রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৬
ad
১১ এপ্রিল, ২০১৬ ১১:৫৯:৫৯
প্রিন্টঅ-অ+
খুলনায় পাটকল শ্রমিকদের সড়ক-রেলপথ অবরোধ

সরকারকে বেঁধে দেওয়া তিন দিন সময়ের মধ্যে বকেয়া মজুরি পরিশোধসহ পাঁচ দফা দাবি পূরণ না হওয়ায় ফের সড়ক–রেলপথ অবরোধ করেছেন খুলনা অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলোর শ্রমিকরা।

খুলনার রাষ্ট্রয়াত্ত্ব পাটকল সিবিএ নন-সিবিএ ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক সোহরাব হোসেন বলছেন, দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত প্রতিদিন ভোর ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত তাদের এই রাজপথ ও রেলপথ অবরোধ চলবে। খুলনার রাষ্ট্রয়াত্ত্ব সাতটি পাটকলে উৎপাদনও বন্ধ থাকবে।

পাটকল শ্রমিকরা সোমবার সকালে খালিশপুর নতুন রাস্তার মোড়, আটরা গিলাতলা শিল্পাঞ্চল ও রাজঘাটে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করলে ওই সড়কগুলোতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

অবরোধের কারণে খুলনা-যশোর মহাসড়কে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হওয়ায় গরমের মধ্যে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয় সাধারণ মানুষকে।

খুলনা মহানগর (দক্ষিণ) পুলিশের উপ কমিশনার আব্দুল্লাহ আরেফ  বলেন, “অবরোধের কারণে বেশ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। তবে বিকল্প পথে দূর পাল্লার যান চলাচল করছে।”   

এদিকে রেলপথ অবরোধের কারণে কয়েকটি ট্রেন বিভিন্ন স্টেশনে আটকা পড়েছে। খুলনার সঙ্গে সারা দেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে বলে জানিয়েছেন খুলানার স্টেশন মাস্টার কাজী আমিরুল ইসলাম।

পাটখাতে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ, শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি পরিশোধ, ২০ শতাংশ মহার্ঘ ভাতাসহ পাঁচ দফা দাবিতে পাটকল শ্রমিকরা বেশ কিছুদিন ধরেই আন্দোলন চালিয়ে আসছেন।

এসব দাবিতে সাতটি পাটকলের প্রায় ৩৫ হাজার শ্রমিক গত ৫ এপ্রিল থেকে কাজ বন্ধ রেখে প্রতিদিন আট ঘণ্টা রাজপথ-রেলপথ অবরোধ শুরু করেন।

এর তিন দিনের মাথায় খুলনার জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান আন্দোলনরত শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করে সমাধানের আশ্বাস দিলে কর্মসূচি তিন দিনের জন্য স্থগিত করা হয়।

সিবিএ-নন সিবিএ ঐক্য পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক মো. খলিলুর রহমান বলেন, “শ্রমিকদের দাবির ব্যাপারে সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করতে তিন দিন সময় নিয়েছিলেন খুলনার জেলা প্রশাসক। এই তিন দিন আমাদের অবরোধ কর্মসূচি স্থগিত রাখা হয়েছিল।

“কিন্তু তিন দিনের মধ্যে জেলা প্রশাসক শ্রমিকদের সকল পাওনা পরিশোধের ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত দিতে পারেননি। ফলে পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী শ্রমিকরা আবার অবরোধ শুরু করেছে।”

খুলনার প্লাটিনাম, ক্রিসেন্ট, স্টার, ইস্টার্ন, আলিম জুট মিল, যশোর জুট মিল ও কার্পেটিং জুট মিলের শ্রমিকরা এই আন্দোলনে রয়েছেন।
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত

দেশজুড়ে এর অারো খবর