সকাল ৮:১১, বুধবার, ১৮ই অক্টোবর, ২০১৭ ইং
/ রাজশাহী

 বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি : বড়াইগ্রামে দুই কাভার্ড ভ্যানের সংঘর্ষে আব্দুস সোবহান (৩৮) নামে একজন নিহত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে বনপাড়া-হাটিকুমরুল-ঢাকা মহাসড়কের রয়না ফিলিং স্টেশনের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত আব্দুস সোবহান টাঙ্গাইলের কালিহাতি উপজেলার ডোলকাম গ্রামের মোক্তার হোসেনের ছেলে ও দুর্ঘটনা কবলিত ওয়াল্টন কোম্পানীর গাড়ির হেলপার।

বনপাড়া হাইওয়ে থানার এসআই ননী গোপাল জানান, মঙ্গলবার সকালে বাগেরহাট থেকে গাজীপুরগামী ওয়াল্টন কোম্পানীর মালামাল পরিবহনের কাভার্ড ভ্যান (ঢাকা মেট্রো ঢ ৬২-০০৬২) কে রয়না ফিলিং স্টেশন থেকে মহাসড়কে উঠার সময় প্রাণ আরএফএল কোম্পানীর অপর একটি কাভার্ড ভ্যান (ঢাকা মেট্রো উ ১১-৩৬৮৩) ধাক্কা দেয়। এতে ওয়াল্টন কোম্পানীর কাভার্ড ভ্যানের হেলপার আব্দুস সোবহান ঘটনাস্থলেই নিহত হয়।

চূড়ান্ত প্রতিবেদন মালদ্বীপের মডেল কন্যা রাওধা আত্মহত্যা করেছেন

রাজশাহী প্রতিনিধি : আন্তর্জাতিক সাময়িকী ‘ভোগ’র মডেল রাউধা আতিফ রাজশাহীতে আত্মহত্যাই করেছিলেন। তার মৃত্যুর ঘটনায় দায়ের করা হত্যা মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদনে এমন কথায় বলা হয়েছে।  মঙ্গলবার দুপুরে আদালতে এই প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়। এর আগে দু’দফার ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনেও বলা হয়েছিল মালদ্বীপের এই মডেল আত্মহত্যা করেছিলেন।

রাজশাহী মহানগর জজ আদালতের পরিদর্শক আবুল হাশেম জানান, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) পরিদর্শক আসমাউল হক সোমবার সন্ধ্যায় তাদের কাছে মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন।  দুপুরে তারা সেটি রাজশাহীর মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত-১ এ উপস্থাপন করেন।

আবুল হাশেম জানান, মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদনে কাউকে অভিযুক্ত করা হয়নি। রাউধাকে হত্যা করা হয়েছিল, এমনটিও বলা হয়নি। তাই বাদীপক্ষের আইনজীবী এই প্রতিবেদনে নারাজি দিতে চান। এ জন্য তিনি বিচারক মাহবুবুর রহমানের কাছে সময় প্রার্থনা করেছেন। তবে এ বিষয়ে আদালত এখনও কোনো আদেশ দেননি।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক আসমাউল হক জানান, দুই দফার ময়নাতদন্ত, ভিসেরা ও মুঠোফোন পরীক্ষার পর নিশ্চিত হওয়া গেছে, রাউধা আত্মহত্যাই করেছিলেন। এরপরই মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে। তদন্ত শেষে এবং প্রতিবেদন দাখিলের আগে এ বিষয়টি রাউধার বাবাকেও অবহিত করা হয়েছে।

আসমাউল হক জানান, প্রেমে ব্যর্থ হয়েই রাউধা আত্মহত্যা করেছিলেন। মালদ্বীপের শাহী গণি নামে এক যুবকের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এই যুবক পড়াশোনার জন্য লন্ডনে থাকেন। রাউধার হটসঅ্যাপ থেকে জানা গেছে, শাহীর সঙ্গে রাউধার সম্পর্ক ভেঙে গিয়েছিল। এ নিয়ে প্রচন্ড রকমের মানসিক চাপে ছিলেন রাউধা। আত্মহত্যার আগের রাতেও শাহীর সঙ্গে রাউধার কথা হয়েছিল।

উল্লেখ্য, গত ২৯ মার্চ রাজশাহীর নওদাপাড়ায় অবস্থিত ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজের ছাত্রীনিবাস থেকে রাউধা আতিফের (২২) লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। তিনি ওই কলেজের এমবিবিএস দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। মালদ্বীপের নীলনয়না মেয়ে রাউধা বাংলাদেশে এসেছিলেন পড়তে। পড়াশোনার পাশাপাশি তিনি মডেলিং করতেন। রাউধার মৃত্যুর দিনই কলেজ কর্তৃপক্ষ শাহমখদুম থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা করে। রাউধার লাশ ময়নাতদন্তের পর পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে রাজশাহীতে দাফন করা হয়।

ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, রাউধা গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। এরপর মালদ্বীপরে দুই পুলিশ কর্মকর্তা রাজশাহীতে গিয়ে ঘটনা তদন্ত করেন।
এদিকে রাউধার মৃত্যুর ঘটনায় কলেজের পক্ষ থেকেও একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল। সে কমিটিও তাদের প্রতিবেদনে বলেছে, রাউধা আত্মহত্যা করেছেন। তবে রাউধার বাবা মোহাম্মদ আতিফ এসব প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে গত ১০ তিনি এপ্রিল রাজশাহীর আদালতে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় রাউধার সহপাঠী ভারতের কাশ্মীরের মেয়ে সিরাত পারভীন মাহমুদকে (২১) একমাত্র আসামি করা হয়। কিন্তু সিরাতকে গ্রেফতার করা হয়নি। তবে তার দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। গত ১৪ এপ্রিল হত্যা মামলাটি শাহমখদুম থানা থেকে সিআইডিতে হস্তান্তর করা হয়। এরপর কবর থেকে লাশ তুলে দ্বিতীয়বারের মতো রাউধার লাশের ময়নাতদন্ত করা হয়। সে প্রতিবেদনেও বলা হয়েছে, রাউধা আত্মহত্যা করেছেন।

তবে মোহাম্মদ আতিফ এখনও দাবি করে আসছেন, তার মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে। মামলা দায়েরের পর থেকে তিনি রাজশাহীতেই অবস্থান করছেন। কনকলতা নামে রাজশাহীর এক নারীকে তিনি বিয়েও করেছেন। সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার টেলিভিশন চ্যানেল ‘নাইনের’ একটি দল রাজশাহীতে এসে রাউধাকে নিয়ে একটি প্রামান্যচিত্র নির্মাণ করেছে।

রাজশাহীতে নববধূর রহস্যজনক মৃত্যু

রাজশাহী প্রতিনিধি : রাজশাহীর বাঘা উপজেলার মনিগ্রামে বৃষ্টি খাতুন (১৯) নামের এক নববধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে বাঘা থানা পুলিশ শ্বশুরবাড়ি থেকে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে। পরে দুপুরে ময়নাতদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (রামেক) মর্গে পাঠায়। এ ঘটনায় পুলিশ নিহত বৃষ্টির স্বামী মাহাবুরকে আটক করেছে।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে রাজশাহীর বাঘা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী মাহামুদ জানান, এক মাস আগে মনিগ্রাম এলাকার নবির উদ্দিনের ছেলে মাহাবুর রহমনের (২৬) সাথে পাশের চারঘাট উপজেলার নন্দনগাছি গ্রামের হামিদুর রহমানের মেয়ে বৃষ্টি খাতুনের বিয়ে হয়।

এদিকে শ্বশুরবাড়ি থেকে বৃষ্টি খাতুনের মরদেহ উদ্ধারের সময় নিহতের বোন দোলেনা খাতুন অভিযোগ করে বলেন, বিয়ের পর থেকে তার বোন এই বাড়িতে কষ্টে ছিল। তাকে বাবার বাড়ির লোকজনের সাথে ঠিকমত যোগাযোগ করতে দিতেন না মাহাবুর। বাবার বাড়ি থেকে টাকা আনার জন্য চাপ দিত।
তবে আটকের পর বৃষ্টির স্বামী মাহাবুর দাবি করেছে, এ অভিযোগ সঠিক নয়। তার স্ত্রী অন্য একটি যুবকের সাথে মোবাইলে কথা বলত। বিষয়টি জানার পর সে গোপনে স্ত্রীর মোবাইলের কল রের্কড চালু করে রাখে। এ বিষয় নিয়ে সোমবার দিনগত রাতে বৃষ্টি খাতুনের সাথে তার ঝগড়া হয়। ভোরে সবার অগোচরে বৃষ্টি খাতুন শোবার ঘরে গলায় উড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে।

বাঘা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলী মাহামুদ জানান, ওই নববধূ গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে না, তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে মরদেহ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে তা স্পষ্ট নয়। ঘটনাটি রহস্যজনক। এ জন্য তার স্বামীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হচ্ছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।
এছাড়া নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য দুপুরে রামেক হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলে বৃষ্টির মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়া যাবে। তবে এই ব্যাপারে পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা দিলে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

আমন ক্ষেতে কারেন্ট পোকার আক্রমণ দিশেহারা বরেন্দ্র অঞ্চলের কৃষক

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি : চাঁপাইনবাবগঞ্জের বরেন্দ্র অঞ্চলে আমন ধানের ক্ষেতে কারেন্ট পোকার আক্রমণ বৃদ্ধি পয়েছে। পোকা দমনে বাজারে প্রয়োজনীয় কীটনাশক না পেয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কৃষকরা। কৃষকরা বলছেন, সময়মতো কারেন্ট পোকা দমন করতে না পারলে আমনের উৎপাদন ব্যাহত হতে পারে।  তারা জানান, কয়েকদিন ধরে জমিতে কারেন্ট পোকার আক্রমণ বেড়ে গেছে। বরেন্দ্র অঞ্চল খ্যাত সদর উপজেলার ঝিলিম, বালিয়াডাঙ্গা ও গোবরাতলা, নাচোলের নেজামপুর, ফতেপুর, কসবা, গোমস্তাপুরের পার্বতীপুর, রাধানগর, নন্দীপুরসহ বিভিন্ন ইউনিয়নের মাঠে কারেন্ট পোকার উপদ্রব শুরু হয়েছে। এতেকরে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে কৃষকদের মাঝে।

নাচোলের নেজামপুর ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর গ্রামের কৃষক আবদুল কাদের জানান, জুলাইয়ের মাঝামাঝি থেকে আমন চাষ শুরু হয়। কারেন্ট পোকার আক্রমণ দেখা দেয় নভেম্বরের মাঝামাঝিতে। কিন্তু এবার অনেক আগেই কারেন্ট পোকার আক্রমণ শুরু হয়েছে। এতে করে চিন্তিত হয়ে পড়েছেন কৃষকরা। ফতেপুর ইউনিয়নের সিংরইল গ্রামের কৃষক দুরুল হোদা বলেন, কারেন্ট পোকা দমনের প্রয়োজনীয় কীটনাশক বাজারে পাওয়া যাচ্ছে না। এতে করে হাজারো কৃষক চরম বিপদে পড়েছে। তিনি আরো বলেন, সময়মতো পোকা দমন করতে না পারলে এবার ধান উৎপাদন ব্যাহত হতে পারে।  

নেজামপুর বাজারের কীটনাশক ব্যবসায়ী ইয়াহিয়া খালেদ জানান, প্রতিদিন শত শত কৃষক তার দোকানে আসছেন কারেন্ট পোকা দমনের কীটনাশক কিনতে। কিন্তু কোম্পানিগুলোর সরবারহ না থাকায় প্রয়োজনীয় কীটনাশক না পেয়ে অনেক কৃষকই ফেরত যাচ্ছেন।

নাচোল উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সত্যেন কুমার জানান, ধান ক্ষেতে কারেন্ট পোকার আক্রমণ ঠেকাতে মাঠপর্যায়ে কৃষকদের নিয়ে উদ্বুদ্ধকরণ সভা করা হয়েছে। কারেন্ট পোকা দমনে ধান ক্ষেতে আলোক ফাঁদ তৈরির জন্য কৃষকদের বলা হচ্ছে। তবে কারেন্ট পোকার আক্রমণে ধানের উৎপাদন ব্যাহত হবে না বলে জানিয়েছেন জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মঞ্জুরুল হুদা। তিনি বলেন, এখনো আতংকিত হওয়ার মত কোন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়নি। বিষয়টি নিয়ে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের কর্মীরা মাঠপর্যায়ে কাজ করছে বলে জানান তিনি।

 

রাজশাহীতে ট্রেনে কাটা পড়ে বৃদ্ধের মৃত্যু

রাজশাহী প্রতিনিধি : রাজশাহী নগরীর বুধপাড়া ঢালান এলাকায় ট্রেনে কাটা পড়ে ময়েজ উদ্দিন (৬৫) নামের এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে।  সোমবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা আন্তঃনগর ট্রেন পদ্মা এক্সপ্রেস ট্রেনের নিচে কাটা পড়ে ওই বৃদ্ধের মৃত্যু হয়।

নিহতের ছেলে রাজু আহম্মেদ জানান, তার বাবা পক্ষাঘাতগ্রস্ত রোগী ছিলেন। তাই স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করতে পারতেন না। কোনোভাবে হাঁটতে পারতেন। এই অবস্থায় সোমবার ভোরে বাড়ি থেকে বের হয়ে রেললাইনের ওপরে যান। এ সময় ট্রেনের কাটা পড়ে তিনি মারা যান।

তবে রাজশাহী জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আকবর হোসেন বলেন, দুঘটনার খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছিলেন। কিন্তু স্পটে মরদেহ পাননি। বর্তমানে সেখানে পুলিশ রয়েছে তারা বিষয়টি খতিয়ে দেখছেন। তদন্ত শেষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন বলেও জানান ওসি।

রাজশাহীতে জামায়াত নেতা গ্রেফতার

রাজশাহী প্রতিনিধি : রাজশাহীতে কামরুজ্জামান ওরফে সোহেল (৪৮) নামে এক জামায়াত নেতাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোহেল নগরীর মহিষবাথান মহল্লার বেলাল হোসেনের ছেলে। তিনি রাজপাড়া থানা জামায়াতের সেক্রেটারী।

রাজপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান জানান, জামায়াত নেতা সোহেলের বিরুদ্ধে ১৪টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি মামলায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি ছিল। পলাতক থাকায় তাকে গ্রেফতার করা যাচ্ছিল না। তবে রোববার রাতে তিনি নিজের বাড়ি ফেরেন। এসময় সংবাদ পেয়েই অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পরে সোমবার সকালে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

 

পাবনার হত্যা মামলার আসামি ঢাকা থেকে গ্রেফতার

পাবনা প্রতিনিধি : পাবনার আটঘরিয়ার উপজেলার চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলার এক আসামিকে ঢাকা থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত আসামি হলো আটঘরিয়া উপজেলার শিবপুর গ্রামের হেলাল কসাই এর ছেলে সাকিব ওরফে ডিপজল (২৪)।

আটঘরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি-তদন্ত) অরবিন্দ সরকার এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার রাতে ঢাকার পল্লবী থেকে তাকে  গ্রেফতার করা হয়েছে। এর আগে একই এলাকার জাহাঙ্গীরের ছেলে সোহান (২৮) ও নুরুল আমিনের ছেলে বায়জিদকে (২৫)  গ্রেফতার করে পুলিশ।
থানা সূত্র জানায়, গত ১৭ সেপ্টেম্বর আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দাউদ মেম্বারকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় তার ভাই আব্দুর রহমান বাদী হয়ে ১৩ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

 

সিংড়ায় স্কুলছাত্র দুই বন্ধুর একসাথে আত্মহত্যা

সিংড়া (নাটোর) প্রতিনিধি : নাটোরের সিংড়ায় একই সাথে কীটনাশক গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে আত্মহত্যা করেছে ইমন ও নিশাত নামে দুই স্কুল ছাত্র। রোববার দুপুরে সিংড়া উপজেলার চৌগ্রাম ইউনিয়নের শতভাগ শিক্ষিত আদর্শ গ্রাম হুলহুলিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ইমন (১৩) তাজপুর ইউনিয়নের হরিপুর গ্রামের আমিন হোসেন ও নিশাত (১৩) চৌগ্রাম ইউনিয়নের হুলহুলিয়া গ্রামের মৃত বকুল প্রামানিকের ছেলে। দুজনই সিংড়া উপজেলার হুলহুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র। পুলিশ আত্মহননকারী ইমনের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেছে। অপরজন নিশাতের লাশ বগুড়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আত্মহত্যার কারণ জানা যায়নি। তবে কেউ কেউ ধারনা করছে প্রেমঘটিত বিষয়ে দ’ুজন এমন ঘটনা ঘটাতে পারে।

হুলহুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী লাইব্রেরিয়ান তৌফিক পরশ জানান, ইমন ও নিশাত হুলহুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র। ইমনের রোল ৩০ ও নিশাতের রোল ২৬। সকালে দু’জন স্কুলে আসে। এসে তাদের সহপাঠীদের জানায় আজ আমরা দুজন সুইসাইড করব, দুজনের আজ শেষ দিন এসব বলে বেরিয়ে পড়ে। তারপর যথারীতি স্কুল চলাকালীন সময়ে খবর আসে স্থানীয় হুলহুলিয়া প্রামানিক পাড়া এলাকায় একটি পুকুর পাড়ে তারা দুজনই কীটনাশক গ্যাস ট্যাবলেট খেয়েছে। আমরা ছুটে গিয়ে দেখি পুকুর ধারে দুজন পড়ে আছে। এ সময় স্থানীয়দের সহযোগিতায় তাদের সিংড়া হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ইমনকে মৃত ঘোষণা করেন এবং নিশাতকে বগুড়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। পরে সেখানে নিশাতেরও মৃত্যু হয়।

স্থানীয় ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ইমনের বাড়ি সিংড়া উপজেলার তাজপুর ইউনিয়নের হরিপুর গ্রামে। হুলহুলিয়া গ্রামে তার খালার বাসায় থেকে সে হুলহুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করত। এর আগে সে সিংড়া পৌর শহরের দমদমা পাইলট স্কুল ও কলেজ এবং নিংগইন জোড়মল্লিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করত। আর নিশাত হুলহুলিয়া গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা। তারা দুজন বিশ^স্ত বন্ধু ছিল। নিয়মিত স্কুলে যেত। তবে নিশাত একটু বখাটে স্বভাবের ছিল। তাদের কারো কাছে স্মার্ট ফোন ছিল না। কি কারণে এমন ঘটনা ঘটলো তা রহস্যজনক।

সিংড়া থানার ওসি (তদন্ত) ফরিদুল ইসলাম জানান, ইমনের লাশটির সুরতহালের ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যায়নি।

দুপচাঁচিয়ায় স্কুলছাত্রী মিলির আত্মহত্যায় প্ররোচনা মামলার প্রধান আসামি গ্রেফতার

দুপচাঁচিয়া (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়া দুপচাঁচিয়া উপজেলার মোস্তফাপুরে বখাটের প্ররোচনায় প্ররোচিত হয়ে ৫ম শ্রেণির ছাত্রী মিলি খাতুন (১৪) আত্মহত্যা মামলার প্রধান আসামি জাহাঙ্গীর আলম বুলু (৪৮) কে পুলিশ গত শনিবার দিবাগত রাতে মেইল বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে। সে উপজেলার চামরুল ইউনিয়নের মোস্তফাপুর গ্রামের মো. জাহিদ মন্ডলের ছেলে।
জানা গেছে, উপজেলার চামরুল ইউনিয়নের  মোস্তফাপুর উত্তর পাড়ার মৃত মকতব সর্দারের মেয়ে স্থানীয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণির ছাত্রী মিলি খাতুনকে স্কুলে যাওয়ার পথে উক্ত জাহাঙ্গীর আলম ওরফে বুলু বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ভাবে উত্ত্যক্ত করা সহ প্রেম নিবেদন ও কু-প্রস্তাব দিতো। এ ঘটনায় মিলি খাতুন গত ৯ অক্টোবর  রাতে রাগে, ক্ষোভে, অভিমান করে নিজ বাড়ির শয়ন কক্ষে বাঁশের তীরের সাথে গায়ের ওড়না বেঁধে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। এ সংক্রান্তে তার মা বেলী খাতুন নিজেই বাদী হয়ে ওই দিন রাতেই থানায় আত্মহত্যার প্ররোচনা ও সহায়তার অভিযোগ এনে থানায় মামলা করেছে। মামলা গ্রহণের পর থেকে পুলিশ এজাহারভুক্ত আসামিকে গ্রেফতারের অভিযানে নামে। থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আব্দুর রাজ্জাক এর  নেতৃত্বে একাধিক টিম বিভিন্ন জায়গায় হানা দেয়। অবশেষে পুলিশি কৌশল অবলম্বন করে গত শনিবার দিবাগত রাতে তাকে সদরের  মেইল বাসস্ট্যান্ড এলাকার খালেদা ক্লিনিকের সামনে থেকে  গ্রেফতার করে। থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আব্দুর রাজ্জাক তাকে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান,  গ্রেফতারকৃত বখাটে জাহাঙ্গীর আলম ওরফে বুলু স্কুল ছাত্রী মিলি খাতুনকে উত্ত্যক্তের বিষয়টি স্বীকার করেছে। তাকে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদানের জন্য  রোববার বগুড়া বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। এ মামলার অপর আসামিকেও গ্রেফতারের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। 

সান্তাহার বোর্ডিং থেকে নারী-পুরুষ গ্রেফতার

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি : আদমদীঘির সান্তাহারে একটি বোর্ডিংয়ে অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগে পুলিশ রবিউল সরদার (২৮) ও রুমি আক্তার (২৪) নামের দুইজনকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করেছে। রবিউল সরদার নওগাঁর আত্রাই উপজেলার চক শিমলা গ্রামের আনিছার রহমানের ছেলে ও রুমি আক্তার নওগাঁ মহাদেবপুর উপজেলার ফতেপুর গ্রামের বাপ্পীর স্ত্রী। এ ব্যাপারে সান্তাহার পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপ-পরিদর্শক সঞ্জয় কুমার চৌধুরি বাদী হয়ে ২৯০ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ জানায়, গত শনিবার রাত ১১টায় ওই দুই নারী পুরুষ সান্তাহার বিলাস বোর্ডিংয়ে প্রবেশ করে অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত রয়েছে, এমন সংবাদের ভিত্তিতে বোর্ডিংয়ে অভিযান চালিয়ে তাদের জিজ্ঞাসাবাদে অসংলগ্ন কথাবার্তা বলায় তাদের গ্রেফতার করা হয়।

 

তাড়াশে কিশোরী ধর্ষণ মামলার চার্জশিট শিগগিরই

তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি : সিরাজগঞ্জের তাড়াশে দুই যুবলীগ নেতা কর্তৃক এক কিশোরী ধর্ষণের মামলায় চার্জশিট শিগগিরই দাখিল করা হবে। বিষয়টি তাড়াশ থানার ওসি মনজুর রহমান শনিবার নিশ্চিত করেছেন। এদিকে  মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তাড়াশ থানার এসআই সাচ্চু বিশ্বাস তিনি জানান, মেডিকেল প্রতিবেদনে ওই কিশোরীকে ধর্ষণের সুস্পষ্ট আলামত পাওয়ার বিষয়টি উলে¬øখ করা হয়েছে। যাতে করে ওই মামলাটির চার্জসিট দিতে আর কোন বাধা নেই। তিনি আরো বলেন, আগামী সপ্তাহের শেষের দিকে মামলাটি তদন্ত শেষ করে চার্জসিট আদালতে দাখিল করা হবে।

উল্লে¬খ্য, গত ২২ আগষ্ট নাটোর জেলার গুরুদাসপুর উপজেলার রানীগ্রামের এক কিশোরী (১৩) তাড়াশের মান্নাননগর গ্রামে দুলাভাই সুরুজ আলীর বাড়িতে বেড়াতে আসে। কিশোরী তার ছোট ভাইকে নিয়ে মান্নাননগর না নেমে ভুল করে মহিষলুটি এলাকায় গাড়ী থেকে নেমে ঘোরাফেরা করছিল। এসময় ওই দুই যুবলীগ নেতা তাদের পথ দেখিয়ে দেওয়ার কথা বলে মহিষলুটি বিদ্যাধর এলাকায় নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন।

এ ঘটনার পর ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরীর চিৎকারে স্থানীয় লোকজন ও টহল পুলিশের সদস্যরা ধর্ষিতাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। পরে ধর্ষিতা নওগাঁ ইউনিয়ন যুবলীগের ৬নং ওয়ার্ড সহ-সভাপতি ও  উপজেলার নওগাঁ ইউনিয়নের সাকুয়াদিঘী গ্রামের আবু তালেবের ছেলে আনিছুর রহমান ও ইউনিয়ন যুবলীগের তথ্য বিষয়ক সম্পাদক একই গ্রামের সাইদুর রহমানের ছেলে মহির উদ্দিন অভিযুক্ত করে ২৩ আগষ্ট সকালে মামলা দায়ের করেন। ওই দিনই থানা পুলিশ দুই যুবলীগ নেতা কে গ্রেফতার করেন। পরে দল থেকে তাদের বহিস্কার করা হয়। বর্তমানে ওই দুই যুবলীগ নেতা জামিনে মুক্ত রয়েছেন। 

চারঘাটে ভ্যনচালকের লাশ উদ্ধার

রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার পকেটখালি এলাকায় সোহাগ (২৫) নামের এক ভ্যনচালকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার দুপুরে পকেটখালি এলাকায় ধানের জমি থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত সোহাগ উপজেলার ওমরগাড়ী গ্রামের তাপিফ হোসেনের ছেলে।
চারঘাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নিবারণ চন্দ্র বর্মন জানান, গতকাল শনিবার সকালে চারঘাট উপজেলার পকেটখালি বিলের মধ্যে স্থানীয়রা ঘাস কাটতে গিয়ে জমিতে একটি লাশ পড়ে থাকতে দেখে। পরে চারঘাট থানা পুলিশ গিয়ে সোহাগ আলীর মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত করার জন্য রামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়। সোহাগ গরিব ঘরের ছেলে ও একজন ভ্যনচালক।

মরদেহের গলায় গামছা প্যাঁচানো ছিল। ঘাড়ে একটি ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাতের চিহ্ন আছে। তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে পুলিশ নিশ্চিত হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

 

পাবনার অধিকাংশ চাতাল বন্ধ ফায়দা লুটছে অসাধু মজুতদার

পাবনা প্রতিনিধি : ধান সংগ্রহের প্রতিযোগিতায় টিকতে না পেরে সংকটে পড়েছে পাবনার চালকলগুলোতে চাল উৎপাদন। একদিকে বেড়েছে চালের দাম, কমেছে বেচাকেনা। অপরদিকে বাজারের অস্থিরতায় বন্ধ হয়ে গেছে বেশিরভাগ চাতালকল। যার বিরূপ প্রভাব পড়েছে ভোক্তা সাধারণের ওপর। চালের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধিতে দিন এনে দিন খাওয়া মানুষ পড়েছে মহাবিপাকে। আর ফায়দা লুটছে অসাধু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট। এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে সুনির্দিষ্ট নীতিমালা ও সরকারের কঠোর নজরদারির দাবি সংশ্লিষ্টদের।

চাল নিয়ে কথা চালাচালিতে যখন সারাদেশ সরগরম, ঠিক সে সময়ে অনেকটাই নিস্তব্ধ উত্তরের জেলা পাবনার ঈশ^রদী উপজেলার জয়নগর চালের মোকাম। মোটা চাল সরবরাহকারী দেশের অন্যতম বৃহৎ এই মোকাম এখন প্রায় ক্রেতাশূন্য। দফায় দফায় চালের মূল্য বৃদ্ধিতে দেখা দিয়েছে এ সট। গত এক মাসে পাবনার মোকামগুলোতে প্রকারভেদে চালের দাম বেড়েছে কেজি প্রতি ৮ থেকে ১০ টাকা। নজিরবিহীন এ মূল্যবৃদ্ধিতে চরম বিপাকে পড়েছেন নি¤œআয়ের মানুষ। জয়নগরে কথা হলো কয়েকজন রিক্সাচালক ও দিনমজুরের সাথে। আলাপকালে তারা বললেন, রিক্সা চালিয়ে কামলা খাইটে যে কয় টেকা পাই তাতে চাল কিনতিই টেকা শেষ হয়া যায়। এবা কইরে কয়দিন চলবো। সরকার এক টেকা দাম বাড়ালি, মিল মালিক বা ব্যবসায়ীরা বাড়ায় দশ টেকা। কিন্তু দাম কুমার সময় আর দশ টেকা কমে না। দশ টেকা দাম বাড়ায়া, এক-দুই টেকা দাম কমালি কি হিসাব মেলে। যা কষ্ট সব ওই আমাগোরে কামলা মানুষের। বড়লোকের তো কোনো সমস্যা নাই।

ঈশ^রদী উপজেলা চালকল মালিক গ্রুপের সভাপতি ফজলুর রহমান মালিথা বলেন, ঈশ^রদীর মোকামে ছোট বড় মিলিয়ে চাতাল কলের সংখ্যা ৬৫০টি। অথচ ধান সংকটের কারণে এ মৌসুমে সচল রয়েছে মাত্র ৮০টি। সরকারি গুদামে যে আপতকালীন মজুদ সেটার অবস্থা খুবই নাজুক। মজুত সরকারের হাতে তেমন নেই বললেই চলে। সেই সুযোগ নিচ্ছে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী বা মিল মালিকরা। সুনির্দিষ্ট নীতিমালা না থাকায় ধান সংগ্রহে একচেটিয়া নিয়ন্ত্রণ কব্জা করেছে কয়েকটি ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট। কখনো গুজব রটিয়ে, কখনো বা কৃত্রিম সংকট তৈরি করে স্বার্থসিদ্ধি করে নিয়েছে তারা। এতে বিপাকে পড়েছেন সাধারণ অটো রাইসমিল মালিকরা। এজন্য সরকারের কঠোর নজরদারির দাবি তাদের।

ঈশ্বরদী উপজেলা ধান-চাল ব্যবসায়ী সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক সাদেক আলী বিশ্বাস জানান, এখন ধান কিনে চাল তৈরির পর তা বিক্রি করতে গেলে লাভের বদলে ট্রাকপ্রতি ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা লোকসান হচ্ছে। ধান সংকট তো আছেই। যে কারণে চালের মোকামে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। চাতাল মালিকরা জানান, ইতিমধ্যে ঈশ্বরদী মোকামে ক্রেতাশূন্য অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। চালু চাতালগুলোতে যা চাল উৎপাদন হচ্ছে, তাও বিক্রি হচ্ছে না বললেই চলে। চাল ক্রেতার অভাবে বেশিরভাগ চালই অবিক্রীত পড়ে থাকছে বলে জানান চাল ব্যবসায়ীরা। চালের বাজার বেড়ে যাওয়ার কারণে এমনটি হচ্ছে বলে জানান উপজেলা চাল ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আলহাজ খায়রুল ইসলাম। উপজেলা ধান-চাল ব্যবসায়ী সমিতির হিসাব অনুযায়ী মিনিকেট, বিআর-২৮, বিআর-২৯, পারিজা, নতুন গুটি স্বর্ণা, বিনা-৭ ও বিআর-৩৯ চালসহ এই মোকামে উৎপাদিত সব ধরনের চালের দাম বেড়েছে অস্বাভাবিকভাবে। এতে বিপাকে পড়েছেন সাধারণ মানুষ।

উপজেলা ধান-চাল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মজিবর রহমান মোল্লা জানান, বাজারে ধানের দামের সঙ্গে চালের বাজার মূল্যের সামঞ্জস্য না থাকায় ঈশ্বরদী মোকামে উৎপাদিত চালের মূল্য বাড়ছে। তিনি বলেন, বর্তমানে ঈশ্বরদী মোকামের মিলগুলো বন্ধ থাকায় বিভিন্ন চালের আড়তে থাকা চালগুলো বিক্রি করতেও হিমশিম খেতে হচ্ছে ব্যবসায়ীদের।
পাবনার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শাফিউল ইসলাম বলেন, বাজারে ধান বা চালের কৃত্রিম সংকট তৈরি করলে সেই মজুতদার বা ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। ইতিমধ্যে আমাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চলছে। আমরা কোনো ব্যবসায়ীকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে চাই না। কিন্তু কেউ যদি সরকারের ইমেজ নষ্টের অপচেষ্টা করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

পাবনায় তারেক হত্যা মামলায় ৪ জনের যাবজ্জীবন

পাবনা প্রতিনিধি : পাবনায় চাঞ্চল্যকর আওয়ামী লীগ নেতা তারেক আলী হত্যা মামলার চারজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া এই মামলায় দুইজনকে খালাস দেয়া হয়েছে। পাবনার স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক লিয়াকত আলী মোল্লা বৃহস্পতিবার সকালে এ রায় দেন। সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা হলো সদর উপজেলার ভাঁড়ারা ইউনিয়নের বকশীপুর গ্রামের আব্দুল হামিদ খাঁর ছেলে আতিক হোসেন, গয়েশপুর ইউনিয়নের হরিনারায়নপুর গ্রামের তাহের আমিনের ছেলে মকবুল হোসেন, জোতগড়ি জালালপুর গ্রামের আব্দুস ছাত্তারের ছেলে আসলাম উদ্দিন এবং মনোহরপুর গ্রামের আব্দুল গফুরের ছেলে তুরি কানা।

মামলার সরকার পক্ষের আইনজীবী এডভোকেট খন্দকার আহমেদ রকিব জানান, ২০০৫ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি সদর উপজেলার জালালপুর বাজারে প্রকাশ্য দিবালোকে আওয়ামী লীগ নেতা তারেক আলীকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করে চরমপন্থী সন্ত্রাসীরা। হত্যার পর তার ভাই হারুন খাঁ বাদী হয়ে সদর থানায় ১১ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। দীর্ঘদিন সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে পাবনার স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক লিয়াকত আলী মোল্লা এজাহারভুক্ত চারজনকে অভিযুক্ত করে যাবজ্জীবন কারাদন্ড ও দুইজনকে বেকসুর খালাস দেন।

মামলায় সরকার পক্ষের আইনজীবী ছিলেন এডভোকেট খন্দকার আহমেদ রকিব ও আসামিপক্ষের আইনজীবী ছিলেন এডভোকেট সনৎ কুমার রায়। সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা সবাই বর্তমানে পলাতক রয়েছে।

সিরাজগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩

সিরাজগঞ্জে বঙ্গবন্ধু সেতু এলাকায় দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে দুইজন ও কাজিপুর উপজেলায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হলেন – নওগাঁর মহাদেবপুর থানার দক্ষিণকুড়া গ্রামের মোজাফফর হাসানের ছেলে ট্রাকচালক নজরুল ইসলাম, সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার গোয়ালবাথা গ্রামের সোহরাব হাসানের স্ত্রী শাহারা খাতুন ও অজ্ঞাতপরিচয় একজন।

বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানার এএসআই রাজু আহমেদ বলেন, রাতে নওগাঁ থেকে চালবোঝাই ট্রাক ঢাকা যাচ্ছিল। ট্রাকটি সেতুর পশ্চিম সংযোগ সড়ক এলাকায় পৌঁছালে টিনবোঝাই একটি ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই একজন মারা যান। তার পরিচয় পাওয়া যায়নি।

দুর্ঘটনায় ট্রাকচালক নজরুল ইসলামসহ তিনজন আহত হন জানিয়ে তিনি বলেন, তাদের সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রাতে ট্রাকচালক নজরুল মারা যান।

এছাড়া শাহারা খাতুন নামে এক গৃহবধূ মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মারা গেছেন বলে জানিয়েছেন ওই হাসপাতালের চিকিৎসক ফয়সাল আহমদ।

তিনি বলেন, বুধবার রাতে কাজিপুর উপজলায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত হয়ে শাহারা হাসপাতালে ভর্তি হন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় গভীর রাতে তার মৃত্যু হয়। শাহারা কাজিপুর উপজলার গোয়ালবাথা গ্রামের সোহরাব হোসেনের স্ত্রী।

 

সলঙ্গার হান্নান হত্যা মামলার মূল আসামিদের গ্রেফতারের দাবি পরিবারের

সলঙ্গা (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি : সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা থানার তারুটিয়া গ্রামের ইটভাটা শ্রমিক আব্দুল হান্নান হত্যা মামলার আসামিরা পাঁচ মাসেও গ্রেফতার হয়নি। বর্তমানে আসামিরা নিজ গ্রামে বসবাস করে বাদীকে রীতিমতো হুমকি ধামকি দিলেও পুলিশের নজরে পড়ছে না কোনভাবেই। পুলিশ বরং এই মামলার প্রধান সাক্ষী দুলাল হোসেনকে তিনদিন থানায় আটকে রেখে নির্যাতনের পর গ্রেফতার দেখিয়ে হাজতে প্রেরন করেন। আর পরিবারের দাবি ভাটা মালিক রফিকুল ইসলাম প্রভাবশালী এবং আসামিদের আত্মীয় হবার কারণে তিনিও মামলাটিকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছেন। পুলিশের এমন আচরণ নিয়ে হান্নানের পরিবার এবং গ্রামবাসীদর মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

গত ২৫ এপ্রিল সন্ধ্যায় হান্নানকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে হত্যা করে স্থানীয় ভরসা ইটভাটার মধ্যে লাশ ফেলে রেখে যায় হত্যাকারীরা। স্থানীয় এক প্রভাবশালী ব্যক্তির পরিবারের এক গৃহবধূর সাথে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক আছে এমন সন্দেহে হান্নানকে ডেকে নিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পরিবারের। আর সে সময়ই ভাটা মালিক রফিকুল ইসলামের আশ্বাসের কারণে দরিদ্র পরিবারটি সে সময় আসামি অজ্ঞাত উল্লেখ করে মামলা দায়ের করে।

কিন্তু ঘটনার তিনমাস অতিবাহিত হলেও কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় অনেক  সত্য উদঘাটন হওয়ায় হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িতদের সুনির্দিষ্ট নাম দিয়ে কোর্টে মামলা দায়ের করেন নিহতের স্ত্রী। কিন্তু স্থানীয় প্রভাবশালী একটি চক্র পুলিশকে প্রভাবিত করায় আসামিরা থাকছে ধরা ছোয়ার বাইরে। এমনকি আসামীরা বাদি ও সাক্ষীদের নানাভাবে হুমকি দিচ্ছে। পুলিশকে প্রভাবিত করে মামলার প্রধান সাক্ষীকেই আটক করে থানায় তিনদিন রেখে নির্যাতনের পর হাজতে প্রেরণ করে। এরপর আবারো একদিনের রিমান্ডে এনে আবারো চালানো হয় নির্যাতন। যা দেখে বাকী স্বাক্ষীরা এখন সাক্ষী দিতে অপরাগতা প্রকাশ করছে। বর্তমানে মামলার বাদিসহ পুরো পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে।

নিহত হান্নানের মা মাজেদা খাতুন, বাবা দবির সর্দার জানান, আমার ছেলেকে যারা হত্যা করেছে তারা আমার চোখের সামনে ঘুরে বেড়াচ্ছে কিন্তু পুলিশ তাদের গ্রেফতার করছে না। আমরা এর সঠিক বিচার চাই।  ভরসা ইটভাটার মালিক রফিকুল ইসলাম এ মামলা সম্পর্কে কিছুই জানেন না উল্লেখ করে বলেন, পুলিশকে প্রভাবিত করার কোন চেষ্টাই তিনি করছেন না।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সলঙ্গা থানার এসআই জহুরুল ইসলাম ছুটিতে থাকায় মোবাইলে জানান, এ মামলায় কোন আসামী বা স্বাক্ষী নেই। কোর্টের মামলাটি স্থগিত হয়েছে বলেও দাবী তার। সলঙ্গা থানার ওসি আব্দুর রফিক বলেন, মামলার তদন্তের স্বার্থে সাক্ষীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে কোন নির্যাতন চালানো হয়নি।

রাণীনগরে ইয়াবাসহ গ্রেফতার ১

রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর রাণীনগর থানাপুলিশের মাদক বিরোধী অভিযান চলাকালীন সময়ে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাণীনগর থানার এসআই মোস্তাফিজুর রহমান গত সোমবার রাতে উপজেলার কালীগ্রাম চাঁদার পুকুর নামক স্থানে ১৮ পিচ ইয়াবাসহ আলমগীর হোসেন (৪৮) নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে।

গ্রেফতারকৃত আলমগীর হোসেন নাটোর সিংড়া থানার কালীগঞ্জ গ্রামের মৃত সেকেন্দার আলীর ছেলে। এ ব্যাপারে রাণীনগর থানায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের হলে মঙ্গলবার সকালে গ্রেফতারকৃত আলমগীরকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়।

 

পত্নীতলায় মাদকসহ ২ জন আটক

পত্নীতলা (নওগাঁ) প্রতিনিধি : পত্নীতলা থানা পুলিশ মঙ্গলবার উপজেলার মোবারকপুর ও আমাইড় অষ্টোমাত্রা ত্রি-মাহনী মোড়ে পৃথক পৃথক অভিযান চালিয়ে ২শ পিস ইয়াবা ও ১৫০ বোতল ফেন্সিডিলসহ ২ জনকে আটক করেছে। আটককৃত জয়পুরহাট জেলার ভাদসা পশ্চিম পাড়া এলাকার আব্দুর রাজ্জাক শেখের পুত্র আলতাফ হোসেন।  
অপরদিকে একইদিন দিবাগত রাত সাড়ে ১২টায় উপজেলার আমাইড় অষ্টোমাত্রা ত্রি-মাহনী মোড়ে অভিযান চালিয়ে অষ্টোমাত্রা এলাকার মৃত কায়েশ উদ্দীনের পুত্র বেলাল হোসেনকে ১৫০ বোতল ফেন্সিডিলসহ আটক করে।

 

বগুড়ায় দুর্ঘটনায় বাবা-ছেলেসহ নিহত ৩

বগুড়ায় বাস ও মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে বাবা-ছেলেসহ তিনজন নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে শহরের চারমাথায় এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে বগুড়া সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আসলাম আলী জানান।

নিহতরা হলেন, মোটরসাইকেল আরোহী আবুল কালাম আজাদ (৪০), তার ছেলে হৃদয় (১৮) ও অপর আরোহী তপন (৩৮)।  তাদের বাড়ি বগুড়া সদরের উপজেলার শশীবদনী গ্রামে।

পরিদর্শক আসলাম বলেন, রাতে বগুড়া থেকে ঢাকাগামী শ্যামলী পরিবহনের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয় শহরের চারমাথায় এলাকায়।এতে ঘটনাস্থলেই ওই তিনজন নিহত হন।

তিনজনের লাশ শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি।

আসলাম আরও বলেন, ঘটনার পরপর বাসের চালক ও তার সহকারী পালিয়ে গেছেন। দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে।

 

বাড়ির কাছে ব্যবসায়ীকে গলাকেটে হত্যা

সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে এক ব্যবসায়ীকে গলাকেটে হত্যা করেছে অজ্ঞাতরা। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার নান্দিনা মধু গ্রামে এ ঘটনা ঘটে বলে কামারখন্দ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) খোদা নেওয়াজ জানান

নিহত মো. জিন্নাহ মণ্ডল (৪২) ওই গ্রামের হাবিবর মণ্ডলের ছেলে ও ফ্ল্যাক্সিলোড ব্যবসায়ী। পরিদর্শক খোদা নেওয়াজ বলেন, জিন্নাহ রাতে নান্দিনা মধু বাজারে দোকান বন্ধ করে বাড়ি যাচ্ছিলেন। বাড়ি থেকে অল্প দূরে অজ্ঞাতরা তাকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে। পরে পাশের খাল পাড়ে নিয়ে গলাকেটে হত্যা করে পালিয়ে যায় তারা।

 

সুজানগরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১

সুজানগর (পাবনা) প্রতিনিধি : পাবনা-নগরবাড়ি মহাসড়কের সুজানগর উপজেলার আমিনপুর থানাধীন আলাদীপুর নামক স্থানে  সোমবার পিকআপ ভ্যান ও ট্রলি গাড়ির সংঘর্ষে ১ জন নিহত ও ৩ জন আহত হয়েছে। এছাড়া এদিন ওই সড়কের চরচিনাখড়া নামক স্থানে আরিফ পরিবহন নামে একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ছিটকে সড়কের পাশে পড়ে গিয়ে অন্তত ১০ জন যাত্রী আহত হয়েছে। নিহত ব্যক্তি হলো সাঁথিয়া উপজেলার রাজাপুর গ্রামের কানু শেখের ছেলে আবুল কালাম (৪৫)। আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

মাধপুর হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির আইসি আনোয়ার হোসেন জানান, সকাল ৯টার দিকে বনগ্রাম থেকে আসা একটি বালু ভর্তি ট্রলি আলাদীপুর নামক স্থান দিয়ে সড়ক অতিক্রম করছিল। এ সময় কাশীনাথপুর থেকে পাবনাগামী একটি পিকআপ ভ্যানের সাথে ট্রলিটির সংঘর্ষ হয়। এতে ট্রলিতে থাকা বালু ব্যবসায়ী আবুল কালাম ঘটনাস্থলেই নিহত হন। এ সময় ট্রলির চালক ও হেলপার এবং পিআপের চালক আহত হয়।

এ ব্যাপারে আমিনপুর থানায় মামলা হয়েছে। তবে নিহতদের পরিবারের অনুরোধে ময়না তদন্ত ছাড়াই লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ছাড়া এদিন সকাল সাড়ে ৯টার দিকে একই সড়কের চরচিনাখড়া নামক স্থানে ঢাকা থেকে পাবনাগামী আরিফ পরিবহন নামে একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ছিটকে সড়কের পাশে পড়ে গিয়ে অন্তত ১০ জন যাত্রী আহত হয়।

আদমদীঘির ক্ষুদ্র মাছ বাজারে বেচাকেনার ধুম

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি : দেশের মৎস্যভান্ডার বলে খ্যাত বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলায় ক্ষুদ্র মাছবাজারগুলোতে এখন রেণুপোনা বিক্রির ধুম পড়েছে। বিগত বন্যার কারনে রেনুপোনা মাছ বাজারে কিছুদিন বিক্রি কম দেখা গেলেও পানি নেমে যাওয়ার পরপরই ক্ষুদ্র মাছবাজারে ক্রেতা বিক্রেতাদের সরগরমে বেকার থাকা মৎস্যচাষীরা আবারও ব্যস্ত হয়ে পড়েছে।

আদমদীঘি উপজেলায় বড় ছোট মিলে প্রায় ৬ শতাধিক জলাশয় ও পুকুরে মাছচাষ হয়ে থাকে। রেণুপোনা উৎপাদনে ৫৫টি হ্যাচারী ও নার্সারি রয়েছে। আদমদীঘি সদরের পাবলিক লাইব্রেরির পাশে ক্ষুদ্র মাছবাজারে প্রতিদিন রেনুপোনা বেচাকেনা হয়ে থাকে। এই বাজারে চট্রগ্রাম, সিলেট, রংপুর, ময়মনসিংহ, দিনাজপুর, যশোহর, ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানের পাইকারগন রেণুপোনা মাছ ক্রয় করে ট্রাক যোগে নিয়ে যান। এছাড়াও বড় বাজারজাতের মাছও বিভিন্ন স্থানে নিয়ে সরবরাহ করা হয়।

আদমদীঘি ও আশপাশের উপজেলার হাজার হাজার বেকার যুবক এই রেণুপোনা মাছ বেচাকেনা করে বেকারত্ব দুর করে তাদের পরিবারের সচ্ছলতা ফিরে এনেছে। প্রতিদিন এখান থেকে প্রায় কোটি টাকার মাছ দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হয়ে থাকে। বিগত বন্যায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পুকুর ও জলাশয় ডুবে যাওয়ায় এই বাজারে সম্প্রতি তেমন রেনুপোনা মাছ বেচাকেনা হচ্ছিল না। বাজারগুলোতে ক্রেতা কমে যাওয়ার কারণে রেণুপোনা ও বাজারজাতকরণের বড় মাছ বাজারে বেচাকেনা কমে যায়। বর্তমানে বন্যার পানি নেমে যাওয়ায় আবারও মাছবাজারগুলোতে ব্যবসায়ীদের সরগরম উপস্থিতিতে রেণুপোনাসহ বাজারজাতকরণের মাছ বেচা কেনা শুরু হয়েছে। ভোর ৬টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত ক্ষুদ্র মাছবাজারে বেচাকেনার ধুম পড়ায় স্থানীয় মৎস্যচাষীদের দম ফেলানোর ফুরসত নেই।

ধুনটে শিশু ধর্ষক বৃদ্ধ কারাগারে

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার ধুনট উপজেলায় চার বছর বয়সের নাতনীকে ধর্ষণের ঘটনায় মোজাফ্ফর রহমান (৬০) নামে তার দাদাকে আটক করে থানায় সোপার্দ করেছে ধর্ষিতার স্বজনরা। ধর্ষক মোজাফ্ফর রহমান উপজেলার বেলকুচি গ্রামের মৃত গেদা প্রামানিকের ছেলে। থানা পুলিশ ধর্ষণ মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে সোমবার সকাল ১০টার দিকে মোজাফ্ফর রহমানকে ধুনট থানা থেকে আদালতের মাধ্যমে বগুড়া জেলা কারাগারে পাঠিয়েছে।

থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ধুনট সদর ইউনিয়নের বেলকুচি গ্রামের হতদরিদ্র এক কৃষকের চার বছর বয়সের মেয়ে অন্যান্যদিনের ন্যায় গত রোববার বিকেলে বাড়ির আঙ্গিনায় খেলা করছিল। বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে একই বাড়িতে বসবাসকারী দূর সম্পর্কের দাদা মোজাফ্ফর রহমান শিশুটিকে চকলেট খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে নিজের ঘরের শয়ন কক্ষে নিয়ে যায়। এ সময় ওই বাড়িতে অন্য কোন লোকজন ছিল না। এ সুযোগে শিশুটিকে ধর্ষণের পর ঘরে থেকে বের করে দেয় মোজাফ্ফর রহমান। ধর্ষনের পর শিশুটি নি¤œাঙ্গে প্রচন্ড ব্যাথা অনুভব করে। শিশুটির চোখে-মুখে আতংকের ছাপ। তাৎক্ষনিক ভাবে শিশুটি বাড়ি ফিরে প্রথমে তার মায়ের কাছে নি¤œাঙ্গে ব্যথার কথা জানায়। এ সময় শিশুটির নি¤œাঙ্গে ধর্ষণের আলামত দেখতে পায় তার মা। এক পর্যায়ে মায়ের নিকট ঘটনার কথা প্রকাশ করে শিশুটি। এদিকে, ঘটনার পর গা ঢাকা দেয় ধর্ষক মোজাফ্ফর রহমান। এক পর্যায়ে রোববার রাত ৮টার দিকে বেলকুচি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এলাকা থেকে মোজাফ্ফর রহমানকে আটক করে থানায় সোপার্দ করে শিশুটির স্বজনরা। এ ঘটনায় ধর্ষিতা শিশুর মা বাদী হয়ে মোজাফ্ফর রহমানের বিরুদ্ধে ধুনট থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মিজানুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, প্রাথমিক তদন্তে ঘটনার সত্যতার প্রমাণ পাওয়া গেছে। ধর্ষিত শিশুটিকে শারীরিক পরীক্ষার জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

শেরপুরে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ব্যবসায়ীর ৫লাখ টাকা লুট

শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার শেরপুরে ডিবি পুলিশের পরিচয়ে অপহরণের পর দিনের বেলায় এক ব্যবসায়ীর নিকট পাঁচ লাখ টাকা লুটে নিয়েছে সশস্ত্র দুর্বৃত্তরা। গত রোববার উপজেলার ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের মহিপুর দুগ্ধ ও প্রাণি উন্নয়ন খামারের সামনে এই ঘটনা ঘটে। পরে চোখ-মুখ বাঁধা অবস্থায় অপহৃত ব্যবসায়ী আবু জাফর ও তার নাতি তৌহিদুর রহমানকে সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার ভূঁইয়াগাতী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় মহাসড়কের পাশ থেকে উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় থানায় লিখিত একটি অভিযোগ দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় উল্লাপাড়া থানাপুলিশ রোববার গভীর রাতে অভিযান চালিয়ে উল্লাপাড়া পৌর শহর থেকে চার ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে। এসময় ছিনতাইয়ের ঘটনায় ব্যবহৃত একটি মাইক্রোবাসও জব্দ করেছে পুলিশ

অভিযোগে জানা যায়, জেলার শাজাহানপুর উপজেলার জামালপুর গ্রামের হযরত আলীর ছেলে ব্যবসায়ী আবু জাফর ও তার নাতি তৌহিদুর রহমান গত রোববার শেরপুর শহরের একটি ব্যাংক থেকে পাঁচ লাখ টাকা উত্তোলন করেন। পরে উক্ত টাকা নিয়ে তারা একটি বাসযোগে বগুড়ায় যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে উক্ত স্থানে পৌঁছলে কালো রংয়ের একটি মাইক্রোবাস (ঢাকা মেট্টো চ-১৫-৮৬৪৩) এসে বাসটি দাঁড় করায়। এরপর মাইক্রোবাস থেকে ৭-৮জন ব্যক্তি নেমে নিজেদের ডিবি পুলিশের পরিচয় দেয়। একইসঙ্গে ব্যবসায়ী আবু জাফর ও তার নাতি তৌহিদুর রহমানের কাছে অবৈধ মাল রয়েছে-এমন দাবি করে বাস থেকে তাদের নামিয়ে নেয় সশস্ত্র দুর্বৃত্তরা। পরে মাইক্রোবাসে তুলে তাদের চোখ-মুখ কালো কাপড় দিয়ে বেঁধে ফেলা হয়। এমনকি মাইক্রোবাসের ভেতরেই বেধড়ক মারধর করে আবু জাফরের হেফাজতে থাকা পাঁচ লাখ টাকা ছিনিয়ে নেয়া হয়। এরপর ভুঁইয়াগাতি বাসস্ট্যান্ড এলাকায় মহাসড়কের পাশে চোখ-মুখ বাঁধা অবস্থায় তাদের ফেলে দিয়ে মাইক্রোবাস যোগে দ্রুত চলে যায় দুর্বৃত্তরা। একপর্যায়ে ঘটনার দিন বিকেলে স্থানীয় লোকজনের সংবাদের ভিত্তিতে তাদের উদ্ধার করে শেরপুর থানায় থানায় আনা হয়। মূলত এর পরই ঘটনাটি জানাজানি হয়। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খান মো. এরফান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে সাংবাদিকদের জানান, ঘটনাটি গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। আশা করি দ্রুততম সময়ের মধ্যেই এ ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় আনা সম্ভব হবে বলে এই পুলিশ কর্মকর্তা দাবি করেন।

এদিকে উল্লাপাড়া (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান. বগুড়ার শেরপুরে প্রকাশ্য দিবালোকে ৫ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে উল্লাপাড়া থানা পুলিশ রোববার গভীর রাতে অভিযান চালিয়ে উল্লাপাড়া পৌর শহর থেকে চার ব্যক্তিকে গ্রেফতাার করেছে। এসময় ছিনতাইয়ের ঘটনায় ব্যবহৃত একটি মাইক্রোবাসও জব্দ করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলো উল্লাপাড়া পশ্চিমপাড়ার আজিজুর রহমান (৩৪), কাওছার হোসেন (৩৩), সোহেল হোসেন (৪০) ও কাওয়াক গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক (৩৫)। মাইক্রোবাসটির মালিক উল্লাপাড়ার জবা দই ঘরের স্বত্বাধিকারী সুজিত ঘোষ। গ্রেফতারকৃতদের সোমবার ভোরে শেরপুর থানা পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। এই ছিনতাইয়ের ঘটনায় আরও কয়েকজন উল্লাপাড়ার বাসিন্দা রয়েছে বলে শেরপুর থানার পুলিশের বরাত দিয়ে উল্লাপাড়া থানার ওসি দেওয়ান কউশিক আহমেদ জানান।

বগুড়ায় স্কুলছাত্রীর ‘আত্মহত্যা’, গ্রেপ্তার ২৬

বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলায় বখাটের উত্ত্যক্তে অতিষ্ঠ হয়ে এক স্কুলছাত্রী আত্মহত্যা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। নিহত রাজিফা আকতার সাথী (১৪) উপজেলার জিয়ানগর গ্রামের গোলাম রব্বানীর মেয়ে। সে জিয়ানগর উচ্চবিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রী ছিল।

দুপচাঁচিয়া থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক জানান, আত্মহত্যার খবর পেয়ে রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করেন।

“এ সময় অভিযোগ পেয়ে পাশের হেরুঞ্জ গ্রামে বখাটে ইয়ামিনকে (১৯) গ্রেপ্তার করতে গেলে গ্রামবাসী পুলিশকে বাধা দেয়। একপর্যায়ে তারা হামলা চালায়।” গ্রামবাসীর হামলায় নাসিরুজ্জামান, রহিম উদ্দিন ও জাকির হোসেন নামে পুলিশের তিন এসআই আহত হন বলে জানান ওসি রাজ্জাক।

তিনি বলেন, কয়েক ঘণ্টা পর অতিরিক্ত পুলিশ নিয়ে আবার ওই গ্রামে অভিযান চালিয়ে ২৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এসব ঘটনায় দুটি মামলা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে ইয়ামিনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেছেন স্কুলছাত্রীর বাবা গোলাম রব্বানী। আর দায়িত্বপালনে বাধা দেওয়াসহ হামলার অভিযোগে আরেকটি মামলা করেছে পুলিশ।

ইয়ামিনকে গ্রেপ্তারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছেন ওসি রাজ্জাক।

 

সাতক্ষীরা থেকে হত্যাকারী প্রেমিক-প্রেমিকা গ্রেফতার

পাবনা প্রতিনিধি : পাবনার বেড়ায় মেয়ের সামনে বাবা মোয়াজ্জেম হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। হত্যাকারী প্রেমিক-প্রেমিকাকে সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলা এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।  রোববার দুপুরে পাবনা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের হল রুমে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার জানান, গত ৩ অক্টোবর পাবনার বেড়া পৌর এলাকার দাসপাড়া মহল্লায় মোয়াজ্জেম হোসেনকে কুপিয়ে হত্যা করে তার মেয়ে মাবিয়াকে নিয়ে পালিয়ে যায় প্রেমিক সবুজ। এসময় বাধা দিতে গেলে ধারালো অস্ত্রাঘাতে গুরুতর আহত হন প্রতিবেশী হাসনা খাতুন। এ ঘটনায় নিহতের ছোট ভাই জাহাঙ্গির হোসেন বাদী হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। বেড়া মডেল থানার ওসি (তদন্ত) খাইরুল ইসলামকে মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়। পাশাপাশি মামলাটিকে চাঞ্চল্যকর মামলা হিসাবে গ্রহণ করে ঘটনার রহস্য উদঘাটন এবং হত্যাকারীদের দ্রæত গ্রেফতারের জন্য একটি টিম গঠন করা হয়। টিমের সদস্যরা ৫দিনের মধ্যে মূল হত্যাকারী প্রেমিক সবুজ ও  নিহতের মেয়ে প্রেমিকা মাবিয়াকে গ্রেফতার করেন।  রোববার সকালে সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলা এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় তাদের। পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির জানান, সবুজ ও মাবিয়ার মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। মাবিয়ার স্বামী বিদেশ চলে গেলে সবুজ ও মাবিয়ার মধ্যে সম্পর্ক আরও গভীর হয়। এক পর্যায়ে ৩ অক্টোবর তারা পালিয়ে যাবার চেষ্টা করলে মাবিয়ার পিতা মোয়াজ্জেম হোসেন বাধা দিলে সবুজ তাকে কুপিয়ে হত্যা করে। মাবিয়া প্রেমিক সবুজের আপন চাচী।

সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বেড়া সার্কেল) মিয়া মোহম্মদ আশিষ বিন হাছান জানান, এ ঘটনায় মূল আসামি সবুজ ও মাবিয়াসহ ৭ জন এজাহারভূক্ত আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যরা হলো- ইমরান শেখ, আহসান শেখ, কোমর শেখ, আমোদ আলী শেখ, ও ইব্রাহীম। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হবে।

 

 

 

 

দুপচাঁচিয়ায় স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

দুপচাঁচিয়া (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার জিয়ানগরে রোববার বিকেলে গলায় ফাঁস দিয়ে নবম শ্রেণির ছাত্রী রুজিখা আক্তার সাথী (১৫) আত্মহত্যা করেছে।

জানা গেছে, উপজেলার জিয়ানগর ইউনিয়নের মন্ডলপাড়া গ্রামের গোলাম রব্বানীর  মেয়ে স্থানীয় উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী রুজিখা আক্তার সাথী  রোববার সকালে বিদ্যালয়ের ড্রেস পরে প্রাইভেট পড়ার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়। দুপচাঁচিয়া থেকে প্রাইভেট পড়া শেষে বিদ্যালয়ে না গিয়ে বাড়িতে যায় এবং ড্রেস পরা অবস্থায় নিজ শয়ন কক্ষের তীরের সাথে ওড়না বেঁধে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। স্থানীয় চেয়ারম্যান আব্দুল হাকিম তালুকদার আত্মহত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করলেও তার আত্মহত্যার কারণ জানা যায়নি। তবে স্কুল ড্রেস পড়া অবস্থায় ছাত্রীটির আত্মহত্যার ঘটনাটি এলাকায় রহস্যের সৃষ্টি করেছে।       

শেরপুরে বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে কৃষকের মৃত্যু

শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার শেরপুরে বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে গিয়াস উদ্দিন (৫৬) নামে এক কৃষকের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। রোববার সকালের দিকে উপজেলার কুসুম্বী ইউনিয়নের খিকিন্দা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, খিকিন্দা গ্রামের আয়েজ উদ্দিন ফসলি জমিতে সেচ দেয়ার জন্য একটি বিদ্যুত চালিত সেচ পাম্প স্থাপন করেন। কৃষক গিয়াস উদ্দিন সকালের দিকে ওই সেচ পাম্পের পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন। একপর্যায়ে সেচ পাম্পের সংযোগ তারে জড়িয়ে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান বলে তারা জানান।

শিবগঞ্জে নিখোঁজ কিশোরের মরদেহ উদ্ধার

শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি : চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার ধাইনগর ইউনিয়নের গুপ্তমানিক এলাকায় মহানন্দা নদীর ঘাটে গোসল করতে গিয়ে নিখোঁজের দুইদিন পর বরকত আলী (১৮) নামে এক কিশোরের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  সে ওই এলাকার মৃত আব্দুল মান্নানের  ছেলে। শিবগঞ্জ থানার এসআই শাহ্ আলম জানান, গত বৃহস্পতিবার দুপুর  দেড়টার দিকে মহানন্দা নদীতে বন্ধুদের সাথে  গোসল করতে  গেলে পানিতে ডুবে নিখোঁজ হয় বরকত। তিনি জানান, স্থানীয়রা খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে রাজশাহী  থেকে ডুবুরি, ফায়ার সার্ভিস ও থানা পুলিশের সহায়তায় গত  শনিবার বিকেলে বরকত আলীর গলিত মরদেহ উদ্ধার করে পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।



Go Top