বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬
ad
১২ এপ্রিল, ২০১৬ ১২:২৯:৩৪
প্রিন্টঅ-অ+
সিলেটে ফিলিং স্টেশনে ধর্মঘট

সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় একটি সিএনজি ফিলিং স্টেশনে ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগে বিভাগের সব পেট্রোল পাম্প ও সিএনজি ফিলিং স্টেশনে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট চলছে।

বাংলাদেশ সিএনজি ফিলিং স্টেশন অ্যান্ড কনভার্শন ওয়ার্কসশপ ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সিলেট বিভাগীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আমিরুজ্জামান চৌধুরী জানান, মঙ্গলবার সকাল থেকে দেড় শতাধিক পেট্রোল পাম্প ও ফিলিং স্টেশনে জ্বালানি বিক্রি বন্ধ রয়েছে।

তিনি বলেন, সোমবার দুপুরে শহরের নাইওরপুল মাইক্রোবাস স্ট্যান্ডের সভাপতি নাজির মিয়া সাউথ সুরমা সিএনজি অ্যান্ড পেট্রোলিয়াম ফিলিং স্টেশনে লাইন ভেঙে গ্যাস নিতে চাইলে কর্মচারীদের সঙ্গে তার কথা কাটাকাটি হয়।

“এর জেরে নাজির মিয়ার সহযোগীরা বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে ফিলিং স্টেশনে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে এবং ক্যাশ কাউন্টার থেকে চার লাখ টাকা লুট করে নিয়ে যায়।”

আমিরুজ্জামানের অভিযোগ, জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সেলিম আহমদ ফলিকের ‘নির্দেশে’ ফিলিং স্টেশনে ওই হামলা-লুটের ঘটনা ঘটে।

ঘটনার পর দক্ষিণ সুরমা থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ ফলিকের নাম বাদ দেওয়ার পরামর্শ দেয় বলেও অভিযোগ করেন ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের এই নেতা।

“ফিলিং স্টেশন ও পেট্রোল পাম্প মালিকরা মহানগর পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেও কোনো সমাধান না পেয়ে ধর্মঘটের ডাক দেন।”

আমিরুজ্জামান বলেন, “হামলাকারীদের গ্রেপ্তার না করা পর্যন্ত আমাদের ধর্মঘট চলবে।”

এ বিষয়ে জানতে চাইলে দক্ষিণ সুরমা থানার ওসি আতাউর রহমান বলেন, ঘটনার সময় জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ফলিক সেখানে উপস্থিত ‘ছিলেন না’। কিন্তু মামলার এজাহারে তার নাম দেওয়া হয়।

“তার নাম বাদ দিয়ে মামলা করার পরামর্শ দেওয়া হলে ফিলিং স্টেশন ও পেট্রোল পাম্প মালিকরা তাতে রাজি না হয়ে ধর্মঘটের ডাক দেন।”

বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম ডিলারস, ডিস্ট্রিবিউটরস, এজেন্টস অ্যান্ড পেট্রোল পাম্প ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন সিলেট বিভাগীয় কমিটি, বাংলাদেশ ট্যাংকলরি ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন সিলেট বিভাগীয় কমিটি এবং সিলেট জেলা ট্যাংকলরি শ্রমিক ইউনিয়ন এ ধর্মঘটের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছে।

 
 
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত

দেশজুড়ে এর অারো খবর