বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৬
ad
২৭ এপ্রিল, ২০১৬ ২১:২৮:৩২
প্রিন্টঅ-অ+
'প্রবৃদ্ধি হবে ৭ শতাংশের বেশি'
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত সংসদে জানিয়েছেন, এ বছর ৭ শতাংশের সামান্য বেশি প্রবৃদ্ধি হবে। চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে বিগত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় আমদানি ব্যয় ৭ দশমিক ৮ শতাংশ কমেছে। মূলত আর্ন্তজাতিক বাজারে পণ্যমূল্য হ্রাস পাওয়ায় আমদানি বাবদ ব্যয় হ্রাস পেয়েছে।
 
একইসঙ্গে তিনি জানান, চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর) বাজেটের ৭৬ হাজার ৬২১ কোটি টাকা খরচ হয়েছে, যা মোট বাজেটের ২৬ শতাংশ। উন্নয়ন ও অনুন্নয়ন মিলিয়ে বাজেটের মোট আকার হচ্ছে ২ লাখ ৯৫ হাজার ১০০ কোটি টাকা। এছাড়া চলতি অর্থবছরের একইসময়ে রাজস্ব আদায় হয়েছে লক্ষ্যমাত্রার ৩৭ দশমিক ১ শতাংশ।

সংসদের দশম অধিবেশনে বুধবার অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত অর্থবছরের প্রথমার্ধের বাজেট বাস্তবায়ন এ চিত্র তুলে ধরেন। বাজেট ২০১৫-১৬: দ্বিতীয় প্রান্তিক (জুলাই-ডিসেম্বর) পর্যন্ত বাস্তবায়ন অগ্রগতি ও আয়-ব্যয়ের গতিধারা এবং সামষ্টিক অর্থনৈতিক বিশ্লেষণসংক্রান্ত প্রতিবেদন সংসদে উত্থাপন করা হয়।
 
অর্থমন্ত্রী জানান, অর্থবছরের প্রথমার্ধে অনুন্নয়নসহ অন্যান্য ব্যয়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৫৯ হাজার ৫৪ কোটি টাকা। আর বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) খরচ হয়েছে ১৭ হাজার ৫৬৭ কোটি টাকা। অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়িত হয়েছে মোট বরাদ্দের ২৩ শতাংশ। ব্যয়ের হিসাবে যা দাঁড়ায় ২২ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকা।

চলতি অর্থবছরের (২০১৫-১৬) প্রথম ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর) লক্ষ্যমাত্রার ৩৭ দশমিক ১ শতাংশ রাজস্ব আদায় হয়েছে। চলতি অর্থবছরের মোট রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২ লাখ ৮ হাজার ৪৪৩ কোটি টাকা। ডিসেম্বর পর্যন্ত আদায় হয়েছে ৭৭ হাজার ২৩০ কোটি টাকা, যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ১৫ দশমিক ৮ শতাংশ বেশি। আর বাজেটের লক্ষ্যমাত্রার ৩৭ দশমিক ১ শতাংশ।

অর্থমন্ত্রী বলেন, রাজস্ব আদায়ের প্রবৃদ্ধি আশানুরূপ না হওয়ায় রাজস্ব আদায়ের গতি বাড়াতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডসহ সকলকে জোর প্রচেষ্টা চালাতে হবে। কারণ জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য অর্জন করতে হলে বার্ষিক লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী রাজস্ব আদায় জরুরি।

অর্থমন্ত্রী জানান, রফতানি আয় বিগত অর্থবছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের ১৪ দশমিক ৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার হতে ৭ দশমিক ৮ শতাংশ বেড়ে ১৬ দশমিক ১ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে দাঁড়িয়েছে। আমদানি ঋণপত্র নিষ্পত্তির প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৩ দশমিক ৬ শতাংশ।

তিনি আরও জানান, অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে ব্যক্তিখাতে ঋণপ্রবাহের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৪ দশমিক ২ শতাংশ, বিগত অর্থবছরের একই সময়ে যা ছিল ১৩ দশমিক ৫ শতাংশ। প্রবাস নিয়োগের সংখ্যা ২ দশমিক ২ লাখ হতে বেড়ে ৩ দশমিক ১ লাখে দাঁড়িয়েছে।

সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ প্রবাহ ৭৩৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার হতে ১ হাজার ১৩৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে বলে জানান অর্থমন্ত্রী।

তিনি আরও জানান, পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে মূল্যস্ফীতি ডিসেম্বর ২০১৪ এর ৬ দশমিক ১১ শতাংশ হতে ডিসেম্বর ২০১৫ সময়ে ৬ দশমিক ১০ শতাংশে নেমে এসেছে।
 
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত

অর্থ-বাণিজ্য এর অারো খবর