বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬
ad
১৮ এপ্রিল, ২০১৬ ১১:১৯:৫৪
প্রিন্টঅ-অ+
নিম্নকক্ষে অভিশংসন ভোটে রৌসেফের হার

ব্রাজিল কংগ্রেসের নিম্নকক্ষে প্রেসিডেন্টকে অভিশংসন করা নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভোটাভুটিতে হেরে গেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট দিলমা রৌসেফ।

বিবিসি, রয়টার্স, দ্য গার্ডিয়ান বলছে, রোববার পাঁচ ঘণ্টা ধরে ভোট গ্রহণ শেষে রাতে ফলাফল ঘোষণা করেন নিম্নকক্ষের স্পিকার এদুয়ার্দো কুনহা।

নিম্নকক্ষের ৫১৩ জন ডেপুটির (সদস্য) মধ্যে ৩৬৭ জন প্রেসিডেন্টকে অভিশংসন করার পক্ষে ‘হ্যাঁ’ ভোট দেন। বিপক্ষে ‘না’ ভোট দেন ১৬৭ জন। অন্যদের মধ্যে সাতজন ভোটদানে বিরত থাকেন এবং দুইজন ডেপুটি অনুপস্থিত ছিলেন।

প্রেসিডেন্টকে অভিশংসনের মুখোমুখি করার প্রক্রিয়া শুরু করতে নিম্নক্ষের দুই-তৃতীয়াংশ বা ৩৪২ জন ডেপুটির সমর্থন প্রয়োজন ছিল। রৌসেফের বিরোধীরা তার চেয়ে বেশি ভোট টানতে সমর্থ হন।

আগামী বছরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে প্রভাবিত করতে প্রেসিডেন্ট রৌসেফ ব্রাজিলের ক্রমবর্ধমান বাজেট ঘাটতির তথ্য লুকানোর চেষ্টা করছেন এবং এই উদ্দেশ্যে তিনি সরকারি হিসাব নিয়ন্ত্রণ করছেন দাবি করে তাকে অভিশংসনের মুখোমুখি করার দাবি তোলে দেশটির কংগ্রেসের বিরোধীদলীয় সদস্যরা।

অভিযোগ অস্বীকার করে অভিশংসনের উদ্যোগকে নির্বাচিত গণতান্ত্রিক সরকারের বিরুদ্ধে ‘পার্লামেন্টারি ক্যু’ এর চেষ্টা বলে পাল্টা অভিযোগ করে আসছিলেন প্রেসিডেন্ট রৌসেফ ও তার দল ক্ষমতাসীন ওয়ার্কার্স পার্টি।    

কিন্তু অভিশংসনের উদ্যোগে প্রথম প্রক্রিয়ায় কংগ্রেস কমিটির ভোটাভুটিতে তিনি হেরে যান। কমিটির সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্য অভিশংসনের পক্ষে মত দেয়।

কমিটির অনুমোদনের পর কংগ্রেসের নিম্নকক্ষের ভোটের মাধ্যমে প্রেসিডেন্টকে অভিশংসন করার প্রক্রিয়া আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হল। অভিশংসনের প্রস্তাব নিম্নকক্ষ থেকে উচ্চকক্ষ তথা সিনেটে উঠলো। সিনেটে বিষয়টি নিয়ে ফের ভোট গ্রহণ করা হবে।

৮১ সদস্যের সিনেটের ৪১ জন সদস্য ‘হ্যাঁ’ ভোট দিলেই পরবর্তী ১৮০ দিনের জন্য বহিষ্কৃত হবেন প্রেসিডেন্ট রৌসেফ। কিন্তু সিনেটে প্রয়োজনীয় সংখ্যক সদস্য অভিশংসনের পক্ষে ভোট না দিলে অভিশংসন প্রক্রিয়া বাতিল হয়ে যাবে এবং যথারীতি প্রেসিডেন্ট পদে বহাল থাকবেন রৌসেফ।

অভিশংনের প্রস্তাবটি সিনেটের অনুমোদন পেলে সাময়িক বহিষ্কারের পাশাপাশি সিনেটে শুনানির মুখোমুখি হবেন প্রেসিডেন্ট রৌসেফ। ১৮০ দিনের মধ্যে শুনানি শেষ করে প্রেসিডেন্ট ‘দোষী’ না ‘নির্দোষ’ তা নির্ধারণে ফের ভোট গ্রহণ করা হবে।

ভোটে প্রেসিডেন্ট ‘নির্দোষ’ প্রমাণ হলে বহিষ্কারাদেশ বাতিল হয়ে ফের প্রেসিডেন্ট পদে বহাল হবেন রৌসেফ, আর ‘দোষী’ প্রমাণিত হলে স্থায়ীভাবে বহিষ্কৃত হবেন।

পরবর্তী নির্বাচন পর্যন্ত দেশটির অস্থায়ী প্রেসিডেন্ট হবেন বর্তমান ভাইস প্রেসিডেন্ট মিচেল তেমের।
 
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত

আন্তর্জাতিক এর অারো খবর