সকাল ৮:১৪, বুধবার, ১৮ই অক্টোবর, ২০১৭ ইং
/ রংপুর

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁওয়ের আলোচিত স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আব্দুল মান্নান হত্যাকান্ডের অভিযুক্তদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে। অভিযুক্ত মূলহোতারা বর্তমানে জেল হাজতে। কিন্তু হত্যাকান্ডের সঠিক বিচার নিয়ে সংশয়ে রয়েছে আব্দুল মান্নানের পরিবার।সম্প্রতি আব্দুল মান্নানের শিশু কন্যা তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ুয়া মাওয়া আক্তার বাবার হত্যাকারীদের সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে একটি লিখিত আবেদন করেছেন। যা ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল  হয়ে পড়েছে।

 

রহিঙ্গাদের নির্মম নির্যাতন ও হত্যার প্রতিবাদে ডোমারে মানববন্ধন

ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি : মিয়ানমারের রহিঙ্গা মুসলমানদের উপর নির্মম নির্যাতন ও গণহত্যার প্রতিবাদে নীলফামারীর ডোমার উপজেলায় মানববন্ধন করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার  বেলা ১১টায় রেলঘুন্টি মোড়ে যৌথভাবে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন করে ডোমার উপজেলা শাখা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ ও বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ।

জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি গোড়াচাঁদ অধিকারীর সভাপতিত্বে এ সময় পৌরসভা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. ময়নুল হক মনু, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন কমিটির উপজেলা আহবায়ক রামনিবাস আগোরওয়ালা, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি মনোরঞ্জন রায়, সম্পাদক নিখিল চন্দ্র সাহা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। বক্তরা রহিঙ্গাদের উপর নির্যাতন বন্ধ ও বাংলাদেশে অনুপ্রবেশকারী সকল রহিঙ্গাদের নিজ দেশে সম্মানের সাথে ফিরিয়ে নেওয়ার আহবান জানান।

 

রংপুরে বাসের ধাক্কায় ২ বাইক-আরোহী নিহত

রংপুর শহরে বাসের ধাক্কায় দুই মোটরসাইকেল-আরোহীর মৃত্যু হয়েছে। কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আজিজুল ইসলাম জানান, শহরের হাজীরহাট মুচির মোড়ে শনিবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে রংপুর-দিনাজপুর সড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত বুলবুল (৪০) ও আনছারুল (৪২) নীলফামারীর ডোমার এলাকার বাসিন্দা বলে জানালেও তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ তাদের পূর্ণ পরিচয় বলতে পারেনি।

পরিদর্শক আজিজুল প্রত্যক্ষদর্শীর বরাতে বলেন, বুলবুল ও আনছারুল মোটরসাইকেলে করে রংপুর শহরে আসছিলেন। মুচির মোড়ে পৌঁছালে রংপুর থেকে সৈয়দপুরগামী একটি বাস তাদের ধাক্কা দিয়ে চলে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই তারা মারা যান।

দুর্ঘটনার পর স্থানীয়রা প্রায় আধাঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে রাখে জানিয়ে তিনি বলেন, পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার পর সড়ক যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়।

লাশ ময়নাতদন্তের জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসাপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 

ডোমারে গৃহকর্তাকে হত্যা করে ডাকাতি

ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি : নীলফামারীর ডোমার উপজেলায় অতুল চন্দ্র রায় (৬০) নামের এক বৃদ্ধ গৃহকর্তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে তার বাড়িতে ডাকাতি করেছে দুর্বৃত্তরা। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার বোগাড়াড়ি ইউনিয়নের নয়ানী বাগডোগড়া মাস্টারপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। অতুল চন্দ্র ওই এলাকার বিষ্টু রাম রায়ের ছেলে। এ ঘটনায় তার স্ত্রী দেব বালা বাদী হয়ে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

অতুল চন্দ্র রায়ের মেয়ে দিপালি রানীর ছেলে (নাতি) সুমন চন্দ্র রায় (১৫) বলেছে, দুপুরে আমার মামিকে আনতে তার বাবার বাড়ি ডিমলা উপজেলার ডালিয়ায় যায় নানী। দুপুর হতে নানা বাসায় একা ছিল। আমি সন্ধ্যা সাতটার সময় নানার সাথে ঘুমানোর জন্য সেখানে যাই। নানা বাড়ির বাইরের দরজা বন্ধ দেখে নানাকে ডাকাডাকি করি। কিন্তু কোন সাড়া না পেয়ে বাড়ির দেওয়াল পেরিয়ে ভিতরে ঢুকে দেখি বাইরের সব চেয়ার-টেবিল ছড়ানো-ছিটানো। ঘরের ভিতরে প্রবেশ করে দেখি মুখে টেপ ও হাত শাড়ি দিয়ে বাঁধা অবস্থায় আমার নানা মেঝেতে পড়ে আছে।

 আমি চিৎকার করলে আশপাশের সবাই এসে মুখের টেপ ও হাতের বাঁধন খুলে স্থানীয় একটি চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে গেলে ডাক্তার নানার মৃত্যু ঘোষণা দেন।রাতেই জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অশোক চন্দ্র রায় ও থানার অফিসার্স ইনচার্জ মো: মোকছেদ আলী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বলেন, লাশ জেলা মর্গে পাঠানো হয়েছে। দ্রুত হত্যাকারীদের গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনা হবে।

এই বিভাগের আরো খবর

রংপুরে বাস খাদে পড়ে নিহত ২

রংপুরে একটি বাস খাদে পড়ে সুপারভাইজার ও এক যাত্রীর প্রাণ গেছে; আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন।  পীরগঞ্জ উপজেলার বিশমাইল কলাবাড়ান এলাকার ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে বড়দরগাহ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির এসআই হাফিজুর রহমান জানান।

নিহতরা হলেন সুপারভাইজার রাজা মিয়া (৩৫) ও যাত্রী মফিদুল ইসলাম (৩০)।  

আহতদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে তাদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি। হতাহতদের বাড়ি নীলফামারী জেলায় বলে পুলিশ জানিয়েছে।        

এসআই হাফিজুর রহমান বলেন, সকালে আল-রিয়াদ পরিবহনের একটি বাস যাত্রী নিয়ে ঢাকা থেকে নীলফামারীর দিকে যাচ্ছিল। “পথে চালক নিয়ন্ত্রণ হারালে বাসটি রাস্তার পাশের একটি খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই দুইজনের মৃত্যু হয়।”   

লাশ উদ্ধার করে পুলিশ ফাঁড়িতে রাখা হয়েছে বলে জানান তিনি।

এই বিভাগের আরো খবর

বদরগঞ্জে কমছে বন্যার পানি রেখে গেছে গভীর ক্ষত

বদরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি : খায়রুল মীর (৪২) ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে আছেন আমন ক্ষেতের দিকে। সবুজ আমনক্ষেত কাদা লেগে হয়ে গেছে বিবর্ণ। আর সেই ক্ষেত থেকে বাতাসে ভেসে আসছে পঁচা দুর্গন্ধ। এ অবস্থায়ও তিনি আইলে বসে তাকিয়ে দেখছেন নিজ হাতে লাগানো আমন চারার বিবর্ণ চেহারার দিকে। সেই চারা বন্যার পানিতে ডুবে পুরোপুরি পঁচে গেছে। আর সেখান থেকে বের হচ্ছে শুধুই দুর্গন্ধ। তার সাথে কথা বলতে চাইলে প্রথমে তিনি কথা বলতে পারেননি। তার দু’চোখের কোণ দিয়ে শুধুই গড়িয়ে পড়ছিল পানি।

এক পর্যায়ে কথা বলেন। তিনি জানান, তার সাত সদস্যের সংসারে তিনিই একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি। বাড়িভিটার কয়েক শতক জমি ছাড়া তার কোন সম্পদ নেই। তাই জীবন বাঁচাতে তিনি সাড়ে তিন বিঘা জমি বর্গা নিয়ে আমন চারা রোপণ করেছিলেন। কিন্তু সেই চারা রোপণের কয়েকদিন পরই প্রবল বন্যায় তা’ তলিয়ে পুরোপুরি নষ্ট হয়েছে। এখন ওই জমিতে নতুন চারা রোপণের মত সামর্থ্য তার আর নেই। কিন্তু জমিতে ধান না ফলালে জীবন বাঁচবে কিভাবে- সেই চিন্তায়ই তার ঘুম হারাম হয়েছে।

খায়রুলের বাড়ি উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের কিসমত ঘাটাবিল এলাকার মীরাপাড়ায়। শনিবার সকালে এলাকা পরিদর্শনকালে তার সাথে কথা হয়। শুধু খায়রুল নন বন্যার পানিতে ওই এলাকার সকল কৃষকের আমনক্ষেত পুরোপুরি নষ্ট হয়েছে। তবে যাদের ঘরে কিছু সম্পদ রয়েছে তারা সেই সম্পদ বিক্রি করে নতুন করে বীজতলা তৈরি করছেন। আর যারা খায়রুলের মত বর্গচাষি তাদের মাঝে বিরাজ করছে শুধুই হতাশা। এ দৃশ্য শুধু রামনাথপুর ইউনিয়নের কিসমত ঘাটাবিলের নয় গোটা উপজেলার ১০ ইউনিয়ন ও পৌর এলাকায় একই চিত্র দেখা দিয়েছে।

উপজেলা কৃষি অধিদফতরের হিসেব মতে, এবারের মওসুমে মোট ১৯ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে আমনচারা রোপণ করেছিলেন চাষিরা। যার মধ্যে ৯ হাজার ৮৮০ হেক্টর আমনক্ষেত পুরোপুরি বন্যার পানিতে ডুবে যায়। ফলে খায়রুলের মত ৫২ হাজার আমন চাষির ঘুম হারাম হয়ে যায়। কৃষি অফিসের দাবি- আমনক্ষেত থেকে পঁচা দুর্গন্ধ ভেসে আসলেও পানিতে ডুবে যাওয়া সকল আমনক্ষেত যে ক্ষতিগ্রস্ত হবে তা নয়। কিছু কিছু আমনক্ষেত হয়তোবা আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

উপজেলা কৃষি অফিসার মাহবুবর রহমান বলেন, বন্যার পানি নামতে শুরু করলেও এখনো অনেক আমনক্ষেত পানিতে তলিয়ে আছে। একারণে ক্ষতির পরিমাণ এখনই নিরূপণ করা সম্ভব নয়। তবে দু’চার দিনের মধ্যে আমনক্ষেতের ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ করা সম্ভব হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, উর্ধতন কৃষি কর্মকর্তারা এলাকা পরিদর্শন করেছেন। তারাও স্বীকার করেছেন বদরগঞ্জ উপজেলায় আমনক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতির কথা।

এই বিভাগের আরো খবর

কিশোরগঞ্জে শিশুকে গলা কেটে হত্যা

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলায় আট বছরের এক শিশুর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার কিশোরগঞ্জ-ঢাকা আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে ভরাদিয়া এলাকায় কাজল চৌধুরী (৮) নামের শিশুটির লাশ পাওয়া যায়। কাজল কটিয়াদীর লোহাজুরী ঝিরারপাড়ের আসাদ চৌধুরীর ছেলে।
কটিয়াদি মডেল থানার ওসি গোলাম রাব্বানী জানান, বৃহস্পতিবার রাত ৮টার পর থেকে কাজল নিখোঁজ ছিল।

রাতে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তাকে পাওয়া যায়নি। সকালে কিশোরগঞ্জ-ঢাকা আঞ্চলিক মহাসড়কের পশ্চিম পাশে ভরাদিয়া এলাকায় লাশ দেখে এলাকাবাসী পুলিশে খবর দেয়। কটিয়াদি থানা পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। ওসি জানান, তাৎক্ষণিকভাবে হত্যার কারণ জানা যায়নি। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সহকারী পুলিশ সুপার জামাল উদ্দিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন বলে জানান ওসি।

তারাগঞ্জে নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে যুবকের মৃত্যু

তারাগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি : তারাগঞ্জে পাকজাল দিয়ে ভরা নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে সবুজ মিয়া (৩২) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। জানা গেছে, গত বুধবার সন্ধ্যার পর উপজেলার খারুয়াবাদ গ্রামের মৃত আব্দুল মান্নানের পুত্র সবুজ মিয়া তার চাচাত ভাই তহির এর সঙ্গে সন্ধ্যার পর ভরা খাঁরভাজ নদীতে পাকজাল দিয়ে মাছ ধরতে যায়। একসময় সবুজ পাকজালটি মধ্য নদীতে ছাপিয়ে নদীর এপার হয়ে ডুবে ওপরে গিয়ে জাল উঠানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু নদীর স্রোতে না পেরে নদীতে ডুব দেয়। অনেক সময় হওয়ার পর ও সবুজ নদী থেকে না উঠায় চাচাত ভাই তহির চিৎকার করতে থাকে। এ সময় লোকজন এসে নদীতে অনেক খোঁজা-খোঁজির প্রায় ৩ ঘন্টা পর ওই এলাকার সামাদ মেম্বারের ঘাট এলাকায় মৃত অবস্থায় সবুজকে লোকজন উদ্ধার করে। ওই এলাকার ইউপি সদস্য আজম মিয়া ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। 

এই বিভাগের আরো খবর

রংপুরের ৫ উপজেলায় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে

রংপুর প্রতিনিধি : উজান থেকে নেমে আসা পাহাডি ঢল  টানা বর্ষণে পাøবিত  হয়েছে তিস্তা আববাহিকায় ১৫২ কিলোমিটার এলাকার চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চল।

তিস্তা-ঘাগট যমুনেশ্বরী নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় রংপুরের সদর, পীরগাছা, কাউনিয়া, পীরগঞ্জ ও মিঠাপুকুর উপজেলার ৮৫টি গ্রামসহ পানির নিচে তলিয়ে গেছে রোপা আমনসহ বিভিন্ন ফসলের ক্ষেত। লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে।

গঙ্গাচড়া উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের ৪০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। উপজেলার নোহালী, আলমবিদিতর, কোলকোন্দ, লক্ষ্মীটারী, গজঘন্টা ও মর্ণেয়া ইউনিয়নের পানিবন্দী হয়ে পড়েছে অত ৩৫ হাজার মানুষ। তিস্তার ডান তীরে বাঁধের বিভিন্ন অংশে ফাটল দেখা দেওয়ায় শহর রক্ষা বাঁধ হুমকির মুখে পড়েছে। প্রবল স্রোতে মুটুকপুর আর চল্লিশের চরের ২০টি বাড়ি ভেসে গেছে। কাউনিয়া উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের বন্যা দেখা দেওয়ায় প্রায় ২০ হাজার পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে।  ভেঙ্গেগেছে রাস্তাঘাট, তলিয়ে গেছে আমন ধান ও মাছের খামার।

পীরগাছা উপজেলার ৩টি ইউনিয়নের ২০টি গ্রামের প্রায় ১০ হাজার পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। উপজেলার ছাওলা ইউনিয়নের গাবুড়া, শিবদেবচর, আমিনপাড়া, চরছাওলা কামারের হাট, রামসিং, জুয়ানের চরসহ প্রায় ১০টি গ্রাম বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। ৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয় পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ায় তা বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়াও তাম্বুলপুর ইউনিয়নের চর তাম্বুলপুর, নামাচর, চররহমতসহ ৬টি ও কান্দি ইউনিয়নের সতন্ত্ররা, দোয়ানি মনিরাম, তেয়ানি মনিরাম এবং দীঘটারি গ্রাম বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে।

এই বিভাগের আরো খবর

বদরগঞ্জে ইয়াবাসহ আটক ১

বদরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি : রংপুরের বদরগঞ্জে ইয়াবা বিক্রির সময় মহবুল ইসলাম (২২) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। সে রংপুর সদর উপজেলার মমিনপুর ইউনিয়নের মোক্তারপাড়ার আজহারুল ইসলামের ছেলে। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বদরগঞ্জ থানা পুলিশ ইয়াবা বিক্রির সময় শহরের মীর মার্কেট এলাকা থেকে তাকে আটক করে।

এ সময় পুলিশ তার  মোটরসাইকেলে তল্লাশি চালিয়ে পাঁচ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।বদরগঞ্জ থানার ওসি আখতারুজ্জামান প্রধান বলেন, মহবুলের বিরুদ্ধে মাদক নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়েছে। একই সাথে তার ব্যবহৃত রেজিস্ট্রেশনবিহীন মোটরসাইকেলটি জব্দ করা হয়েছে।

 

রংপুরের অর্থনৈতিক চাকা ঘুরিয়ে দিতে পারে শুঁটকি মাছ ব্যবসায়ীরা

রংপুর জেলা প্রতিনিধি : রংপুরের দর্শনা ঘাঘট পাড়ার শুঁটকি হাটে ক্রেতাদের ভিড় আগের মত দেখা মিলছে না। শুঁটকি হাটে কেনাবেচা নেই বললেই চলে। আগের মত ক্রেতারা আসছে না সেখানে শুঁটকি কিনতে। আগে শুঁটকির হাটে দিনে ২০ লাখ টাকার শুঁটকি কেনা বেচা হলেও বর্তমানে এর পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩ থেকে ৪ লাখ টাকায়। এরপরেও আশার আলো দেখছেন শুটকি মাছ ব্যবসায়ীরা। ব্যবসায়ীরা বলছেন, সঠিক ভাবে ব্যাংক থেকে ঋণ পেলে পূর্বের ধারদেনা পরিশোধ করাসহ ব্যবসার মন্দা ভাব কাটবে।

জানা গেছে, পাইকারী শুঁটকি ব্যবসায়ীরা খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছে বাকিতে শুঁটকি মাছ বিক্রি করায় সময় মতো পাওনা টাকা উত্তোলন করতে না পেয়ে অনেক ব্যবসায়ী  ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়ছেন। এতে করে তারা তাদের বাপ দাদার পেশা বদলাতে বাধ্য হচ্ছেন। শুটকি ব্যবসায়ীদের স্বার্থ সংরক্ষণের জন্য গঠিত কমিটির কোন কার্যক্রম না থাকায় প্রতিনিয়ত সাধারণ শুঁটকি ব্যবসায়ীরা ভোগান্তিতে পড়ছেন। ফলে দর্শনার মোড়ে প্রায় ২৮ বছর আগে গড়ে ওঠা সম্ভাবনাময়ী শুঁটকির আড়ত রংপুর এলাকায় কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতেও ব্যর্থ হচ্ছে।

শুঁটকি আড়ত সূত্রে জানা গেছে, ১৯৮০ সালে প্রায় দেড় একর জমিতে শুঁটকি মাছের আড়তটি গড়ে ওঠে। শুরুর দিকে আড়তে প্রায় ৫০ জনব্যবসায়ী থাকলেও এখন ব্যবসায়ী রয়েছে মাত্র ২২ জন। বাকিতে শুঁটকি মাছ বিক্রির টাকা তুলতে না পারায় পুঁজি হারিয়ে অনেক ব্যবসায়ী পথে বসেছেন। শুঁটকি ব্যবসায়ী ইব্রাহিম এবং ফজলু মিয়া ব্যাংকের ঋণ নিয়ে পরিশোধ করতে না পারায় তারা ব্যবসা গুটিয়ে সটকে পড়েছেন বলে অনেক ব্যবসায়ীরা জানান। অপরদিকে কাব্ব ট্রেডার্সের ম্যানেজার সুজয় দাস বলেন, শুঁটকি ব্যবসায়ীরা সঠিকভাবে ঋণ পেলে তাদের ভাগ্য বদলাতে পারবে। তবে সে জন্য দরকার ব্যাংকিং ঋণের সুযোগ সুবিধা।
আড়ত ঘুরে দেখা গেছে, বর্তমানে দেশি মাছের শুঁটকির মৌসুম না থাকায় আড়তে সামুদ্রিক শুঁটকি মাছে ভরে গেছে। এখানে দেশি মাছের শুঁটকি খুব একটা দেখা য়ায় না। শুটকি ব্যবসায়ী  মো. আজিজ, আব্দুল হাকিম, আজগার আলী জানান, বছরের সব সময় শুঁটকি মাছের চাহিদা থাকে। তবে বৈশাখ থেকে জ্যৈষ্ঠ মাস পর্যন্ত শুঁটকির চাহিদা সবচাইতে বেশি।

সামুদ্রিক শুঁটকির বৃহৎ অংশ আসে চট্টগ্রাম, খুলনা, পটুয়াখালী, বরিশাল ও রাজশাহীর চলন বিলসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে। ভারতীয় (এলসি) শুঁটকি মাছ সরাসরি না এলেও নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর শুঁটকি আড়ত হয়ে রংপুরের আড়তে প্রবেশ করে।
আড়তে সামুদ্রিক শুঁটকি মাছের মধ্যে ফেসা, কইড়া, লটকি, বালিয়া, মিতি চকলেট, কাচকি, পাতা, চেলা অন্যতম। মাছের আকার এবং সংরক্ষণের প্রকারভেদে একই মাছের শুঁটকির দামের মধ্যে বেশ তারতম্য দেখা যায়। চেলার কেজি ২৫০ থেকে ৩৮০ টাকা, কাচকি ১৬০ থেকে ২২০ টাকা, ফেসা ১০০ থেকে ৩০০ টাকা, ধঞ্চা ৪০ থেকে ১০০ টাকা, লটকি ১৬০ থেকে ৩০০ টাকা, মিতি চকলেট ১০০ থেকে ১৩০ টাকা ও বালিয়া ৯০ থেকে ১২০ টাকা। তবে এলসি শুঁটকি মাছ দেশি সামুদ্রিক মাছের চেয়ে সব সময় কেজিতে ৫০ থেকে ১০০ টাকা পর্যন্ত কমে বিক্রি হচ্ছে। শুঁটকি ব্যবসায়ী আনসারুল হক ট্রেডার্সের মালিক রেজাউল করিম বলেন, প্রতিদিন রংপুর বিভাগের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা থেকে ব্যবসায়ীরা আড়তে এসে শুঁকটি মাছ কিনে নিয়ে তারা বিক্রি করে থাকেন।

শুটকি ব্যবসায়ী সুনীল দাস বলেন, তিনি দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে শুঁটকি মাছের ব্যবসার সাথে জড়িত আছেন। মৌসুমের সময় তিনি প্রতিদিন ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকার শুঁটকি মাছ বিক্রি করেন। বর্তমানে  শুঁটকি মাছের ভরা মৌসুম হওয়ায় প্রতিদিন ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকার শুঁটকি মাছ বিক্রি হচ্ছে। ব্যাংকগুলো সহজ শর্তে ঋণ দেওয়ার ব্যবস্থা করলে আড়তে ব্যবসায়ীর সংখ্যার বৃদ্ধির পাশাপাশি ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। বর্তমানে প্রত্যেক ব্যবসায়ীর অধীনে ৩ থেকে ৫ জন শ্রমিক কাজ করছে। তাদের প্রত্যেকের মজুরি ৩শ’ টাকা করে।

রাসায়নিক দ্রব্য শুঁটকি মাছে ব্যবহার করা হয় কি না বিষয়ে জানতে চাইলে শুটকি ব্যবসায়ী কার্তিক দাস বলেন, এটা আমদানীকারকরাই ভালো বলতে পারবেন। দেশীয় শুঁটকিতে কোন রাসায়নিক দ্রব্য দেয়া হয় না। রংপুর প্রাইম ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট রেজাউল করিম জানান, সব ব্যবসায়ীরাই ব্যাংক ঋণের জন্য আবেদন করতে পারে। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ নিয়ম মেনেই ঋণ দিতে পারে।

 

এই বিভাগের আরো খবর

রংপুরে ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে স্কুলছাত্রের আত্মহত্যা

রংপুর জেলা প্রতিনিধি : রংপুরে বিলাস নামে এক স্কুলছাত্র ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। বুধবার সকালে নগরীর ১৪নং ওয়ার্ডের ৩৩নং সিঙ্গিমারী ব্রিজের পাশে পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে। বিলাস ওই ওয়ার্ডের বড়বাড়ি হিন্দুপাড়া এলাকার দুবাই প্রবাসী বাবলু রায়ের ছেলে এবং বড়বাড়ি বয়েজ উদ্দিন উচ্চ বিদালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র।

এলাকার সাবেক ইউপি সদস্য রবীন চন্দ্র বলেন, বিলাশের মা গীতার বাড়িতে প্রায়ই অপরিচিত লোকজন যাতায়াত করতেন বলে শুনেছি। বিষয়টি বিলাস মেনে নিতে পারতো না। এ নিয়ে ছেলে বিলাসের সাথে প্রায়ই মা গীতার ঝগড়া হতো।

বিলাসের মা গীতা রানী বলেন, সকালে কাউকে কিছু না জানিয়ে বিলাস বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। পরে লোকমুখে তার মৃত্যুর খবর শুনি।
 কোতয়ালী থানা পুলিশের অফিসার্স ইনচার্জ এবিএম জাহিদুল ইসলাম বলেন, ট্রেনের নিচে কাটা পড়ে এক স্কুলছাত্রের মৃত্যুর খবরটি শুনেছি। ট্রেনের নিচে আত্মহত্যা করায় রেলওয়ে পুলিশ এটির ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

এই বিভাগের আরো খবর

ডোমারে বৃদ্ধার আত্মহত্যা

ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি : নীলফামারীর ডোমার উপজেলায় ফুলছড়ি রায় (৫৫) নামের এক বৃদ্ধা গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। গত বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার বামুনিয়া ইউনিয়নের খামার বামুনিয়া ঢেপিরপাড় গ্রামের নিজ শোয়ার ঘরের তীরে গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করে। ফুলছড়ি ওই এলাকার হরিপদ রায়ের স্ত্রী।

উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সন্ধ্যা রানী রায় বলেন, রাতে ফুলছড়ি তার মেয়ের সাথে এক ঘরে ঘুমায়। ভোরে তার মেয়ে ঘুম থেকে উঠে দেখে ওই ঘরের তীরে গলায় রশি লাগা অবস্থায় তার মা ঝুলে আছে। এ সময় তার চিৎকারে আমরা এলাকাবাসী ওই ঘরে ঢুকে ফুলছড়ির ঝুলন্ত লাশ দেখতে পাই। ডোমার থানার অফিসার্স ইনচার্জ মো. মোকছেদ আলী জানান, লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

 

পীরগাছায় পলাতক দুই আসামি গ্রেফতার

পীরগাছা (রংপুর) প্রতিনিধি : রংপুরের পীরগাছায় পৃথক স্থানে অভিযান চালিয়ে ২ জন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত বৃহস্পতিবার রাতে ও শুক্রবার ভোরে অভিযান চালিয়ে উপজেলার ইটাকুমারী ইউনিয়নের গঙ্গা নারায়ন গ্রামের মৃত্যু গোল্লা রবিদাশের ছেলে চাঁন রবিদাশ ও উপজেলার কান্দি ইউনিয়নের দাদন গ্রামের জয়নাল মিয়ার স্ত্রী রওশনারা বেগমকে গ্রেফতার করে।

 পৃথক ঘটনায় রংপুরের বিচারিক আদালত চাঁন রবিদাশকে তিন বছর ও রওশনারাকে দুই বছরের সাজা দেন। উপ-পরিদর্শক (এসআই) জুয়েল মিয়া জানান, সাজাপ্রাপ্ত ২ আসামি দীর্ঘদিন থেকে পলাতক ছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে একাধিক স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। ওসি জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, গতকাল শুক্রবার দুপুরে গ্রেফতারকৃত আসামিদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

 

নীলফামারীতে পুলিশের বিশেষ অভিযানে গ্রেফতার ১০৫

নীলফামারী প্রতিনিধি  : জেলার ৬ উপজেলায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে ১০৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার সকাল পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন স্থান থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করে। বিকেলে তাদেরকে আদালতে হাজির করার প্রস্তুতি চলছে।

গ্রেফতার হওয়া ওই ১০৫ জনের মধ্যে মাদক মামলায় ৭০ জন, আদালত কর্তৃক সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী ৫ জন, জুয়া আইনে ৩ জন, জিআর মামলায় ১৫ জন, সিআর মামলায় ১ জন, ১৫১ ধারায় ২ জন, পুলিশ আইনের ৩৪ ধারায় ৮ জন ও অন্য মামলায় ১ জন রয়েছে।

অভিযানকালে ৬৪ পুরিয়া হেরোইন, ১ কেজি ৪৬৭ গ্রাম গাঁজা, ১৩৩ পিস ইয়াবা, সাড়ে ৮৬  লিটার দেশী চোলাই মদ ও ৫ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করা হয়। অভিযানে অংশগ্রহণ করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল বাশার মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, অশোক কুমার পাল, সহকারী পুলিশ সুপার জিয়াউর।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল বাশার মোহাম্মদ আতিকুর রহমান জানান, মাদকের বিরুদ্ধে বিশেষ কর্মসুচির অংশ হিসেবে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের আদালতে হাজির করার প্রস্ততি চলছে।

 

মিঠাপুকুরে সড়ক দুর্ঘটনায় চিকিৎসক নিহত

মিঠাপুকুর (রংপুর) প্রতিনিধি : মিঠাপুকুরে সড়ক দুর্ঘটনায় দেলোয়ার হোসেন (৩৮) নামে   নৌবাহিনীতে কর্মরত এক সহকারী চিকিৎসক নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে মিঠাপুকুর-ফুলবাড়ি আঞ্চলিক মহাসড়কের পাঁচপীরের মাজার নামকস্থানে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও হাইওয়ে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, রংপুর মহানগরীর এরশাদ নগর এলাকার মৃত. এরশাদ হোসেনের ছেলে দেলোয়ার হোসেন (পি.ও নং- ৯৭০০৫৯) নৌবাহিনীতে সহকারী চিকিৎসক পদে রংপুরে কর্মরত ছিলেন। বৃহস্পতিবার মোটরসাইকেলযোগে দিনাজপুরের ফুলবাড়ি যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে মিঠাপুকুরের  চেংমারী ইউনিয়নের পাঁচপীরের মাজার নামক স্থানে পৌঁছামাত্র একটি শিশু রাস্তা পারাপারের সময় তিনি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে যান। আশপাশের লোকজন গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে মিঠাপুকুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করালে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে  মৃত ঘোষণা করেন।

এই বিভাগের আরো খবর

রংপুরে আলু রফতানি কমে যাওয়ায় বিপাকে সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা

রংপুর জেলা প্রতিনিধি : কয়েক বছর ধরে রংপুর থেকে নিয়মিত আলু রফতানি হওয়ায় ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে আলু উৎপাদনে। তবে এ বছর  আলু রফতানি  আশংকাজনক হারে কমে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন আলু রফতানীর সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা। এদিকে আলুর চাহিদা কমে যাওয়ায় বর্তমানে কৃষকেরা উৎপাদন খরচ তুলতে না পারার আতংকে দিন কাটাচ্ছেন। পাশাপাশি কৃষকের মরার ওপর খাঁড়ার ঘায়ে পরিণত হয়েছে জেলার কোল্ড স্টোরেজের ধারণ ক্ষমতার চেয়ে প্রায় ৩গুণ আলু সংরক্ষণ না করতে পারার চিন্তা। আলু রফতানির সাথে সম্পৃক্ত একাধিক প্রতিষ্ঠানের দাবি সরকার আলু রফতানীতে যে শতকরা ২০ ভাগ ইনসেনটিভ দিয়েছিলেন সেখান থেকে শতকরা ১০ ভাগ কমিয়ে দেয়ায় রফতানির হ্রাসের অন্যতম প্রধান কারণ।

প্রতি বছর ফেব্রুয়ারি মাসে রফতানীর সুবিধার্থে প্রায় শতাধিক ব্যবসায়ী রংপুর জেলার নব্দী গঞ্জ, মীরবাগ, কাউনিয়া, পাওটানা, হুলাসু, দেওতি, বড়দরগা, রঘু ,মীরগঞ্জ মাহিগঞ্জ, সাহেবগঞ্জ, দমদমা , ঠাকুরবাড়ি, মিঠাপুকুর এবং বৈরিগঞ্জে গড়ে তুলেন অস্থায়ী প্রতিষ্ঠান। তারা কৃষকদের কাছ থেকে আলু কিনে কমিশনে ঢাকা ও চট্টগ্রামের মালিকানাধীন রফতানীর সাথে সংশ্লিষ্ট  প্রতিষ্ঠানকে আলু সরবরাহ করেন। প্রতিষ্ঠান গুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে গ্রীণটেক, এগ্রোফ্রেস এগ্রোনেস, কৃষাণ বোটানিক লিমিটেড, পিকে ইন্টারন্যাশনাল এবং এগ্রো কনসার্ন অন্যতম।  ফেব্রুয়ারি মাসের মাঝামাঝি থেকে জুন মাসের মাঝামাঝি পর্যন্ত রংপুরের উল্লিখিত পয়েন্ট থেকে প্রতিদিন ২০ থেকে ২৫ ট্রাক বোঝাই আলু (প্রতি ট্রাকে আলুর পরিমাণ ১৪ টন) শ্রীলংকা, মালয়েশিয়া,  ব্রুনাই  এবং সিঙ্গাপুরে রফতানির উদ্দেশ্যে শিফটমেন্টের জন্য চট্টগ্রাম বন্দরে প্রেরণ করতে ব্যস্ত সময় কাটান ব্যবসায়িরা। ফলে আলুর ব্যাপক চাহিদা থাকায় কৃষকের উৎপাদিত উদ্বৃৃত্ত আলুর ন্যায্যমুল্য নিশ্চিত হয়েছিলো। কিন্তু এ বছর চিত্রটি ভিন্ন। ফেব্রুয়ারি মাসে আলু রফতানীর উদ্দেশ্যে কৃষকদের কাছ থেকে আলু সংগ্রহ শুরু হলেও তা আগের বছরের তুলনায় অর্ধেকে নেমে এসেছে এবং জুন মাসের আগেই আলু রফতানীর সাথে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো রংপুর থেকে আলু কেনা বন্ধ করে দিয়েছে বলে ব্যবসায়ী এবং কৃষক সূত্রে জানা গেছে। ফলে অনেক ব্যবসায়ী অধিক লাভের আশায় আগাম আলু কিনে  রফতানীর উদ্দেশ্যে সরবরাহ  করতে না পেরে বর্তমানে হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন। আবার বিভিন্ন পয়েন্টে কর্মরত প্রায় ১০ হাজার শ্রমিক আকস্মিকভাবে কাজ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ঈদের আগে কর্মহীন হয়ে পড়েছেন।  এদিকে চাহিদা না থাকায় গত বছরের চেয়ে কম দামে দিয়েও আলু বিক্রি করতে ব্যর্থ হয়েছেন আলু চাষিরা।

কমিশন ব্যবসায়ী খাজা নাজিম উদ্দিন বলেন, কৃষকদের কাছ থেকে গ্রানুলা আলু কিনেছেন ৯০ কেজির বস্তা ৬শ টাকা থেকে সাড়ে ৬শ টাকায়। ডায়মন্ড কিনেছেন ৯০ কেজির বস্তা সাড়ে ৮শ থেকে ৯শ টাকায়। তিনি বলেন, গত বছর আলু রফতানী বেশি হওয়ায় কৃষকেরাও ভাল দাম পেয়েছিলেন। গ্রানুলা আলু কেনা হয়েছে প্রতি বস্তা ৮শ থেকে ৯শ টাকায় এবং ডায়মন্ড কেনা হয়েছে প্রতি বস্তা ১২শ থেকে সাড়ে ১২শ টাকায়। গত বছর তিনি প্রায় ২শ ট্রাক আলু রফতানীর উদ্দেশ্যে সরবরাহ করেছিলেন। কিন্তু এবছর চাহিদা না থাকায় তা অর্ধেকে নেমে এসেছে।

কমিশন ব্যবসায়ী মেসার্স রহিম ট্রেডার্সের প্রোপাইটার আব্দুর রহিম বলেন। তিনি বেশ কয়েকটি রফতানিকারক প্রতিষ্ঠানকে কমিশনে আলু সরবরাহ করেন। এ জন্য লোকবল দিয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাহিদা মতো আলু গ্রেডিং করে শিফটমেন্টের উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম বন্দরে প্রেরণ করেন। তিনি বলেন, কৃষকের কাছ থেকে আলু কেনা থেকে শুরু করে আলু ট্রাকে লোড করা পর্যন্ত শুধু তার প্রতিষ্ঠানে প্রায়,দেড় শতাধিত শ্রমিক প্রতিদিন কাজ করতো। এ জন্য প্রতিদিন তাকে ৩০ থেকে  ৩৫ হাজার টাকা পারিশ্রমিক দিতে হতো। কিন্তু এ বছর রফতানীকারক প্রতিষ্ঠানগুলো নির্দিষ্ট সময়ের আগে আলু নেয়া বন্ধ করায় জুন মাসের আগে তাকেও কৃষকদের কাছে থেকে আলু নেয়া বন্ধ করতে হয়েছে।
আলু চাষি ফখরুদ্দিন বলেন, প্রতি বছর তিনি আলু রফতানীর উদ্দেশ্যে গ্রানুলা এবং ডায়মন্ড আলু বেশি করে আবাদ করেন। কিন্তু এ বছর রফানীকারক প্রতিষ্ঠান গুলো হঠাৎ করে আলু নেয়া বন্ধ করে দেয়ায় অবিক্রীত প্রায় ৫ শতাধিক  আলুর বস্তা নিয়ে বিপাকে আছেন। বর্তমানে আলুর যে দাম তাতে আলু কোল স্টোরেজ  করে দাম পাওয়া যাবে কী না সে বিষয়ে সংশয় আছে তার। রংপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, রংপুর জেলায় ৫৪ হাজার ৯শ হেক্টর জমিতে আলু উৎপাদন হয়েছে ১৩ লাখ ৩৪ হাজার ২৬৯ মেট্রিক টন।

এদিকে রংপুর কৃষি বিপণন অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, রংপুর জেলায় কোল্ড স্টোরেজ আছে ৩৮টি। আলু ধারণ ক্ষমতা হচ্ছে ৪ লাখ ৩১ হাজার ৫২৭ মেট্রিক টন। এখন পর্যন্ত স্টোরেজে মজুদ করা আলুর পরিমাণ হচ্ছে ৩লাখ ৪৩ হাজার ৬১২ মেট্রিক টন। ফলে উৎপাদিত আলুর অর্ধেকেরও স্টোরেজ সম্ভব নয়। জেলা মার্কেটিং কর্মকর্তা এ এস এম হাসান সারোয়ার বলেন, রংপুরে আলু চাষিরা রফতানীর উদ্দেশ্যে বেশি করে আলু চাষ করেন। কিন্তু কোন কারণে আলু রফতানি কম হলে অবশ্যই চাষিরা উৎপাদিত আলু নিয়ে বিপাকে পড়বেন।

আলু রফতানির সাথে সংশ্লিষ্ট এগ্রোফ্রেশের স্বত্বাধিকারী আফরোজা আক্তার লিপি বলেন, মূলত সরকার আলু রফতানিতে যে শতকরা ২০ ভাগ ইনসেনটিভ দিয়েছিলেন এ বছর অর্ধেকে নেমে আনা হয়েছে। ফলে রফতানির সাথে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান মালিকরা আলু রফতানি বন্ধ করে দিয়েছে। এছাড়া তিনি অভিযোগ করেন জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি পায়নি অথচ ট্রাক ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়েছে। এ বছর ১৪ টনের আলু ভর্তি ট্রাক রংপুর থেকে চট্টগ্রাম বন্দরে আনতে ৫ হাজার থেকে ৭ হাজার বেশি লাগছে। গত বছর ট্রাক ভাড়া ছিলো ২৫ থেকে ২৬ হাজার টাকা। এ বছর ওই ভাড়া নেয়া হচ্ছে ৩০ থেকে ৩২ হাজার টাকা। এই কারণেও আলু রফতানি কমে গেছে।

 

এই বিভাগের আরো খবর

ঈদযাত্রার পথে রংপুরে নিহত ১৬

ঈদের আগে বাড়ি ফেরার পথে রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলায় সিমেন্টের ট্রাক উল্টে ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে, যাদের অধিকাংশই পোশাক শ্রমিক। এ দুর্ঘটনায় আরও অন্তত ১১ জন আহত হয়েছেন।

পীরগঞ্জ থানার ওসি রেজাউল করিম জানান, কলাবাড়ি এলাকায় ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে শনিবার ভোর সাড়ে ৫টায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত সবার বাড়ি লালমনিরহাটে। তাদের মধ্যে তিনজন নারী রয়েছেন।

ওসি রেজাউল বলেন, ঈদ উপলক্ষে তারা একটি সিমেন্ট বোঝাই ট্রাকে করে ঢাকা থেকে লালমনিরহাটে বাড়ি যাচ্ছিল। ভোরে দুর্ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে ঘটনাস্থলে ১১ জনকে মৃত উদ্ধার করে।

আর আহত আরও কয়েকজনকে পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক জিয়াউর রহমান জানান, আহত আটজনকে এখানে ভর্তি করা হয়। তাদের মধ্যে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পাঁচজন মারা যান।

নিহত পাঁচজন হলেন – আলমগীর (২৬), মনির (২৪), জসিম (২৬), দেলোয়ার (২৫) ও সাদ্দাম (২৪)। ঘটনাস্থলে নিহত ১১ জনের পরিচয় জানাতে পারেনি পুলিশ। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন তিনজন হচ্ছেন – নিহত আলমগীরের স্ত্রী খাদিজা, নিহত মনিরের স্ত্রী আফরোজা ও নিহত জসিমের স্ত্রী রহিমা।

এছাড়া রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আটজনকে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সেখানকার পরিচালক মউদুদ আহমেদ। তারা হলেন – জমিলা (৬০), ময়না (৩০), মমিনুল (৩৪), খলিল (২৫), দুলাল (৩০), আব্দুল মতিন (২৫), মোজাফফর (২৫) ও রহিমা বেগম (৩৮)।

এদের হাত-পায়ের চামড়া ছড়ে গেছে, কেউ কেউ মাথায় আঘাত পেয়েছেন, জানিয়েছেন পরিচালক মউদুদ আহমেদ। বদরগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির এসআই হাফিজুর রহমান বলেন, নিহতদের মধ্যে তিনজন নারী। প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী নিহতরা সবাই ঢাকায় পোশাক কারখানায় কাজ করতেন। আর তাদের বাড়ি লালমনিরহাটে।

নিহত পাঁচজনের লাশ ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আর ঘটনাস্থলে নিহত ১১ জনের লাশ ফাঁড়িতে রয়েছে বলে জানান এসআই হাফিজুর। নিহতদের মধ্যে ট্রাকের চালক ও সহকারী আছে কিনা তা এখনও নিশ্চিত করতে পারেনি পুলিশ।

স্পিকারের শোক

সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী, ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া ও চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ এ ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন। তারা শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনার কথা জানিয়েছেন।

 

রংপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২

রংপুর প্রতিনিধি : রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার চিকলিবাজার এলাকায় ট্রাকের ধাক্কায় মাইক্রোবাসের দুজন যাত্রী নিহত ও তিন যাত্রী আহত হয়েছে।  বুধবার সকালে এ ঘটনা ঘটে।

তারাগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল লতিফ জানান, পাঁচ পাথর ব্যবসায়ী মাইক্রোবাসে করে পঞ্চগড় থেকে ঢাকা যাচ্ছিল। তারাগঞ্জ বাজার চিকলী ব্রিজে পার হওয়ার সময় ঢাকাগামী একটি ট্রাক পেছন থেকে ধাক্কা দিলে মাইক্রোবাসটি রাস্তার পাশে ছিটকে পড়ে গাছের সঙ্গে লেগে দুমড়ে মুচড়ে যায়। এ সময় ঘটনাস্থলে মারা যায় মামুনুর রশিদ (৩৫) ও মনিরুল ইসলাম (৩৪)।

তারাগঞ্জ হাইওয়ে থানার ওসি আব্দুল্লাহেল বাকী জানান, নিহতরা মাইক্রোবাসে করে পঞ্চগড় থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাচ্ছিল। পেছন থেকে একটি মালবোঝাই ট্রাক মাইক্রোবাসটিকে ধাক্কা দিলে সেটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে এসময় আরও একটি ট্রাক সামনে থেকে মাইক্রোবাসটিকে ধাক্কা দিলে মাইক্রোবাসটি দুমড়ে-মুচড়ে গিয়ে ঘটনাস্থলেই দুজন নিহত তিনজন আহত হয়। তাদের লাশ ময়না তদন্তের জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। আহতরা হলেন, আবু সাঈদ (২৯), হানিফ ওরফে বাহার (৩০) ও আব্দুল হাই (৩২)।

 

 

 

 

রংপুরে হাঁড়িভাঙায় ইফতার

গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধি : গঙ্গাচড়াসহ রংপুরে এবার ইফতারে যোগ হয়েছে হাঁড়িভাঙা আম। প্রচলিত ইফতারের উপকরণ বুট, বুন্দিয়া, মুড়ি না থাকলেও হাঁড়িভাঙা আম থাকতেই হবে। অফিস-আদালতসহ নগরের বিভিন্ন ইফতার পার্টিতেও এবারে রমজানের শেষ দিকে এসে হাঁড়িভাঙা আম যোগ হয়েছে। শ্রমজীবী কিংবা নিম্ন আয়ের মানুষ-যারা সময় হলে ফুটপাতে বসে ইফতার করেন তাদের অনেকেই অন্যকিছু বাদ দিয়ে জনপ্রিয় এই আমকেই ইফতারের প্রধান উপকরণ হিসেবে ব্যবহার করছেন। মূলত: বাংলা আষাঢ় মাসের প্রথম সপ্তাহে হাঁড়িভাঙা আম বাজারে আসে, যখন প্রচলিত জাতসহ অন্য জাতের আম প্রায় শেষ হয়ে যায়। এ বছর রমজানের শেষ দিকে এই আম বাজারে এসেছে। তাছাড়া দামও কম। রংপুরের মানুষ তাই হাঁড়িভাঙা আম খচ্ছেন ইফতারে। গঙ্গাচড়া জিরো পয়েন্টে হাঁড়িভাঙা আম দিয়ে ইফতার করছিলেন ওই এলাকার কয়েকজন ব্যবসায়ী। এ ব্যাপারে মুদি দোকানদার আরমান বলেন, ‘প্রতিবছর রোজায় বুট, বুন্দিয়া, বেগুনি ও জিলাপি দিয়ে ইফতারি করি। এবারে হাঁড়িভাঙা মওসুমে রোজা। আমের দামও কম। তাই প্রতিদিন এই আম দিয়াই ইফতার করে শান্তি পাচ্ছি।’ বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. তুহিন ওয়াদুদ বললেন, এবার ইফতারির তালিকা থেকে ভাজা-পোড়া খাবার বাদ দিয়ে রংপুরের ঐতিহ্য হাঁড়িভাঙা আম রেখেছি। আম দিয়ে ইফতারির পর বেশ তরতাজা মনে হয়।

রংপুরে ইফতারিতে বুট, বুন্দিয়া, বেগুনি আর পিঁয়াজুর আমেজ পুরনো হয়ে গেছে। হোটেল-রেঁস্তোরা ও কনফেকশনারিগুলো জিলাপি, বাখরখানি, মাংসের রেজালা, মাসকেট হালুয়া, জালি কাবাব, রাসমতি, টিকা কাবাব, কলিজির চপ, রাজভোগ, ফালুদা, ডিমের চপ, চিকেন ফ্রাই, পাটিসাপটা পিঠা তৈরি করলেও এবার ইফতারিতে রমজানের শেষ দিকে এসে এসবের খুব একটা কদর নেই। রংপুরের হাঁড়িভাঙা আমের কদরই সবচেয়ে বেশি। নগরীর বিভিন্ন ইফতারি দোকান ঘুরে এবং রোজাদারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ভাজা-পোড়ার চাইতে আম বা ফলমূল দিয়ে ইফতারি করা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।

নগরীর কাচারি বাজারে মহুয়া কনফেকশনারি ও মৌবন কনফেকশনারি বুট, বুন্দিয়া, বেগুনি ও পিয়াজুর পাশাপাশি নতুন করে বিক্রি করছে মাংসের রেজালা, মাসকেট হালুয়া, জালি কাবাব, রাসমতি, টিকা কাবাব, কলিজির চপ। মহুয়া কনফেকশনারির স্বত্বাধিকারী মুন্না মিয়া বলেন, ইফতারিতে আলাদা স্বাদ আনার জন্য এ বছর নতুন নতুন খাবার তৈরি করা হচ্ছে। তবে তিনি জানান, এসব তৈরি খাবারের চেয়ে এবারে ইফতারিতে আমের চাহিদা খুব বেশি। এ ছাড়া নগরীর জাহাজ কোম্পানি মোড়ে স্বাদ কনফেকশনারি, নিউ স্বাদ কনফেকশনারি, মিঠু হোটেল, পুষ্টি, সেন্ট্রাল রোডের খালেক হোটেল, দেশ রেস্টুরেন্ট এ বছর ইফতারিতে নতুন খাদ্যসামগ্রী সংযোজন করেছে। জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, প্রথম রমজান থেকে ইফতারির দোকানগুলোতে ভেজালবিরোধী অভিযান শুরু করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোনো দোকানেই বাসি ও ভেজাল মেশানো খাদ্য পাওয়া যায়নি। বিক্রি হচ্ছে ফরমালিনমুক্ত আম। সে কারণে কোনো প্রকার শঙ্কা ছাড়াই লোকজন এই সময়টাতে প্রচুর আম খাচ্ছেন।

 

তারাগঞ্জে সড়ক দুঘটনায় নিহত ১

তারাগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি : তারাগঞ্জে বিআরটিসি ও তিশা এন্টার প্রাইজ সংঘর্ষে একজন নিহত ও একজন আহত হয়েছে। তারাগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ জানায়, গত রোববার রাত প্রায় সাড়ে ১১টার সময় রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়কের উপজেলার খুনিয়ার দোলা নামক স্থানে রংপুর থেকে ছেড়ে আসা পঞ্চগড়গামী বিআরটিসি এর সাথে দিনাজপুর থেকে ছেড়ে আসা বগুড়া গামী তিশা এন্টার প্রাইজ এর সংঘর্ষে বিআরসিটিতে অবস্থান কারী যাত্রী আব্দুল মান্নান (৫৫) ও আব্দুল লতিফ (৩৫ )গুরুত্বর আহত হয়। স্থানীয় লোকজন তাদের স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করেন। আব্দুর মান্নান ও আব্দুল লতিফের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় কর্মরত চিকিৎসকরা তাদের রাতেই রংপুর কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। পরদিন  সোমবার সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আব্দুল মান্নান মারা যায়। নিহিত আব্দুল মান্নান দিনাজপুর সদরের পাটুয়াপাড়ার মৃত আব্দুর সোবাহান আলীর ছেলে।  

 

রংপুরে ২ ‘জেএমবি সদস্য’ গ্রেপ্তার

গাইবান্ধা ও দিনাজপুরে একাধিক মামলর আসামি দুই ‘জেএমবি সদস্যকে’ গ্রেপ্তারের কথা জানিয়েছে র‌্যাব। বুধবার সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-১৩ রংপুরের অধিনায়ক এটিএম আতিকুল্লাহ এ কথ জানান।

এরা হলেন- গাইবান্ধা সদরের রামচন্দ্রপুর পোড়াহাড়িয়া এলাকার হানজালা (৩২) ও দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার ঘোড়াবান্দ এলাকার বেলাল হোসেন (২৫)।

র‌্যাব কর্মকর্তা আতিকুল্লাহ বলেন, গোপনে খবর পেয়ে মঙ্গলবার রাতে র‌্যাব অভিযানে যায়। পরে গাইবান্ধা শহরের বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে বাদল ও দিনাজপুর সদরের চেহেল গাজী মাজার এলাকা থেকে বেলালকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সাংবাদিকদের তিনি বলেন, “প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়- বাদল স্থানীয় একটি মসজিদে ইমামতি করতেন। আর বেলাল কওমি মাদ্রাসায় লেখাপড়া শেষে জেএমবিতে যোগ দেন।”

“তারা আট বছর ধরে জেএমবির সঙ্গে সম্পৃক্ত। নারায়ণগঞ্জ শহরে বিভিন্ন এলাকায় থেকে তারা জঙ্গি কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতেন। সম্প্রতি তারা এলাকায় ফিরে আসেন।”

বাদলের বিরুদ্ধে গাইবান্ধা সদর ও গোবিন্দগঞ্জ থানায় এবং বেলালের বিরুদ্ধে দিনাজপুরের কোতোয়ালি থানায় সন্ত্রাস দমন আইনে একধিক মামলা রয়েছে বলে র‌্যাবের এ কর্মকর্তা জানান।

 

রংপুরের বাজারে নতুন ধানেও কমছে না চালের দাম

রংপুর জেলা প্রতিনিধি : নতুন ধান বাজারে এলেও চালের দাম কমার আশা দেখাচ্ছেন না বিক্রেতারা। রোজা সামনে রেখে অধিকাংশ নিত্যপণ্যের দাম স্থিতিশীল থাকলেও চালের দাম আরেক দফা ১ থেকে ২ টাকা  বেড়েছে । মিল মালিকরা বলছেন, এবার ধানের দাম বেশি, তাই চালের দামও শিগগির কমছে না, আর চাল আড়তদাররা বলছেন আশানুরূপ সরবরাহ এখনও বাজারে না আশায় মূল্য কমছে না।

রংপুর সিটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, নতুন চিকন ২৮ চাল পাইকারি ৪৫ থেকে ৪৬ টাকা ও খুচরা ৪৮ থেকে ৫০ টাকা কেজি এবং নতুন  মোটা চাল পাইকারি ৩৭ থেকে ৩৮ টাকা ও খুচরা ৪০ থেকে ৪২ টাকায় কেজি বিক্রি হচ্ছে। এছাড়াও পুরাতন স্বর্ণা  মোটা চাল পাইকারি ৪১ থেকে ৪২ টাকা ও খুচরা ৪৩ থেকে ৪৪ টাকায় কেজি এবং পুরাতন চিকন বি আর ২৮ চাল পাইকারি ৫০ থেকে ৫২ টাকা ও খুচরা ৫৪ টাকায় কেজি বিক্রি হচ্ছে। ফলন কম হয়েছে, ধানের দাম বেশি এমন যুক্তি দিচ্ছেন মিল মালিকরা।
এদিকে, সরকারের পক্ষ থেকে ধান-চালের পর্যাপ্ত মজুদ থাকার তথ্য জানিয়ে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে চালের দাম বৃদ্ধি করলে কঠোর ব্যবস্থার হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে। এছাড়াও চালের দাম বৃদ্ধিকে ষড়যন্ত্র হিসেবে দেখছেন খাদ্যমন্ত্রী। সম্প্রতি রংপুর সফরে এসে খাদ্য কর্মকর্তা ও মিলারদের সাথে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের এসব জানিয়েছিলেন তিনি। তবে কথার সাথে কাজের বাস্তবায়ন চায় ভুক্তভোগী নগরবাসী।

চাল ক্রেতা হারুন অর রশিদ ও মোজাম্মেল মিয়া জানান, বর্তমানে মধ্যবিত্তদের অবস্থা শোচনীয়। অল্প বেতনে আনুসঙ্গিক খরচের পাশাপাশি চালের মূল্য বৃদ্ধি জীবন একেবারে অতিষ্ঠ হবার উপক্রম। বিষয়টি সরকারের নজরে এনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া উচিত।

রংপুরের চাল আড়তদার আব্দুল কাইয়ুম বলেন, আশানুরূপ সরবরাহ বাজারে না আশায় মূল্য কমছে না । তাছাড়া যেখান থেকে আমরা চাল কিনি সেখানেও মূল্য বেশি পড়ে।
 জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক শাহজাহান ভুইয়া জানান, একটি মহল বাজারকে অস্থিতিশীল করতে উঠেপড়ে লেগেছে। খাদ্যশস্যে কোন ঘাটতি নেই। সরকার বিষয়টি মনিটরিং করছে। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা পদক্ষেপ নিব।

বদরগঞ্জে নিখোঁজ যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

বদরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি : রংপুরের বদরগঞ্জে নিখোঁজ যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। সে কুতুবপুর ইউনিয়নের উতরা বিলপাড় এলাকার উঁচাপাড়ার দেলদার হোসেনের ছেলে।
স্বজনরা জানিয়েছেন, গত শুক্রবার সন্ধ্যায় সে স্থানীয় নাগেরহাটে গেলেও আর ফিরে আসেনি। গতকাল শনিবার সকালে বাড়ির পাশে একটি বাগানে তার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পেয়ে এলাকার লোকজন পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করলেও অভিযোগ না থাকায় তা’ দাফনের জন্য অনুমতি দেয়। ঘটনাস্থল পরিদর্শণকারী বদরগঞ্জ থানার এসআই আতিয়ার রহমান সাংবাদিকদের জানান, লাশ পর্যবেক্ষণ করে মনে হয়েছে এটি একটি আত্মহত্যা। এছাড়া পরিবারের লোকজন অভিযোগ না করায় লাশ দাফনের অনুমতি দেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বাবা দেলদার হোসেন জানান, আখতারুজ্জামানের উপর বহুদিন আগে থেকেই জ্বীনের আছর ছিল। একারণে অনেক পীর-ফকির দিয়ে ঝাঁড়ফুঁক করিয়েছি কোন কাজ হয়নি। মা মহুবা বেগম বলেন, এক সময়ে সে পুরোপুরি উন্মাদ ছিল। এ কারণে তার পায়ে শেকল বেঁধে তাকে নিয়ে মানসিক চিকিৎসকের কাছেও গিয়েছিলাম- কিন্তু কোন কাজ হয়নি। শ্যালক বেলাল হোসেন বলেন, চার বছর হল বোনের বিয়ে দিয়েছি- কোন সন্তান হয়নি। তবে বিয়ের পর জানতে পারি সে পাগল। তিনি বলেন, আমরাও তার অনেক চিকিৎসা করিয়েছি কিন্তু বিন্দুমাত্র কাজ হয়নি।

উন্নয়নের সফলতা তখন যখন মানুষ অনুভব করে :স্পিকার

পীরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি : জাতীয় সংসদের স্পিকার ও রংপুর-২৪ পীরগঞ্জ আসনের এমপি ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন,উন্নয়নের সফলতা তখনই অনুভব করা যায়, মানুষ যখন তা অনুভব করে। অর্জিত ধন-সম্পদ হারাতে পারে কিন্তু মেধা ও জ্ঞান সম্পদ মানুষ কখনও হারায় না। এসএসসি শিক্ষা জীবনের প্রথম ধাপ। জ্ঞান ভান্ডারে পৌছুতে হলে শিক্ষা জীবনের আরও অনেক গন্ডি পেরুতে হয়।

শনিবার দুপুরে খালাশপীর বঙ্গবন্ধু ডিগ্রি কলেজ মাঠে রংপুর জেলা বঙ্গমাতা পরিষদের উদ্যোগে আয়োজিত এসএসসি ও সমমানের কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। তিনি আরও বলেন,এই এলাকার সুষম উন্নয়ন পরিকল্পনা নিয়ে ৩ বছর ধরে আমরা কাজ করছি। যার অংশ ইতিমধ্যে উপজেলার ৩৩২টি সড়ক পাকা হয়েছে। ২২টি ব্রিজ নির্মিত হয়েছে। শতকরা ৮০ ভাগ বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হয়েছে। আগামী মাসের মধ্যে অবশিষ্ট সংযোগ দেয়া সম্ভব হবে। সরকার নারী শিক্ষায় উপবৃত্তি দিচ্ছে। ইউনিয়ন তথ্য কেন্দ্রগুলোতে সরাসরি সাধারন মানুষের সেবা পাবার বিষয়টি আমি নিজে গতকাল প্রত্যক্ষ করেছি। কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোতে মা ও শিশু স্বাস্থ্য সেবা প্রদানের দৃশ্যও স্বচক্ষে দেখেছি। কিভাবে মা ও শিশুরা দলবেঁধে এসে কমিউনিটি ক্লিনিকে সেবা নিচ্ছে।

সরকার এসব ক্লিনিকে পর্যাপ্ত ওষুধ সরবরাহ দিচ্ছে। খালাশপীর বঙ্গবন্ধু ডিগ্রি কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি  মোকাররম হোসেন চৌধুরী জাহাঙ্গিরের সভাপতিত্বে এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান-আহমেদ হোসেন,জাতীয় ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক এড. আনোয়ারুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সদস্য ছায়াদৎ হোসেন বকুল, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এড. আজিজুল ইসলাম রাঙ্গা, পীরগঞ্জ পৌর মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদক তাজিমুল ইসলাম শামীম, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান  মোনায়েম সরকার মানু উপজেলা জাপার সম্পাদক নুর আলম যাদু, আওয়ামী লীগ নেতা রুহুল আমীন বিএসসি। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন-কলেজের অধ্যক্ষ মমিনুল ইসলাম রনতু। পরে উপজেলা পরিষদ চত্বরে জেলা প্রশাসন ও উপজেলা পরিষদ আয়াজিত এক সুধী সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন-উপজেলা নির্বাহী অফিসার কমল কুমার ঘোষ।

এসময় স্পিকার সাহাপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, রাজারামপুর জুনিয়র স্কুলের একাডেমিক ভবন, পীরগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার, মুক্তিযোদ্ধা ভবন, ত্রাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে নির্মিত ব্রিজ/কালভার্ট, কাবিলপুর ও বড় আলমপুর ইউনিয়ন পরিষদের নবনির্মিত ভবনসহ মাদারগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের দ্বি-তল ভবনের উদ্বোধন করেন এবং সাম্প্রতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ঢেউটিন ও নগদ অর্থসহ বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন ব্যক্তিদের মাঝে হুইল চেয়ার বিতরণ করেন। সমাবেশে স্পিকার উপজেলা পরিষদ চত্বরে মহিলাদের সেলাই প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন ও একটি স্টেডিয়াম নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দেন। এ সময় রংপুরের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভিন, পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এডভোকেট আজিজুর রহমান রাঙ্গাসহ জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ এবং সুধীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

রংপুরে ৩ মাদক ব্যবসায়ীর যাবজ্জীবন

রংপুর জেলা প্রতিনিধি : রংপুরে ৭৪৪ বোতল ফেনসিডিল রাখার অভিযোগে ৩ মাদক ব্যাবসায়ীকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে। গতকাল রোববার দুপুরে রংপুরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালত ২ এর বিচারক আবু জাফর মো: কামরুজ্জামান এ রায় প্রদান করেন। মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০১২ সালের ৪ জুন ভোরে রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার মহিপুর এলাকায় তিস্তা নদীর বাঁধের উপর দিয়ে বস্তায় করে ফেনসিডিল নিয়ে আসার সময় ডিবি পুলিশের একটি দল মাদক ব্যবসায়ীদের ধরতে গেলে আবুল খায়ের নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে হাতে নাতে ধরে ফেলে। অপর দুই মাদক ব্যবসায়ী সাজু মিয়া ও মোহাম্মদ আলী তাদের সাথে থাকা ফেনসিডিলের বস্তা ফেলে পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ ৭৪৪ বস্তা ফেনসিডিল উদ্ধার করে এবং হাতে নাতে আটক হওয়া আবুল খায়েরকে আদালতে সোপর্দ করে। এ ঘটনায় ডিবি পুুলিশের এসআই রাশেদুল ইসলাম বাদী হয়ে গঙ্গাচড়া থানায় মাদক দ্রব্য আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। তদন্ত শেষে গঙ্গাচড়া থানার এসআই মোস্তাফিজার রহমান ৩ মাদক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে মাদক আইনে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।
মামলায় ১২ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য ও জেরা গ্রহণ শেষে আসামি আবুল খায়ের , সাজু মিয়া ও মোহাম্মদ আলীকে দোষী সাব্যস্ত করে  যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রদান করেন আদালত। সেই সাথে প্রত্যেকের ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরও ৩ মাসের কারাদন্ড প্রদান করেন। মামলার পর থেকে আসামি মোহাম্মদ আলী পলাতক রয়েছে। রায় ঘোষণার সময় আসামি আবুল খায়ের ও সাজু মিয়া আদালতে উপস্থিত ছিলেন। পলাতক আসামি মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি ও ক্রোকি পরোয়ানা জারির আদেশ দেন আদালত।

দিনাজপুরে বয়লার বিস্ফোরণে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে ১১

দিনাজপুরে রাইস মিলে বয়লার বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১১ জনে দাঁড়িয়েছে। রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারী বিভাগের প্রধান মারুফুল ইসলাম জানান, রোববার সন্ধ্যায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মুকুল মিয়া (৪৫), দেলোয়ার হোসেন (৫০) ও দুলাল চন্দ্রের (৩৫) মৃত্যু হয়েছে। মো. মুন্না (৩২) মারা যান রাত সোয়া ৯টায়।

এর আগে রোববার সকালে শফিকুল ইসলাম (৪৫) ও উদয় চন্দ্রর (২২) মৃত্যু হয়। শনিবার রাতে মারা যান রঞ্জিত রায় (৫০)।  মুন্না, মুকুল, দেলোয়ার, দুলাল, শফিকুল ও উদয় যমুনা অটো রাইস মিলের শ্রমিক এবং রঞ্জিত রায় ব্যবস্থাপক ছিলেন।

দিনাজপুর সদর উপজেলার রানীগঞ্জ মোড়ে যমুনা অটো রাইস মিলে বুধবার বেলা ১১টার দিকে বয়লার বিস্ফোরণে নারীসহ ২১ জন শ্রমিক দগ্ধ হন। দগ্ধদের রংপুর ও দিনাজপুরে ভর্তি করা হয়।

শুক্রবার পর্যন্ত রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় চারজনের মৃত্যু হয়।  “হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আট শ্রমিকের মধ্যে ছয় জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এদের মধ্যে তিনজনকে নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে রাখা হয়েছে। বাকি দুইজনের অবস্থা উন্নতির দিকে।”

এদিকে দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দুইজনের শারিরীক অবস্থারও অনেকটা উন্নতি হয়েছে বলে হাসপাতালের পরিচালক সারওয়ার জাহান জানান।

এ ঘটনা তদন্তে বৃহস্পতিবার দিনাজপুরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মাহবুবুর রহমানকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের একটি দল গঠন করা হয়েছে।

বগুড়ার ৪ দোকান থেকে পলিথিন আটক করে জরিমানা আদায়

স্টাফ রিপোর্টার : বগুড়া শহরের রাজাবাজারে পরিবেশ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে এক ভ্রাম্যমাণ অভিযান পরিচালনা করে চারটি দোকান হতে ৭৬ কেজি অবৈধ পলিধিন আটক করে মোট ৩৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সঞ্জয় কুমার মহন্তের নেতৃত্বে  গতকাল বিকেলে এই অভিযান চালানো হয়। এতে প্রসিকিউটর ছিলেন পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিদর্শক মকবুল হোসেন।

 সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে যে চারটি দোকানের বিরুদ্ধে এই অভিযারন পরিচালিত হয় তার মধ্যে মোসাদ্দেক হোসেনের মালিকানাধীন ডুরেন স্টোর হতে ২৮ কেজি পলিথিন আটক করে ১০ হাজার টাকা,  আব্দুল মতিন শেখের উত্তরবাংলা স্টোর হতে ২৬ কেজি পলিথিন আটক করে ১০ হাজার টাকা, মশিউর রহমানের এমআর স্টোর হতে ১০ কেজি পলিথিন আটক করে ১০ হাজার টাকা জরিমানা এবং মিল্টন হোসেনের মালিকানাধীন মিল্টন এন্টারপ্রাইজ থেকে ৬ কেজি পলিথিনি আটক করে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

 

রংপুরে ঝুঁকিপূর্ণ সরকারি স্থাপনায় নিয়মিত দাফতরিক কার্যক্রম

রংপুর জেলা প্রতিনিধি : রংপুরে অনেক ঝুঁকিপূর্ণ সরকারি স্থাপনায় চলছে নিয়মিত দাফতরিক কার্যক্রম এবং বসবাস। অনেক ভবনের বয়স একশো বছরের কাছাকাছি অথবা অতিক্রম করেছে। অনেক  উর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারী ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলোতে চাকুরির খাতিরে অবস্থানসহ পরিবার নিয়ে বাস করতে বাধ্য হচ্ছেন। এমনকি রাষ্ট্রের অতিথি ভবন  সার্কিট হাউজও রয়েছে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের তালিকায়। ফলে প্রতিনিয়ত রাষ্ট্রের অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি কোন কাজে রংপুরে এসে বাধ্য হচ্ছেন ঝুঁকি নিয়ে রাত্রি যাপনে।

বিশেষজ্ঞদের দাবি অধিক ভূমিকম্প প্রবন এলাকার মধ্যে রংপুর সিটি করপোরেশন এলাকা অন্তর্গত। অথচ ঝুঁকিপূর্ণ ভবন ভেঙে ফেলতে গণপূর্ত বিভাগের ত্বরিৎ ব্যবস্থা নিতে দেখা যাচ্ছে না। শুধু তারা নিয়মিত বিভাগীয় নগরীর ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের তালিকা তৈরি করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়সহ উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করে চলেছেন।

গণপূর্ত বিভাগ রংপুর সূত্রে জানা গেছে, জেলার ঝুঁকিপূর্ণ সরকারি স্থাপনা ও ভবন হচ্ছে, রংপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের জেল গেট, অফিস কাম জেলারের বাস ভবন, কারাগারের ইটের গাঁথুনীর সাধারণ টয়লেট, সদর হাসপাতাল (পুরাতন অফিস), সদর হাসপাতাল ৩য় শ্রেণী এবং ৪র্থ শ্রেণীর বাস ভবন। এছাড়াও জেলা জজ কোর্ট (পুরাতন) জেলা ও দায়রা জজের বাস ভবন, সার্কিট হাউজ, জোনাল সেটেলমেন্ট রেকর্ড রুম, সদর ম্যাজিস্ট্রেট কোর্ট, জেলা প্রশাসকের বাসভবন, পুলিশ গার্ড সেড, ট্রেজারী ভবন (পুরাতন), জেলা প্রশাসকের কার্যালয়  সংলগ্ন এডিএম কোর্ট ভবন, রেকর্ড রুম, রেড ক্রিসেন্ট ভবনগুলোর বয়স ১শ বছরেরও বেশি (১৮৬৪ খ্রিঃ থেকে ১৯২০খ্রিঃ ) এর মধ্যে নির্মিত) এবং এর প্রকৃতি ব্রিক ম্যাশনরী হিসেবে উল্লেখ করে ভবন ব্যবহারকারীদের সব সময় সতর্ক দৃষ্টি রাখতে বলা হয়েছে।

 বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের  বিভাগীয় প্রধান ড. মো. এমদাদুল হক বলেন, ভূমিকম্প প্রবন এলাকাকে চিহ্নিত করার সুবিধার্থে কয়েকটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। ১নং  এ আছে সবচেয়ে অধিক ভূমিকম্পপ্রবণ এলাকা । ২ ও ৩ এ আছে তুলনামূলক কম ভূমিকম্পন প্রবন এলাকা। তিনি দাবি করেন রংপুরের কিছু অংশ বিশেষ করে সিটি করপোরেশন এলাকা রয়েছে ১নং এ। তিনি পুরাতন ও জরাজীর্ণ ভবনের তালিকা করে অভিজ্ঞ প্রকৌশলীদের দ্বারা ভূমিকম্প সহনীয় ক্ষমতা আছে কী না তা পরীক্ষা করার আহবান জানান।

ঝুঁকিপূর্ণ বলে চিহ্নিত ভবন গুলোর মধ্যে রংপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের জেল গেট, অফিস কাম জেলারের বাসভবন হচ্ছে অন্যতম। অথচ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ভবনটিতে দাপ্তরিক কার্যক্রম চালাচ্ছেন সিনিয়র জেলার, জেলারসহ অন্যান্য কর্মকর্তা ও কর্মচারী।

রংপুর কারাগারের জেলার আমজাদ হোসেন বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায়  কারা হাসপাতাল পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। বর্তমানে জেলের একটি কক্ষে হাসপাতালের কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। এ ছাড়া কয়েদী থাকার ঝুঁকিপূর্ণ ভবন থেকেও কয়েদীদের অন্যত্র সরানো হয়েছে। তবে তিনি স্বীকার করেন কেন্দ্রীয় কারাগার এর জেল গেট, অফিস কাম জেলারের বাস ভবন পরিত্যক্ত হওয়ার পরও নিয়মিত দাপ্তরিক কার্যক্রম চলছে।

রংপুরের সিভিল সার্জন ডা. আবু মো. জাকিরুল ইসলাম বলেন, সদর হাসপাতালের ঝুঁকিপূর্ণ ভবন থেকে সকল কার্যক্রম অন্যত্র নেয়ার চেষ্া করা হয়েছে। তবে তিনি স্বীকার করেন ভবন স্বল্পতার জন্য বাধ্য হয়ে এখনো কিছু কার্যক্রম ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে করতে হচ্ছে। ঝুঁকিপূর্ণ কোয়ার্টারে বসবাস প্রসঙ্গে তিনি বলেন, অল্পদিন হলো তার যোগদানের। তারপরও তিনি চেষ্টা করবেন পরিত্যক্ত ভবনে যাতে কেউ না থাকেন ।

গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান উল্লাহ ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে কার্যক্রম চালানো এবং বসবাসকরাকে আত্মঘাতী বলে তিনি ব্যক্তিগতভাবে মত দেন। এ সময় তিনি রানা প্লাজার ট্রাজেডির  কথা উল্লেখ করেন। তাই তিনি ঝুঁকিপূর্ণ ভবন ভেঙ্গে ফেলা এবং সংস্কারের জন্য সিটি করপোরেশন এবং গণপূর্ত বিভাগকে সমন্বয় করে কাজ করার আহবান জানান। 



Go Top