মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৬
ad
    |    
২৪ এপ্রিল, ২০১৬ ২০:৩৬:০২
প্রিন্টঅ-অ+
এরশাদকে গণতন্ত্রের ছবক দিলেন রওশন


ঢাকা,২৪এপ্রিল,ফোকাস বাংলা নিউজ: হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে আগে নিজের দলে (জাতীয় পার্টি) গণতন্ত্র চর্চার আহ্বান জানালেন সহধর্মিনী রওশন এরশাদ।তিনি বলেছেন, পাটিৃর গঠনতন্ত্রের ঊনচল্লিশ ধারা গণতন্ত্রের পরিপন্থী। এ ধারা পরিবর্তন করতে হবে। পার্টিতেই যদি গণতন্ত্র না থাকে তাহলে বাইরে গণতন্ত্রের কথা বলে লাভ কি?রোববার  সংসদ ভবনের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদকে উদ্দেশ্য করে এভাবেই গণতন্ত্রের ছবক  দেন বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ।

জাতীয় পার্টির অষ্টম জাতীয় সম্মেলনের তারিখ  পেছোনোর আহ্বান জানিয়েছেন পার্টির সিনিয়র প্রেসিডিয়াম সদস্য ও বিরোধী দলীয়  নেত্রী রওশন এরশাদ। সম্মেলনটি আগামী ১৪ মে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।রওশন বলেন, পার্টির সবার সঙ্গে আলোচনা করে সম্মেলনের নতুন তারিখ নির্ধারণ করতে হবে। উনি (এরশাদ), কো-চেয়ারম্যান, মহাসচিব মিলে সম্মেলনের তারিখ দিয়েছেন যা দলের গঠনতন্ত্র মোতাবেক হয়নি।রওশন বলেন, আগের তারিখগুলোও দলের অধিকাংশ নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে নেয়া হয়নি। বেশিরভাগ সিদ্ধান্তই এখন চেয়ারম্যান একক সিদ্ধান্তের আলোকে নিচ্ছেন। তাই তার কাছে আমরা সংসদীয় কমিটি আহ্বান জানিয়েছি, দলে গণতন্ত্র চর্চা সমুন্নত রাখতে সবার সঙ্গে আলোচনা ও পরামর্শ করে কাউন্সিলের তারিখ পুনঃনির্ধারণ করা হোক।কাউন্সিল  পেছানোর আহ্বান জানিয়ে জাপা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে বলেও দাবি করেন রওশন।

তিনি বলেন,  চেয়ারম্যান (এরশাদ) গত ১৭ জানুয়ারি একক সিদ্ধান্ত নিয়ে জিএম কাদেরকে  কো-চেয়ারম্যান ও রুহুল আমিন হাওলাদারকে মহাসচিব করেছেন- তা দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী হয়নি তা আবারো বলতে চাই। কারণ, জাতীয় পার্টি কোনো কোম্পানি নয় যে, কারো একক সিদ্ধান্তে দল চলবে। তাই আগের সিদ্ধান্তও প্রত্যাহার করে সবার সঙ্গে আলোচনা করে সব সিদ্ধান্ত নেয়ার আহ্বান জানাই। কারণ, প্রত্যেকটি নেতাকর্মীর দলের জন্য অবদান ও ত্যাগ আছে। সবারই পরামর্শ দেয়ার অধিকার আছে।দলের দুর্বলতা তুলে ধরে বিরোধী দলীয় নেতা বলেন, আমরা একসময় শাসন করেছি। দেশের অনেকে উন্নয়ন আমাদের হাত দিয়েই শুরু হয়েছে। কিন্তু এখন আমরা দুর্বল হয়ে পড়েছি। বারবার ভুল সিদ্ধান্তের কারণেই দলের এই অবস্থা। আমরা সুনির্দিষ্ট রাজনৈতিক পরিকল্পনা নিতে ব্যর্থ হয়ায় এখনও কোনো ল্েয  পৌঁছতে পারিনি। প্রত্যেক সংসদ নির্বাচনের আগে আমাদের দলে ভাঙন সৃষ্টি হয়েছে। এজন্য অপ্রত্যাশিতভাবে প্রত্যেক নির্বাচনে আমরা ভালো করতে পারছি না। দলের তৃণমূলসহ সব নেতাকর্মীদের সঙ্গে পরামর্শ করে এগুলে এমন অবস্থা হতো না মনে করেন রওশন।

জাপা  থেকে বহিষ্কার ও চলে যাওয়াদের পুনরায় দলে ফেরার আহ্বান জানিয়ে এ জাপা নেত্রী বলেন, দলের সুদিনে-দুর্দিনে অসংখ্য  নেতা-কর্মী অবদান রেখেছেন। তাদের অনেকেই আজ নেই। অথচ চেয়ারম্যানের আশে-পাশে এসব কারা?আগামী ১৪ মে সম্মেলনে আপনার  যোগ  দেবেন কিনা জানতে চান সাংবাদিকরা জানতে চাইলে পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও পানিসম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন,  চেয়ারম্যান বলেছেন-এই কাউন্সিলে দলের  কো-চেয়ারম্যান ও মহাসচিবের পদ অপরিবর্তীত থাকবে। তাহলে কাউন্সিল করার কোনোপ য়োজনীয়তা তো আমি দেখছি না।

সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় পার্টির পানিসম্পদ মন্ত্রী ও প্রেসিডিয়াম সদস্য ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা, জিয়াউদ্দিন বাবলু, বিরোধী দলের চিফ হুইপ তাজুল ইসলাম  চৌধুরী, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, উপস্থিত ছিলেন প্রমুখ।
 
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত

রাজনীতি এর অারো খবর