ভোর ৫:৪৩, মঙ্গলবার, ১৬ই অক্টোবর, ২০১৭ ইং
/ বরিশাল / হাত-চোখ বাঁধা অবস্থায় কেটেছে সাড়ে ৪ মাস : মেহেদী হাসান
হাত-চোখ বাঁধা অবস্থায় কেটেছে সাড়ে ৪ মাস : মেহেদী হাসান
এপ্রিল ১৯, ২০১৭

বরিশাল প্রতিনিধি: সাড়ে চার মাস আগে ঢাকা থেকে নিখোঁজ চার যুবকের একজন মেহেদী হাসান বরিশালে নিজের বাড়িতে ফিরেছেন। মঙ্গলবার দুপুর ৩টায় মেহেদী বরিশালের বাবুগঞ্জের বাড়িতে হাজির হন বলে তার বাবা পুলিশ কনস্টেবল জাহাঙ্গীর হাওলাদার জানিয়েছেন। পরে মেহেদী  বলেন, গত ১ ডিসেম্বর ঢাকার বনানীর এক রেস্তোরাঁর সামনে থেকে তাকে তুলে নেওয়া হয়। এরপর হাত বাঁধা অবস্থায় ‘অন্ধকারে’ কেটেছে তার সময়। এতদিন কোথায় ছিলেন সে সম্পর্কে কোনো ধারণা নেই তার।

নর্থসাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্র জাইন হোসেন খান পাভেল ও সাফায়াত হোসেন এবং বিজ্ঞাপনী সংস্থা এশিয়াটিকের কর্মী সুজন ও তার বন্ধু মেহেদী গত ১ ডিসেম্বর নিখোঁজ হন। তাদের সর্বশেষ বনানীর একটি রেস্তোরাঁয় দেখা যায় বলে পুলিশ জানিয়েছিল। গত বছর জুলাইয়ে গুলশানের হলি আর্টিজান ক্যাফে এবং শোলাকিয়ায় ঈদ জামাতের পাশে জঙ্গি হামলায় জড়িত নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্র দীর্ঘ দিন পরিবারের সঙ্গে ‘যোগাযোগবিচ্ছিন্ন’ ছিলেন। এরপর এই চারজনের নিখোঁজ হওয়ার খবর দেশব্যাপী সাড়া ফেলে।

এতদিন পরে মেহেদী ফিরে এলেও তার তিন সঙ্গীর সম্পর্কে কিছু জানাতে পারেননি। তিনি  বলেন, ওই দিন বনানীর ওই রেস্টুরেন্ট থেকে আমি বের হলে পেছন থেকে একজন আমার হাত ধরে ফেলে। পরে নাকের উপর রুমালের মতো কিছু ধরলে আমি অজ্ঞান হয়ে পড়ি। এরপর থেকে আমাকে একটি রুমে হাত ও চোখ বেঁধে ফেলে রাখা হয়। খাওয়ার ও টয়লেটে যাওয়ার সময় হাত খুলে দেওয়া হত। কেউ কোনো কিছু জিজ্ঞেস করেনি, কোনো কথাই কেউ বলেনি। মেহেদী বলেন, সকালে নবীনগরে একটি গাছের সঙ্গে হেলান দেওয়া অবস্থায় নিজেকে দেখতে পান তিনি। পরে বাস ধরে চলে যান বরিশালে গ্রামের বাড়িতে। ঝালকাঠি সদর থানার কনস্টেবল জাহাঙ্গীরের চার ছেলের মধ্যে সবার বড় মেহেদী বরিশালের বিএম কলেজে সমাজবিজ্ঞান বিভাগের স্নাতকোত্তরের ছাত্র। তিনি নিখোঁজ হওয়ার পর তার চাচা মাহাবুব হাওলাদার  বলেছিলেন, গত নভেম্বরে বাবার হার্টে সমস্যা দেখা দিলে তাকে নিয়ে ঢাকায় আসেন মেহেদি। এরপর ইবনে সিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বাবার চিকিৎসা শেষে ২৬ নভেম্বরে তেজগাঁওয়ের একটি বহুজাতিক কোম্পানিতে নিয়োগ পরীক্ষা দেন। ওই সময় মেহেদী রায়েরবাজারে ফুফুর বাড়িতে ছিলেন। নিয়োগ পরীক্ষা শেষে ১ ডিসেম্বর ল্যাপটপে কিছু সফটওয়্যার আপডেটের জন্য একই এলাকার সুজনের কাছে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে বাসা থেকে বের হন মেহেদি। এরপর থেকেই তার কোনো খোঁজ নেই। সে সময় স্বজনদের জিডির ভিত্তিতে তদন্তে নেমে পুলিশ কর্মকর্তারা বলছিলেন, এই চার তরুণের বিরুদ্ধে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার কোনো প্রমাণ পাননি তারা। তবে তাদের আচরণে ‘সন্দেহজনক’ কিছু বিষয় রয়েছে।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top