ভোর ৫:৪১, মঙ্গলবার, ১৬ই অক্টোবর, ২০১৭ ইং
/ রাজশাহী / শেরপুরে শ্রমিকদের আল্টিমেটাম দাবি না মানলে সবধরণের যান চলাচল বন্ধ
শেরপুরে শ্রমিকদের আল্টিমেটাম দাবি না মানলে সবধরণের যান চলাচল বন্ধ
এপ্রিল ১৬, ২০১৭

শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার শেরপুরে মোটর মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়ন মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে। শ্রমিকদের কেনা একটি মিনিবাস ‘করতোয়া গেটলক’ সার্ভিসে অন্তর্ভূক্তি করা নিয়ে উভয় সংগঠনের মধ্যে বিরোধ বাধে। একপর্যায়ে তা প্রকাশ্যে রুপ নিয়েছে। এদিকে আগামী ৭দিনের মধ্যে শ্রমিকদের দাবি মেনে নেয়া না হলে শ্রমিক ধর্মঘটের ডাক দেয়া হবে। একইসঙ্গে এই উপজেলার সব রুটে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়ারও হুমকি দেন শ্রমিক নেতারা।

রোববার শহরের স্থানীয় বাসস্ট্যান্ডস্থ শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে লিখিত বক্তৃতায় সংগঠনের সভাপতি আরিফুর রহমান মিলন বলেন, ১৯৮৪ সালে শেরপুর মোটর শ্রমিক ইউনিয়ন প্রতিষ্ঠিত হয়। এই সংগঠনের বর্তমান ৯হাজার শ্রমিকদের কল্যাণ তহবিলের টাকায় একটি মিসিবাস কেনা হয়। উক্ত মিনিবাস ইতিপূর্বে শেরপুরের সনামধন্য ব্যবসায়ী সফিক আর্ট নামে করতোয়া সার্র্ভিসে চলাচল করতো। সম্প্রতি তার অকাল মৃত্যুর পর (বগুড়া জ-০৫-০০২৬) মিনিবাসটি পরিবারের পক্ষ থেকে বিক্রির প্রস্তাব করা হলে মিনিবাসটি বগুড়া জেলা বাস-মিনিবাস কোচ ও মাইক্রোবাস পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন শেরপুর উপজেলা কমিটির নামে কেনা হয় এবং গত ২৬ ফেব্র“য়ারি থেকে শেরপুর-বগুড়া মহাসড়কে করতোয়া গেটলক সার্ভিসে চলাচলের চেষ্টা করা হলে মোটর মালিক গ্র“পের পক্ষ থেকে বাধা দেয়া হয়। পরে শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, শেরপুর থানার ওসিসহ বগুড়া জেলা মোটর শ্রমিক ও মালিক সমিতির কাছে সমাধানের জন্য লিখিত ভাবে আবেদন করা হয়। কিন্তু অদ্যাবধি সুষ্ঠু সমাধান হয়নি। শ্রমিক নেতা মিলন আরও বলেন, শ্রমিক ইউনিয়নের মিনিবাসটি মোটর মালিক গ্র“পে ভর্তির জন্য গত ২৩ মার্চ রশিদ মূলে হিসাব রক্ষক বরাবরে ৫ হাজার টাকা নগদ সদস্য ফি প্রদান করা হয়। এরপরও উক্ত মিনিবাসটি ‘করতোয়া সার্ভিসে’ চলাচল করতে দেয়া হচ্ছে না।

তিনি বলেন, আগামী ২৩এপ্রিলের মধ্যে শ্রমিক ইউনিয়নের কেনা মিনিবাসটি করতোয়া সার্ভিসে চলাচলের অনুমতি দেয়া না হলে শ্রমিক ইউনিয়নের সব সদস্যরা কর্মবিরতি পালন শুরু করবে। এমনকি দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত উপজেলার সব রুটে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হবে। এক্ষেত্রে যে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলে তার দায়-দায়িত্ব মোটর মালিক গ্র“পকে নিতে হবে বলে এই শ্রমিক নেতা জানান। উক্ত সংবাদ সম্মেলনে অত্র শ্রমিক ইউনিয়নে প্রধান উপদেষ্টা জানে আলম খোকা, আব্দুল মান্নান, কার্যকরী সভাপতি আব্দুস সাত্তার, সহ-সভাপতি মতিয়ার রহমান মতি, সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান, শ্রমিক নেতা আবু হানিফ, মিজানুর রহমান ফটিক, আবু রায়হান, শাহীন আলম, জুয়েল রানা, মিঠু খাঁন, দুলাল হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এদিকে মোটর মালিক গ্র“প শেরপুর শাখার সভাপতি নুরুল ইসলাম নুরু এ প্রসঙ্গে বলেন, আলোচনার মাধ্যমেই সব সমস্যার সমাধান হয়ে থাকে। কিন্তু শ্রমিক নেতারা সেটি না করে অহেতুক আন্দোলন সংগ্রাম করছেন। এমনকি মালিকদের সম্পর্কে মানহানিকর নানা বক্তব্য দিচ্ছেন। যা মোটেও ঠিক নয়। তাদের এই অপপ্রচার মেনে নেয়া হবে না। শ্রমিকরা বেশি বাড়াবাড়ি করলে তারাও সমুচিত জবাব দেবেন বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন মোটর মালিক গ্র“পের এই নেতা।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top