ভোর ৫:৪১, শনিবার, ১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং
/ Top News / ক্ষেতলালে ভ্রাম্যমাণ সেচ ব্যবসা জমজমাট
ক্ষেতলালে ভ্রাম্যমাণ সেচ ব্যবসা জমজমাট
ডিসেম্বর ৬, ২০১৭

নজরুল ইসলাম আকন্দ, ক্ষেতলাল (জয়পুরহাট) : জয়পুরহাটের ক্ষেতলালে কৃষি কাজের সেচসহ পুকুর, ডোবা ও জলাশয়ের পানি উত্তোলনের জন্য এক সময় ডিজেল চালিত শ্যালো মেশিন ব্যবহার করে সেচ কাজ চলত। বর্তমান ডিজেল চালিত শ্যালো মেশিন দিয়ে পানি সেচের পরিবর্তে বিদ্যুৎ চালিত সাব-মারসিবল পাম্প দিয়ে পানি সেচের খরচ কম হওয়ায় কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় পার্শ্ব সংযোগের মাধ্যমে ভ্রাম্যমাণ সাব-মারসিবল পাম্প দিয়ে চলছে ওই সব সেচ কার্যক্রম।
সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির নিয়মনীতি উপেক্ষা করে কতিপয় সাব-মারসিবল পাম্প ব্যবসায়ী ব্যবসা হিসাবে আবাসিক লাইন থেকে বিদ্যুতের পার্শ্ব সংযোগ নিয়ে  ভ্রাম্যমাণ সাব-মারসিবল পাম্প স্থাপন করে খুব সহজে এবং দ্রুত সময়ে পুকুর, ডোবা জলাশয় থেকে পানি সেচার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। ফলে ডিজেল চালিত সেচ যন্ত্র শ্যালো মেশিনের প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে। ফলে বিদ্যুৎ অপচয়সহ যে কোন বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে।

অবৈধভাবে পার্শ্ব সংযোগের মাধ্যমে ৫ হর্স পাওয়ার ক্ষমতা সম্পূর্ণ ভ্রাম্যমাণ সাব-মারসিবল পাম্প দিয়ে পুকুর সেচ কাজ চালাতে গিয়ে উপজেলার তালশন গ্রামের জালাল মোল্লার পুত্র হাবিব মোল্লা নামে এক যুবক  ইতিমধ্যে বিদ্যুৎস্পর্শ হয়ে মৃত্যু হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুকুর মালিক জানান, ডিজেল চালিত শ্যালো মেশিনের মাধ্যমে ২ বিঘা পুকুর সেচার জন্য প্রায় ২ থেকে ৩ হাজার টাকা খরচ হয়। অথচ ভ্রাম্যমাণ সাব-মারসিবল পাম্প দিয়ে ২৪ ঘন্টার জন্য বিদ্যুৎ বিল ছাড়া ৫০০ টাকা দিতে হয়। উপজেলার তুলশিগঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান হাইকুল ইসলাম লেবু মোল্লা বলেন, কিছুদিন পূর্বে তুলশিগঙ্গা ইউনিয়নে তালশন গ্রামের হাবিব মোল্লা নামে এক যুবক ভ্রাম্যমাণ সাব-মারসিবল পাম্পে সংযোগ দিতে গিয়ে একটি দুর্ঘটনা ঘটেছে। এ ব্যাপারে জয়পুরহাট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ক্ষেতলাল উপজেলার ইটাখোলা এরিয়া অফিসের জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার নারায়ন চন্দ্র দাস বলেন, সাব-মারসিবল পাম্প স্থাপন করে পুকুর, ডোবা কিংবা জলাশয় থেকে পানি সেচ করে থাকে তা সম্পূর্ণ অবৈধ। এ ধরনের ঘটনা আমাদের নজরে আসলে চালকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top