রাত ৪:০৭, বৃহস্পতিবার, ১৮ই অক্টোবর, ২০১৭ ইং
/ রাজনীতি / ধর্মীয় সম্প্রীতিতে ভাঙন ধরানোর চেষ্টা হলে প্রতিহত করবে ১৪ দল
সুচির বক্তব্য প্রত্যাখ্যান
ধর্মীয় সম্প্রীতিতে ভাঙন ধরানোর চেষ্টা হলে প্রতিহত করবে ১৪ দল
সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৭

ধর্মীয় সম্প্রীতির মধ্যে কেউ যদি ভাঙন ধরানোর চেষ্টা করে তাহলে তাদের যেকোনো মূল্যে প্রতিহত করা হবে বলে সতর্ক করেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় ১৪ দলের সমন্বয়ক ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মাদ নাসিম। তিনি বলেছেন, হিন্দুদের দুর্গাপূজা, বৌদ্ধদের প্রবারণা পূর্ণিমা শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হবে।

বুধবার ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে ক্ষমতাসীন কেন্দ্রীয় ১৪ দলের নেতাদের সাথে বাংলাদেশের হিন্দু ও বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের মতবিনিময় সভায় তিনি এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

বৈঠকে মোহাম্মাদ নাসিম বলেন, হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ খ্রিস্টান সবাই আমাদের দেশে সম্মিলিতভাবে বসবাস করে আসছি। আগামীতেও আমাদের মধ্যে সম্প্রীতি বজায় থাকবে। যেকোনো মূল্যে অসাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা করা হবে। আমরা সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে বসবাস করতে চাই। তিনি বলেন, আমাদের সম্প্রীতির মধ্যে কেউ যদি ভাঙন ধরানোর চেষ্টা করে তাহলে তাদের যেকোনো মূল্যে প্রতিহত করা হবে। হিন্দুদের দুর্গাপূজা, বৌদ্ধদের প্রবারণা পূর্ণিমা শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হবে। জাতির উদ্দেশ্যে মিয়ানমারের নেত্রী অন সান সু চির দেয়া বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, তার বক্তব্যে রোহিঙ্গা শব্দটিই উচ্চারণ করেননি। বারবার তিনি বাঙালি বাঙালি বলে আখ্যায়িত করেছেন। এটা কোনোভাবেই কাম্য নয়। তিনি বলেন, মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী, যারা নিরীহ মানুষকে হত্যা করছে, আমরা ১৪ দলের পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। তিনি শান্তিতে নোবেল পেয়ে কিভাবে এই নির্যাতনকে প্রশ্রয় দিচ্ছেন। রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিশ্ব নেতাদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য নাসিম বলেন, আজকে আমরা আশা করবো বিশ্ববাসী জেগে উঠবে।

চাপ সৃষ্টি করবে মিয়ানমারের ওপর। তারা যেন এই নিরীহ মনুষদের ফিরিয়ে নেয়। তাদেরকে যেন নিজের দেশের আশ্রয় পাওয়ার ব্যবস্থা করে। রোহিঙ্গা সংকট নিরসনে বিএনপির ঐক্যের ডাকে সাড়া মিলবে কিনা- সাংবাদিকদের এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, শেখ হাসিনার কূটনৈতিক সফলতার কারণে আজকে সমগ্র বিশ্ব জেগে উঠেছে। ওরা কী বলছে সেটা দেখার বিষয় না। সভায় রোহিঙ্গা ইস্যুতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় বঙ্গবন্ধুকন্যা, আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিনকে জাতীয়ভাবে ‘মানবতা দিবস’ হিসেবে উদযাপন করার প্রস্তাব করেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়–য়া, ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা, তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান নজিবুল বাশার মাইজভান্ডারী, জাতীয় পার্টির (জেপির) মহাসচিব শেখ শহিদুল ইসলাম, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, অধ্যাপক নিমচন্দ্র ভৌমিক, মনিন্দ্র কুমার দেবনাথ, রঞ্জিত বড়ুয়া, পিয়ার বড়ুয়া, প্রমুখ।

 



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top