রাত ৪:৩৯, শুক্রবার, ২৩শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং
/ খেলাধুলা / রাশিয়া বিশ্বকাপে রোনালদোর বিশ্বরেকর্ড গড়ার হাতছানি
রাশিয়া বিশ্বকাপে রোনালদোর বিশ্বরেকর্ড গড়ার হাতছানি
অক্টোবর ১৪, ২০১৭

পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থেকে রাশিয়া বিশ্বকাপের টিকিট পেয়েছে পতুর্গাল। শেষ ম্যাচে সুইজারল্যান্ডকে ২-০ ব্যবধানে হারিয়ে শীর্ষে উঠে পর্তুগাল। দুই দলই সমান ২৭ পয়েন্ট অর্জন করেছিল। তবে গোল ব্যবধানে এগিয়ে থেকে পর্তুগাল শীর্ষে উঠে এবং সরাসরি বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে।

পর্তুগালকে বিশ্বকাপে উঠানোর বড় কৃতিত্ব দলটির সেরা তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর। ইউরোর বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা কোয়ালিফাইং রাউন্ডে দারুণ পারফরম্যান্স করেছিল। এ সাফল্যের রূপকার ছিলেন রোনালদো।

২০০৩ সালে পর্তুগালের জার্সি গায়ে জড়ানোর পর থেকে পুরো দলটিকে পাল্টে দিয়েছেন রোনালদো। গত ১৪ বছরে পর্তুগাল মেজর টুর্নামেন্টগুলোর নিয়মিত মুখ। এর আগে ৭৩ বছরেও এতো বড় সাফল্য ছিল না। ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে অষ্টমবারের মতো মেজর কোনো টুর্নামেন্ট খেলতে যাচ্ছেন রোনালদো। এর আগে ৭৩ বছরে মাত্র ছয়বার মেজর টুর্নামেন্ট খেলেছিল পর্তুগাল। এর মধ্যে ১৯৩০ সালে বিশ্বকাপও রয়েছে।

রাশিয়া বিশ্বকাপে নতুন এক বিশ্বরেকর্ড গড়ার অপেক্ষায় ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। আগের সাত টুর্নামেন্টের প্রত্যেকটিতেই রোনালদো গোলের স্বাদ পেয়েছেন। রাশিয়া বিশ্বকাপে একটি গোল করলেই প্রথম ফুটবলার হিসেবে টানা আট মেজর টুর্নামেন্টে গোল করার কীর্তি গড়বেন সিআর সেভেন। এর আগের তিন বিশ্বকাপ এবং চার  ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে রোনালদো ১২ গোল করেছেন।

২০০৪ ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপে পর্তুগালের হয়ে প্রথম গোল করেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। গ্রিসের বিপক্ষে গোল করেও দলকে জয়ের স্বাদ দিতে পারেননি। ওই টুর্নামেন্টের ফাইনালে গ্রিসের কাছেই হেরেছিল পর্তুগাল। পুচকে রোনালদোর কান্নাভেজা মুখ এখনও ফুটবলপ্রেমীদের চোখে লেগে আছে। ২০০৪ ইউরোর সেমিফাইনাল ম্যাচে নেদারল্যান্ডের বিপক্ষে গোল পেয়েছিলেন রোনালদো।

২০০৬ বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে অংশ নেন রোনালদো। ইরানের বিপক্ষে নিজের দ্বিতীয় ম্যাচে লক্ষ্যভেদ করেন রোনালদো। ২০০৮ ইউরো এবং ২০১০ বিশ্বকাপে একটি করে গোলের স্বাদ পান চারবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী রোনালদো। সময়ের সঙ্গে রোনালদো হয়েছেন আরও পরিণত, আরও উন্নত।

২০১২ ইউরোতে রোনালদো তিন গোল করে দলকে শিরোপা দিতে পারেননি। কিন্তু ২০১৬ সালে স্বপ্নের মতো কাটে ৩২ বছর বয়সি এ ফুটবলারের। দলকে শিরোপা জেতানোর পাশাপাশি তিন গোল করেছিলেন। মাঝে ব্রাজিল বিশ্বকাপেও পেয়েছিলেন এক গোল।

ক্লাবের সাফল্যের পাশাপাশি জাতীয় দলের জার্সিতে রোনালদোর অবদান কম নয়। সর্বকালের সেরা ফুটবলারের খেতাব রোনালদো পেয়েছেন বহু আগেই। এবার রাশিয়া মঞ্চে নিজের শ্রেষ্ঠত্ব আরেকবার দেখানোর পালা। একটি গোল রোনালদোর সাফল্যের মুকুটে এনে দিবে নতুন পালক। রোনালদো ভক্তরা সেই মাহেন্দ্রক্ষণের অপেক্ষায়। কীর্তিমানের কীর্তি দেখার অপেক্ষায় রাশিয়াও।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top