রাত ১০:২৮, মঙ্গলবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
/ সম্পাদকীয় / বাজেট বাস্তবায়নে সক্ষমতা
বাজেট বাস্তবায়নে সক্ষমতা
মে ১৫, ২০১৭

প্রতি বছরই বড় বাজেট হচ্ছে। তবে বাস্তবায়নের গুণগত মান এবং সক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। তাই বাজেট বাস্তবায়নে সক্ষমতা বাড়ানোর প্রতি নজর দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, অর্থ বছরের প্রথম নয় মাসে বাজেট বাস্তবায়নের হার খুবই কম।

 

কিন্তু শেষ তিন মাসে শতভাগের কাছাকাছি বাজেট বাস্তবায়ন দেখানো হয়। এ ক্ষেত্রে বাজেট বাস্তবায়নের মান নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেয়। আর এডিপি বাস্তবায়নে এ দুর্বল চিত্রের জন্য পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের পরিকল্পনা সঠিকভাবে নেওয়া হয় না। আমাদের বাজেটের আকার কিন্তু বাস্তবায়নের কোন পরিকল্পনা নেই।


 এ জন্য বছর শেষে তা বাস্তবায়ন হয় না। বাজেট সবকিছু উপর থেকে চাপিয়ে দেওয়া হয়। এ জন্য বাজেটে বাস্তবায়ন না হলেও, কোন ধরনের জবাবদিহিতা করতে হয় না। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দ চাহিদা প্রায় হাজার হাজার কোটি টাকা থাকলেও, চাহিদা ও সক্ষমতার মধ্যে সমন্বয় করে কাজের ক্ষেত্র ও জনস্বার্থ উপেক্ষিত থেকে যায়।

 

এডিপি কোন বৎসরেই ঠিকমত সম্পন্ন হয় না। অথচ এর বরাদ্দকৃত অর্থ যদি ঠিকমত কাজে লাগানো যায় তবে তার অগ্রগতি আশাব্যঞ্জক হতো। অতীতে আমরা দেখেছি কিছু অসাধু লোকের দৌরাত্ম্যে প্রকল্পের বরাদ্দকৃত অর্থ শেষ হলেও বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে বিভিন্ন অজুহাত দেখানো হয়।


 পূর্বের বিভিন্ন সমস্যা বিশ্লেষণ করে পদক্ষেপ গ্রহণ করলে একদিকে যেমন প্রকল্প বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে অগ্রগতি হয়, তেমনি জনস্বার্থও রক্ষা হয়। সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে আমাদের জাতীয় বাজেটের আকার বাড়ছে। বৈদেশিক সূত্র থেকে কাঙ্খিত সাড়া না পেলে বিশাল বাজেটের ঘাটতি মেটাতে দেশের ব্যাংকগুলোর ওপর চাপ বেড়ে যায়।

 

সেই চাপ দেশীয় বেসরকারি খাতের বিনিয়োগকে বাধাগ্রস্ত করে। এ জন্য বছর শেষে একই ঘূর্ণাবর্তে রয়ে যাবে অর্থনীতি। সে জন্য আমরা আশা করি, প্রকল্পগুলো যেন সময়মতো ও যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করা যায়। সে ব্যাপারে মন্ত্রণালয় আগের সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে তা বাস্তবায়নে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top