সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৬
ad
  • হোম
  • রাজনীতি
  • পরবর্তী ইউপি ভোট সামনে রেখে সশস্ত্র তাণ্ডব শুরু: রিজভী
১৩ এপ্রিল, ২০১৬ ১৫:৪৩:২৮
প্রিন্টঅ-অ+
পরবর্তী ইউপি ভোট সামনে রেখে সশস্ত্র তাণ্ডব শুরু: রিজভী

পরবর্তী ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সামনে রেখে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বিভিন্ন স্থানে ‘সশস্ত্র তাণ্ডব’ চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি।

এতে ‘আতঙ্ক’ ছড়িয়ে পড়লেও নির্বাচন কমিশনের ‘দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ নেই’ বলে অভিযোগ করেছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, “ইউনিয়ন পরিষদের দুই ধাপের নির্বাচনে ক্ষমতাসীনদের তাণ্ডবে ৪৫ জন নিহত হয়েছে, ৫ সহস্রাধিক লোক আহত হলেও নির্বাচনী সহিংসতায় মৃত্যুর মিছিল বেড়েই চলেছে।

“ক্ষমতাসীনদের অস্ত্রের ঝনঝনানিতে গ্রামে গ্রামে ভয়ঙ্কর আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। তারা সশস্ত্র মহড়া দিয়ে সারাদেশে বিএনপি কর্মী ও ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে না যেতে হুমকি-ধমকি আগের মতোই অব্যাহত রেখেছে।”

রিজভীর মতে, তৃতীয় ও চতুর্থ ধাপের ইউপি ভোটের আগে নির্বাচনী পরিবেশ যেন ‘ছায়া-সুনিবিড়গ্রামে অসংখ্য নেকড়ের আক্রমণের মতো’।

নির্বাচন কমিশন এক প্রেসনোটে পরবর্তী ধাপের নির্বাচন ‘শান্তিপূর্ণ’ করার আশ্বাস দেওয়ায় আশাবাদী হয়েছিলেন বলে জানান রিজভী।

“কিন্তু তাদের (নির্বাচন কমিশন) এখন পর্যন্ত দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ দেখা যাচ্ছে না।”

আগামী ২৩ এপ্রিল তৃতীয় ধাপের এবং ৩ মে চতুর্থ ধাপের ইউপি ভোট হওয়ার কথা রয়েছে।

এই নির্বাচন সামনে রেখে এরইমধ্যে নারায়ণগঞ্জের রুপগঞ্জের ভুলতা, ময়মনসিংহের ফুলপুর, বান্দরবানের রুমা, মুন্সীগঞ্জ, গাজীপুরের শ্রীপুরের রাজাবাড়ী ইউনিয়ন, বগুড়ার গাবতলীর রাশ্বেরপুর ও কাগইল ইউনিয়নে বিএনপির প্রার্থীদের গণসংযোগে হামলা এবং তাদের ধরপাকড়ের ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ করেন রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, “সরকার ও নির্বাচন কমিশন মিলে নির্বাচনকে আগামী প্রজন্মের কাছে প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন বানানোর অভিলাষ নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে, যাতে বর্বর একদলীয় আওয়ামী লীগ সরকার চিরদিনের জন্য ক্ষমতায় থাকতে পারে।”

এরপরেও এই নির্বাচনে বিএনপি কেন থাকছে-এই প্রশ্নের জবাবে রিজভী বলেন, “একটি সরকার যে কত বড় দুর্বিনীত হতে পারে, একটি সরকার যে কত বড় গণবিরোধী হতে পারে, একটি সরকার যে কত বড় ভোটারবিহীন গণতন্ত্র বিনাসী হতে পারে, যারা নির্বাচনকে দুমড়ে-মুচড়ে দিচ্ছে-যা দেশবাসী ও বিশ্ববাসী দেখছে। স্থানীয় সরকারের এই নির্বাচনে অংশ নেওয়ার মধ্য দিয়ে এই দেখাটা আরও স্পষ্ট হচ্ছে।

“আমরা যে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের জন্য আন্দোলন-সংগ্রাম করছি এটা যে কত বড় ন্যায়সঙ্গত দাবি, তা এই নির্বাচনে অংশ নেওয়ার মধ্য দিয়ে আরও বেশি সুস্পষ্টভাবে প্রতীয়মান হচ্ছে। এটাই আমাদের মূল উদ্দেশ্য।”

নির্বাচনে অংশগ্রহণের পক্ষে যুক্তি দিয়ে এই বিএনপি নেতা আরও বলেন, “আমরা যেমন গণতন্ত্রবিরোধী নই, আমরা যেমন নির্বাচনের বিরুদ্ধে নই, জনগণের ম্যান্ডেটের পক্ষে, তাদের ম্যান্ডেট নিয়ে আমরা যেমন আমাদের প্রতিনিধি নির্বাচন করতে চাই- সেই কারণেই আমাদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ।

“তেমনি অবৈধ ভোটারবিহীন সরকারের নির্বাচনের কী বীভৎস চিত্র হতে পারে সেটাও এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে ফুটে উঠছে।”

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে দলের যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবীর খোকন, কেন্দ্রীয় নেতা কবীর মুরাদ, রফিক শিকদার, তাইফুল ইসলাম টিপু উপস্থিত ছিলেন।
 
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত

রাজনীতি এর অারো খবর