রাত ১১:৪৬, শুক্রবার, ১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং
/ অর্থ-বাণিজ্য / এসডিজি অর্জনে সহায়তা না পেলেও এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ: মুহিত
এসডিজি অর্জনে সহায়তা না পেলেও এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ: মুহিত
অক্টোবর ১১, ২০১৭

করতোয়া ডেস্ক: বাইরে থেকে প্রয়োজনীয় অর্থ সহায়তা না পেলেও অভ্যন্তরীণ তহবিল গঠন করে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (এসডিজি) অর্জনে বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে পাশের একটি হোটেলে ‘টেকসই উন্নয়নের পথে এমডিজির শিক্ষা’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক এক সেমিনারের উদ্বোধনী বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, এসডিজি অর্জনে যে ধরনের অর্থ সহায়তা প্রয়োজন, তা পাবার কোনোই সম্ভাবনা নেই। তাই বলে কি আমরা থেমে থাকবো? নিশ্চয়ই না। আমরা অভ্যন্তরীণভাবে তহবিল গঠনের বহুবিধ প্রক্রিয়া অবলম্বন করেছি। সামগ্রিক উন্নয়নে সকলকে একযোগে কাজের জন্য বেসরকারি উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করছি। অভূতপূর্ব সাড়াও পাচ্ছি ব্যবসায়ী-উদ্যোক্তাদের কাছে থেকে। তবে এসডিজি অর্জনে অনেক ক্ষেত্রেই সমন্বয়হীনতার প্রকাশ ঘটছে জানিয়ে মুহিত বলেন, এসডিজি অর্জনে এই সমন্বয়হীনতা দূর করতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে একজন প্রধান মুখ্য সমন্বয়ক কাজ করছেন। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সহযোগিতায় মিলেনিয়াম হিল্টন হোটেলের ডিপ্লোমেট বলরুমে এই সেমিনারের আয়োজন করে আন্তর্জাতিক থিংক ট্যাংক ‘দি ইনস্টিটিউট ফর পলিসি, অ্যাডভোকেসি অ্যান্ড গভর্ননেন্স (আইপ্যাগ)। স্বাগত বক্তব্য আইপ্যাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক সৈয়দ মুনীর খসরু বলেন, ২০৩০ সালের মধ্যে সফলতার সঙ্গে এসডিজির লক্ষ্যসমূহ অর্জন করতে হলে স্টেকহোল্ডারদের মধ্যে ঘনিষ্ট সহযোগিতা তৈরি করতে হবে।

সেমিনারে ইউএনডিপির প্রশাসক ও জাতিসংঘের সহকারী মহাসচিব ম্যাগডি মার্টিনেজ-সুলিমান বলেন, এমডিজি অর্জনের মাধ্যমে বাংলাদেশ যে সাফল্য প্রদর্শন করেছে, তা স্বল্পোন্নত দেশগুলোর জন্যে অনুকরণীয় হয়ে উঠেছে। এমডিজি থেকে এসডিজিতে উত্তরণ, এমডিজির সাফল্য ও অভিজ্ঞতার ব্যবহার, স্বল্পোন্নত দেশসমূহের জন্য এসডিজির চ্যালেঞ্জ ও সুযোগ এবং এসডিজি ত্বরান্বিত করার ক্ষেত্রে উন্নয়ন অর্থনীতির ভূমিকা নিয়ে সেমিনারটিকে চারটি অধিবেশনে ভাগ করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন বিশ্বদ্যিালয়ের শিক্ষক, গবেষণাবিদ, আন্তর্জাতিক বিভিন্ন উন্নয়ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিসহ বাংলাদেশ ও বিশ্বের ১৬ জন খ্যাতনামা ব্যক্তিত্ব সেশনগুলোতে প্যানেল আলোচক হিসেবে অংশ নেয়। বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল থেকে প্যানেল আলোচক ছিলেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য সামসুল আলম, অর্থ বিভাগের সচিব মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী ও ইআরডি সচিব কাজী শফিকুল আজম।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top