সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬
ad
৩০ এপ্রিল, ২০১৬ ১২:২১:০৭
প্রিন্টঅ-অ+
হ্যাকিংয়ে গোপনীয় তথ্য ‘ফাঁসের পর’ উল্টো প্রতিবাদ

জাতীয় নির্বাচনের আগে নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইট হ্যাকের পর ভোটারদের আঙুলের ছাপসহ গোপনীয় বিভিন্ন তথ্য জনসম্মুখে ছেড়ে দেওয়ার জন্য তথ্য চুরির দায়ে শাস্তির মুখে পড়ার কথা যাদের, তারাই উল্টো তথ্যের সুরক্ষা দিতে না পারার প্রতিবাদ করছে।

এরকম ঘটনা ঘটতে চলছে ফিলিপিন্সে। হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় যে দেশটির নাম এখন বাংলাদেশিদের মুখে মুখে।

তথ্যের সুরক্ষা দিতে ব্যর্থতার অভিযোগে ফিলিপিন্সের কমিশন অব ইলেকশন বা সংক্ষেপে ‘কম-ইলেক’ এর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের জন্য দেশটির বিচার বিভাগের সামনে আগামী সোমবার প্রতিবাদ মিছিলের ডাক দিয়েছে একটি হ্যাকার গ্রুপ।

‘অ্যানোনিমাস ফিলিপিন্স’ নামে এই হ্যাকার গ্রুপের সদস্যরাই গত ২৭ মার্চ কম-ইলেক এর ওয়েবসাইট হ্যাক করে বলে অভিযোগ রয়েছে।

ফিলিপিন্সে আগামী ৯ মে জাতীয় নির্বাচনের ভোটগ্রহণের কথা রয়েছে। এর আগে ভোটারদের আঙুলের ছাপ, জাতীয় পরিচয়পত্র, ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বর ও পাসপোর্টসহ বিভিন্ন স্পর্শকাতর তথ্য সম্বলিত কম-ইলেক এর ওয়েবসাইট হ্যাক হয়।

তবে এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে একটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ‘‌লুলজসেক ফিলিপিনাস’ নামে একটি হ্যাকার গ্রুপ এসব স্পর্শকাতর তথ্যের একাংশ প্রকাশ্যে ছেড়ে দেওয়ার পরই বিষয়টি নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়।

ফিলিপিন্সে আলোচিত এই ঘটনাকে ‘কম-ইলিক’ বলা হচ্ছে।


ফিলিপিন্সের সংবাদপত্র ফিলস্টার জানায়, ‘‌লুলজসেক ফিলিপিনাস’ হ্যাকার গ্রুপটি ‘অ্যানোনিমাস ফিলিপিন্স’ এরই একটি আওতাধীন গ্রুপ বলে ওয়েবসাইটটি বন্ধ করে দেওয়ার আগে এর ফেইসবুক পাতায় দেখা যায়।

ইতোমধ্যে এ হ্যাকিংয়ে জড়িত অভিযোগে পল বিতেং নামে এক হ্যাকারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবে তার দাবি, তিনি একা এ কাজে জড়িত ছিলেন না।

সর্বশেষ শুক্রবার এ ঘটনায় আরও এক হ্যাকারকে গ্রেপ্তার করেছে দেশটির জাতীয় তদন্ত ব্যুরো (এনবিআই)।

ফিলস্টার বলছে, ভোটারদের তথ্যের সুরক্ষা দিতে ব্যর্থতার অভিযোগ এনে এজন্য নির্বাচন কর্মকর্তাদের তদন্তের আওতায় আনতে দেশটির বিচার বিভাগকে চাপ দিতেই ‘অ্যানোনিমাস ফিলিপিন্স’ এই আন্দোলনের ডাক দেয়।

ইতোমধ্যে প্রায় এক হাজার ইন্টারনেট ব্যবহারকারী এই প্রতিবাদ মিছিলে যোগ দেবেন বলে ফেইসবুক পেইজ
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত

আন্তর্জাতিক এর অারো খবর