রাত ৪:১২, বৃহস্পতিবার, ১৮ই অক্টোবর, ২০১৭ ইং
/ জাতীয় / শরণার্থী প্রশ্নে ট্রাম্পের কাছে কী আশা করার আছে
রয়টার্সকে শেখ হাসিনা
শরণার্থী প্রশ্নে ট্রাম্পের কাছে কী আশা করার আছে
সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৭

করতোয়া ডেস্ক: বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মিয়ানমারের রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে তার কথা হয়েছে, কিন্তু এ বিষয়ে তার কাছ থেকে কোনো সাহায্য পাওয়া যাবে বলে তিনি আশা করছেন না, কারণ শরণার্থী বিষয়ে নিজের ভাবনার কথা ট্রাম্প আগেই স্পষ্ট করেছেন।

জাতিসংঘের সংস্কার নিয়ে সোমবার নিউ ইয়র্কে এক উচ্চ পর্যায়ের সভার পর ট্রাম্পের সঙ্গে কয়েক মিনিট কথা হয় বলে রয়টার্সকে এক সাক্ষাৎকারে জানান শেখ হাসিনা। ‘তিনি শুধু জানতে চাইলেন বাংলাদেশের কী খবর? আমি বললাম, বাংলাদেশ খুবই ভালো অবস্থায় আছে। তবে আমাদের একমাত্র সমস্যা হল মিয়ানমার থেকে আসা শরণার্থীরা। কিন্তু তিনি শরণার্থীদের বিষয়ে কিছু বলেননি।’ মিয়ানমারের রাখাইনে বিদ্রোহীদের হামলার জবাবে সেনাবাহিনীর চলমান অভিযানে গতমাসের শেষ ভাগ থেকে এ পর্যন্ত চার লাখ দশ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।

সেনাবাহিনীর ওই অভিযানকে জাতিসংঘ বর্ণনা করেছে ‘জাতিগত নির্মূল অভিযান’ হিসেবে। জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে আগামী ২১ সেপ্টেম্বর রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বনেতাদের সামনে তুলে ধরবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, শরণার্থীদের বিষয়ে ট্রাম্পের অবস্থান অত্যন্ত স্পষ্ট। সুতরাং রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য তার কাছে সাহায্য চাওয়া অর্থহীন। ‘যুক্তরাষ্ট্র এরই মধ্যে ঘোষণা দিয়েছে, তাদের দেশে তারা কোনো শরণার্থীকে ঢুকতে দেবে না।

তাদের কাছ থেকে আমি কী আশা করতে পারি, বিশেষ করে প্রেসিডেন্টের কাছ থেকে? তিনি তো নিজের মনোভাব জানিয়ে দিয়েছেন… তাহলে আর তার কাছে কেন সাহায্য চাইব?’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ ধনী দেশ নয়। আমাদেরই এখন ১৬ কোটি মানুষ। দেশের আয়তনও খুব কম।… যদি আমরা ১৬ কোটি মানুষকে খাওয়াতে পারি, তাহলে আরও ৫০০ অথবা সাত লাখ মানুষকে খাওয়াতে পারব।’ এ বিষয়ে হোয়াইট হাউজের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তার দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি জানান, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তাদের প্রেসিডেন্টের আলোচনার বিষয়ে তিনি অবগত নন। তবে তিনি এও বলেছেন যে, ট্রাম্প এ বিষয়ে খুবই আগ্রহী এবং কেউ বিষয়টি সামনে আনলে তিনি অবশ্যই কথা বলবেন। চলতি বছরের শুরুতে প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পরপরই ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের শরণার্থী বিষয়ক কর্মসূচি ১২০ দিনের জন্য স্থগিত করার চেষ্টা করেন। সেই সঙ্গে মুসলিম প্রধান ছয় দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণের ওপর ৯০ দিনের নিষেধাজ্ঞা দেন।

গত শুক্রবার এক টুইটে ট্রাম্প বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার আওতা আরও বিস্তৃত, আরও কঠোর এবং আরও সুনির্দিষ্ট করা প্রয়োজন। কিন্তু সমস্যা হল, সেটা ‘পলিটিক্যালি কারেক্ট’ হবে না। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলছেন, সন্ত্রাসী হামলা ঠেকাতে এবং যাচাই-বাছাইয়ের আরও সুনির্দিষ্ট প্রক্রিয়া চালুর জন্যই যুক্তরাষ্ট্রে ওই ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দরকার। ট্রাম্পের ওই আদেশ সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক কি না সে বিষয়ে আগামী মাসে সুপ্রিম কোর্টে শুনানির তারিখ রয়েছে। মিয়ানমারের রাখাইনে সাম্প্রতিক সহিংসতা শুরুর আগে প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গার বসবাস ছিল। নাগরিকত্ব থেকে বঞ্চিত রাখার পাশাপাশি তাদের চলাচলেও ছিল কড়াকড়ি। মিয়ানমারের বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের অনেকেই রোহিঙ্গাদের বিবেচনা করেন ‘বাংলাদেশ থেকে আসা অবৈধ অভিবাসী’ হিসেবে। শেখ হাসিনা সাক্ষাৎকারে বলেন, তিনি চান, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিকভাবে আরও চাপ দেওয়া হোক।

‘তাকে (অং সান সু চি) এটা মানতে হবে যে এই মানুষগুলো তার দেশের এবং মিয়ানমারই তাদের দেশ। তাদের উচিৎ এই মানুষগুলোকে ফিরিয়ে নেওয়া। এই মানুষগুলোকে দুর্দশার মধ্যে দিয়ে যেতে হচ্ছে।’ রাখাইনে সহিংসতা বন্ধের উদ্যোগ না নেওয়ায় আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ব্যাপক সমালোচনার মুখে রয়েছেন নোবেলজয়ী সু চি। মিয়ানমারের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা থং তুন সোমবার রয়টার্সকে বলেন, যারা বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়েছে, তাদের ফেরার বিষয়টি মিয়ানমার হয়ত নিশ্চিত করবে।

কিন্তু তা হতে হবে একটি প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে। সেজন্য আলোচনা করতে হবে।’ জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত নিকি হেলি মিয়ানমার সরকারের প্রতি সেনা অভিযান বন্ধের পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তা নিশ্চত করতে এবং তাদের নিরাপদে ফিরে যাওয়ার নিশ্চয়তা দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে সোমবার জাতিসংঘে যুক্তরাজ্য আয়োজিত এক সভার পর তিনি বলেন, ‘মানুষ এখনও হামলা ও হত্যার শিকার হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে। যাদের দরকার, তাদের কাছে সাহায্য পৌঁছাচ্ছে না। নিরপরাধ বেসামরিক নাগরিকরা এখনও পালিয়ে বাংলাদেশ সীমান্তের দিকে ছুটছে।’ যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের ডেপুটি অ্যাসিসট্যান্ট সেক্রেটারি প্যাট্রিক মাফির চলতি সপ্তাহেই মিয়ানমারে যাওয়ার কথা রয়েছে।   

শেখ হাসিনা-ট্রাম্প আলোচনা
নিউ ইয়র্কে এক সভার ফাঁকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মধ্যে কথা হয়েছে, যেখানে রোহিঙ্গা সঙ্কটের প্রসঙ্গও এসেছে। সেখানে ডোনাল্ড ট্রাম্প এই সঙ্কটে ‘বাংলাদেশের পাশে থাকার’ আশ্বাস দিয়েছেন বলে পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক সাংবাদিকদের জানিয়েছেন। সোমবার নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে এক উচ্চ পর্যায়ের সভার ফাঁকে দুই নেতার মধ্যে এ বিষয়ে আলোচনা হয় বলে শহীদুল হক জানান। ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর এবারই প্রথম জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে মিলিত হচ্ছেন বিশ্ব নেতারা। ট্রাম্পের আয়োজনেই সকালে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে ‘হাই লেভেল মিটিং অন ইউএন রিফর্ম’ শীর্ষক ওই সভা হয়। শেখ হাসিনা-ট্রাম্প আলোচনা প্রসঙ্গে পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বলেছেন, ‘মিয়ানমার ইস্যুতে আমরা তোমাদের সঙ্গে আছি।

অ্যান্ড উই উইল সি হাউ ইট ক্যান বি রিজলভড’।’ পররাষ্ট্র সচিব বলেন, বাংলাদেশের অর্থনীতি কেমন চলছে তাও ট্রাম্প জানতে চান। এ সময় শেখ হাসিনা ‘ভাল করছে’ বললে ট্রাম্প সন্তোষ প্রকাশ করেন। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ দুপুরে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাত করেন। পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ‘ভারতের সঙ্গে আলোচনাতেও রোহিঙ্গা ইস্যু এসেছে। সুষমা স্বরাজ বলেছেন, ইন্ডিয়া অবশ্যই বাংলাদেশের সঙ্গে আছে সবসময় এবং এই সমস্যা সমাধানে হেল্প করবে।’ রোববার আবুধাবি থেকে ইতিহাদ এয়ারওয়েজের একই ফ্লাইটে নিউ ইয়র্কে পৌঁছান শেখ হাসিনা ও সুষমা স্বরাজ।

বিমানেও তাদের মধ্যে ‘ছোটখাট মিটিং হয়েছে’ বলে জানান শহীদুল হক। আর জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাই কমিশনার ফিলিপ্পো গ্রান্ডি সোমবার জাতিসংঘ সদর দপ্তরে শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করেন। পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ‘মিয়ারমার থেকে যারা এসেছে, তাদের বিষয়ে বাংলাদেশকে তারা (ইউএনএইচসিআর) সাহায্য করতে চায় এবং বাংলাদেশ সফর করতে চায়।’ এদিকে সোমবারই ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর উদ্যোগে আয়োজিত এক বৈঠকে রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে আলোচনা হয়। চীনা, রাশিয়া, জার্মানি, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, সুইডেন, সুইজারল্যান্ড, ডেনমার্কসহ বেশ কয়েকটি দেশের প্রতিনিধিদের পাশাপাশি বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও মিয়ানমারের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা ওই বৈঠকে অংশ নেন বলে শহীদুল হক জানান। তিনি বলেন, ‘রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে সেখানে ব্যাপকভাবে আলোচনা হয়েছে। বাংলাদেশ যে এদেরকে আশ্রয় দিয়েছে, সে বিষয়ে তারা ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। একইসাথে মিয়ানমারকে বলেছেন নির্মমতা দ্রুত বন্ধ করতে এবং রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর যারা বাংলাদেশে এসেছে, তাদের ফিরিয়ে নিয়ে যেতে। পররাষ্ট্র সচিব বলেন, রাখাইনের প্রকৃত তথ্য আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় তুলে ধরা হচ্ছে না- এমন কথা বৈঠকে বলার চেষ্টা করেন মিয়ানমারের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা। ‘তখন সবাই বলেছেন, আসলে বাস্তবতা কি সেটা আমরা সবাই জানি। আমরা ওইটা নিয়ে আলোচনা না করে কীভাবে সমস্যার সমাধান করা যায় সেইটা ফোকাস করব,’ বলেন পররাষ্ট্র সচিব। তিনি বলেন, ‘বৈঠকে তারা বলেছেন, দ্রুত স্বাভাবিকতা ফিরিয়ে আনতে হবে। অ্যাট্রোসিটিজ বন্ধ করতে হবে। মিয়ানমারের যারা পালিয়ে এসেছে, তাদেরকে ফিরিয়ে নিতে হবে এবং তাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করতে হবে। এটা ইন্টারন্যাশনাল কমিউনিটির দাবি।’

এদিন জাতিসংঘ সদর দপ্তরেই বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভুটানের প্রধানমন্ত্রী শেরিং তোবগের দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হয়। পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ‘বাংলাদেশ যে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করতে যাচ্ছে, সেটা থেকে ভুটানকে সেবা দিতে পারে কি না সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। এছাড়া নতুন যে দ্বিতীয় সাবমেরিন কেবল শুরু হল সেখান থেকে ভুটান ব্যান্ডউইথ নিতে চায়।’ সোমবার আরও দুটি উচ্চ পর্যায়ের সেশনে শেখ হাসিনা অংশ নেন। সেগুলো হল ‘হাই লেভেল মিটিং অন দ্য প্রিভেনশন অব সেক্সুয়াল এক্সপ্লয়টেশন অ্যান্ড অ্যাবিউজ’ এবং ‘হাই লেভেল ফলোআপ মিটিং অব গ্লোবাল ডিল ফর ডিসেন্ট ওয়ার্ক অ্যান্ড ইনক্লুসিভ গ্রোথ’।

শেখ হাসিনা- আব্বাস বৈঠক
মিয়ানমারে দমন-পীড়নের শিকার হয়ে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে পালিয়ে আসাকে ‘দুর্যোগ’ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস। নিউ ইয়র্কের স্থানীয় সময় সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে এক বৈঠকে অংশ নিয়ে একথা বলেন তিনি।

রোহিঙ্গাদের আশ্রয়ে ভূমিকা রাখায় সবাই শেখ হাসিনার প্রশংসা করছে বলেও বাংলাদেশের সরকার প্রধানকে বলেন ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট। জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত এ দুই নেতার বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, ‘রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে মাহমুদ আব্বাস বলেছেন, এটা একটা দুর্যোগ।’ মাহমুদ আব্বাস বলেন, ‘সবাই, সর্বত্র প্রধানমন্ত্রীকে (শেখ হাসিনা) প্রশংসা করছে করছে তার মানবিক পদক্ষেপের জন্য।’ এসময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘মানবিক সত্তা হিসেবে এ দায়িত্ব পালনের কথা আমাদের মনে রাখতে হবে। তবে সাময়িকভাবে আমরা তাদেরকে আশ্রয় দিচ্ছি। কিন্তু মিয়ানমারকে তাদের নাগরিকদের ফেরত নিতে হবে।’ রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ তৈরিতে প্রেসিডেন্টের সহযোগিতা চান শেখ হাসিনা। এবার এমন এক সময়ে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশন বসছে, যখন মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনাবাহিনীর নির্যাতনের মুখে লাখ লাখ রোহিঙ্গার পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। বৈঠকে মাহমুদ আব্বাস ফিলিস্তিনের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে শেখ হাসিনাকে অবহিত করেন। শেখ হাসিনা প্যালেস্টাইনের প্রতি তার সমর্থনের কথা তুলে ধরেন।

 

 



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top