বিকাল ৫:১৫, বুধবার, ১৮ই অক্টোবর, ২০১৭ ইং
/ আর্ন্তাজাতিক / কাশ্মিরে সামরিক রোবট মোতায়েনের সিদ্ধান্ত
কাশ্মিরে সামরিক রোবট মোতায়েনের সিদ্ধান্ত
আগস্ট ১৩, ২০১৭

জঙ্গিদের মোকাবেলার কথা বলে জম্মু-কাশ্মিরে এবার সামরিক রোবট মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রকে উদ্ধৃত করে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্থান টাইমস জানিয়েছে, সেনাবাহিনীর তরফ থেকে কাশ্মিরের জন্য চাওয়া ৫৪৪টি রোবটের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সেনাবাহিনীর প্রস্তাবে বলা হয়েছে, রোবট সেনা জওয়ানদের মতো নিরাপত্তা নজরদারি এবং অভিযানের কাজ করবে। সশস্ত্র জঙ্গি হামলা, কিংবা পাথর নিক্ষেপে সেনাদের হতাহত হতে হয় বলে পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে রোবটের কথা চিন্তা করা হয়েছে।

আফজাল গুরুর ফাঁসি ভারতীয় গণতন্ত্রের জন্য কলঙ্ক’ শীর্ষক নিবন্ধে বিশ্বখ্যাত বুদ্ধিজীবী অরুন্ধতী রায় কাশ্মির সম্পর্কে সেই ২০১৩ সালে বলেছিলেন, ‘আবু গারিবের আদলে এখানকার আর্মি ক্যাম্প ও টর্চার কেন্দ্রগুলোই কাশ্মিরিদের জন্য ধর্মনিরপেক্ষতা ও গণতন্ত্রের বার্তাবাহক। আত্মনিয়ন্ত্রণাধিকারের দাবিতে সংগ্রামরত কাশ্মিরিদের জঙ্গি আখ্যা দিয়ে এখন পর্যন্ত ৬৮ হাজার মুক্তিকামীকে হত্যা করা হয়েছে এবং ১০ হাজারকে গুম করা হয়েছে। নির্যাতিত হয়েছে আরও অন্তত এক লাখ লোক।’

 

 

এখন সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা বলছেন, যেভাবে জম্মু-কাশ্মিরের পরিস্থিতি চলছে তা ঠিক নয়। ওই সমস্যা মোকাবিলা করার জন্য নিরাপত্তা বাহিনী ছাড়াও রাষ্ট্রীয় রাইফেলস রয়েছে যারা জঙ্গিদের মুখোমুখি হচ্ছে। এরকম অবস্থায় রোবট রাষ্ট্রীয় রাইফেলসের খুব সহায়ক হবে।

৮ মাস ধরে প্রতিরক্ষা গবেষণা ও উন্নয়ন সংস্থা-ডিআরডিও’র (ডিফেন্স রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অরগানাইজেশন)তত্ত্বাবধানে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ও রোবট উন্নয়ন কেন্দ্র-সিআইআইআর (সেন্টার ফর আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স অ্যান্ড রোবটিকস) ভারতীয় সেনাবাহিনীর জন্য রোবট তৈরীর ওই প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। 

বছরের শুরুর দিকে টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছিল, দলবদ্ধভাবে কাজ করতে সক্ষম কৃত্রিম বৃদ্ধিমত্তাসম্পন্ন সামরিক রোবট তৈরী করছে ভারত।

মানবাধিকার সংস্থা, ইতিহাসবিদ আর রাজনীতি বিশ্লেষকদের মতে, কাশ্মির ক্রমেই ভারত-পাকিস্তানের সমরাস্ত্র প্রদর্শনের ক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। আর তাতে প্রাণ হারিয়েছে লাখ লাখ মানুষ। মানবাধিকারকর্মীদের দাবি অনুযায়ী, ’৪৭-এর পর থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত অন্তত পাঁচ লাখ কাশ্মিরি নিহত হয়েছেন। বাস্তুচ্যুত হয়েছেন আরও দশ লাখের মতো।

খোদ ভারতের সরকারি হিসাবে তথ্যের ওপর ভিত্তি করে প্রভাবশালী ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া এক রিপোর্টে জানাচ্ছে, ১৯৯০ থেকে ২০১১ সালের মধ্যে কেবল ১১ বছরেই ৪৩,৪৬০ জন কাশ্মিরি নিহত হয়েছেন। নিহতদের বেশিরভাগই বেসামরিক কাশ্মিরি। আর মানবাধিকার কর্মীদের দাবি অনুযায়ী ওই ১১ বছরে নিহতের সংখ্যা ১ লক্ষাধিক এবং বাস্তুচ্যুত মানুষের সংখ্যা আরও ১ লাখ।

এই মুর্হর্তে কাশ্মির উপত্যকা থেকে ‘স্বাধীনতাকামীদের’ নির্মূল করতে সেখানে ‘অপারেশন অল আউট’ পরিচালনা করছে ভারতীয় বাহিনী। চলতি বছর এ পর্যন্ত তাদের হাতে হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছে অন্তত ১৩০ জন। 

এবার নতুন করে সামরিক রোবট ব্যবহারের সিদ্ধান্ত জানা গেল



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top