দুপুর ১:৩২, শনিবার, ২৫শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং
/ সম্পাদকীয় / শততম টেস্টে ঐতিহাসিক জয়
শততম টেস্টে ঐতিহাসিক জয়
মার্চ ২০, ২০১৭

শ্রীলংকাকে প্রথমবারের মতো টেস্টে হারালো বাংলাদেশ, তাও নিজেদের শততম টেস্টে। ব্যাটে-বলে দুর্দান্ত ক্রিকেটে স্বপ্নের এক ম্যাচে কলোম্বোর পিসারা ওভালে বাংলাদেশ চার উইকেটে হারিয়েছে শ্রীলংকাকে। একই সঙ্গে দুই টেস্টের সিরিজ ১-১ ব্যবধানের সমতায় শেষ করেছে। অস্ট্রেলিয়া, ওয়েস্টইন্ডিজ ও পাকিস্তানের পর চতুর্থ দেশ হিসেবে বাংলাদেশ শততম টেস্ট জিতে মাইলফলকে পৌঁছালো।

 পাকিস্তান শততম টেস্টে জয় পেয়েছিল ১৯৭৯ সালে। তার ৩৮ বছর পর কোন টেস্ট খেলুড়ে দেশ শততম টেস্টে জয়ের দেখা পেলো। শুধু শততম টেস্টই নয়, শততম ওয়ানডেতেও জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। মজার ব্যাপার হলো বাংলাদেশের মতো ওই তিনটি দলও নিজেদের শততম ওয়ানডেতেও জয় পেয়েছিল। টেস্ট পরিবারের সবচেয়ে নবীন দল হলেও এদিক থেকে বাংলাদেশের সৌভাগ্য অনেকের কাছে ঈর্ষণীয়। ক্রিকেটের পরাশক্তি ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা, ইংল্যান্ডের মতো দলগুলোও তাদের শততম টেস্টে জিততে পারেনি। সে দিক থেকে টাইগাররা নিজেদের সৌভাগ্যবান বলে দাবি করতেই পারেন।

 দেশের গর্ব এগার ক্রিকেটার, কোচিং স্টাফ ও দলের সঙ্গে থাকা সবাইকে আমাদের অভিনন্দন। এই জয়ে উল্লাসে মেতে উঠেছে পুরো বাংলাদেশ। দেশের জেলা, উপজেলার প্রতিটি পাড়া-মহল্লার ক্রিকেট প্রেমীরা উচ্ছ্বাসে মেতে উঠেছে। খেলার ফলাফল অনেকটা নিশ্চিত হওয়ার পরপরই শহর গঞ্জ-বন্দরে বিজয় মিছিল করে ক্রিকেট প্রেমীরা। টেস্টের পঞ্চম দিনে জয়ের জন্য বাংলাদেশের টার্গেট ছল ১৯১ রান।

 শ্রীলংকা দুই উইকেট হাতে নিয়েও যেভাবে লড়াই করেছে তা সমীহ জাগাবার মতো। শততম এই জয়ে সাকিব আল হাসানের অলরাউন্ডিং নৈপুণ্য (সেঞ্চুরি ও ৬ উইকেট), মুস্তাফিজুর রহমান ও মিরাজের দুর্দান্ত বোলিং এবং মোসাদ্দেক, মুশফিক, সৌম্য ও তামিমের গুরুত্বপূর্ণ ফিফটি এই টেস্ট জয়ে পালন করেছে অনন্য ভূমিকা। আমরা আশা করি, এই জয়লাভের মাধ্যমে আমাদের ক্রিকেটারদের মনোবল আরও বেড়ে যাবে। মানসিক চাপ মোকাবিলায় আরও দৃঢ়তার পরিচয় দিবেন। আবারও অভিনন্দন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে।

 



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top