুল ইসলাম বলেন, “কয়েকমাস আগে ৩৩ কেভির নতুন এ লাইনটি হয় চালু হয়। টানাটি কেন কাঁঠাল গাছে বাঁধা হয়েছে, তা ঘটনাস্থল পরিদর্শন না করে বলতে পারছি না।”

তবে খুঁটি হেলে পড়ার বিষয়ে তাদের কাছে কোনো তথ্য ছিল না বলে জানান তিনি।

 

কেরানীগঞ্জে ১৫ কেজি গাঁজাসহ গ্রেপ্তার ২

ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ উপজেলায় ১৫ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক বিক্রেতাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ঢাকা দক্ষিণ গোয়েন্দা পুলিশের ওসি দীপকচন্দ্র সাহা জানান, উপজেলার ইকুরিয়া বেবিস্ট্যান্ড এলাকা থেকে সোমবার রাতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতদের নাম মো. আলাউদ্দিন (৪০) ও পারভিন (৩৮) বলে জানালেও পুলিশ তাদের পরিচয় বলতে পারেনি। ওসি দীপক বলেন, “গোপন তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। তারা মাদক বিক্রেতা। তাদের হেফাজত থেকে ১৫ কেজি গাঁজা উদ্ধার করা হয়েছে।” মামলার পর তাদের আদালতে পাঠানো হবে বলে জানান তিনি।

 

সখীপুরে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে গ্রেপ্তার

টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলায় পাঁচ বছরের শিশুকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। জেলার সহকারী পুলিশ সুপার আশরাফ-উল-ইসলাম জানান, রোববার বিকালে উপজেলার নলুয়া গ্রামের বাসিন্দা আক্কাছ আলী ওই শিশুটিকে ধর্ষণ করেন বলে তার মায়ের অভিযোগ।

মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে, শিশুটি আক্কাছের বাড়িতে আক্কাছের মেয়ের সঙ্গে টেলিভিশন দেখছিল। আক্কাছ তার মেয়েকে ডাল আনতে স্থানীয় বাজারের পাঠিয়ে শিশুটিকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এ সময় বাড়িতে অন্য কেউ ছিল না। পরে শিশুটির চিৎকারে পাশের বাড়ির লোকজন এগিয়ে গেলে আক্কাছ পালিয়ে যান।

এ ঘটনায় শিশুর মা সোমবার দুপুরে সখীপুর থানায় মামলা করেছেন জানিয়ে ওসি মো. মাকছুদুল আলম বলেন, আটকের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আক্কাছ ধর্ষণচেষ্টার কথা স্বীকার করেছেন।

 

সাভারে কলেজছাত্র হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার ৩

সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধি : সাভারের বিপিএটিসি এলাকায় উত্তরার মাইলস্টন স্কুল এন্ড কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্র কামরুজ্জামান হাসানকে হত্যার ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। প্রায় দেড় মাস পর এই হত্যাকান্ডের ঘটনায় ৩ কলেজছাত্রকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা সকলেই নিহত হাসানের বন্ধু।  সোমবার ভোর রাতে সাভারের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।  

নিহত কামরুজ্জামান হাসান আশুলিয়ার গাজিরচট এলাকার হারুনুর রশিদের ছেলে। সে রাজধানীর উত্তরা মাইলস্টন স্কুল এন্ড কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্র ছিলো। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো আশুলিয়া এলাকার চাঁন মিয়ার ছেলে ইকরাত, ধামরাই এলাকার মো. সহিদুর রহমানের ছেলে সাইম ওরফে সায়েম হাসান ও অপর জন সিরাজগঞ্জের আবদুল খালেকের ছেলে নাইমুল ইসলাম দুর্জয়। গ্রেফতারকৃত তিনজন সাভারের বিপিএটিসি স্কুল এন্ড কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্র।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সাভার মডেল থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক ফরিদ আহাম্মেদ জানান, গত ২১ আগষ্ট ঢাকা আরিচা মহাসড়কের সাভারের বিপিএটিসি এলাকায় পূর্বের ঘটনাকে কেন্দ্র করে হাসানকে তার  বন্ধুরা পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। হাসপাতালে নিয়ে গেলে সে মারা যায়। তবে ময়না তদন্তের প্রতিবেদনের পর নিহতের বাবা বাদী হয়ে হত্যা মামলা দায়ের করেন। তারি পরিপ্রেক্ষিতে ৩জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। বাকীদের গ্রেপ্তার করতে চেষ্টা চলছে।

সাভারে অপহৃত যুবক উদ্ধার, গ্রেফতার ৪

সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধি : সাভার সদর ইউনিয়নের দেওগাঁ গ্রাম থেকে এক অপহৃত ব্যক্তিকে উদ্ধার ও নারীসহ চার অপহরণকারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত রোববার সন্ধ্যায় ওই এলাকার একটি বাড়ীতে অভিযান চালিয়ে আব্দুল গাফ্ফারকে উদ্ধার করা হয়। এ সময় গ্রেফতার করা হয়- মনির, মামুন, সাইদুর ও তাদের নারী এক সহযোগী লাবনীকে। গত বুধবার সকালে তাদের আদালতে প্রেরন করা হয়েছে। সাভার মডেল থানাপুলিশের পরিদর্শক (ওসি) মহসিনুল কাদির জানান, গাফ্ফারের পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে সাভার সদর ইউনিয়নের দেওগাঁ গ্রামে অভিযান চালানো হয়। এ সময় গাফ্ফারকে উদ্ধার করা ও তাকে অপহরণের ঘটনায় চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় সাভার থানায় মামলা হয়েছে। 

‘ইয়াবার’ জন্য কিশোরকে হত্যা, আটক ৩

‘ইয়াবা বিক্রি নিয়ে বাকবিতণ্ডার জেরে’ গাজীপুরে কিশোরকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগে তার এক ভাইসহ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। বুধবার জয়দেবপুর থানার চক্রবর্তী পুলিশ ফাঁড়ির এসআই হারুন অর রশীদ এ কথা জানান।

মৃত কিশোর সাইদুল ইসলাম গাজীপুর সিটি করপোরেশনের শৈলডুবি এলাকার সিরাজুল ইসলামের ছেলে। আটকরা হলেন- সাইদুল ইসলামের বড় ভাই সাইফুল ইসলাম ও প্রতিবশী মনির ও হাসান।

এসআই হারুন বলেন, দুই দিন আগে সাইদুল নিখোঁজ উল্লেখ করে গত ১০ সেপ্টেম্বর জয়দেবপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করে তার পরিবার।

“পুলিশ ঘটনার তদন্তে নেমে মঙ্গলবার গভীররাতে হাসানকে আটক করে। পরে তার দেওয়া তথ্যে কাশিমপুরের বাগবাড়ির একটি জঙ্গল থেকে সাইদুলের লাশ উদ্ধার এবং বুধবার সকালে অপর দুইজনকে আটক করা হয়।”

এসআই আরও বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটকরা সাইদুলকে ‘ইয়াবা বিক্রি নিয়ে বাকবিতণ্ডার জেরে’ কুপিয়ে হত্যার কথা স্বীকার করেছে।

 

বুড়িগঙ্গায় যুবকের অর্ধগলিত লাশ

ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ উপজেলায় বুড়িগঙ্গা নদী থেকে অজ্ঞাতপরিচয় এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার হাসনাবাদ নৌ পুলিশ ফাঁড়ির এসআই মো. শহিদুল ইসলাম জানান, পোস্তগোলা এলাকা সংলগ্ন বুড়িগঙ্গায় মঙ্গলবার রাতে লাশটি ভাসতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়।

পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

আনুমানিক ৩০ বছর বয়সী ওই যুবকের পরিচয় জানা যায়নি।

এসআই শহিদুল বলেন, অর্ধগলিত লাশটি দেখে শরীরের কোথাও আঘাতের চিহ্ন আছে কিনা বোঝা যায়নি। দেখে মনে হয়েছে, ৫/৬ দিন আগে ওই যুবকের মৃত্যু হয়েছে।

এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করা হয়েছে বলে জানান এ পুলিশ কর্মকর্তা।

 

বাসের ধাক্কায় নসিমন উল্টে চালকের মৃত্যু

ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলায় যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় নসিমন উল্টে চালকের মৃত্যু হয়েছে। নবাবগঞ্জ থানার এসআই আলমগীর কবির জানান, মঙ্গলবার রাতে ঢাকা-দোহার সড়কের মাঝিরকান্দা চালনাই ইটভাটার কাছে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত মো. মিঠুন হোসেন (৩০) দোহার উপজেলার চর লটাখোলা এলাকার আবুল হোসেনের ছেলে। দোহারের জয়পাড়া বাজার থেকে নসিমনে করে এক ব্যবসায়ীর মালামাল নিয়ে নবাবগঞ্জে আসার পথে তিনি দুর্ঘটনায় পড়েন।

মৈনট ঘাট থেকে গুলিস্থানগামী যমুনা পরিবহনের একটি বাস পেছন থেকে ধাক্কা দিলে নসিমনটি উল্টে যায় এবং ঘটনাস্থলেই মিঠুনের মৃত্যু হয় বলে জানান এসআই আলমগীর।

তিনি জানান, নিহতের পরিবারের আবেদনে ময়নাতদন্ত ছাড়াই মঙ্গলবার রাতে মিঠুনের লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে।

 

গাজীপুরে ভুয়া চিকিৎসককে দণ্ড

নিজের নামের সঙ্গে এমবিবিএস চিকিৎসকের নাম যোগ করে চিকিৎক হিসেবে কাজ করার অপরাধে গাজীপুরে এক যুবককে তিন মাসের কারাদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

গাজীপুরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. রাসেল মিয়া জানান, আজহারুল ইসলাম (৩৫) নামে এসএসসি পাস এই যুবক সালনা রেলওয়ে ওভার ব্রিজের পাশে মেডিল্যাব ডায়াগনস্টিক সেন্টারে কাজ করছিলেন।

মঙ্গলবার বিকালে তাকে আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদে প্রকৃত তথ্য ফাঁস হয় জানিয়ে তিনি বলেন, আজহারুল ইসলাম নিজের নামের শেষে ‘মো. মাসুদ’ নামের এমবিবিএস চিকিৎসকের নাম ও রেজিস্টেশন নম্বর ব্যবহার করে ওই প্রতিষ্ঠানে কাজ করছিলেন।

“জালিয়াতি প্রমাণিত হওয়ায় আইন অনুযায়ী ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে এক লাখ টাকা জরিমানা করে, অনাদায়ে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়। আজহারুল জরিমানার টাকা পরিশোধ করতে না পারায় আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছে।

 

প্রাইভেটকারের ধাক্কা বান্ধবীর বাসায় যাওয়ার বদলে লাশ হয়ে মর্গে

বান্ধবীর বাসায় দাওয়াত ছিল আসমা বেগমের (৩৫)। তাই তিন বছর বয়সী মেয়ে নূর নাহারকে সঙ্গে করে শনিবার সকালে রাজধানীর ধোলাইপাড়ের বাসা থেকে বের হন তিনি। কিন্তু যাত্রাবাড়ীর মেয়র মোহাম্মদ হানিফ উড়ালসড়কের নিচে রাস্তা পার হওয়ার সময় বেলা ১১টার দিকে দ্রুতগতির একটি প্রাইভেটকার মা-মেয়েকে ধাক্কা দেয়।

স্থানীয় উদ্ধার করে দুপুর ১২টার দিকে তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক আসমা বেগমকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে ঢামেক মর্গে গিয়ে স্ত্রীর লাশ শনাক্ত করেন স্বামী আবুল কাশেম। তার আহাজারিতে ভারী হয়ে ওঠে মর্গ এলাকা। এ সময় ক্ষুব্ধ শোকার্ত আবুল কাশেম বলেন, ‘অহন আমি কার কাছে বিচার চামু। মামলা কইরা তো বিচার হয় না। গাড়িটারে পাবলিকে ধাওয়া দিসিল। কিন্তু ধরতে পারে নাই। পুলিশ ধরসে কি না জানি না।’ আবুল কাশেম বলেন, ধোলাইড়পাড়ের এক নম্বর গলিতে তারা বসবাস করেন। দুই ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে তাদের সংসারে। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন যাত্রাবাড়ী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) শিল্পী আক্তার।

 

শ্রীপুরে ২ মাদক বিক্রেতা গ্রেপ্তার

গাজীপুরের শ্রীপুর পৌরসভায় টাকা ও ইয়াবাসহ দুই মাদক বিক্রেতাকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন – পৌরসভার বৈরাগীরচালা গ্রামের আব্দুল হামিদের ছেলে জহির (২৮) ও সেলিম মিয়ার ছেলে মনিরুল হাসান (২৫)।

র‌্যাব ১-এর কোম্পানি কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহিউল ইসলাম বলেন, মাদক কেনাবেচা হচ্ছে বলে গোপনে খবর পেয়ে জহিরের বাড়িতে অভিযান চালানো হয়।

“এ সময় দুইজনকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করা হলেও অপর একজন পালিয়ে গেছে। তাদের কাছ থেকে ৪৮৮টি ইয়াবা, ২৩ হাজার ৫২৭ টাকা ও দুটি মোবাইল ফোনসেট জব্দ করা হয়।”

এ ঘটনায় তিনজনের নাম উল্লেখ করে শ্রীপুর থানায় মাদক আইনে মামলা করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

 

এই বিভাগের আরো খবর

কেরানীগঞ্জের জঙ্গলে শিশুর হাত-পা বাঁধা লাশ

ঢাকার কেরানীগঞ্জের একটি জঙ্গল থেকে একদিন আগে নিখোঁজ মাদ্রাসাছাত্রীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মৃত ফারজানা আক্তার (৭) উপজেলার সিরাজনগর উত্তরপাড়া এলাকার মো. কবির হোসেনের মেয়ে ও স্থানীয় কওমী মাদ্রাসার প্রথম শ্রেণির ছাত্রী ।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের জানান, রোববার উত্তরপাড়ার একটি ঝোপে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় শিশুর লাশ পাওয়া যায়। শিশুর পরিবারের বরাত দিয়ে ওসি শাকের জানান, শনিবার বিকাল থেকে নিখোঁজ ছিল ফারজানা। পরিবারের লোকজন কোথাও তার সন্ধান না পেয়ে রাতেই থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছিল।

“রোববার বিকালে বাড়ির পাশের একটি জঙ্গলে স্থানীয়রা ফারজানার হাত-পা বাঁধা লাশ দেখে পুলিশে খবর দেয়। লাশ উদ্ধার করে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।”

শিশুর গলায় কালো দাগ এবং কাপড় ও সুতা পেঁচানো ছিল বলে জানান তিনি। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে এনামুল হক (২৫) ও রহমত আলী (৫৫) নামে নিহতের প্রতিবেশীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে বলে জানান ওসি শাকের।

 

কেরানীগঞ্জে ট্রাকের ধাক্কায় অটোরিকশা-আরোহী নিহত

ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ উপজেলায় ট্রাকের ধাক্কায় এক অটোরিকশাযাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মো. বাচ্চু মিয়া জানান, উপজেলার পোস্তগোলা সেতুতে শুক্রবার রাতে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত মো. বরকত আলী (৪০) রাজধানীর জুরাইনের বাসিন্দা ছিলেন। তিনি রাজমিস্ত্রির কাজ করতেন। এসআই বাচ্চু বলেন, রাতে একটি ট্রাক চলন্ত ওই অটোরিকশাটিকে ধাক্কা দিলে বরকত গুরুতর আহত হন। স্থানীয়রা তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরির পর লাশ হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে বলে এ পুলিশ কর্মকর্তা জানান।

 

তুরাগে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুই জনের মৃত্যু

 রাজধানীর তুরাগে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে আব্দুল হালিম (৪০) ও বুলেট (২৫) নাম দুই জনের মৃত্যু হয়েছে।শুক্রবার (১৫ সেপ্টেম্বর) সকালে তুরাগের একটি পেট্রোল পাম্পে এ দুর্ঘটনা ঘটে।তুরাগ থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) আমজাদ হোসেন  বলেন,

 সকালে তুরাগের ইস্ট-ওয়েস্ট মেডিকেলের সামনের একটি পেট্রোল পাম্পে লোহার মই সরাতে গিয়ে তারের সঙ্গে বিদ্যুতায়িত হন ওই দুইব্যক্তি। দ্রুত তাদের উদ্ধার করে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান এসআই আমজাদ হোসেন।

 

ম্যানহোলে যুবক নিখোঁজ একদিন পর লাশ উদ্ধার

রাজধানীর মিরপুরে ম্যানহোলের ময়লা পরিষ্কার করতে গিয়ে নিখোঁজ হওয়া এক যুবকের (১৯) লাশ উদ্ধার করেছেন ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা। গত মঙ্গলবার বিকালে নিখোঁজ হওয়া ওই যুবকের মরদেহ  বুধবার বিকাল পৌনে চারটার দিকে উদ্ধার করা হয়। স্থানীয়রা তাকে শনাক্ত করতে পারেননি। তার পরিচয় জানার চেষ্টা করছে পুলিশ।

ফায়ার সার্ভিস সদর দফতরের ডিউটি অফিসার মোঃ রাসেল জানান, মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে চারটার দিকে মিরপুর-২ নম্বরের সাত নম্বর সেকশনের চলন্তিকা মোড়ে একটি ম্যানহোলে ময়লা পরিষ্কার করতে গিয়ে নিখোঁজ হন ওই যুবক। এরপর রাত ১০টা পর্যন্ত ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা তাকে উদ্ধারে তল্লাশি অভিযান চালান। লাশ না পেয়ে তখন তল্লাশি অভিযান স্থগিত রাখা হয়। বুধবার সকাল ১০টা থেকে আবারও উদ্ধার অভিযান শুরু করে ফায়ার সার্ভিসের তিনটি দল। বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে ওই ম্যানহোলের ভেতর থেকে মৃত অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করা হয়। তার আনুমানিক বয়স ১৯ বছর। উদ্ধারের পর স্থানীয় থানা পুলিশকে লাশটি বুঝিয়ে দেয় ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষ। রূপনগর থানার ডিউটি অফিসার এসআই রাশিদুল ইসলাম বলেন, ‘ম্যানহোলে পড়ে নিহত যুবকের লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠানো হয়েছে।’

 

তুরাগে কিশোরীকে রাতভর গণধর্ষণ

রাজধানীর তুরাগে ১৩ বছর বয়সী এক কিশোরী গনধর্ষণের শিকার হয়েছে। এ ঘটনায় শিপন ও রুবেল নামে দুই বখাটেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত মঙ্গলবার রাতে ওই কিশোরীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করা হয়েছে।

নির্যাতীত কিশোরীর বাবা জানান, তিনি সপরিবারে তুরাগ থানা এলাকার একটি বস্তিতে ভাড়া থাকেন। গত ৯ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যার পর শিপন ও রুবেলসহ কয়েকজন ওই কিশোরীকে  মুখ চেপে ধরে পাশের বস্তির একটি রুমে নিয়ে রাতভর পালাক্রমে ধর্ষণ করে। ১০  সেপ্টেম্বর দুপুরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে উদ্ধার করা হয়। তুরাগ থানার পরিদর্শক (অপারেশন্স) দুলাল হোসেন বলেন, ১০ সেপ্টেম্বর ওই কিশোরীর বাবা তুরাগ থানায়  নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন। এরপর মঙ্গলবার শিপনকে এবং বুধবার রুবেলকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

 

গাজীপুরে বাস চাপায় প্রাণ গেল যুবকের

গাজীপুরের শ্রীপুরে রাস্তা পারাপারের সময় বাস চাপায় এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।  উপজেলার বেড়াইদেরচালা এলাকার ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে মঙ্গলবার সকালে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে মাওনা হাইওয়ে থানার ওসি মো. দেলোয়ার হোসেন জানান।

নিহত সোহাগ মিয়া (২৮) ময়মনসিংহের পাগলা থানার পাইথল গ্রামের সোহরাব উদ্দিনের ছেলে। তিনি শ্রীপুরের কেওয়া পূর্বখণ্ড গারোপাড়া এলাকায় একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। ওই এলাকায় একটি মুদির দোকান চালাতেন তিনি।

ওসি দেলোয়ার বলেন, মঙ্গলবার বেলা ১১টায় দিকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক হেঁটে পারাপারের সময় একটি বাস সোহাগকে চাপা দিলে গুরুতর আহত হন তিনি। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় পদ্মা হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে  মৃত ঘোষণা করেন।

পরিবারের কোনো অভিযোগ না থাকায় ময়নাতদন্ত ছাড়াই সোহাগের লাশ তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

 

ঢাকায় দুর্ঘটনায় স্কুলছাত্রীর মৃত্যু, বাসে আগুন

রাজধানীর কাফরুলে বাসের ধাক্কায় এক স্কুলশিক্ষার্থীর মৃত্যুর পর ওই বাহনে আগুন দিয়েছে উত্তেজিত জনতা।  কাফরুল থানার উপ পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম জানান, মঙ্গলবার বেলা সোয়া ১২টার দিকে কাজীপাড়া আল হেলাল হাসপাতালের কাছে এ ঘটনা ঘটে।

তাসনিম আলম তিশা নামের ১২ বছর বয়সী মেয়েটি মিরপুরের আইডিয়াল গালর্স স্কুলের পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ত। স্কুল শেষে পশ্চিম কাজীপাড়ায় বাসায় ফেরার পথে রাস্তা পার হওয়ার সময় তেঁতুলিয়া পরিবহনের একটি বাস তাকে ধাক্কা দেয়।

গুরুতর অবস্থায় মেয়েটিকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন বলে এসআই রফিকুল জানান। তিনি বলেন, দুর্ঘটনার পরপরই বিক্ষুদ্ধ জনতা ওই বাসে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এসে আগুন নেভায়।

উত্তেজিত জনতা বেশ কিছুক্ষণ রাস্তায় বিক্ষোভ করলে রোকেয়া সরণিতে যান চলাচল বন্ধ থাকে। পরে পুলিশ তাদের সরিয়ে দিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে।

বাসটির সঙ্গে হেলপার আব্দুর রহিম বাচ্চুকে স্থানীয়দের সহযোগিতায় আটক করা গেলেও চালক পালিয়ে গেছে বলে এসআই রফিকুল জানান।

 

লিবিয়ায় অপহরণ: বাংলাদেশে দুই নারীসহ গ্রেপ্তার ৬

লিবিয়ার বিভিন্ন স্থানে অন্তত দেড়শ বাংলাদেশিকে আটকে রেখে কোটি টাকা মুক্তিপণ আদায়ের চেষ্টারত একটি চক্রের বাংলাদেশে অবস্থানরত ছয়জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারদের মধ্যে লিবিয়ায় অপহরণকারী দলের প্রধান বাকির মিয়ার স্ত্রী নাজনীন, অপহরণকারী দলের সদস্য লিবিয়া প্রবাসী জাকির হোসেনের আত্মীয় (স্ত্রীর ভাইয়ের স্ত্রী) বেবী আক্তার এবং একই দলের অপর সদস্য কবির হোসেনের বড়ভাই নুরুল হক রয়েছেন। এছাড়া কামাল উদ্দিন, আবু কাশেম ও মামুন মিয়া নামে তিন বিকাশ এজেন্টকে ধরা হয়েছে।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের(পিবিআই) ঢাকা মেট্রোর বিশেষ পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদ রোববার আগারগাঁওয়ে নিজের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে জানান, গত দুই দিন দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

“ভিডিওর মাধ্যমে লিবিয়ায় অপহৃতদের যে চিত্র তারা পাঠিয়েছে তা ভয়াবহ,” বলেন তিনি। নওগাঁ জেলার রায়নগর থানা এলাকার বাসিন্দা পঞ্চাশোর্ধ্ব তসলিম প্রামানিকের ছেলে আইয়ুব আলী (২৫) ২০১২ সালে বৈধভাবে লিবিয়া যান। সেখানে একটি পেট্রোলপাম্পে চাকরি করে দেশে টাকাও পাঠিয়ে আসছিলেন।

গত ২১ জুলাই তার ছেলে ফোন করে জানায়, কয়েকজন অজ্ঞাতনামা বাংলাদেশি তাকে অপহরণ করে পাসপোর্টসহ সব কেড়ে নিয়েছে এবং মুক্তিপণ হিসাবে পাঁচ লাখ টাকা চাচ্ছে। এ সময় মোবাইল অ্যাপ ইমোর মাধ্যমে আইয়ুব আলীর উপর নির্যাতনের দৃশ্য দেখানো হয়।

একই জেলার পতিতলা থানার মো. রব্বানী জানান,  তার ভাই মো. রুবেল (২৮) ২০১৩ সালে টাইলস মিস্ত্রি হিসাবে বৈধভাবে লিবিয়া গিয়ে নিয়মিত টাকা পাঠাতেন। গত ২১ জুলাই একইভাবে লিবিয়া থেকে ফোন আসে এবং নির্যাতনের দৃশ্য দেখিয়ে মুক্তিপণের জন্য ১০ লাখ টাকা দাবি করা হয়।

পিবিআই কর্মকর্তা আজাদ বলেন, এই দুই পরিবারের সদস্যদের মধ্যে তসলিম প্রামানিক অপহরণকারী চক্রকে পুরো টাকা দিয়েছেন আর রব্বানী দিয়েছেন অর্ধেকের বেশি।

“কিন্তু অপহরণকারীরা কাউকে না ছেড়ে টাকা চাওয়া অব্যাহত রাখে।” এই দুটি অভিযোগ পাওয়ার পর তদন্ত করতে গিয়ে একটি বড় চক্রের সন্ধান পাওয়া যায় জানিয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশে অন্তত ২৫ জনের একটি চক্র রয়েছে যাদের কেউ না কেউ লিবিয়ায় অপহরণকারী দলে সক্রিয়।

“বিভিন্ন জনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, লিবিয়ায় প্রায় দেড়শ প্রবাসী এই চক্রের কাছে জিম্মি হয়ে আছে। কারও পরিবার কোনো অভিযোগ না করে মোটা অংকের টাকা দিয়ে ছাড়িয়ে নিচ্ছে। অনেকেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আসেন না স্বজনের ক্ষতি হওয়ার ভয়ে।”

আবুল কালাম আজাদ জানান, অপহৃতদের পরিবারের সদস্যরা যেসব বিকাশ নম্বরে টাকা পাঠাতেন সেগুলোর খোঁজ নিয়ে দেখে যায় এর একটি কিশোরগঞ্জের ভৈরবে, অপর দুটি নরসিংদীর রায়পুরায়।

এই সূত্র ধরে পিবিআইর একটি দল ৭ সেপ্টেম্বর মধ্যরাতে কিশোরগঞ্জের বিকাশ এজেন্ট ‘রুপা মেডিকেল হলের’ মালিক কামাল উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করে। তার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী অপহরণকারী চক্রের মূল হোতা লিবিয়া প্রবাসী বাকির মিয়ার স্ত্রী নাজনীনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

“নাজনীন জানায়, স্বামীর নির্দেশনা অনুযায়ী জুলাই মাসের শেষ সপ্তাহে সে এই বিকাশ এজেন্টের কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা নিয়েছে।”

পরদিন শুক্রবার নরসিংদীতে পৃথক অভিযান চালিয়ে বিকাশ এজেন্ট আবু কাশেম ও মামুন মিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বেবী আক্তার ও নুরুল হককে গ্রেপ্তার করা হয়।

“লিবিয়ায় অপহরণকারী দলের সদস্যদের পরামর্শে এই এজেন্টদের কাছ থেকে তারা টাকা গ্রহণ করত,” বলেন পিবিআই কর্মকর্তা আজাদ।

সংবাদ সম্মেলন শেষে অপহরণকারীদের কাছে আটক নওগাঁর আইয়ুব আলীর বাবা তসলিম প্রামানিক কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন,  তার ছেলেকে হাত-পা বেঁধে ঝুলিয়ে লাঠি দিয়ে পেটানো হচ্ছে, আর প্লাস দিয়ে শরীরের চামড়া টানার দৃশ্য তাকে ভিডিওতে দেখানো হয়েছে।

ছেলের মুক্তিপণ হিসেবে এরইমধ্যে পাঁচ লাখ টাকা দিয়েছেন জানিয়ে তিনি বলেন, “তাদের দাবির সব টাকা দেওয়ার পরেও তারা আমার ছেলেকে ছাড়ছে না এবং আরও টাকা দাবি করছে।”

 

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যানবাহনের ধীর গতি

ঢাকা-টাঙ্গাইল ও বঙ্গবন্ধু মহাসড়কের একটি সেতুতে গর্ত সৃষ্টি হওয়া ধীর গতিতে চলছে যানবাহন। শনিবার রাত ১২ টার দিকে টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার মো. মাহবুবুল আলম এ কথা জানান।

তিনি বলেন,  ঢাকা-টাঙ্গাইল ও বঙ্গবন্ধু মহাসড়কের মির্জাপুর উপজেলার পাকুলিয়া ব্রিজের মাঝখানে প্রায় দুই ফুট লম্বা গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।  এ কারণে সড়কটিতে একটি লেইন দিয়ে যানবাহন চলাচল করছে।

“ধীর গতিতে যানবাহন চলাছল করলেও কোথাও কোনো যানজটের সৃষ্টি হয়নি।” পরিস্থিতি মোকাবেলায় ঢাকা-টাঙ্গাইল ও বঙ্গবন্ধু মহাসড়কে অতিরিক্ত পুশিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানান পুলিশ সুপার মাহবুবুল।

 

মানিকগঞ্জে নিখোঁজ নারীর লাশ উদ্ধার

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি: মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলায় নিখোঁজের একদিন পর এক নারীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার তরা পূর্বপাড়া গ্রামে একটি পরিত্যক্ত ভিটায় রেণু রানি ডোমের (৪৫)লাশ পাওয়া যায়। রেণু রানি উপজেলার জাবরা গ্রামের সুধীর ডোমের স্ত্রী। তাদের চার ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। তাকে কুপিয়ে ও শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে পুলিশের ভাষ্য। ঘিওর থানার ওসি রবিউল ইসলাম  জানান, রেণু এলাকায় দুগ্ধ প্রক্রিয়াজতকরণ প্রতিষ্ঠানে পরিচ্ছন্নতা কর্মীর কাজ করেন। স্বামী ও ছোট দুই ছেলেকে নিয়ে রেণু মিল্ক ভিটার পরিত্যক্ত একটি ভবনে থাকতেন।

ওসি বলেন, বৃহস্পতিবার সকাল ৬টার দিকে বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর থেকে রেণু নিখোঁজ ছিলেন। আত্মীয়-স্বজনদের কাছে খোঁজখবর নিয়েও তার কোনো সন্ধান মেলেনি। শুক্রবার সকাল ৭টার দিকে পূর্বপাড়া গ্রামের একটি পরিত্যক্ত ভিটায় তার লাশ দেখেন পরিবারের লোকজন। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করেময়নাতদন্তের জন্য মানকিগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়ছে বলে ওসি জানান। ওসি বলেন, ওই নারীকে কুপিয়ে ও শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় একটি হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এই বিভাগের আরো খবর

ঢাকার নবাবগঞ্জে মাদক সেবনে বাধা দেওয়ায় কুপিয়ে হত্যা

নবাবগঞ্জ প্রতিনিধি: ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলায় ‘মাদক সেবনে বাধা দেওয়ায়’ এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এ অভিযোগে বৃস্পতিবার রাতে নবাবগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা হয়েছে বলে জানান নবাবগঞ্জ থানার পরির্দশক (তদন্ত) আনসারী জিন্নাৎ আলী। নিহত আফজাল হোসেন বাবু (২৫) একই এলাকার মো. মজিদের ছেলে। উপজেলার বক্সনগর ইউনিয়নের দিঘীরপাড়ের মিনাজ উদ্দিনের ছেলে মো. মিজানকে (৩০) আসামি করে মামলাটি দায়ের করেন নিহতের বড় বোন সিনথিয়া আক্তার। মামলার বরাত দিয়ে পরির্দশক আনসারী জিন্নাৎ আলী জানান,বুধবার রাতে বাবু তার বসতঘরের দরজায় ছিটকিনি দিয়ে বাড়ির বেইরে যান।

 এর ফাঁকে মিজান ঘরের ছিটকিনি খুলে তার বসতঘরে ঢুকে মাদক সেবন শুরু করেন। জিন্নাৎ বলেন, পরে বাড়ি এসে বাবু ঘরের ভেতরে মিজানকে মাদক সেবন করতে দেখে বাধা দিলে তাদের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে মিজান ধারালো অস্ত্র দিয়ে বাবুকে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে জখম করেন। বাবুর আর্তচিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে মিজান পালিয়ে যান।

পরিদর্শক বলেন, স্থানীয়রা বাবুকে উদ্ধার করে নবাবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে ঢাকায় পাঠানোর পরামর্শ দেন। বাবুকে প্রথমে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে বুধবার গভীর রাতে তার মৃত্যু হয়। জিন্নাৎ বলেন, ঘটনার পর থেকেই মিজান পলাতক রয়েছেন। তবে তাকে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান ও চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

এই বিভাগের আরো খবর

সাভারে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে আটক ১

ঢাকার সাভারে পাঁচ বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে এক ব্যক্তিকে পিটুনি দিয়ে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে স্থানীয়রা। আটক দ্বীন ইসলাম (৩৮) সাভারের চাঁপাইন এলাকার আজাহার আলীর ছেলে।

সাভার মডেল থানার ওসি মোহসিনুল কাদির জানান, বুধবার সন্ধ্যায় ওই এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য মেয়টিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) পাঠানো হয়েছে।

ওসি মোহসিনুল বলেন,“ বুধবার সন্ধ্যায় মেয়েটি তার এক বান্ধবীর সঙ্গে পাশের বাড়িতে বেড়াতে যাচ্ছিল। এ সময় দ্বীন মেয়েটির বান্ধবীকে আটকে রেখে তাকে ধর্ষণ করে।”

পরে আটকে রাখা মেয়েটির চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে গেলে দ্বীন পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় স্থানীয়রা তাকে আটক করে পিটুনি দেয়। পরে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে বলে জানান ওসি।

নবাবগঞ্জে যুবককে কুপিয়ে হত্যা

পূর্ব বিরোধের জেরে ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলায় এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। নবাবগঞ্জ থানার পরির্দশক (তদন্ত) আনসারী জিন্নাৎ আলী জানান, উপজেলার বকস্নগর ইউনিয়নের দিঘীরপাড় এলাকায় বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আফজাল হোসেন বাবু (২৫) ওই এলাকার মো.মজিদের ছেলে।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে পরিদর্শক জিন্নাৎ বলেন, একই এলাকার মিনহাজ উদ্দিনের ছেলে মিজানের (২৫) সঙ্গে বাবুর বিরোধ চলছিল।  “এর জেরে বুধবার রাতে মিজান ধারালো অস্ত্র দিয়ে বাবুকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করেন। এ সময় বাবুর চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে গেলে মিজান পালিয়ে যায়।”

তাকে গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গভীর রাতে বাবুর মৃত্যু হয় বলে জানান তিনি।   পরিদর্শক জানান, ঘটনার পর থেকে মিজান পলাতক রয়েছেন।তাকে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান চালাচ্ছে। তবে বাবুর সঙ্গে মিজানের বিরোধের কারণ তাৎক্ষণিকভাবে নিশ্চিত করতে পারেননি তিনি।  

লাশ ময়নাতদন্দের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।

ফরিদপুরে ২ জনকে গুলি করে হত্যা

ফরিদপুরে দুইজনকে গুলি করে ও কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে; এ ঘটনায় আরও একজনকে আহত অবস্থায় ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জামাল পাশা জানান, ফরিদপুর শহরতলির শোভারামপুর এলাকায় রোববার রাত ৮টার দিকে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন – ওই এলাকার তারিক  খান (৩০) ও রিপন  শেখ (২৮)।

এলাকাবাসী বলছে, কুমার নদের একই জায়গা থেকে বালু উত্তোলন নিয়ে তারিকের সঙ্গে স্থানীয় এক প্রভাবশালীর বিরোধ ছিল। সন্ধ্যার দিকে তারিক, রিপন ও শরীফসহ কয়েকজন শোভারামপুর এলাকা থেকে অম্বিকাপুর বাজারের দিকে যাচ্ছিলেন।

পথে অম্বিকাপুর রেলসেতুর কাছে কয়েকজন লোকের সঙ্গে তাদের হাতাহাতি হয়। এ সময় গোলাগুলি ও কোপাকুপির ঘটনাও ঘটে। এতে ওই তিনজনই গুরুতর আহত হলে স্থানীয়রা তাদের হাসপাতালে নিয়ে যায়।

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক আবুল কালাম আজাদ বলেন, তারেক ও রিপন হাসপাতালে আনার আগেই মারা যান। গুরুতর আহত শরীফকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তা জামাল পাশা।

 

গাজীপুরে শিশু ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে নানা গ্রেপ্তার

গাজীপুরের শ্রীপুরে উপজেলায় পাঁচ বছর বয়সী নাতনিকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে নানাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শ্রীপুর থানার এসআই মো. নাজমুল শাকিব জানান,উপজেলার এমসি বাজার এলাকার বাড়ি থেকে রোববার রাতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গত বুধবার (৩০ অগাষ্ট) এ ঘটনা ঘটে। রোববার রাতে মেয়েটির মা বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন। গ্রেপ্তার আবুল কাশেমের (৫০) বাড়ি ময়মনসিংহের গফরগাঁও থানার দুবাইল এলাকায়। ওই এলাকার একটি বাড়িতে পরিবার নিয়ে ভাড়া থাকেন তিনি। বাড়ির পাশেই তার একটি মুদির দোকান রয়েছে।

এসআই নাজমুল বলেন, কাশেম বাড়ির পাশের একটি বাড়িতে তার মেয়ের পরিবার থাকে। মেয়ের ঘরের নাতনি প্রায়ই নানার ঘরে গিয়ে ঘুমায়।

“গত মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে কাশেমের নাতনি তার ঘরে ঘুমাচ্ছিল। এ সময় কাশেম বিশ্রাম নেওয়ার কথা দোকান থেকে ঘরের ভেতর যান। পরে দোকান পাহারা দেওয়ার কথা বলে স্ত্রীকে সেখানে পাঠিয়ে দেন।”

“স্ত্রী দোকানে চলে গেলে কাশেম ঘুমিয়ে থাকা নাতনিকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এ সময় নাতনির চিৎকার ও কান্নার শব্দ পেয়ে কাশের স্ত্রী ঘরে যান। তিনি নাতনির কাছে কান্নার কারণ জানতে চাইলে কোন খারাপ স্বপ্ন দেখে ভয় পেয়ে থাকতে পারে বলে কাশেম তাকে জানান।”

এসআই বলেন, ~পরে শিশুটি তার মায়ের কাছে জানায় যে- নানা তার পরনের জামা-কাপড় খুলে ফেলে। এ সময় সে চিৎকার করলে নানা তার মুখ চেপে ধরার চেষ্টা করে।”

“মেয়েটির মা তার স্বামীকে ঘটনাটি জানালে তিনি স্থানীয়দের কাছে মিমাংসার জন্য পরামর্শ চান। কিন্তু রোববার দুপুর তারা মিমাংসার বদলে ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করে।”

পরে মেয়েটির মা রাতেই ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে কাশেমের বিরুদ্ধে শ্রীপুর থানায় মামলা দায়ের করেন বলে জানান তিনি।

 



Go Top