রাত ১১:৩৩, শুক্রবার, ১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং
/ ঢাকা

স্টাফ রিপোর্টার: রাজধানীর দক্ষিণ কল্যাণপুরে স্যুটকেসের ভিতর থেকে অজ্ঞাত এক ব্যক্তির হাত-পা ও মাথাবিহীন লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার সকালে কল্যাণপুর থেকে গাবতলীমুখী সড়কের পাশে স্যুটকেসটি পড়েছিল বলে দারুস সালাম থানার ওসি মো. সেলিমুজ্জামান জানান।

ওসি বলেন, সকাল থেকে গাবতলীমুখী পথে সোহরাব পেট্রোল পাম্পের কাছে ব্যাপটিস্ট চার্চের সামনে মূল সড়কের পাশে একটি কালো স্যুটকেসে পড়েছিল। এটি দীর্ঘক্ষণ মালিকবিহীন অবস্থায় পড়ে থাকায় স্থানীয় টোকাই স্যুটকেসটি খুলে ভিতরে মরদেহ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয়।

খবর পেয়ে সকাল ৯টার দিকে মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) মর্গে পাঠায়। দারুস সালাম থানার এসআই এলিস মাহমুদ জানান, স্যুটকেসের ভিতর মরদেহ ছাড়া আর কিছু ছিল না। তিনি বলেন, নিহতের পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে।

 

মহাখালীতে বৃদ্ধাকে জবাই করে হত্যা

স্টাফ রিপোর্টার: রাজধানীর মহাখালী আরজতপাড়ার নিজ বাড়ি থেকে মিলু গোমেজ (৬৫) নামে এক বৃদ্ধার গলা কাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার সকালে মরদেহটি উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। তেজগাঁও থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সেন্টু মিয়া জানান, ‘সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বাড়ির তিনতলার ফ্ল্যাটের ড্রইং রুমের দরজার সামনে থেকে মৃতদেহটি উদ্ধার করা হয়। ওই স্থানেই মরদেহটি পড়ে ছিল।’ নিহত বৃদ্ধার স্বামী অনিল গোমেজ ওই বাড়ির মালিক জানিয়ে পুলিশ বলছে, বাড়ির বিভিন্ন ফ্ল্যাটে ভাড়াটিয়া থাকলেও বাড়িওয়ালার ফ্ল্যাটে বৃদ্ধ দম্পতি অনিল ও মিলুই থাকতেন।

 পুলিশ পরিদর্শক সেন্টু মিয়া আরও বলেন, সকালে বাড়ির ভাড়াটিয়ারা পানি না পেয়ে বাড়িওয়ালা অনিল গোমেজের ফ্ল্যাটে গিয়ে ডাকাডাকি করেন। কিছুক্ষণ পর ৭০ বছর বয়সী বৃদ্ধ অনিল দরজা খুলে দিলে ভাড়াটিয়ারা বৃদ্ধার রক্তাক্ত লাশ  দেখতে পান। এর পরেই ভাড়াটিয়ারা পুলিশকে খবর দেয় জানিয়ে ওই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ঘটনাস্থল থেকে বাড়ির কাজে ব্যবহার করা একটি চাকু উদ্ধার করা হয়েছে। বাড়ির দরজা-জানালা ভাঙা বা কোনো মালামাল খোয়া যাওয়ার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

পুলিশ বলছে, সকাল ৭টা থেকে সাড়ে ৭টার মধ্যে মিলু গোমেজকে হত্যা করা হয়েছে বলে তাদের ধারণা। কে বা কারা তাকে হত্যা করেছে, সে বিষয়ে অনিলকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে জানিয়ে পুলিশ পরিদর্শক সেন্টু মিয়া বলেন, অনিলের শরীরে আঁচড়ের দাগ পাওয়া  গেছে। তবে জিজ্ঞাসাবাদে তার কাছ থেকে এখন পর্যন্ত স্পষ্ট কিছু পাওয়া যাচ্ছে না। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

 

মাদারীপুরে তরুণের লাশ

মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলায় এক তরুণের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রাজৈর থানার ওসি জিয়াউল মোর্শেদ জানান, বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার বদরপাশা ইউনিয়নের মোল্লাকান্দি গ্রাম থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত নাসির হোসেন শেখ (২৮) ওই গ্রামের নূর জামাল শেখের ছেলে। ওসি জিয়াউল বলেন, নাসির হোসেন ঢাকায় পোশাক কারখানায় চাকরি করেন। বাড়ি আসার পর বুধবার একই উপজেলার মজুমদারকান্দির শ্বশুরবাড়ির উদ্দেশে বের হন।

“সকালে এলাকাবাসী বাড়ির পাশের বাঁশবাগানে তার লাশ দেখতে পায়। তার গলায় কালো দাগ রয়েছে।” তবে তাকে হত্যা করা হয়েছে কিনা এ বিষয়ে তিনি কিছু বলতে পারেননি।

লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মাদারীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানোর পাশাপাশি পুলিশ ঘটনা তদন্ত করছে বলে তিনি জানান।

 

মুগদায় মদ্যপানে দুলাভাই-শ্যালকের মৃত্যু

রাজধানীর মুগদায় অতিরিক্ত মদ্যপানে দুলাভাই ও শ্যালকের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার (১৩ ডিসেম্বর) দিনগত রাতে তাদের মৃত্যু হয়। মৃত দুলাভাই আব্দুর রহমান (৩৫) ও শ্যালক সোহেল (১৮) শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটের একটি দোকানের কর্মচারী ছিলেন।

মুগদা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনামুল হক জানান, মুগদার মাণ্ডা কদমআলী ঝিলপাড় এলাকায় পরিবার নিয়ে ভাড়া থাকতেন রহমান। বুধবার রাতে রহমানের স্ত্রী বাসায় ছিলেন না। রহমান তার শ্যালকের সঙ্গে মদ্যপান করলে তারা অসুস্থ হয়ে পড়েন। সোহেলকে মুগদা হাসপাতালে ভর্তি করলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ৩টায় তার মৃত্যু হয়।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রহমানের মৃত্যু হয়।  

ওসি জানান, এ ঘটনায় রহমানের ছোট ভাই আব্দুর রাজ্জাক অপমৃত্যুর মামলা করেছেন। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ দুটি ঢামেক হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

চাকরি দেয়ার নামে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ

রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে চাকরীর প্রলোভন দেখিয়ে এক কিশোরীকে (১৪) ধর্ষনের অভিযোগে গিয়াস উদ্দিন নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আর কিশোরীকে  বুধবার দুপুরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করে পুলিশ।

হাসপাতালে কিশোরীর বড় বোন জানান, ‘আমরা মাতুয়াইল এলাকায় ভাড়া থাকি। আমার  বোন সেখানে একটি বই বাইন্ডিং কারখানায় কাজ করতো। গত সোমবার রাত ৮টার দিকে কিশোরীর পূর্ব পরিচিত গিয়াস উদ্দিন তাকে ভাল চাকরি দিবে বলে ডেকে একটি বাসায় নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষন করে। পরে বিষয়টি আমাদের জানালে আমরা মঙ্গলবার থানায় অভিযোগ করি। পুলিশ গিয়াসকে গ্রেফতার করেছে।’

 

তেজগাঁওয়ে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১

ঢাকার তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল এলাকায় পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে এক যুবক নিহত হয়েছেন। পুলিশ বলছে, আনুমানিক ত্রিশ বছর বয়সী ওই যুবক একটি ডাকাত দলের সদস্য। তার নাম আবদুল্লাহ বলে পুলিশ জানতে পেরেছে।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে বিজি প্রেস মাঠ এলাকায় গোলাগুলির ওই ঘটনা ঘটে বলে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানার এসআই জাহাঙ্গীর আলমের ভাষ্য।

তিনি বলেন, ওই এলাকায় জড়ো হয়ে একটি ডাকাত দল ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে খবর পেয়ে পুলিশে সেখানে অভিযানে যায়।

“ঘটনাস্থলে গেলে ডাকাতরা পুলিশের দিকে গুলি ছোড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি চালালে একজন আহত হয়, বাকিরা পালিয়ে যায়।”

পরে গুলিবিদ্ধ ওই যুবককে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন বলে জানান জাহাঙ্গীর।

তিনি বলেন, ঘটনাস্থল থেকে একটি আগ্নেয়াস্ত্রও উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতের লাশ ঢাকা মেডিকেলের মর্গে রাখা হয়েছে।

 

শ্বশুরবাড়ি গিয়ে লাশ হলেন জামাই

গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলায় এক গরু বিক্রেতাকে শ্বশুরবাড়ির লোকজন হত্যা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। কালীগঞ্জ থানার ওসি মো. আলম চাঁদ জানান, রোববার সন্ধ্যায় উপজেলার বড়গাঁও এলাকার শ্বশুরবাড়ি থেকে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে। তবে পুলিশ মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হতে পারেনি।

নিহত মোশারফ হোসেন (৪৫) একই এলাকার আয়েজ উদ্দিনের ছেলে।

নিহত মোশারফের ছোট ভাই স্কুলশিক্ষক মোফাজ্জল হোসেন বলেন, মোশারফের স্ত্রী পারভিন আক্তার (৩২) গরু কেনাবেচার ১০ হাজার টাকা স্বামীকে না জানিয়ে খরচ করে ফেলেন।

“এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মনোমালিন্য হলে দুই দিন আগে পারভিন ছেলেকে নিয়ে বাবার বাড়ি চলে যান। এরপর ছেলে অসুস্থ হওয়ার খবর পেয়ে মোশারফ রোববার সন্ধ্যায় শ্বশুরবাড়ি যান। এ সময় স্ত্রীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাকে লাঠিসোটা দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে বলে শুনেছি।”

তবে ওসি আলম বলেন, মোশারফের গায়ে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি।

“শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাকে লাঞ্ছিত করলে পালাতে গিয়ে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যেতে পারেন। পুলিশ ঘটনা তদন্ত করছে।”

পুলিশ লাশ হেফাজতে নিয়েছে বলে তিনি জানান।

 

গাজীপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে পরিচ্ছন্নতা কর্মীর মৃত্যু

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে এক পরিচ্ছন্নতা কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। রোববার সকাল সোয়া ৮টার দিকে উপজেলার ডাইনকিনি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে বলে কালিয়াকৈর থানার এসআই মো.জাফর আলী খান জানান।

মৃত আব্দুল কাদের (৪০) সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ থানার ভদ্রঘাট ইউনিয়নের মেঘাই এলাকার গোলবর হোসেনের ছেলে।  তিনি কালিয়াকৈরের লতিফপুর বটতলা এলাকার একটি বাড়িতে সপরিবারে ভাড়া থাকতেন ও কালিয়াকৈর পৌরসভার পরিচ্ছন্নতা কর্মী ছিলেন।   

নিহতের সহকর্মী মো. আব্দুর রাজ্জাকের বরাত দিয়ে এসআই জাফর বলেন, সকালে ডাইনকিনি এলাকায় একটি ময়লার নালা পরিষ্কার করছিলেন কাদের।

“এ সময় সেখানে পড়ে থাকা একটি বিদ্যুতের তারের সঙ্গে লেগে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন তিনি। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে কালিয়াকৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।”

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক জান্নাতুন নাহার বলেন, হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে।

 

টাঙ্গাইলে বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ৩

টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে বাস ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে এক নারীসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে; আহত হয়েছে অন্তত ১৫ জন।   রোববার সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে উপজেলার সরাতৈল এলাকার ঢাকা-টাঙ্গাইল বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার ওসি আছাবুর রহমান জানান।

এ ঘটনায় আহতদের টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানালেও তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতদের নাম-পরিচয় নিশ্চিত করতে পারেনি পুলিশ।    ওসি বলেন, “রংপুর থেকে ঢাকাগামী মীম পরিবহনের একটি বাসের সঙ্গে বিপরীতমুখী চিনামাটি বোঝাই একটি ট্রাকের সংঘর্ষ হলে ঘটনাস্থলেই তিনজনের মৃত্যু হয়।”

খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে স্থানীয়দের সহায়তায় আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। তাদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে এ পুলিশ কর্মকর্তা জানান।

 

গাজীপুরে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা

গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার বড়নগর এলাকায় সাইফুল ইসলাম (৪৫) নামে এক ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যার করেছে দুর্বৃত্তরা। শুক্রবার (০৮ ডিসেম্বর) রাত ৮টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। নিহত সাইফুল ইসলাম ওই এলাকার মৃত আফাজ উদ্দিনের ছেলে।

এলাকাবাসী ও নিহত সাইফুল ইসলামের মেয়ে হালিমা আক্তার জানান, বৃহস্পতিবার (০৭ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় কালীগঞ্জ উপজেলার বড়নগর এলাকায় একটি বাজার থেকে বাড়ি ফিরছিলেন সাইফুল ইসলাম। এসময় দুর্বৃত্তরা তাকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করে রক্তাক্ত অবস্থায় বাড়ির পাশে ফেলে যায়। এক পর্যায়ে স্থানীয়রা তাকে অবস্থায় দেখতে পেয়ে পরিবারের লোকজনকে খবর দেয়। খবর পেয়ে পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে প্রথমে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। পরে সেখান থেকে রাতে তাকে টঙ্গী ক্যাথাসিস হাসপাতালে নেওয়া হয়। অবস্থায় অবনতি হলে শুক্রবার সন্ধ্যায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রাত ৮টার দিকে তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের মামা আছমত আলী জানান, জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে দুর্বৃত্তরা সাইফুল ইসলামকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করে। সাইফুল ইসলাম পলিথিন কারখানার ব্যবসা ছিলো।

কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলম চাঁদ  জানান, সাইফুল ইসলাম নিহত হওয়ার খবর পেয়েছি। এ ঘটনায় এখনো কেউ থানায় অভিযোগ করেনি।

গাজীপুরে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা

গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার বড়নগর এলাকায় সাইফুল ইসলাম (৪৫) নামে এক ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যার করেছে দুর্বৃত্তরা।

শুক্রবার (০৮ ডিসেম্বর) রাত ৮টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। নিহত সাইফুল ইসলাম ওই এলাকার মৃত আফাজ উদ্দিনের ছেলে।

এলাকাবাসী ও নিহত সাইফুল ইসলামের মেয়ে হালিমা আক্তার জানান, বৃহস্পতিবার (০৭ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় কালীগঞ্জ উপজেলার বড়নগর এলাকায় একটি বাজার থেকে বাড়ি ফিরছিলেন সাইফুল ইসলাম। এসময় দুর্বৃত্তরা তাকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করে রক্তাক্ত অবস্থায় বাড়ির পাশে ফেলে যায়। এক পর্যায়ে স্থানীয়রা তাকে অবস্থায় দেখতে পেয়ে পরিবারের লোকজনকে খবর দেয়। খবর পেয়ে পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে প্রথমে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। পরে সেখান থেকে রাতে তাকে টঙ্গী ক্যাথাসিস হাসপাতালে নেওয়া হয়। অবস্থায় অবনতি হলে শুক্রবার সন্ধ্যায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রাত ৮টার দিকে তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের মামা আছমত আলী জানান, জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে দুর্বৃত্তরা সাইফুল ইসলামকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করে। সাইফুল ইসলাম পলিথিন কারখানার ব্যবসা ছিলো।

কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলম চাঁদ  জানান, সাইফুল ইসলাম নিহত হওয়ার খবর পেয়েছি। এ ঘটনায় এখনো কেউ থানায় অভিযোগ করেনি।

সালিশে চাচাত ভাইয়ের ঘুষিতে এক ব্যক্তির মৃত্যু

গাজীপুরের শ্রীপুরে সালিশ বৈঠকে চাচাত ভাইয়ের ঘুষিতে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকালে পৌরসভার রেল স্টেশনের পূর্ব পাশে আফতাব মণ্ডলের বাড়ির পাশে এ ঘটনা ঘটে বলে শ্রীপুর থানার ওসি মো. হেলাল উদ্দিন জানান।

নিহত বসাত মণ্ডল (৪৮) পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের আফতাব মণ্ডলের ছেলে। ওসি হেলাল বলেন, জমি নিয়ে চাচাত ভাই মাসুম মণ্ডলের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে বসাত মণ্ডলের বিরোধ চলে আসছে। বৃহস্পতিবার বিকালে উভয়ের সম্মতিতে আফতাব মণ্ডলের বাড়ির পাশেই সালিশ বৈঠকের প্রস্তুতি চলছিল।

“এ সময় মাসুম মণ্ডল ও বসাত মণ্ডল উপস্থিত লোকজনের সামনে বাকবিতণ্ডায় লিপ্ত হয়। কিছু বুঝে উঠার আগেই বসাতকে এলোপাতাড়ি কিলঘুষি মেরে গুরুতর আহত করেন মাসুম।”

উপস্থিত লোকজন বসাতকে শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, খবর পেয়ে হাসপাতালে গিয়ে নিহতের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে।

 

কালাইয়ে ১ কেজি পেঁয়াজের দামে ৫০ কেজি আলু !

কালাই (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি : বন্যা পরবর্তী শীতের সবজি ব্যাপক উৎপাদন হওয়ায় জয়পুরহাটের কালাই পৌরসভাসহ উপজেলার পাঁচ ইউনিয়নেই সবজির উৎপাদন বেশি হয়েছে। উপজেলার হাট বাজারে সবজির দাম সাধারণ মানুষের হাতের নাগালে আসলেও পেঁয়াজের মূল্য আকাশচুম্বি। তবে আলুর বাজারে ধস।
কালাই পৌরসভাসহ উপজেলার পুনট, মোলামগাড়ী, মাত্রাই, মোসলিমগঞ্জ, কালাই, নুনুজ, শান্তিনগর, পাঁচগ্রাম রহমতের বাজার, হাতিয়র ও বৈরাগীর হাট ঘুরে জানা যায়, বন্যা পরবর্তীতে সবজির উৎপাদন বেশি হওয়ায় হাট বাজারে প্রচুর সবজির আমদানি হয়।

ফলে ৫০ টাকা কেজির বেগুন ১০ থেকে ১৫ টাকায়, ২শ’ টাকার কাঁচা মরিচ ৭০ থেকে ৮০ টাকায়, দেড়শ’ টাকার রসুন ৫০ থেকে ৬০ টাকায়, ১শ’ টাকা কেজির আদা ৬০ টাকায়, ৬০ টাকার কেজির ফুলকপি ১০ থেকে ১৫ টাকায়, ৬০ টাকা কেজির মূলা ৫ টাকায়, ৩২ টাকা কেজির লাল শাক ১২ টাকায়, ৮০ টাকা কেজির করলা ৩০ টাকায়, ৩০ টাকা কেজির মিষ্টি কুমড়া ১২ টাকায় এবং ১০ টাকা কেজির পিয়াজ এক লাফে ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে আলুর বাজার ধস হওয়ায় হিমাগারগুলোতে গ্যানোলা জাতের ৮৪ কেজি আলুর বস্তা বিক্রি হচ্ছে ১৫০ টাকায়। এতে ১ কেজি পেঁয়াজের দামে ৫০ কেজি আলু পাওয়া যাচ্ছে। পুনট কাঁচা বাজারের খুঁচরা পেঁয়াজ বিক্রেতা দেওগ্রামের বজলার রহমান বলেন, ভারত থেকে আমদানিকৃত পেঁয়াজ এক মাস আগেই ১০ থেকে ১৫ টাকায় বিক্রি করেছি। বর্তমান ওই পেঁয়াজই ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করতে হচ্ছে।

পৌরসভার শিমুলতলীর আর বি স্পেশালাইজ্ড হিমাগারের ব্যবস্থাপক গোলাম মোস্তফা জানান, চলতি বছর এ হিমাগারে ১ লাখ ৬৫ হাজার ৩২০ বস্তা আলু সংরক্ষণ করা হয়। বর্তমান আলুর বাজার ধসের কারণে  হিমাগারে সংরক্ষণকারী  ব্যবসায়ী ও কৃষক আলু নিতে আসছে না। তাই বাধ্য হয়ে অত্যন্ত কম দামে গ্যানোলা জাতের ৮৪ কেজির আলুর বস্তা ১২০ টাকা থেকে ১৫০ টাকা দরে বিক্রি করতে হচ্ছে।

 

কাশিমপুর কারাগারে ফাঁসির আসামির মৃত্যু

গাজীপুরের কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারের ৯২ বছরের এক ফাঁসির আসামির মৃত্যু হয়েছে। কারাগারের জেলার বিকাশ রায়হান জানান, বুধবার ভোরে আব্দুর রহিম নামের এই আসামি মারা যান।

রহিম নেত্রকোণার আটপাড়া থানার মির্জাপুর গ্রামের করিম নেওয়াজের ছেলে। জেলার বিকাশ বলেন, রহিম হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে প্রথমে তাকে কারা হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে সকাল সোয়া ৭টার দিকে গাজীপুরে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

রহিম বার্ধক্যে ভুগছিলেন জানিয়ে তিনি বলেন, নেত্রকোণার একটি হত্যামামলায় তাকে ও তার দুই ছেলেকে আদালত ফাঁসির আদেশ দেওয়ার পর ২০১৫ সালের ১৭ মে তাদের এ কারাগারে পাঠানো হয়। তারা কারাগারের একই সেলে থাকতেন।

 

ইছামতি নদীতে ডুবে ভারতীয় যুবকের মৃত্যু

ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলায় ইছামতি নদীতে গোসল করতে নেমে ভারতীয় যুবকের মৃত্যু হয়েছে। নবাবগঞ্জ থানার এসআই মো. আলমগীর হোসেন জানান, শুক্রবার দুপুরে উপজেলা সদর
ইউনিয়নের কলাকোপা পোদ্দার বাজার খেয়াঘাটে গোসল করতে নেমে নিখোজ হন কুনাল কুণ্ডু (২৫)। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল কুনালের লাশ উদ্ধার করে।

কুনাল কলকাতার শিয়ালদহ রেল স্টেশন সংলগ্ন বেলেঘাটা এলাকার বাসুদেব কুণ্ডুর ছেলে। কলকাতা থেকে বন্ধু বিশ্বজিতের মামার বাড়ি কোলাকোপার রাজারামপুর বেড়াতে এসেছিলেন তিনি। কুনালের বন্ধু বিশ্বজিৎ সাহা সাংবাদিকদের জানান, “গত ২৬ নভেম্বর ১ মাসের ভ্রমণ ভিসায় আমার মা, কুনাল, কুশল ও

আমি কলাকোপা রাজারামপুর মামার বাড়িবেড়াতে আসি। ওরা দুজন আমার খুব কাছের বন্ধ।কুনাল ও কুশল নিকট আত্মীয়।” “শুক্রবার দুপুরে তিন বন্ধু মিলে ইছামতি নদীর পোদ্দার বাজার ঘাটে গোসল করতে নামি। গোসলের এক সময়ে কুনাল পানিতে

ডুবে যায়। এ সময় তাদের চিৎকার শুনে আশপাশের স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এলেও কুনালকে উদ্ধার করতে পারেনি।” খবর পেয়ে নবাবগঞ্জ থানার ওসি মোস্তফা কামাল ঘটনাস্থলে গিয়ে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দলকে খবর দেন।

শনিবার সকালে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হবে বলে জানান এসআই আলমগীর।

 

গাজীপুরে ট্রেনের নিচে তরুণ নিহত

গাজীপুরের ভাওয়াল এলাকায় ট্রেনের নিচে অজ্ঞাতপরিচয় এক তরুণের মৃত্যু হয়েছে। জয়দেবপুর রেলওয়ে জংশন পুলিশ ক্যাম্পের এসআই এসএম রকিবুল হক জানান, বুধবার সন্ধ্যায় ঢাকা-ময়মনসিংহ রেললাইনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতের বয়ষ আনুমানিক ২০ বছর বলে জানালেও পুলিশ তার পরিচয় বলতে পারেনি। এসআই রকিবুল বলেন, ভাওয়াল এলাকায় ঢাকা-ময়মনসিংহ রেললাইনে বলাকা ট্রেনে কাটা পড়ে তার মৃত্যু হয়েছে।

“তার পরনে রয়েছে নীল জিনসের প্যান্ট ও কালো গেঞ্জি।  বয়স আনুমানিক ২০ বছর।” পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

 

দক্ষিণখানে ছেলের ছুরিতে মা খুন

রাজধানীর দক্ষিণখানে পঞ্চাশোর্ধ এক নারীকে ছুরি মেরে হত্যা করেছে তার ছেলে, যাকে মানসিক প্রতিবন্ধী বলছেন স্বজনরা। দক্ষিণখান থানার এসআই মো. মফিজ জানান, রোববার রাত ১০টার দিকে দক্ষিণখানের খলিল বক্স রোডের এক বাসায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতের নাম মমতাজ বেগম। তার ছেলে হাবিবুল্লাহ খান রাজনকে (২৫) থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। এসআই মফিজ বলেন, রাতে রাজনের ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হন তার মা। বাসার অন্যরা দ্রুত তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মমতাজকে মৃত ঘোষণা করেন।

“স্বজনরা আমাদের বলেছেন, রাজন মানসিক প্রতিবন্ধী। আমরা তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করছি।” এ ঘটনায় সোমবার সকাল পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি। মমতাজের মৃতদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

 

সাভারে এসআইয়ের ঝুলন্ত লাশ

সাভারে সরকারি বাসা থেকে এক পুলিশ সদস্যের ঝুলন্ত লাশ করা হয়েছে। মৃত তাহমিনা বেগম সাভার মডেল থানার এসআই। শনিবার রাতে সাড়ে ৯টার দিকে তাহমিনার লাশ উদ্ধার করা হয় বলে সাভার মডেল ওসি মহসিনুল কাদির জানান।

তিনি বলেন, “তাহমিনা নিজ রুমে ফ্যানের সাথে ওড়না দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। আত্মহত্যার কারণ জানা যায়নি। পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।”

তাহমিনার বাবা বাড়ি ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায়। তার স্বামী মোবারক হোসেন স্ত্রী ও দুই সন্তানকে ‍নিয়ে থানা কম্পাউন্ডের ভেতরে সরকারি বাসায় থাকতেন।

স্ত্রীর সঙ্গে কোনো ঝামেলা ছিল না দাবি করে মোবারক হোসেন বলেন, “বাবার বাড়ি যাওয়ার জন্য সাড়ে ৮টার দিকে পাশের রুমে গিয়ে ব্যাগ গোছাচ্ছিল তাহমিনা। হঠাৎ ছোট মেয়ে কান্নাকাটি করলে তাহমিনাকে ডাকলে না আসায় সন্দেহ হয়।

“পরে দরজা আটকানো দেখে অন্যদের ডেকে দরজার ভেঙে ভিতরে ঢুকে দেখি ফ্যানের সাথে গলায় ফাঁস লাগানো আছে তাহমিনা।”

 

রাজধানীতে কলেজছাত্র ও বৃদ্ধের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

রাজধানীর উত্তরায় পৃথক ঘটনায় এক কলেজছাত্র ও এক বৃদ্ধের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। নিহতরা হচ্ছেন- কলেজছাত্র একেএম তাসফিউজ্জামান (২১), বৃদ্ধ আবুল বাশার (৭০) ও আবু তাহের আক্কাস (২১)।

উত্তরা পশ্চিম থানার এসআই ওমর কাইউম জানান, উত্তরার ৯নং সেক্টরের  ৩/বি  রোডের ১৮ নং বাড়ির ৫ তলা থেকে তাসফিউজ্জামানের ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। শনিবার সকাল সাড়ে ৯টায় তার পরিবারের লোকজন নিজ কক্ষের ফ্যানের সাথে তার মৃতদেহ ঝুলতে দেখে পুলিশকে খবর দেন। তাসফিউজ্জামান স্থানীয় একটি কলেজের এ লেবেলের ছাত্র ছিলেন। তিনি মাদকসক্ত ছিলেন।

উত্তরা পশ্চিম থানা এসআই সাদেক জানান, শনিবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে উত্তরার ১১নং সেক্টরের ১৯ নং রোডের ৩৩ নম্বর বাড়ি থেকে বৃদ্ধ আবুল বাশারের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহতের স্ত্রী শারমিন ফেরদৌসের বরাত দিয়ে এসআই জানান, রাতের খাবার খেয়ে বাসার সকলে শুয়ে পড়েন। সকাল সাড়ে ৬টায় স্ত্রী ঘুম থেকে উঠে দেখেন ডাইনিং রুমে ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়না পেচিয়ে ঝুলে আছেন আবুল বাশার। তিনি দীর্ঘদিন যাবত মানসিক সমস্যায় ভুগছিলেন। ইবনেসিনা হাসপাতালের একজন মানসিক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞের অধীনে তার চিকিৎসা চলছিল। তিনি প্রায়ই বলতেন আমি আত্মহত্যা করবো।
 

 

গেন্ডারিয়ায় ট্রেনে কাটা পড়ে নিহত ১

রাজধানীর গেন্ডারিয়া ঘুন্টিঘর এলাকায় ট্রেনে কাটা পড়ে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি (৩৫) নিহত হয়েছেন। তার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য শনিবার সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ঢাকা রেলপথ থানার এসআই রফিকুল ইসলাম জানান, শুক্রবার দুপুর আড়াইটার দিকে গেন্ডারিয়া গুন্টিঘর এলাকায় রেললাইন দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় ঢাকা থেকে নারায়নগঞ্জগামী ট্রেনে কাটা পড়ে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। তার পরনে ছিল চেক লুঙ্গি।

 

গাজীপুরে স্ত্রী হত্যায় ফাঁসির রায়

গাজীপুরের জয়দেবপুরে স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামীকে ফাঁসির রায় দিয়েছে আদালত। গাজীপুরের দায়রা জজ এ কে এম এনামুল হক বৃহস্পতিবার সকালে প্রায় তিন বছর অগের এ মামলার রায় ঘোষণা করেন।

এছাড়া আসামিকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে আদালত। অন্য একটি ধারায় আদালত তাকে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেছে। এ জরিমানা না দিলে তাকে আরও এক মাস কারাভোগ করতে হবে।

সাজাপ্রাপ্ত মো. আয়নাল হক (৩৫) গাজীপুর সিটি করপোরেশনের বাইমাইল পশ্চিমপাড়ার মো. আবদুল মান্নানের ছেলে। রায় ঘোষণার সময় আয়নাল আদালতের কাঠগড়ায় ছিলেন।

গাজীপুর আদালতের পিপি হারিছ উদ্দিন আহম্মদ মামলার নথির বরাতে বলেন, ২০১৫ সালের ১০ জানুয়ারি রাতে আনোয়ারা বেগম পুড়ে মারা যান বলে খবর আসে। স্থানীয় কোনাবাড়ি পুলিশ ক্যাম্পের সাবেক এসআই মো. রফিকুল ইসলাম মোবাইল ফোনে খবর পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে যান। তিনি আনোয়ারার স্বামী আয়নাল ও আনোয়ারার ভাই আমজাদ হোসেন আঞ্জুকে জিজ্ঞাসাবাদ করে তাদের কথাবার্তায় গড়মিল পেয়ে দুইজনকেই আটক করেন।

বাইমাইল পশ্চিমপাড়ায় আনোয়ারা তার বাবার বাড়িতে স্বামীসহ থাকতেন।

পিপি হারিছ বলেন, হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এসআই রফিকুল বাদী হয়ে আনোয়ারা স্বামী ও ভাই দুইজনের বিরুদ্ধেই মামলা করেন। মামলায় অভিযোগ করা হয়, পারিবারিক সম্পত্তি নিয়ে বিরোধের জেরে ভাই আঞ্জু ভগ্নিপতি আয়নালকে লোভ দেখিয়ে দুইজন যোগসাজশে আনোয়ারাকে গলা টিপে হত্যা করেন। পরে ঘটনা ভিন্ন খাতে নেওয়ার জন্য গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন তারা।

মামলাটি পিআইডির ছয় কর্মকর্তা তদন্ত করেন জানিয়ে পিপি হারিছ বলেন, তদন্ত শেষে পুলিশ শুধু আয়নালের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়। আদালতও শুধু আয়নালকেই দোষী সাব্যস্ত করে।

এ মামলায় মোট নয়জনের সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি আরো বলেন, মামলাটি প্রায় তিন বছর আগে দায়ের করা হলেও আদালতে ওঠে এ বছরের ৯ অগাস্ট। সেই হিসেবে মাত্র তিন মাসে মামলাটির বিচারকাজ শেষ হল।

আসামিপক্ষে মো. আব্দুস সোবহান, জেবুন্নেছা মিনা ও মোহাম্মদ আলী তারেক বুলবুল মামলাটি পরিচালনা করেন।

 

সমকামীতায় রাজি না হওয়ায় জিদানকে হত্যা করে সহপাঠী

রাজধানীর গুলিস্তানের মদিনাতুল উলুম হাফিজিয়া মাদ্রাসার ছাত্র আব্দুর রহমান জিদান (১৪) হত্যাকান্ডে আবু বক্কর (১৬) নামে তার এক সহপাঠীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। সে কোরআনে হাফেজ। সমকামীতায় রাজি না হওয়ায় পরিকল্পিতভাবে জিদানকে একাই জবাই করে হত্যার কথা সে র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে। সে র‌্যাবের কাছে নৃশংস এই হত্যাকান্ডের বর্ণনাও দিয়েছে। বুধবার বিকালে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাব ৩-এর অধিনায়ক ইমরানুল হাসান। এর আগে  সকালে সদরঘাট এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

র‌্যাব জানায়, আব্দুর রহমান ছিল আবু বক্করের জুনিয়র। আসামি আবু বক্কর বিভিন্ন সময় আব্দুর রহমানকে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ার প্রস্তাব দিয়েছিল। কিন্তু সে এতে রাজি না হওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে আবু বক্কর। এরই মধ্যে মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের আরেক শিক্ষার্থীর সঙ্গে আব্দুর রহমানের ঘনিষ্ঠতা বাড়লে তার ক্ষোভ আরও বেড়ে যায়। তাদের মধ্যে এর আগেও বেশ কয়েকবার ঝামেলা হয়েছিল। র‌্যাব আরও জানিয়েছে, আবু বক্কর সিনিয়র ছাত্র হওয়ায় আব্দুর রহমানকে দিয়ে মাঝে মধ্যে কাপড় ধোয়ানো, খাবার আনা-নেওয়াসহ বিভিন্ন ব্যক্তিগত কাজ করে দেওয়ার আদেশ দিতো। কিন্তু সে আদেশ অমান্য করায় তাদের মধ্যে মনোমালিন্য শুরু হয়। এর জেরে গত ১৬ নভেম্বর আব্দুর রহমানকে চড়-থাপ্পড় মারে আবু বক্কর। আব্দুর রহমান এ বিষয়ে মাদ্রাসার শিক্ষক মো. ইয়াছিনের কাছে অভিযোগ করলে ওই শিক্ষক আবু বক্করকে সতর্ক করেন এবং মীমাংসা করে দেন।

 এ ঘটনার জের ধরে সে রহমানকে হত্যার পরিকল্পনা করে। র‌্যাব ৩-এর অধিনায়ক জানান, গত ১৬ নভেম্বর মাদ্রাসার শিক্ষক সতর্ক করে দিলে তখনই আবু বক্কর হত্যার পরিকল্পনা সাজাতে থাকে। ১৯ নভেম্বর এশার নামাজের পর সে তার ফল কাটার ছুরিতে ধার দেয় ও আব্দুর রহমানের গলা কেটে লাশ সেফটিক ট্যাংকে লুকিয়ে ফেলার ষড়যন্ত্র করে। অন্যান্য দিনের মতো রাত ১০টার দিকে মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা রাতের খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পড়লে সুযোগের অপেক্ষা করতে থাকে আবু বক্কর। রাত আনুমানিক দেড়টার দিকে ট্রাঙ্ক থেকে ফল কাটার ছুরি বের করে সে আব্দুর রহমানের মুখ চেপে ধরে  একাধিকবার গলায় আঘাত করে। মৃত্যু নিশ্চিতের পর লাশ তুলে নিয়ে বাথরুমের পাশে সেফটিক ট্যাংকের কাছে নিয়ে ভেতরে ফেলে দেয়াল টপকে পালিয়ে যায় আবু বক্কর। হত্যাকান্ডের সময় আব্দুর রহমানের গোঙানির শব্দে দু’একজনের ঘুম ভাঙলেও অন্ধকার ঘরে মশারির ভেতরে থাকায় কি হচ্ছিল তা বুঝতে পারেনি কেউ। এ সময় ওই ঘরে অন্তত ৩০ থেকে ৩৫ শিক্ষার্থী ঘুমন্ত অবস্থায় ছিল বলে জানায় র‌্যাব। ঘটনার অনেক পর মাদ্রাসার শিক্ষক রক্তের দাগ অনুসরণ করে সেফটিক ট্যাংকের কাছে যান। এরপর সেখান থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠায় ভোর সোয়া ৪টার দিকে।

যেভাবে ধরা পড়লো খুনি : র‌্যাব ৩-এর অধিনায়ক ইমরানুল হাসান বলেন, ‘হত্যাকান্ডের পর থেকেই আমাদের গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয় ও ছায়া তদন্ত শুরু করে র‌্যাব। এরই পরিপ্রেক্ষিতে আবু বক্করের ভাইবোনের মোবাইল ট্র্যাক করে বুধবার সকাল ৯টার দিকে রাজধানীর সদরঘাট এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। চার বছর ধরে গুলিস্তান আহাদ পুলিশ বক্সের পেছনে টিনশেড মদিনাতুল উলুম হাফিজিয়া মাদ্রাসায় পড়াশোনা করছে আবু বক্কর। আব্দুর রহমান জিদানের মতো অন্য শিক্ষার্থীদেরও সে এ ধরনের অনৈতিক প্রস্তাব দিয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। তবে এ বিষয়ে তদন্তের পর বিস্তারিত বলা যাবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানায় র‌্যাব। আব্দুর রহমান জিদান তিন বছর চার মাস ধরে এই মাদ্রাসায় হেফজ বিভাগে পড়ছিল। সে ময়মনসিংহের গফুরগাঁওয়ের হাফিজ উদ্দিনের ছেলে। আর খুনের অভিযোগে গ্রেফতার আবু বক্করের বাড়ি বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জে। সে হেফজ পড়া শেষ করেছে। গত ১৯ নভেম্বর দিবাগত রাতে ওই মাদ্রাসার একটি সেপটিক ট্যাংক থেকে জিদানের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ঘুমন্ত বেশকিছু শিশু-কিশোরের মধ্যেই গলা কেটে হত্যা করে তার লাশ সেপটিক ট্যাংকে গুম করে পালিয়ে যায় আবু বক্কর। জানা গেছে, ২০১০ সালে প্রতিষ্ঠিত এই মাদ্রাসার ভেতরেই শিশু-কিশোররা থাকে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা শতাধিক শিক্ষার্থী হাফেজি পড়ে। শিক্ষার্থীদের বয়স ৫ থেকে ১৬ বছরের মধ্যে। মাদ্রাসার ওপরে টিনের ভেতর থাইগ্লাসের একটি পার্টিশন রয়েছে। পার্টিশনের দুই পাশেই সারি করে শিক্ষার্থীরা মেঝেতে ঘুমায়। আবু বক্কর ও আব্দুর রহমান ঘুমাতো এক সারিতেই। জিদানের বিছানার দু’জনের পরই ছিল তার বিছানা।

 

বনানীতে গাড়ি চাপায় পরিবহন শ্রমিক নিহত

রাজধানীর বনানীর ২৩ নম্বর  রোডের মাথায় প্রধান সড়কে প্রাইভেটকার চাপায় রমজান আলী (২৮) নামে এক পরিবহন শ্রমিক নিহত হয়েছেন।  বুধবার ভোর সাড়ে ৪টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।  নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

নিহতের সহকর্মী গিয়াস উদ্দিন জানান, রমজান আলী সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের গাড়ির হেলপার ছিলেন। বুধবার ভোরে বনানী ২৩ নম্বর রোডের মাথায় তাদের গাড়িতে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেয়। রমজান আলী নেমে গাড়ির ত্রুটি চিহ্নিত করার  চেষ্টা করেন। এ সময় একটি বেপরোয়া প্রাইভেটকার রমজান আলীকে চাপা দিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়। এতে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান।  নিহত রমজান আলীর বাড়ি  নেত্রকোনায়। বনানী থানার এসআই শাহিন আহমেদ জানান, ঘাতক প্রাইভেটকার চিহ্নিত করার চেষ্টা চলছে।

 

শ্রীপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় পিকআপ চালক নিহত

শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি : গাজীপুরের শ্রীপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় এক পিকআপ চালক নিহত হয়েছে। বুধবার ভোরে উপজেলার তেলিহাটি ইউনিয়নের জৈনাবাজার এলাকায় চলন্ত গাড়ির পেছনে ধাক্কা লাগলে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করেছে। নিহত ব্যক্তির নাম সোহাগ মিয়া (৩০)। তিনি পার্শ্ববর্তী ময়মনসিংহ জেলার মুক্তাগাছা উপজেলার কেশবপুর গ্রামের বাদল মিয়ার ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ভোরে ঢাকা থেকে ময়মনসিংহের দিকে যাওয়ার সময় জৈনা বাজার এলাকায় আসলে একটি চলন্ত গাড়ির পেছন থেকে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে ধাক্কা মারলে দুমড়ে মুচড়ে যায় পিকআপটি। এ সময় চালক সোহাগ মিয়া চাপা পড়ে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। মাওনা হাইওয়ে থানার ওসি দেলোয়ার হুসেন জানান, স্বজনরা এসে মরদেহ নিয়ে যায়। মানবিক কারনে ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা হবে।

শ্রীপুর উপজেলা ছাত্রদল সভাপতি গ্রেফতার

শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি : গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলা ছাত্রদল সভাপতি সাইফুল হক মোল্লাকে নাশকতার মামলায় গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত মঙ্গলবার রাতে শ্রীপুর বাজার থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় বাবুল নামে আরো এক ছাত্রদল নেতা গ্রেফতার হয়। পরে বুধবার আদালতের মাধ্যমে তাদের জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। এ দিকে গত সপ্তাহে শ্রীপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি শাহজাহান ফকিরকেও গ্রেফতার করা হয়। গতকাল বুধবার আদালতে হাজির করলে আদালত তাদের জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

 

মির্জাপুরে গৃহবধূ হত্যার অভিযোগ, স্বামী-শাশুড়ি আটক

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে রোজি আক্তার (৩৩) নামে এক গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের স্বামী মুকছেদ আলী ও শাশুড়ি হফিজা খাতুনকে আটক করা হয়েছে।

বুধবার (২২ নভেম্বর) সকালে উপজেলার জামুর্কী ইউনিয়নের পাকুল্যা গ্রামের স্বামীর বাড়ি থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

নিহতের বাবার বাড়ির সদস্যদের অভিযোগ, মুকছেদ আলী বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের জন্য রোজির ওপর নির্যাতন করে আসছিল। তাদের দাবি মঙ্গলবার (২১ নভেম্বর) রাতের কোনো এক সময় নির্যাতনের পর রোজিকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে তারা।
 
এদিকে স্থানীয়রা জানায়, মুকছেদ এর আগে আরো দুটি বিয়ে করেছিল। তাদেরও নির্যাতন করে তাড়িয়ে দিয়েছে। তৃত্বীয় স্ত্রী রোজির ওপরও নির্যাতন শুরু করে এবং চতুর্থ বিয়ের প্রস্তুতিও নিচ্ছিল।

মির্জাপুর থানার  উপ পরিদর্শক (এসআই) শফিকুল আলম জানান, মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহত রোজির গলায় কালো দাগ এবং দুই কানের ভেতরে রক্ত ছিল।

ফরিদপুরে ‘ঘুমে ব্যাঘাত হওয়ায়’ বাবাকে খুন

ফরিদপুরের সালথা উপজেলায় ঘুমে ব্যাঘাত দেওয়ায় বাবাকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে; এ ঘটনায় পুলিশ ছেলেকে আটক করেছে। সালথা থানার ওসি দেলোয়ার হোসেন বলেন, মঙ্গলবার রাত আড়াইটার দিকে উপজেলার আটঘর ইউনিয়নের নকুলহাটি গ্রামে হত্যাকাণ্ডের এ ঘটনা ঘটে ।

আটক কালু মোল্লা (২৮) ওই গ্রামের ওয়াহেদ মোল্লার (৭৫) ছেলে।

ওসি দেলোয়ার আটক কালুকে জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্য দিয়ে বলেন, “রাতে বৃদ্ধ ওয়াহেদ তিন-চারবার শৌচাগারে যান। এতে কালুর ঘুমে ব্যাঘাত ঘটে। একপর্যায়ে কালু ক্ষুব্ধ হয়ে বাবার গলা টিপে ধরে তার গলায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে পোচ দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই ওয়াহেদের মৃত্যু হয়।”

নিহত ওয়াহেদ ভিক্ষা করতেন জানিয়ে  সালথা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম সোহাগ বলেন, “কালু মাদকাসক্ত ছিল। সে মাদক বিক্রির সঙ্গে জড়িত ছিল। রাতে বাবা-ছেলে এক ঘরেই ছিলেন। গভীর রাতে চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা গিয়ে ওয়াহেদকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে।

“তার গলায় ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন দেখে পুলিশকে খবর দিই। সকালে পুলিশ এসে লাশ নিয়ে যায়।”

এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে জানিয়ে ওসি দেলোয়ার বলেন, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 

নরসিংদীতে শিশু সন্তানকে কুপিয়ে হত্যা

নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার মরজাল ইউনিয়নের মরজাল গ্রামের ৫নং ওয়ার্ডে তামিম নামে (৬ মাসের) একটি শিশুকে কুপিয়ে হত্যা করেছে তার বাবা।

মঙ্গলবার (২১ নভেম্বর) সকাল ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

গাজীপুরে বাসে অগ্নিকাণ্ড, চালক আটক

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলায় দাঁড়িয়ে থাকা একটি বাসে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এর চালককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ। শ্রীপুর থানার এসআই মো. মঞ্জুরুল ইসলাম জানান, রাজেন্দ্রপুর এলাকায় সোমবার গভীর রাতে অগ্নিকাণ্ডের এ ঘটনা ঘটে।

আটক চালক মো. শামীম (৩০) গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার দেওনা এলাকার আব্দুর রশিদের ছেলে। এসআই মঞ্জুরুল প্রাথমিক তদন্তের বরাতে বলেন, বাসটি গাজীপুর সিটি করপোরেশনের বাংলাবাজার এলাকার জিএম গার্মেন্টের শ্রমিক পরিবহনের কাজে  ব্যবহৃত হয়। চালক বাসেই রাত যাপন করেন। সকালে যাত্রী পরিবহন করেন।

“প্রতিদিনের মতো রাতে তিনি শ্রমিকদের গন্তব্যে নামিয়ে দিয়ে কয়েল জ্বেলে বাসে ঘুমিয়ে ছিলেন। রাত পৌনে ২টার দিকে বাসে আগুন জ্বলতে দেখে স্থানীয়রা ফায়ার সার্ভিস স্টেশনে খবর দেয়।”

ঘটনা উদঘাটনে চালককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে বলে তিনি জানান। শ্রীপুর ফায়ার সার্ভিস স্টেশন কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মো. মেহেদী হাসান জানান, আগুন লাগার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসকর্মীরা প্রায় আধাঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নেভান।

“আগুনে বাসের সামনের অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আগ্নিকাণ্ডের প্রকৃত কারণ জানা যায়নি। তবে সিলিন্ডার নির্গত গ্যাস থেকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।”

আগুনে কেউ হতাহত হয়নি বলে তিনি জানান।

 



Go Top