বগুড়া বুধবার | ১২ ভাদ্র ১৪২১ | ৩০শাওয়াল ১৪৩৫ হিজরি | ২৭ আগস্ট ২০১৪
ব্রেকিং নিউজ
আর্কাইভ
দিন :
মাস :
সাল :
এই সংখ্যার পাঠক
১৪৮৪৫৫
সার্চ
বগুড়ার ধুনটে স্পারের আরও ২৫ মিটারে ধস
বন্যা পরিস্থিতির অবনতি
করতোয়া ডেস্ক :
তিস্তা, ঘাঘট, যমুনা, করতোয়াসহ কয়েকটি নদনদীতে পানি পেয়েছে। ফলে গতকাল মঙ্গলবার তিস্তা অববাহিকাসহ বিভিন্ন স্থানে সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটেছে। গত ২৪ ঘন্টার ব্যবধানে তিস্তায় ১১ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে গতকাল বিকেল তিনটায় বিপদসীমার ২৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল এবং পানি বৃদ্ধি অব্যাহত ছিল। একারণে তিস্তা নদী বেষ্টিত... বিস্তারিত
রাজশাহী নগরীর বুলনপুর-জিয়ানগর এলাকায় পদ্মার ভাঙন -করতোয়া
নির্বাচিত সংবাদ
অনিশ্চিত এক অধ্যায়ের নাম অাঁচল
ব্যস্ততা আর অনিশ্চয়তা এই দুটোর মাঝামাঝি অবস্থানে এখন আলোচিত নায়িকা আঁচল। তুলনামূলকভাবে সাফল্য কম হলেও ব্যস্ততা এখন অনেক বেশি এই সুঅভিনেত্রীর। বিশেষ করে ছয় বছর পর পরিচালনায় আসা সফল যুগল পরিচালক ইস্পাহানী আরিফ জাহানের \'গুন্ডা দ্য টেরোরিস্ট\' ছবিতে বাপ্পি সাহার সঙ্গে অভিনয় করতে পেরে বলা যায় ক্যারিয়ারটাকে \'ফাঁদ\' থেকে তুলতে সমর্থ হয়েছেন। মুক্তির মিছিলে রয়েছে মনিরুল ইসলাম সোহেলের \'স্বপ্ন যে তুই\', আবুল কালাম আজাদের \'হৃদয় দোলানো প্রেম\', মনতাজুর রহমান আকবরের \'বোঝে না সে বোঝে না\' সহ বেশ কিছু ছবি। ব্যস্ততা আশাব্যঞ্জক কিন্তু অনিশ্চয়তা হচ্ছে তার ব্যক্তিগত সমস্যাগুলো নিয়ে। শাকিব খানের সঙ্গে \'ফাঁদ\' ছবির বড় রকমের ব্যর্থতার পর দ্বিতীয়বারের মতো প্রেমের ফাঁদে পড়ে গেছেন আঁচল। এবার প্রেম তার নতুন ছবি \'হৃদয় দোলানো প্রেম\'-এর নায়ক আশিক চৌধুরীর সঙ্গে। নির্মাতাদের দেয়া তথ্য অনুযায়ী দুজনের মধ্যে এখন \'গভীর প্রেম\'। যে কোন সময় এই প্রেম বিয়েতে রূপ নিতে পারে। এর আগেও আঁচল জুয়েল নামে এক প্রযোজককে বিয়ে করেছিলেন প্রেম করে। মায়ের বাড়িও ছেড়েছিলেন প্রেমের টানে। কিন্তু প্রেম-বিয়ে কোনটাই বেশি দিন টেকেনি। ওই প্রযোজকের ছবিটাও শেষ হয়নি। ফিরে আসেন আবার। সুযোগও পেয়েছেন। নির্মাতারা সব ভুলে তাকে কাছে টেনে নিয়েছিলেন। সুযোগও দিয়েছিলেন। কিন্তু শত ব্যস্ততার মাঝেও মনকে বেঁধে রাখতে পারছেন না আঁচল। জড়িয়ে পড়েছেন আশিকের সঙ্গে। বিষয়টি গোপন থাকেনি। এক কান দু\'কান করে ছড়িয়ে পড়েছে চারদিকে। ফলে সৃষ্টি হয়েছে নতুন অনিশ্চয়তার। আঁচল দ্বিতীয়বার কেন ভুল করতে চলেছেন- এমন প্রশ্ন তার ঘনিষ্ঠজনদের। কিন্তু আঁচল আগের মতো এবারও অস্বীকার করলেন। বললেন, কারও সঙ্গেই আমার প্রেম ভালবাসা নেই। আমি ব্যস্ত আমার কাজ নিয়ে। শুটিং করছি দিনরাত। প্রেম করার সময় কই? কেউ যদি এসব বলে বেড়াই তাহলে আমার কিছু করার নেই। আমি শুধু সময়ের অপেক্ষায় থাকবো। সময়ই সব বলে দেবে।
ঠাকুরগাঁওয়ে টাকা ছিনতাইয়ের প্রতিবাদে চেম্বারের সংবাদ সম্মেলন
ঠাকুরগাঁও শহরের রোড বাগানবাড়ি এলাকায় মাজহারুল ইসলাম বাবু নামে এক ব্যবসায়ীকে গুলি করে প্রায় ২৯ লাখ ৭৬ হাজার টাকা ছিনতাই করার প্রতিবাদে সুষ্ঠু তদন্তের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে চেম্বার অব কমার্স। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে চেম্বার ভবনে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় চেম্বার অব কমার্সের সিনিয়র সহ-সভাপতি মনিরুজ্জামান জুয়েলের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, মুরাদ হোসেন, মামুনুর রশিদ, রমজান আলী, ঠাকুরগাঁও জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি মনসুর আলী, প্রেস ক্লাবের সহ-সভাপতি বদরুল ইসলাম বিপ্লব, সাংবাদিক মজিবর রহমান খান, লুৎফর রহমান মিঠু, এনামুল হক প্রমুখ। উল্লেখ্য, ঠাকুরগাঁও বিসিক শিল্পনগরীস্থ নেভী সিগারেট কোম্পানির এজেন্ট অফিস থেকে মোটরসাইকেল যোগে মাজহারুল ইসলাম রোড পূবালী ব্যাংক শাখায় টাকা জমা দিতে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে রোড বাগানবাড়ি এলাকায় দুটি মোটরসাইকেল যোগে ছয় জন ছিনতাইকারী মাজহারুলের মাথায় গুলি করে টাকার ব্যাগ ছিনিয়ে নেয়। পরে স্থানীয়রা ধাওয়া দিলে ছিনতাইকারীরা ফাঁকা গুলি করে পিস্তল ও ককটেল ফেলে পালিয়ে যায়।
বন্যা পরিস্থিতির অবনতি
তিস্তা, ঘাঘট, যমুনা, করতোয়াসহ কয়েকটি নদনদীতে পানি পেয়েছে। ফলে গতকাল মঙ্গলবার তিস্তা অববাহিকাসহ বিভিন্ন স্থানে সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটেছে। গত ২৪ ঘন্টার ব্যবধানে তিস্তায় ১১ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে গতকাল বিকেল তিনটায় বিপদসীমার ২৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল এবং পানি বৃদ্ধি অব্যাহত ছিল। একারণে তিস্তা নদী বেষ্টিত নীলফামারীর ডিমলা ও জলঢাকা উপজেলার ১৫টি গ্রামের ১৫ সহস্রাধিক মানুষ বন্যাকবলিত হয়ে দুর্ভোগে পড়েছে। বগুড়ার ধুনটে যমুনা নদীর পানি আবারও বেড়েছে। ভাঙন ঠেকাতে নির্মিত ধুনটের বানিয়াজান স্পারের আরও ২৫মিটার স্যাংক ধসে গেছে। গাইবান্ধায় বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত থাকলেও গত ২৪ ঘন্টায় ঘাঘটের ৩ সে.মি. এবং করতোয়া নদীর পানি বেড়েছে ২৪ সে.মি.। ভাঙনকবলিত ৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয় নিলামে বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সিরাজগঞ্জে যমুনা নদীর পানি সামান্য কমলেও জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি তেমন উন্নতি হয়নি। জামালপুরে বন্যার পানি বৃদ্ধির কারণে ১১৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বন্যা দুর্গত এলাকায় খাদ্য,বিশুদ্ধ পানি ও গোখাদ্যের তীব্র সংকট সৃষ্টি হয়েছে। পাশাপাশি বৃদ্ধি পাচ্ছে পানি বাহিত নানা রোগ। এর উপরে মরার উপর খাঁড়ার ঘা হয়ে নদী ভাঙন তীব্র হয়েছে। ্মাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো আরও খবর- ধুনট (বগুড়া) : বগুড়ার ধুনটে যমুনা নদীর ভাঙন ঠেকাতে নির্মিত বানিয়াজান স্পারের আরও ২৫মিটার স্যাংক ধসে গেছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে এই ধসের ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে স্পারটি বর্ষা মৌসুমে তিন বার ধসের কবলে পড়লো। স্পার ধসের খবর শুনে যমুনা তীরের পানিবন্দি মানুষের মাঝে চরম আতংক বিরাজ করছে। গত ২০০২ সালে প্রায় সাড়ে ১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত স্পারটি প্রতি বছরই ভাঙনের কবলে পড়ে ক্রমশ ঝুকিপূর্ণ ও ছোট হয়ে আসছে। প্রতি বছরই মেরামতের নামে কোটি কোটি টাকা ব্যয় হলেও সম্পূর্ণ স্পারটি ধরে রাখা সম্ভব হচ্ছে না। পাউবোর সাথে স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিরা যুক্ত থাকায় অধিক লাভের কারণে দায়সারা মেরামত কাজ হয়। তাই প্রতি বছরই স্পারটি ভাঙনের কবলে পড়ছে। যমুনার নদীর পানি বৃদ্ধির পেয়ে প্রবল স্রোতে ১৭ আগস্ট স্পারের ১৫০ মিটার স্ট্রাকচারের মধ্যে ৫০ মিটার নদীগর্ভে বিলিন হয়। এছাড়া স্পারের সামনের দিকে আরও ৫০ মিটার স্ট্রাকচার দেবে গেছে। এ বিষয়টি নিয়ে মঙ্গলবার করতোয়ার শেষ পাতায় সচিত্র সংবাদ প্রকাশ হয়। কিন্ত পানি উন্নয়ন বোর্ডে স্পার রক্ষার চেষ্টা করেনি। এ অবস্থায় মঙ্গলবার সকালে স্পারের মাঝামঝি স্থানে মাটির তৈরী স্যাংকের ২৫মিটার নদীগর্ভে ধসে গেছে। এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় বগুড়ার ধুনটে যমুনা নদীর পানি আবারও বৃদ্ধি পেয়ে গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৬টা নাগাদ বিপদসীমার ৬৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। এর আগে পানি কমে বিপদসীমার ৬০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। বগুড়ার পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) উপসহকারী প্রকৌশলী হারুনর রশিদ এতথ্য নিশ্চিত করে জানান, গত তিন দিন ধরে যমুনা নদীর পানি একটু করে কমছে আবার বাড়ছে। তবে গত শনিবার যমুনা নদীর পানি সবচেয়ে বেশি বেড়েছিলো। ওই দিন বিকেল পর্যন্ত পানি বিপদসীমর ৬৮সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। প্রায় তিন হাজার পরিবার পানিবন্দি জীবনযাপন করছে। কিন্ত সরকারি ত্রান মিলেছে ২ হাজার ৫০০মেট্রিকটন চাল এবং ৫০ হাজার টাকা। ডিমলা (নীলফামারী) : তিস্তায় ফের পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে গতকাল তিস্তা অববাহিকায় বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতির ঘটেছে। সূত্র মতে সোমবার বিকাল ৩টায় তিস্তার পানি বিপদসীমার ১৬ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হলেও ২৪ ঘন্টার ব্যবধানে ১১ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে মঙ্গলবার বিকাল তিনটায় বিপদসীমার ২৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল এবং পানি বৃদ্ধি অব্যাহত ছিল। তিস্তার পানি বৃদ্ধিতে তিস্তা নদী বেষ্টিত ডিমলা ও জলঢাকা উপজেলার ১৫টি গ্রামের ১৫ সহস্রাধীক মানুষজন বন্যা কবলিত হয়ে দূভর্োগে পড়েছে। এসব এলাকার ঘরবাড়িতে হাটু সমান পানিতে তলিয়ে রয়েছে। পাশাপাশি তিস্তা অববাহিকার ছোটখাতা উত্তরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও বন্যার পানি প্রবেশ করায় সে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। মানুষজন তিস্তার ডান তীর প্রধান বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে। ত্রাণের জন্য বন্যত্বদের মাঝে হাহাকার। জরুরি সভা ঢেকে এনজিওদের নিকট ত্রানসামগ্রী ও দুর্গতদের নিরাপদ স্থানে সড়িয়ে নিতে সহায়তা চেয়েছেন উপজেলা প্রশাসন। একই সূত্র মতে গতকাল ভারতের তিস্তার দো-মহনী পয়েন্টে তিস্তা সকাল ৯টায় বিপদসীমার ৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে বাংলাদেশে ধাবিত হচ্ছিল বলে সেখানকার বন্যা পূর্বাভাস কেন্দ্র জানিয়েছিল। কিন্তু দুপুর ১২টায় ভারতের দো-মহনীর সাথে বাংলাদেশের ডালিয়ার বন্যা পূর্বাভাস কেন্দ্রের ওয়্যারলেন্স সিষ্টেমের সংযোগ না পাওয়া যাওয়ায় ভারতের দো-মহনী পয়েন্ট তিস্তার পানির প্রবাহ কত তা জানতে পারেনি ডালিয়া। গাইবান্ধা : গাইবান্ধা জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড জানিয়েছে মঙ্গলবার গত ২৪ ঘন্টায় তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্র নদীর পানি অপরিবর্তিত থাকলেও ঘাঘটের ৩ সে.মি. এবং করতোয়া নদীর পানি বেড়েছে ২৪ সে.মি.। তবে ঘাঘট নদীর পানি বৃদ্ধি না পেলেও এখনও তা বিপদসীমার ১৩ সে.মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। অন্যদিকে ৭ উপজেলার বন্যাকবলিত এলাকাগুলির জন্য১১৭টি মেডিকেল টিম কাজ করছে বলে স্বাস্থ বিভাগ জানিয়েছে। বন্যাকবলিত এলাকায় ৪ হাজার ৩২৩টি বাড়িঘর সম্পূর্ণরূপে এবং ৮ হাজার ১২১টি বাড়িঘর আংশিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে। এদিকে সাঘাটা, ফুলছড়ি ও সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে বন্যার পানির তোড়ে ব্যাপক ভাঙন শুরু হয়েছে। ফুলছড়ির আঙ্গারিদহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও পিপুলিয়া কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সুন্দরগঞ্জের ভাটি বুড়াইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও সাঘাটার গাড়ামারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নদীভাঙনের মুখে জরুরি ভিত্তিতে নিলামে দেয়ার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। গত দু\'দিনে বন্যাকবলিত এলাকায় ৪০টি বাড়িঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে বন্যা উপদ্রুত এলাকায় গাইবান্ধা সদর উপজেলায় ১৮টি, সাদুল্যাপুর উপজেলায় ১৬টি, ফুলছড়ি উপজেলায় ১২টি, সাঘাটা উপজেরায় ১৫টি, সুন্দরগঞ্জ উপজেরায় ২০টি পলাশবাড়ী উপজেলায় ১৪টি ও গোবিন্দ গঞ্জ উপজেলায় ২২টিসহ ১১৭টি মেডিকেল টিম কাজ করছে। বন্যা উপদ্রুত এলাকার জন্যপ্রয়োজনীয় পানিবিশুদ্ধকরন ট্যাবলেট, আমাশা ও জ্বরের ট্যাবরেট, খাওয়ার স্যালাইন ছাড়াও নৈমিত্তিক অন্যান্য অষুধ সরবরাহ দেয়া হয়েছে। সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় বন্যার পানির তোড়ে রামডাকুয়া ব্রিজটি হুমকির মুখে পড়েছে। সাঘাটা উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের গোবিন্দপুর মৌজার ২০টি বসতবাড়ী নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। গোবিন্দপুর উচ্চ বিদ্যালয়সহ শতাধিক বাড়ীঘর নদীভাঙনের হুমকির মুখে পড়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সাঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আব্দুল আউয়াল ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা বাবুল চন্দ্র রায় ভাঙনকবলিত এলাকা পরির্দশন করে এসব এলাকায় সরকারি ত্রাণ হিসাবে ২০ মেট্রিকটন চাল ও ৩০ হাজার টাকা বন্যার্তদের মাঝে বিতরণ করেন। নাগেশ্বরী (কুড়িগ্রাম) : নাগেশ্বরীতে আবারও বন্যা পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে। সরকারি হিসেবে এ পর্যন্ত ১০ ইউনিয়নের ৭০ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। ব্রহ্মপুত্র, গঙ্গাধর, দুধকুমার, শংকোস, ফুলকুমার নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বন্যাকবলিত রায়গঞ্জ, ভিতরবন্দ, বামনডাঙ্গা, বেরুবাড়ী, কালীগঞ্জ, নুনখাওয়া, কচাকাটা, কেদার, বল্লভেরখাস ও নারায়ণপুর ইউনিয়নের বেশিরভাগ এলাকা আবারো তলিয়ে গেছে। বন্যা দীর্ঘস্থায়ী হওয়ায় বিপাকে পড়েছে বন্যা কবলিত মানুষ। খাদ্য, জ্বালানি, বিশুদ্ধ পানি ও গো খাদ্যের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। বন্যা পরিস্থিতির অবনতিতে আগের ৩ হাজার ৯৫৫ হেক্টর জমির সাথে নতুন করে আবারও ৭ হাজার ১৮২ হেক্টর জমির রোপা আমন ক্ষেত পানির নিচে চলে গেছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হায়াৎ মোঃ রহমতুল্লা বলেন ইতোমধ্যে বন্যার্তদের মাঝে ৪৫ মে.টন চাল ও নগদ ৬৫ হাজার টাকা বিতরণ করা হয়েছে। সিরাজগঞ্জ : সিরাজগঞ্জ যমুনা নদীর পানি সামান্য কমলেও সিরাজগঞ্জের বন্যা পরিস্থিতি তেমন উন্নতি হয়নি। গত ২৪ ঘন্টায় পানি কমে মঙ্গলবার সকালে তা বিপদসীমার ১২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। তবে পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, আকাশে জোয়ার থাকায় পানি কমতে দেরী হচ্ছে। এভাবে জোয়ার অব্যহত থাকলে পানি আবারো বাড়তে পারে। এদিকে ধীরে ধীরে পানি কমলেও টানা বন্যার কারণে জেলার বন্যা কবলিত এলাকায় ডাইরিয়া, পেটের পীড়াসহ পানি বাহিত রোগের পাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। চরাঞ্চলসহ কাজিপুর, চৌহালী, এনায়েতপুর, শাহাজদপুর, বেলকুচিসহ বন্যাকবলিত এলাকাগুলোতে দেখা দিয়েছে তীব্র খাবার পানির সংকট। জেলার চরাঞ্চলের বন্যাকবলিত মানুষ খাবার ও পানির সংকটসহ নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে কষ্টে জীবন যাপন করছে। চরের অধিকাংশ ঘর-বাড়িতে পানি প্রবেশ করায় ২ লাখ মানুষের এখন দুর্ভোগের সীমা নেই। সরকারিভাবে বিভিন্ন এলাকায় ত্রাণ বিতরণ করা হলেও দুর্গম অঞ্চলে এখনো কোন ত্রাণ পৌঁছেনি বলে বানভাসী মানুষেরা জানিয়েছে। কুড়িগ্রাম : কুড়িগ্রামে সবগুলো নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় জেলার বন্যা পরিস্থিতির আবারও অবনতি হয়েছে। ব্রহ্মপুত্রের পানি চিলমারী পয়েন্টে বিপদসীমা দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। চর ও দ্বীপচরের লক্ষাধিক মানুষ বন্যা শুরুর পর থেকে প্রায় ১৪ দিন ধরে পানিবন্দী জীবন-যাপন করছে। এ অবস্থায় কলা গাছের ভেলা, উচু মাচা ও নৌকায় দিন কাটাচ্ছে অনেক পরিবার । বন্যা দুর্গতদের মাঝে পর্যাপ্ত ত্রাণ না পেঁৗছায় চরম খাদ্য সংকটে পড়েছে বানভাসীরা। পাশাপাশি বিশুদ্ধ পানি ও ঔষধের সংকট দেখা দেওয়ায় ছড়িয়ে পড়ছে পানি বাহিত নানা রোগ। জেলা প্রশাসক এবিএম আজাদ জানান, বন্যার্তদের জন্য বন্যার্তদের জন্য ৫শ মেট্রিক টন চাউল ও ১১ লাখ টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেলেও এ পর্যন্ত বিতরন করা হয়েছে ৩শ মেট্রিক টন চাউল ও ৪ লাখ টাকা। পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-প্রকৌশলী সবিবুর রহমান জানান, গত ২৪ ঘন্টায় চিলমারী পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি ১ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমা দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। নুন খাওয়া পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি ৫ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়েছে। অন্যদিকে কাউনিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি ৯ সেন্টিমিটার এবং সেতু পয়েন্টে ধরলার পানি ৫ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়েছে। জামালপুর : টানা বর্ষণ আর উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে জামালপুরে বন্যা পরিস্থিতির আবারও অবনতি হয়েছে। বিগত দু\'দিন কিছুটা বন্যার পানি কমলেও আবার বাড়তে শুরু করেছে যমুনার পানি। গত ২৪ ঘন্টায় বাহাদুরাবাদ পয়েন্টে যমুনার পানি ৩ সেন্টিমিটার বেড়ে গতকাল মঙ্গলবার সকালে বিপদসীমার ৩০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। যমুনার পানি বাড়ায় দেওয়ানগঞ্জ, ইসলামপুর, সরিষাবাড়ি, মাদারগঞ্জ উপজেলার আরো অন্তত ২০টি গ্রাম নতুন করে বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। ৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেছে মাদারগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা অফিস। এ ছাড়াও বন্যায় এ পর্যন্ত জেলার ৭ উপজেলায় ১১৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এদিকে সরিষাবাড়ীতে যমুনা, ঝিনাই ও সুবর্ণখালী নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ৩০টি গ্রামের প্রায় ৫ হাজার মানুষ পানিবন্দী ও ২০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বন্যার পানি প্রবেশ করায় শিক্ষাথীদের পাঠদান বন্ধ রয়েছেন। অন্যদিকে এ উপজেলায় ২ হাজার ৭ শত হেক্টর রোপা-আমন ধান ও ৩ শত হেক্টর শাক সবজির ফসলী জমি বন্যার পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে। বন্যাদুর্গতরা উচু সড়ক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আশ্রয় নিয়েছেন। বন্যা দুর্গত এলাকার মানুষের মধ্যে ডাইরিয়া, আমাশয় সহ নানা কঠিন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। রাজশাহী : রাজশাহীর পদ্মা নদীতে বোয়ালিয়া পয়েন্টে ১৭ দশমিক ২৮ সেন্টিমিটার পানি প্রবাহ রেকর্ড করা হয়েছে। গত বছর রাজশাহীতে পদ্মা ১৮ দশমিক ৫০ সেন্টিমিটার বিপদসীমা অতিক্রম করেছিল। এবারো পদ্মায় পানি বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে বলে ধারণা করছে রাজশাহী পানি উন্নয়ন বোর্ড। এর আগে রোববার সন্ধ্যা ৬টায় প্রবাহ ছিল একই। উজানে পানির প্রবাহ বৃদ্ধি এবং অব্যাহত বৃষ্টিপাতের ফলে এবারো পদ্মায় প্রবাহ বিপদসীমা অতিক্রমের আশংকা করেছেন সংশ্লিষ্টরা। পাউবো সূত্রে জানা গেছে, প্রায় তিন সপ্তাহ ধরে ভাঙছে রাজশাহী শহর রক্ষা বাঁধের ৫ নম্বর গ্রোয়েন থেকে ৩ নম্বর গ্রোয়েনের মধ্যবর্তী প্রায় তিন কিলোমিটার এলাকা। এরমধ্যে দুই কিলোমিটার এলাকায় ভাঙন তীব্র। ৩ নম্বর গ্রোয়েনের পূর্ব পাশে নগরীর বুলনপুরের ৩০০ মিটার এলাকায় ভাঙন তীব্রতর হয়েছে। এতে ঝুঁকিতে পড়েছে নিকটবর্তী শহর রক্ষা বাঁধ। ভাঙন অব্যহত থাকায় আতঙ্কে রয়েছেন ওই এলাকার বাসিন্দারা। গত বছর এপ্রিলে নগরীর ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বুলনপুর নীচপাড়া এলাকায় শ্মশানঘাটের সীমানাপ্রাচীর নির্মাণ করা হয়। গত কয়েক দিনের ভাঙনে পদ্মানদী একেবারে শ্মশানের ভেতর প্রবেশে করেছে। আর নবগঙ্গা এলাকায় ভাঙন একেবারে শহর রক্ষা বাঁধের কাছে চলে এসেছে। রাজশাহী চারঘাট ও বাঘার চরাঞ্চল এবং গোদাগাড়ীর সুলতানগঞ্জ এলাকাতেও ব্যাপক ভাঙন দেখা দিয়েছে। সুলতানগঞ্জ এলাকায় পদ্মার ভাঙন থেকে রাজশাহী-চাপাইনবাবগঞ্জ মহাসড়ক রয়েছে প্রায় ৫শ মিটার দূরে। ভাঙনরোধে জরুরি ব্যবস্থা নিতে এরইমধ্যে পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান কার্যালয়ে জরুরি ফ্যাক্স বার্তা পাঠিয়েছে রাজশাহী পাউবো। লালমনিরহাট : লালমনিরহাটে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে তিস্তা নদীর পানি ডালিয়া পয়েন্টে বিপদসীমার ২৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয় বলে ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ সাংবাদিকদের নিশ্চিত করে। অব্যাহত বন্যায় লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা কুটিরপাড় এলাকার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধটির গত ২৪ ঘন্টায় প্রায় অর্ধ কিলোমিটার এলাকা তিস্তা নদীর গর্ভে বিলীন হয়েছে। ফলে ওই বাঁধের ভাটিতে থাকা হাজার হাজার মানুষ বন্যার পানিতে পানিবন্দীয়ে পড়েছে। এছাড়াও তিস্তার তীরবর্তি এলাকায় ভাঙনও তীব্র আকার ধারণ করেছে। চোখের সামনে বিলিন হচ্ছে বসত ভিটা ফসলি জমি। গত ২ দিনে শতাধিক বাড়ি তিস্তার গর্ভে বিলীন হয়েছে বলে দাবি স্থানীয়দের। এ অবস্থায় বাঁশের পাইলিং ও বালুর বস্তা দিয়ে ওই বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধটি রক্ষার চেষ্টা করছে আদিতমারী উপজেলা প্রশাসন। এছাড়াও প্রশাসনের পক্ষ থেকে গতকাল মঙ্গলবার নদী ভাঙনের শিকার পরিবারগুলোকে ৩০ কেজি ও পানিবন্দি পরিবারগুলোকে মাথা পিছু ১০ কেজি হারে চাল বিতরণ করা হয়েছে বলে জানান আদিতমারী উপজেলা ত্রাণ ও পুনবাসন কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান। এদিকে গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে লালমনিরহাট- ২ আসনের সাংসদ নুরুজ্জামান আহম্মেদ ভাঙনকবলিত কুটিরপাড় বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি বলেন, নদীভাঙনের শিকার ও পানি বন্দি পরিবার গুলোর সহায়তার জন্য সরকারের উচ্চ পর্যায়ে জানানো হয়েছে। এসময় তার সাথে ছিলেন আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জহুরুল হক, উপজেলা ত্রাণ ও পুনবাসন কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান, মহিষখোচা ইউপি চেয়ারম্যান মোসাদ্দেক হোসেন চৌধুরী, ভাদাই ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান কৃষ্ণকান্ত বিদুর, যুবলীগ নেতা মোস্তফা কামাল জয়।
সাকিবের শাস্তি কমলো
সাকিব আল হাসানের ওপর নিষেধাজ্ঞা কমেছে। আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে দেশের হয়ে আন্তর্জাতিক ও ঘরোয়া ক্রিকেট ম্যাচে খেলতে পারবেন দেশের সেরা ক্রিকেটার। মঙ্গলবার বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পরিচালনা পর্ষদের সভায় সাকিবের শাস্তি কমানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। পরে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান সাংবাদিকদের সভার সিদ্ধান্ত জানান। শৃঙ্খলাভঙ্গের অনেকগুলো ঘটনায় গত ৭ জুলাই সাকিবকে সব ধরণের ক্রিকেট থেকে ৬ মাসের জন্য নিষিদ্ধ করে বিসিবি। এছাড়া আগামী দেড় বছর দেশের বাইরে কোনো প্রতিযোগিতায় খেলার জন্য তাকে অনাপত্তিপত্র না দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বোর্ড। পরে ক্রিকেটে ফিরতে বিসিবিতে আপিল করেন সাকিব। নাজমুল সাংবাদিকদের জানান, সভায় সাকিবের আপিলের আবেদন দিয়ে বিশেষভাবে আলোচনা করা হয়েছে। সাকিবের ভেতর কিছু ইতিবাচক দিক দেখা দেয়ার বিষয়টি এতে প্রাধান্য পেয়েছে। আর বোর্ডের কাছে সাকিবের দেয়া আপিলের চিঠি দেখেও বোর্ড সন্তুষ্ট। আমরা যেটা মনে করেছি যে, তার ব্যবহারে কিছু পরিবর্তন এসেছে। আমাদের সে বারবার আশ্বস্ত করেছে যে, এই ধরণের ভুল আর সে করবে না। তবে বিদেশের টুর্নামেন্টে খেলতে যাওয়ার বিষয়ে সাকিবের ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকছেই। নিষেধাজ্ঞা কমায় ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগ খেলতে পারবেন সাকিব। ১০ অক্টোবর থেকে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগ শুরুর কথা রয়েছে। সাকিববিহীন বাংলাদেশ দল এখন ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে আছে, যেখানে তিনটি ওয়ানডের সবগুলোতেই হেরেছে তারা। তবে জিম্বাবুয়ে সিরিজে খেলতে পারবেন সাকিব। আগামী অক্টোবর-নভেম্বরে বাংলাদেশ সফরে আসবে জিম্বাবুয়ে। নির্বাচকরা চাইলে এশিয়ান গেমস ক্রিকেটের জন্যও সাকিবকে বিবেচনায় রাখতে পারবে বলে জানান নাজমুল। ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হতে যাওয়া এশিয়ান গেমসে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অংশ নেবে বাংলাদেশ দল। গেমসের ২০১০ আসরে পুরুষদের ক্রিকেটে সোনা জিতেছিল বাংলাদেশ। এশিয়ান গেমসে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাশরাফি এশিয়ান গেমসে বাংলাদেশ ক্রিকেট জাতীয় দলের অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করবেন পেসার মাশরাফি বিন মর্তুজা। মঙ্গলবার বিসিবির সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। একই সঙ্গে এশিয়ান গেমসেও সাকিব আল হাসান খেলার সুযোগ পাবেন বলেও জানান তিনি।
ধর্মকে রাজনীতির হাতিয়ার করা চলবে না : শেখ হাসিনা
জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসের মাধ্যমে ইসলামের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্নের বিরুদ্ধে সচেতন করার পাশাপাশি ধর্মকে রাজনীতিতে টেনে আনার বিপক্ষে বললেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল মঙ্গলবার এই বছরের হজ কার্যক্রম আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করে তিনি বলেন, ইসলাম শান্তি ও প্রগতির ধর্ম। জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস সৃষ্টি করে কেউ ইসলামের বদনাম করুক- এটা আমরা চাই না। রাজনীতিতে ধর্মের ব্যবহারের বিপক্ষে অবস্থান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ২৫ বছর আমরা দেখেছি ধর্মের নামে জুয়াচুরি, ধর্মের নামে শোষণ, ধর্মের নামে বেঈমানী, ধর্মের নামে অত্যাচার, ধর্মের নামে খুন, ধর্মের নামে ব্যাভিচার -এই বাংলাদেশের মাটিতে এসব চলেছে। ধর্ম একটি পবিত্র জিনিস। পবিত্র ধর্মকে রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা চলবে না। আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের জবাবে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সব সময় ইসলামের প্রচার ও প্রসারে সচেষ্ট। জাতির পিতা ইসলামের নামে স্বার্থন্বেষী মহলের বিরুদ্ধে সবসময়ই সোচ্চার ছিলেন। হজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করে নিজের আনন্দের অনুভূতি প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী হজযাত্রায় তার সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরেন। ২০০৯ সালে হজ উইংয়ের অফিস জেদ্দা থেকে মক্কায় স্থানান্তরের কথা জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের এ সিদ্ধান্তের ফলে গত ৫ বছরে হাজীদের সেবা প্রদান অনেক সহজলভ্য ও উন্নততর হয়েছে। হজযাত্রীদের সুবিধায় ২০১০ সাল থেকে জেদ্দা টার্মিনাল প্লাজা ভাড়া করার কথাও বলেন প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশি হজযাত্রীদের অসুবিধার কথা বিবেচনা করে সৌদি সরকার তাদের নতুন ব্যবস্থাপনায় কিছু বিষয় শিথিল করায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত সৌদি রাষ্ট্রদূত আবদুল্লাহ বিন নাসের আল-বুশাইরির মাধ্যমে সেদেশের সরকারকে ধন্যবাদ জানান তিনি। হজযাত্রীদের উদ্দেশে শেখ হাসিনা বলেন, আপনারা এমন একটা জায়গায় যাচ্ছেন, যেখানে গেলে সকলে দিন-দুনিয়ার কথা ভুলে যায়। আপনারা আল্লাহর কাছে বাংলাদেশের মানুষের সুখ-সমৃদ্ধির জন্য, জীবন যেন আরো উন্নত হয়- সেজন্য দোয়া করবেন। আপনারা ভালোভাবে ফিরে আসবেন। সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ থেকে এ বছর ৯৮ হাজার ৭০৫ জন হজে যাচ্ছেন। বাংলাদেশ ও সৌদি আরব সরকারের চুক্তি অনুসারে বিমান ৫০ শতাংশ এবং সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইন্স ও নাস এয়ার ৫০ শতাংশ যাত্রী পরিবহন করবে। ধর্মমন্ত্রী মতিউর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন বেসামরিক বিমান চলাচলমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, ধর্ম মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বি এইচ হারুন, সংসদ সদস্য সাহারা খাতুন ও সৌদি রাষ্ট্রদূত আল বুশাইরি। আশকোনায় হজ ক্যাম্পে চলতি বছরের কার্যক্রম উদ্বোধন ঘোষণা করে বিশেষ মোনাজাতের পর প্রধানমন্ত্রী হ্জযাত্রীদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। অনুষ্ঠানে মোনাজাত পরিচালনা করেন জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের খতিব প্রফেসর মো. সালাহউদ্দিন। পরে প্রধানমন্ত্রী হজ যাত্রীদের সাথে কুশল বিনিময় করেন।
যমুনার ভাঙন রোধে আগামী শুষ্ক মৌসুমে স্থায়ী ব্যবস্থা
পানি সম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এমপি যমুনা নদীর ভাঙনরোধে তার সরকারের গৃহিত কর্মসূচির কথা উল্লেখ করে বলেছেন, এই অঞ্চলের মানুষের জমি, স্কুল কলেজ সম্পদ রক্ষায় আগামী শুস্ক মৌসুমে স্থায়ীভাবে কাজ করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। তিনি জানান এই এলাকার ভাঙন রোধে ৩শ\' ১০ কোটি টাকার একটি প্রকল্প পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ে অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে নদী ভাঙনরোধ হবে। তিনি আরো বলেন, ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের ক্ষতি আমরা পুষিয়ে দিতে পারবো না। তবে বিপদের সময় আপনাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছি। বিএনপি ক্ষমতায় থাকলেও এলাকার উন্নয়নে কিছু করেনি। \'৯৬ সালে শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসে ৫৭৭কোটি টাকা ব্যয়ে গ্রোয়েন, হার্ডপয়েন্ট নির্মাণ করেছে। জনগণের উদ্দেশ্যে তিনি এও বলেন, আপনারা প্রকৃতির সাথে যুদ্ধ করছেন, শেখ হাসিনা সরকার সে যুদ্ধে যোগ দিয়েছেন। তিনি গতকাল মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১ টায় সারিয়াকান্দির রৌহদহ-চন্দনবাইশা যমুনা নদী ভাঙন ও বন্যাকবলিত এলাকা পরিদর্শন শেষে আয়োজিত এক সূধি সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাহাদারা মান্নানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পানি সম্পদ মন্ত্রাণলয়ের প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম বীর প্রতিক বলেন, শেখ হাসিনার নির্দেশে আমরা মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছি। শেখ হাসিনা যতদিন প্রধানমন্ত্রী থাকবেন ততদিন দেশের উন্নয়ন হবে। বাংলাদেশের সামনে অপার সম্ভাবনা রয়েছে। এটা বাস্তবায়ন সম্ভব পারদর্শী সরকার ক্ষমতায় থাকলে। শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায় থাকলে সেই সম্ভাবনা কাজে লাগিয়ে দেশের উন্নতির শিখরে নিয়ে যাবে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আব্দুল মান্নান এমপি বলেন, শেখ হাসিনার সরকার যখন ক্ষমতায় থাকে তখন দেশের উন্নয়ন হয়। \'৯৬সালে শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসে নদী ভাঙনরোধে স্পার, গ্রোয়েন ও হার্ডপয়েন্ট নির্মাণ করেছিলেন। পরবর্তীতে বিএনপি ক্ষমতায় এসে সেগুলো সংস্কার না করায় নদীতে ভেঙে যায়। তারা নদী ভাঙনরোধে টাকা বরাদ্দ এনে লুটপাট করে খেয়েছে, কিন্তু কাজের কিছুই হয়নি। তিনি আরও বলেন বিশ্ব ব্যাংকের সহায়তায় গাইবান্ধা হতে বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত নদী শাসন এবং নদী পাড় দিয়ে সড়ক নির্মাণে ৮হাজার কোটি টাকার প্রকল্প গ্রহণ করেছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব ডঃ জাফর আহমেদ খান, পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক মো ঃ সহিদুর রহমান, পাউবো রাজশাহী জোনের প্রধান প্রকৌশলী আব্দুর রব মিয়া, বগুড়ার জেলা প্রশাসক শফিকুর রেজা বিশ্বাস, পুলিশ সুপার মোজাম্মেল হক পিপিএম, পাউবোর তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মমতাজ উদ্দিন, নির্বাহি প্রকৌশলী নুরুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর শাহী সুমন প্রমুখ। এদিকে সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, পানিসম্পদমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেছেন, সিরাজগঞ্জকে যমুনা নদীর ভাঙন থেকে রক্ষায় বর্তমান সরকার বন্ধ পরিকর। এজন্য ইতোমধ্যেই নদীর গতিপথ পরিবর্তনের জন্য যমুনা নদীতে ৪৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে পাইলট ড্রেজিং প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে এবং ২৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে নদীর পশ্চিমতীরে অবস্থিত ৪টি ক্রসবার বাঁধে সংস্কার কাজ চলছে। পাশাপাশি প্রায় ৩০০ কোটি টাকা ব্যয়ে শহর রক্ষা বাধ থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত সোয়া ৬ কিলোমিটার নদী তীর সংরক্ষণ বাঁধ নির্মাণ করার পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলে সিরাজগঞ্জ শহর যমুনা নদীর ভাঙনের হাত থেকে রক্ষার পাশাপাশি নদী তীরে বিশাল এলাকা জেগে উঠবে। ইতিমধ্যে এখানে ১৬ কিলোমিটার এলাকা নদীগর্ভ থেকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। যেখানে প্রস্তাবিত ইকোনমিক জোন, শিল্পপার্কসহ বিভিন্ন স্থাপনা গড়ে তোলা সম্ভব হবে। এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হলে দেশের অর্থনৈতিক ভিত্তি মজবুতসহ ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করবে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে শহরের মোল্লাবাড়ি এলাকায় অবস্থিত ক্ষতিগ্রস্ত ক্রসবার এলাকা পরিদর্শনকালে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। পরে মন্ত্রী ক্রসবার ১ ও ২ সহ সিরাজগঞ্জ শহর রক্ষা বাঁধ পরিদর্শন করেন। এ সময় পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম (বীর প্রতীক), সিরাজগঞ্জ-২ আসনের এমপি ডা. হাবিবে মিল্লাত মুন্না, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব জাফর আহম্মেদ, পাউবো মহাপরিচালক শহিদুর রহমান, উপ-পরিচালক আফজাল হোসেন, ক্যাপিটাল ড্রেজিং প্রকল্পের পরিচালক মোয়াজ্জেম হোসেন, ট্রাসফোর্স প্রধান তোফায়েল আহম্মেদ, জেলা প্রশাসক বিল্লাল হোসেন, পুলিশ সুপার এসএম এমরান হোসেন ও স্থানীয় পাউবো\'র নির্বাহী প্রকৌশলী বাবুল চন্দ্র শীল সহ আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সকালে মন্ত্রী হেলিকপ্টারযোগে ঢাকা থেকে সিরাজগঞ্জ আসেন।
সাম্যের কবি নজরুলের ৩৮তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ
\'গাহি সাম্যের গান, মানুষের চেয়ে নহে কিছু বড়, নহে কিছু মহীয়ান।\' আজ বুধবার ১২ ভাদ্র। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ৩৮তম মৃত্যুবার্ষিকী। ১৯৭৬ সালের আজকের দিনে কবি নজরুল ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। কবিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয়। বাংলা সাহিত্যে বিদ্রোহী কবি হিসেবে পরিচিত হলেও কাজী নজরুল ইসলাম ছিলেন একাধারে কবি, সংগীতজ্ঞ, ঔপন্যাসিক, গল্পকার, নাট্যকার, প্রাবন্ধিক, সাংবাদিক, চলচিচত্রকার, গায়ক ও অভিনেতা। তিনি বৈচিত্র্যময় অসংখ্য রাগ-রাগিনী সৃষ্টি করে বাংলা সঙ্গীত জগতকে মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করেছেন। প্রেম, দ্রোহ, সাম্যবাদ ও জাগরণের কবি কাজী নজরুল ইসলামের কবিতা ও গান শোষণ ও বঞ্চনার বিরুদ্ধে সংগ্রামে জাতিকে উদ্বুদ্ধ করেছে। মুক্তিযুদ্ধে তাঁর গান ও কবিতা ছিল প্রেরণার উৎস। নজরুলের কবিতা, গান ও সাহিত্য কর্ম বাংলা সাহিত্যে নবজাগরণ সৃষ্টি করেছিল। তিনি ছিলেন অসামপ্রদায়িক চেতনার পথিকৃৎ লেখক। তাঁর লেখনি জাতীয় জীবনে অসামপ্রদায়িক চেতনা বিকাশে ব্যাপক ভূমিকা পালন করে। তাঁর কবিতা ও গান মানুষকে যুগে যুগে শোষণ ও বঞ্চনা থেকে মুক্তির পথ দেখিয়ে চলছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর পরই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামকে স্বপরিবারে সদ্যস্বাধীন বাংলাদেশে নিয়ে আসেন। রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বাংলাদেশে তাঁর বসবাসের ব্যবস্থা করেন। ধানমন্ডিতে কবির জন্য একটি বাড়ি প্রদান করেন। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম ১৩০৬ সালের ১১ জ্যৈষ্ঠ পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার চুরুলিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর ডাক নাম দুখু মিয়া পিতার নাম কাজী ফকির আহমেদ ও মাতা জাহেদা খাতুন। জাতীয় কবির মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও পেশাজীবী সংগঠন ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। বাংলাদেশ বেতার, টেলিভিশন ও বিভিন্ন বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেল কবির মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচারের উদ্যোগ নিয়েছে। জাতীয় দৈনিক পত্রিকাগুলো বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করেছে। ঢাবির কর্মসূচি জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ৩৮তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আজ বুধবার বাদ ফজর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে কোরানখানি অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া সকাল ৭টায় অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীগণের জমায়েত। সকাল ৭টা ১৫ মিনিটে উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকের নেতৃত্বে শোভাযাত্রা সহকারে কবির মাজারে গমন, পুষ্প অর্পণ। পরে কবির মাজার প্রাঙ্গণে উপাচার্যের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। আওয়ামী লীগের কর্মসূচি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ সকাল ৮টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদ প্রাঙ্গণে কবির সমাধিসৌধে পুষ্পার্ঘ্য নিবেদন, ফাতেহা পাঠ ও দোয়া করবেন। গতকাল মঙ্গলবার এক বিজ্ঞপ্তিতে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম জাতীয় কবির মৃত্যুবার্ষিকীতে এ কর্মসূচিতে উপস্থিত থাকার জন্য আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ, সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের সকল স্তরের নেতা-কর্মী, সমর্থক ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। বিশ্ব কবিতাকণ্ঠ পরিষদ: সকাল ৭টায় কবির মাজারে পুষ্পমাল্য অর্পণ ও রুহের মাগফেরাত কামনাসহ মোনাজাত। সকাল ১১টায় তোপখানা রোডস্থ মাহবুব প্লাজায় তাঁর জীবনীর উপর সংগঠনের সভাপতি কবি জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। ময়মনসিংহ: জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ৩৮তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ময়মনসিংহের ত্রিশালে প্রতিষ্ঠিত কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে আজ বাদ জোহর বিশ্ববিদ্যালয়ের মসজিদে মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। বিকেল ৪টায় জাতীয় কবির প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হবে। বিকেল সাড়ে ৪টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের \'গাহি সাম্যের গান\' মঞ্চে কবির জীবন ও কাজের উপর একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখবেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহীত উল আলম। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কর্মকর্তাদের আয়োজনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে বলেও জানান তিনি। কুমিল্লা: কবির ৩৮তম মৃৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে তাঁর স্মৃতিজড়িত কুমিল্লায় নজরুল পরিষদে উদ্যোগে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে। আজ সকাল ৯টায় নজরুল ইসলাম ইনস্টিটিউট কুমিল্লা কেন্দ্রে নজরুল প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও দোয়া মাহফিল, সকারে ১০টায় চেতনায় নজরুল স্মৃতিস্তম্ভে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ, জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে কবিতা কুইজ ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা (নজরুল ভিত্তিক প্রতিতিযোগিতায় প্রথম শ্রেণী হতে দশম শ্রেণী পর্যন্ত ছাত্র-ছাত্রী ৪টি গ্রুপে অংশগ্রহণ করবে) অনুষ্ঠিত হবে। সন্ধ্যা ৬টায় টাউন হলে আলোচনাসভা পুরস্কার বিতরণ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং জেলায় শিল্পকলা একাডেমির শিল্পীদের পরিবেশনায় নাটক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। বাংলা একাডেমী এ দিকে কবির মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলা একাডেমী গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে একাডেমীর কবি শামসুর রহমান মিলনায়তণে প্রবন্ধ পাঠ, বক্তৃতা ও সংস্কৃতি অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান। \'নজরুলকে আমরা যতটুকু জানি\' শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অধ্যাপক আহমাদ মোস্তফা কামাল। নজরুল বিষয়ক বক্তৃতা করেন বিশিষ্ট নজরুল গবেষক, এমেরিটাস অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম। সভাপতিত্ব করেন বাংলা একাডেমির সভাপতি এমেরিটাস অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে ছিল সাংস্কৃতিক পরিবেশনা এছাড়া সকাল ৭টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়স্থ জাতীয় কবির সমাধিতে বাংলা একাডেমির পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।
চলনবিলকে বদলে দিচ্ছে একটি মহাসড়ক!
এক সময়ের অবহেলিত-পশ্চাৎপদ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন চলনবিলকে বদলে দিচ্ছে একটি মহাসড়ক। দিনকে দিন পরিবর্তন এনে দিচ্ছে এ অঞ্চলের ২০ লাখ মানুষের যাপিত-জীবনে। আর সেই সড়কটি হচ্ছে হাটিকুমরুল-বনপাড়া মহাসড়ক। শুধুমাত্র একটি সড়ক আধুনিকতার ছোঁয়া এনে দিয়েছে চলনবিলের অবহেলিত শতশত গ্রাম-গহিনের জনপদে। এ অঞ্চলে শিক্ষা, কৃষি, শিল্প, ব্যবসা-বাণিজ্য, আর্থ-সামাজিক অবস্থায় এক অভাবনীয় উন্নয়ন ও আমূল পরিবর্তন ঘটিয়ে চলেছে এই সড়ক, যা এই চলনবিলের কেউ কখনো কল্পনাও করতে পারেনি। পাবনা, নাটোর ও সিরাজগঞ্জের ৯টি উপজেলা নিয়ে চলনবিল অঞ্চল গঠিত। সড়কটি নির্মাণের ফলে ৬টি উপজেলার লাখ লাখ মানুষের ভাগ্যের চাকা ঘুরে দাঁড়িয়েছে। অনুসন্ধানে জানা যায়, তৎকালীন ব্রিটিশ সরকার ১৯১৪ সালে চলনবিলের বুক চিরে রেললাইন তৈরি করেছিল মৎস্যভান্ডার চলনবিলের মাছ ভারতে নেয়ার জন্য। সেটাই ছিল তৎকালীন সময়ের একমাত্র যোগাযোগের পথ। ভাঙ্গুড়া-চাটমোহর, বড়ালব্রিজ-মোহনপুর-শরৎগঞ্জসহ অনেক ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষের এই রেলপথটিই ছিল তখন যাতায়তের একমাত্র মাধ্যম। জনশ্রুতি আছে, এক সময় এ অঞ্চলের মানুষের জেলা শহরে যাতায়াত করতে নৌকায় দু\'দিন সময় লাগতো। আবার কাদা-পানি ভেঙে, গরুরগাড়ি চড়ে আসতে হতো তাদের তখনকার থানা সদরে। ব্রিটিশ সরকার এই অঞ্চলের নীলকুঠি স্থাপন করে ও তাদের চলাচলের সুবিধার কথা ভেবে রেললাইন তৈরি করে। ১৯৯৮ সালে বর্তমান সরকার বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতু নির্মাণের পরপরই মহাসড়কটি তৈরির উদ্যোগ নেয়। তৃতীয় সড়ক পুনর্বাসন ও রক্ষণাবেক্ষণ প্রকল্পাধীন নলকা হাটিকুমরুল-বনপাড়া মহাসড়ক (২৯ ডিসেম্বর, ১৯৯৮) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করেন। সড়কটি নির্মাণের ফলে রাজশাহীর সাথে সিরাজগঞ্জের মধ্যে ৩৫ কিলোমিটার দূরত্ব কমে যায়। সড়কটি নাটোরের বনপাড়া হয়ে সিংড়া, গুরুদাসপুর, সিরাজগঞ্জের তাড়াশ, উল্লাপাড়া উপজেলা ও পাবনার চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া উপজেলা ছুঁয়ে চলনবিলের বুক চিরে সলঙ্গা হাটিকুমরুল মোড়ে নগরবাড়ি, বগুড়া ও ঢাকা মহাসড়কে এসে মিলিত হয়েছে। মহাসড়কটি নির্মিত হওয়ায় আজ চলনবিল অঞ্চলের আর্থ-সামাজিক পরিবর্তন ঘটেছে। যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে দেশের বিভিন্ন জেলায় এ অঞ্চলের মানুষের সাথে আত্মীয়তার সম্পর্ক তৈরি হচ্ছে। কথিত আছে এই যোগাযোগ ব্যবস্থা দুরূহ থাকায় চলনবিলের গ্রাম-গহিনের মেয়েদের সাথে অন্য এলাকার অভিভাবকরা ছেলেদের বিয়ে দিতেন না। শস্য ও মৎস্যভান্ডার খ্যাত চলনবিলের মিঠাপানির সুস্বাদু বিপুল পরিমাণ মাছ ও ধান এক সময় দেশের কোথাও সরবরাহ করা যেত না। এতে করে এ এলাকার কৃষক ও মৎস্যজীবী সমপ্রদায় উৎপাদিত ফসল ও মাছের ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হত। এখন আর সেইদিন নেই। সড়কটির তাড়াশ-চাটমোহর সীমানার মহিষলুটি, মান্নান নগর, দবিরগঞ্জসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে মৎস্য আড়ত গড়ে উঠেছে। এ সকল আড়ত থেকে ঢাকা, পাবনা, বগুড়া, সিরাজগঞ্জসহ দেশের সর্বত্র মৎস্য ব্যবসায়ীরা মাছ নিয়ে হাট-বাজারে সরবরাহ করছে। শুধুমাত্র মৎস্য চাষ করেই বছরে শতশত কোটি টাকা আয় করছে। একইভাবে ধান, পাট, গম, শীতকালীন সবজিসহ বিভিন্ন ফসল সরবরাহের মাধ্যমে একদিকে যেমন আশপাশের কয়েকটি জেলার চাহিদা পূরণ হচ্ছে, অপরদিকে এখানকার কৃষকরা পাচ্ছে ন্যায্যমূল্য। এতে করে এ এলাকার কৃষক, শ্রমিক দিনমজুরদের অর্থনৈতিক অবস্থার আমূল পরিবর্তন ঘটেছে ইতোমধ্যেই। বিগত প্রায় ১৬ বছরে এই মহাসড়ককে কেন্দ্র করে ছোট ছোট অসংখ্য পাকা সংযোগ সড়ক তৈরি হয়েছে। বিভিন্ন উপজেলা, ইউনিয়ন এমনকি গ্রাম পর্যায়ের সংযোগ সড়কও পাকা হয়েছে। এই মহাসড়ক তৈরি হওয়ায় গ্রামীণ অর্থনীতিতে প্রাণ সঞ্চারিত হয়েছে। শিক্ষা ক্ষেত্রেও ঘটেছে এক বৈপ্লবিক পরিবর্তন। লেখাপড়ার হার দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। গড়ে উঠেছে শতশত সরকারি ও বেসরকারি স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসা। তাছাড়াও ছেলে মেয়েরা এখন ঢাকা-পাবনা নাটোর রাজশাহী-সিরাজগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে লেখাপড়া করছে অনায়াসে। চাটমোহর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাসাদুল ইসলাম হীরার কাছে জানতে চাইলে তার কষ্টকর স্মৃতির কথা উল্লেখ করে বলেন, \'সিরাজগঞ্জে হয়ে শুধু ঢাকা যেতেই আমাদের দুই দিন সময় লেগেছে। আর এখন একদিনেই ঢাকায় গিয়ে ঘুরে আসা যায়। চলনবিলের মানুষ এখন নিজেদের দিন বদলে শুধু সামনের দিকেই এগিয়ে যাচ্ছে। হান্ডিয়াল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম মাস্টার জানান, বর্ষা মৌসুমে কখনো বা নৌকায়, কখনোবা কাদা-পানি মাড়িয়ে ১৮ কিলোমিটার পথ বহুকষ্টে পাড়ি দিয়ে বড়াল ব্রিজ স্টেশন থেকে ট্রেনে চরে সিরাজগঞ্জ শহরে যেতে হত। তিনি জানান, এমন যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দুর্গম এলাকায় কোন বন্ধু পর্যন্ত বেড়াতে আসতো না। যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের সাথে এখন দেশ বিদেশের পর্যটক এবং বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রীরা এ অঞ্চলকে পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে উপভোগ করতে আসে। শুধু তাই নয় শুনছি চলনবিলের মাঝখানে সেনানিবাস নির্মাণ হবে। যোগাযোগ ব্যবস্থার আধুনিক উন্নয়ন কলাকৌশল নিয়ে কাজ করা স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান কার্যালয় ঢাকায় কর্মরত মুক্তিযুদ্ধের ভাস্কর্য নির্মাণ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক চাটমোহরের বাসিন্দা মমিন মুজিবুল হক টুটুল সমাজী বলেন, একটি এলাকার আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের পূর্বশর্তই হলো-আধুনিক যোগাযোগ অবকাঠামো। সেই দিক দিয়ে এই সড়কটি নির্মাণ করে বর্তমান সরকার একটি যুগান্তকারী কাজ করেছে। যার সুফল আমরা পেতে শুরু করেছি। ভবিষ্যতে চলনবিল এলাকায় আরও উন্নয়ন ঘটবে এই সড়ককে কেন্দ্র করে। সে কথা আমি স্পষ্ট করে বলতে পারি। তিনি উদাহরণ এনে বলেন, এক সময় বহু চেষ্টা করেও আমার এলাকা সমাজের সাথে কানেক্টিং সড়ক নির্মাণের প্রকল্প নিতে পরিনি। অথচ সবাই জানে মহাসড়ক নির্মাণের পর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন আমার গ্রাম সমাজের সাথে পাকা সড়ক নির্মিত হয়েছে। এটা ওই সড়ক হওয়ার ফলেই সম্ভব হয়েছে।
আওয়ামী লীগ লুটপাটের বিচার থেকে রক্ষা পেতেই অভিশংসন আইন করছে নজরুল ইসলাম খান
বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, আওয়ামীলীগ জনগণের উপর যে জুলুম, নির্যাতন, অত্যাচার এবং জাতীয় সম্পদের লুটপাট করেছে তার বিচার থেকে রক্ষা পেতেই বিচারপতি নিয়োগ ও চাকুরীচ্যুতি সংসদ সদস্যদের কাছে ফিরিয়ে নিতে অর্থাৎ নিজেদের হাতে নেয়ার চেষ্টা করছে। এর ফলে বিচারবিভাগ স্বাধীনভাবে বিচার করতে পারবে না। ১৯৭৫ সালে মাত্র কয়েক মিনিটে সংসদে একদলীয় সরকার ব্যবস্থা বাকশাল কায়েমের পর তাদের নেতা শেখ মুজিব এই ক্ষমতা নিজের হাতে নিয়েছিলেন। এরপর স্বাধীনতার ঘোষক জিয়াউর রহমান এই ব্যবস্থা বিচার বিভাগের কাছে ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। তিনি সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল গঠন করে ছিলেন। অবৈধ সংসদ ও সরকারের কাছে এ ক্ষমতা ফিরিয়ে দেয়ার অর্থ হলো স্বাধীন বিচার বিভাগের বিরুদ্ধে কাজ করা। তিনি এ ব্যবস্থার বিরুদ্ধে গণআন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানান। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে শহরের নবাববাড়ী সড়কে জেলা ২০ দলীয় জোটের বিক্ষোভ মিছিলের আগে বিশাল সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। জেলা ২০ দলীয় জোটের আহবায়ক ও বিএনপির সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা জাগপার সভাপতি আমির হোসেন মন্ডল, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন চাঁন, ইসলামী ঐক্যজোটের সভাপতি শামছুল হক, জেলা জামায়াত নেতা অধ্যাপক আব্দুল মতিন, এলডিপির সাধারণ সম্পাদক নাজির হোসেন, জাগপার মোখলেছুর রহমান, বিএনপি নেতা মাহবুবর রহমান বকুল, লাভলী রহমান, হামিদুল হক চৌধুরী হিরু, মাফতুন আহমেদ খান রুবেল, জামায়াত নেতা অধ্যাপক রফিকুল আলম, বিএনপি নেতা পরিমল চন্দ্র দাস, তাহা উদ্দিন নাহিন, সিপার আল বখতিয়ার, শাহ মো: মেহেদী হাসান হিমু, খাদেমুল ইসলাম খাদেম, নাজমা আকতার, জাহাঙ্গীর আলম, শাহাবুল আলম পিপলু, হাসানুজ্জামান পলাশ, প্রমুখ।
ফুলবাড়ী দিবস পালিত
ফুলবাড়ী দিবস পালন উপলক্ষে সম্মিলিত পেশাজীবী সংগঠনের উদ্যোগে গতকাল সকালে ফুলবাড়ী থানা ব্যবসায়ী সমিতি কার্যালয় থেকে শোকর‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি পৌর শহর প্রদক্ষিণ করে ২৬ আগস্ট শহীদদের স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। শহীদ বেদীতে দাঁড়িয়ে পৌর মেয়র মানিক সরকার ফুলবাড়ীবাসীর সঙ্গে সম্পাদিত ৬ দফা চুক্তি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়া শপথ বাক্য পাঠ করান। এরপর উর্বশী সিমায়ের সামনে শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ফুলবাড়ী থানা ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি নওশাদ আলম মুন্না\'র সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন সম্মিলিত পেশাজীবী সংগঠনের আহ্বায়ক ও পৌর মেয়র মুরতুর্জা সরকার মানিক, সদস্য সচিব সাংবাদিক শেখ সাবীর আলী, তৃণমূল চিকিৎসক সমিতির আহ্বায়ক মকলেছুর রহমান, দোকান কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি গোলাফ্ফর হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন, ফুলবাড়ী ইলেকট্রিক অ্যাসেসিয়েশন সমিতি সভাপতি আবু সাইদ প্রমুখ। অপরদিকে ফুলবাড়ী দিবস পালন উপলক্ষে গতকাল পৃথক ভাবে কর্মসূচি পালন করে তেলা, গ্যাস, খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দররক্ষা কমিটি। দিবসটি পালন উপলক্ষে স্থানীয় নিমতলা মোড় হতে র‌্যালি বের হয়। পরে শহীদের স্মৃতি স্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এরপর অনুষ্ঠিত শোকসভায় সংগঠনের ফুলবাড়ী শাখা আহ্বায়ক সৈয়দ সাইফুল ইসলামের জুয়েল এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন তেল, গ্যাস, খনিজসম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দররক্ষা জাতীয় কমিটির কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক প্রকৌশলী শেখ মোহাম্মদ শহীদুল্ল্যা, সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মোহাম্মদ, কেন্দ্রীয় কমিটি সদস্য ও ওয়ার্কার্স পাটির সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি, কেন্দ্র্রীয় নেতা ইয়াসিন আলী এমপি, কেন্দ্রীয় নেতা ও গণফ্রন্ট এর সমম্ময়ক টিপু বিশ্বাস, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক যোনায়েদ সাকী, কমিউনিস্ট পাটির সহসাধারণ সম্পাদক শাহ আলম, বাসদ এর কেন্দ্রীয় নেতা সুভ্রাংশু চক্রবর্তী, ইউনাইডেট কমিউনিস্ট লীগ এর কেন্দ্রীয় নেতা নজরুল ইসলাম, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম বাবলু প্রমুখ।
 
 
 
ওরিয়েন্টাল ব্যাংকের দুর্নীতির মামলায় ৭ জনের কারাদন্ড
স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস :
দুর্নীতি মামলায় সাবেক ওরিয়েন্টাল ব্যাংকের(বর্তমান আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক) ৬ কর্মকর্তাসহ মোট ৭ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছেন ঢাকার আদালত। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকার ৪ নম্বর বিশেষ জজ আমিনুল ইসলাম এ দন্ডাদেশ প্রদাশ করেন। ওরিয়েন্টাল ব্যাংকের ৬ কর্মকর্তা হলেন- সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট শাহ মোহাম্মদ হারুন, সিনিয়র অ্যাসিসটেন্ট... বিস্তারিত
 
ভারতীয় টিভি চ্যানেল সমপ্রচার বন্ধ চেয়ে করা রিট খারিজ
স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস :
বাংলাদেশে ভারতীয় টিভি চ্যানেলের সমপ্রচার বন্ধ চেয়ে করা রিট খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। গতকাল মঙ্গলবার বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি আবু তাহের মোহাম্মদ সাইফুর রহমানের অবকাশকালীন বেঞ্চ উত্থাপিত হয়নি মর্মে রিটটি খারিজ করে দেন। এ সমপ্রচার বন্ধ চেয়ে করা রিট আবেদনটির প্রাথমিক শুনানি নিয়ে... বিস্তারিত
 
 
 
ভিডিও
রাশিচক্র আজ ঢাকায় আজ বগুড়ায়
 
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের চরমপন্থিরা আত্মসমর্পণের আহ্বানে সাড়া দেবে বলে মনে করেন কি?
হ্যাঁ
উত্তর নেই
না
 
 
 
আজকের ভিউ
নামাজের সময়সূচী
ওয়াক্ত
সময়
ফজর
03:50
জোহর
12:7
আছর
04:42
মাগরিব
06:54
এশা
08:20
 
 

সম্পাদকঃ মোজাম্মেল হক, সম্পাদক কর্তৃক ন্যাশনাল প্রিন্টিং প্রেস, শিল্পনগরী বিসিক বগুড়া এবং ১৬৭ ইনার সার্কুলার রোড, (আরামবাগ) ইডেন কমপ্লেক্স, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও চকযাদু রোড, বগুড়া হতে প্রকাশিত।
ফোন ৬৩৬৬০,৬৫০৮০, সার্কুলেশন বিভাগঃ ০১৭১৩২২৮৪৬৬, বিজ্ঞাপন বিভাগঃ ৬৩৩৯০, ফ্যাক্সঃ ৬০৪২২। ঢাকা অফিসঃ স্বজন টাওয়ার, ৪ সেগুন বাগিচা। ফোনঃ ৭১৬১৪০৬, ৯৫৬০৬৬৯, ৯৫৬৮৮৪৬, ফ্যাক্সঃ ৯৫৬৮৫২২ E-mail : dkaratoa@yahoo.com . . . .

Powered By: