শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৬
ad
১০ এপ্রিল, ২০১৬ ১২:৪৯:৪২
প্রিন্টঅ-অ+
উত্তরাঞ্চলসহ ১৮ জেলায় তেল সরবরাহ বন্ধ
শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি :
রংপুরে ২ শ্রমিক খুনের ঘটনায় সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর বাঘাবাড়ি নৌ-বন্দর অচল হয়ে পড়েছে। হত্যাকারীদের আটকের দাবিতে উত্তরবঙ্গ ট্যাংকলরি শ্রমিক ইউনিয়নের ডাকা অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট পালন, মহাসড়কে অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল করে ট্যাংকলরি শ্রমিক ঐক্য পরিষদ।


গতকাল শনিবার সকাল থেকে শুর“ হওয়া এই ধর্মঘটে সিরাজগঞ্জের বাঘাবাড়িতে অবস্থিত বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের ডিপোগুলো থেকে উত্তরাঞ্চলসহ জামালপুর ও টাঙ্গাইলে জ্বালানি তেল ও সার সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেছে। ট্রাকের লুট করা চালসহ হত্যাকারীদের আটক না করা পর্যন্ত টানা ধর্মঘট চালিয়ে যাবার ঘোষণা দিয়েছে উত্তরবঙ্গের বৃহৎ এই পরিবহন শ্রমিক সংগঠনটি।

 উত্তরবঙ্গ ট্যাংকলরি শ্রমিক ইউনিয়ন, পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন এবং পুলিশ জানায়, দিনাজপুর থেকে পাবনার নগরবাড়ীতে ৭২০ বস্তা চাল নিয়ে আসা পথে ট্যাংকলরি শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য শাহজাদপুরের ননদহ গ্রামের চালক কোরাইশ খান এবং নুকালী গ্রামের হেলপার রমজান সরদারকে জবাই করে হত্যার পর চাল লুট করে গত ২১ মার্চ সন্ত্রাসীরা রংপুর কুড়িগ্রাম সড়কের তাজহাট মোড়ে ট্রাক ও লাশ ফেলে পালিয়ে যায়। এরপর মামলা হলে পুলিশ হত্যাকারীদের আটক করতে পারেনি।

এ জন্য এর প্রতিবাদে গত বৃহস্পতিবার সকালে ১ ঘন্টা তেল সরবরাহ বন্ধ রেখে শুক্রবারের মধ্যে হত্যাকারীদের আটকের দাবি জানানো হয়। এর মধ্যে দাবি বাস্তবায়ন না হওয়ায় গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ৮টা থেকে ট্যাংকলরি শ্রমিকরা কাজে যোগ না দিয়ে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দিয়ে বাঘাবাড়ি বন্দর এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল করে মহাসড়কে অগ্নিসংযোগ করে অবরোধ করে।
প্রায় আধাঘন্টাব্যাপী এ অবরোধ চলাকালে মহাসড়কের উভয় পাশে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে।

এ সময় যাত্রীদের দুর্ভোগ পোহাতে হয়। পরে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বিক্ষোভকারীরা অবরোধ তুলে নিয়ে শ্রমিক অফিসে অবস্থান নেয়। এসময় সমাবেশ করে বক্তব্য রাখেন উত্তরবঙ্গ ট্যাংকলরি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি শাহজাহান সিরাজ, সাধারণ সম্পাদক রমজান আলী শেখ, কার্যকরী সভাপতি জহুর“ল ইসলাম, বন্দর ট্রাক চালক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ইউনুস আলী, ফেরদৌস রহমান তারা ও আবু হানিফ।

এ সময় বক্তারা বলেন, আমাদের সহযোগী শ্রমিকেরা খুন হবে, আমরা বসে থাকতে পারি না। আমরা আল্টিমেটাম দিয়েছিলাম খুনিদের আটকের জন্য। কিন্তু পুলিশ ধরতে পারেনি। তাই যে পর্যন্ত খুনিদের আটক করা না হবে সে পর্যন্ত এই ধর্মঘট চলবে। তারা দাবি করে জানান, এই আন্দোলনের সাথে উত্তরবঙ্গের পরিবহন সেক্টরের সংগঠনসহ বাংলাদেশ পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন একাত্মতা ঘোষণা করেছে। এদিকে ধর্মঘটের ফলে গোটা বাঘাবাড়ি বন্দর অচল হয়ে পড়েছে।
 এদিকে যমুনা ওয়েল কোম্পানির বাঘাবাড়ি ডিপোর ম্যানেজার আব্দুল মজিদ খান জানান, শ্রমিক ধর্মঘটের কারণে প্রতিদিনের ন্যায় ২১ লাখ লিটার সরবরাহ সকাল থেকে শুর“ করতে পারিনি আমরা। সকাল সাড়ে ৮টা থেকেই সবগুলো ডিপো থেকে উত্তরাঞ্চল, টাঙ্গাইল, জামালপুরে তেল সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। অপরদিকে নৌ-বন্দর কর্মকর্তা আজমল হুদা মিঠু জানান, সকালে সার বোঝাই কিছু ট্রাক বাঘাবাড়ি নৌ-বন্দর থেকে উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন অঞ্চলের উদ্দেশ্যে ছেড়ে গেলেও ১১টার পর থেকে আন্দোলনকারীদের বাধার মুখে সার সরবারহ বন্ধ রয়েছে।
 
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত

দেশজুড়ে এর অারো খবর