বগুড়া শনিবার | ২০ আষাঢ় ১৪২২ | ১৬ রমজান ১৪৩৬ হিজরি | ৪ জুলাই ২০১৫
ব্রেকিং নিউজ
আর্কাইভ
দিন :
মাস :
সাল :
এই সংখ্যার পাঠক
১৪১৮৮৭
সার্চ
ফেলানী হত্যার পুনঃবিচার
বিএসএফ সদস্য খালাস রায় প্রত্যাখ্যান বাবার
নাগেশ্বরী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি :
আমার মেয়ে হত্যার ন্যায় বিচার তারা দিল না। এখন মনে হচ্ছে আত্মস্বীকৃত খুনি অমিয় ঘোষকে বাঁচাতে তারা এ প্রহসনের বিচার বসিয়েছে। এ জন্যই তারা বার বার বিচার কার্যক্রম শুরু করে বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে কয়েকদিন পরই তা স্থগিত করেছে। এবারও তারা তাদের আদালতে অমিয় ঘোষকে বেকসুর খালাস দিল। কিন্তু আল্লাহর দরবারে... বিস্তারিত
কাঁটাতারের বেড়ায় ফেলানির ঝুলন্ত লাশ -ফাইলছবি
নির্বাচিত সংবাদ
দুপচাঁচিয়ায় টেইলার্সগুলো শেষ মুহূর্তে মহাব্যস্ত
বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলায় মুসলমানদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে দর্জিরা শেষ মুহূর্তে ব্যস্ত সময় পার করছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে অর্ডার নেয়া কাপড়গুলো সরবরাহ করতে কাটার মাস্টার ও দর্জিদের কাটছে নির্ঘুম রাত। বগুড়ার পশ্চিমাঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ ব্যবসায়িক এলাকা হিসেবে দুপচাঁচিয়া উপজেলার পরিচিতি বিস্তৃত। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো হওয়ায় জেলা শহরের সাথে পাল্লা দিয়ে এই উপজেলায় বেশ কিছু নামি-দামি টেইলার্স প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা সদরে সিও অফিস এলাকা, বন্দর তে মাথা, শহরতলা, পুরাতন বাজার, থানা বাসস্ট্যান্ড, মেইল বাসস্ট্যান্ড এলাকায় উল্লেখযোগ্য লিড টেইলার্স, সেঞ্চুরী টেইলার্স, মোমিন টেইলার্স, সানমুন টেইলার্স, লড টেইলার্স, প্যারিস টেইলার্স, রিক্তা টেইলার্স, রফিক টেইলার্স, এম রহমান টেইলার্স, মুন টেইলার্স, সিটিহার্ট টেইলার্সসহ প্রায় শতাধিক টেইলার্স গড়ে উঠেছে। এবার রোজার শুরু থেকেই উপজেলার টেইলার্সগুলোতে ছেলেদের শার্ট, প্যান্ট, পাঞ্জাবি, পায়জামা আর মেয়েদের থ্রি পিস, বস্নাউজ পেটিকোট, বোরকা তৈরির অর্ডার আসতে থাকে। ১০ রোজার পর থেকে অর্ডারের চাপ বাড়তে থাকে। এবার টেইলার্স মালিকরা সেলাই মজুরি বৃদ্ধি করেছে। এ ব্যাপারে লিড টেইলার্সের মালিক মনছুর আলী, মোমিন টেইলার্স এন্ড ক্লথ স্টোরের মালিক মিজানুর রহমান মিজান জানান, কারিগরদের (দর্জির) মজুরি, দোকান ভাড়া, সুতার দাম বৃদ্ধিসহ বিদ্যুৎ ও জেনারেটারে জ্বালানি খরচ বেড়ে যাওয়ায় মজুরি কিছুটা বাড়ানো হয়েছে। এক্ষেত্রে প্যান্ট ৩০০ টাকা থেকে ৩৫০ টাকা, পাঞ্জাবি ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকা, শার্ট ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা, মেয়েদের লেহিঙ্গা ৫০০ টাকা, থ্রি পিস ২০০ থেকে ২৫০ টাকা, পায়জামা ১০০ থেকে ১৮০ টাকা মজুরি নেয়া হচ্ছে। গতকাল সপ্তাহের ছুটির দিন শুক্রবার উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, এসব এলাকার টেইলার্সের কাটিং মাস্টাররা গলায় ফিতা ঝুলিয়ে কেচি হাতে কাপড় কাটছে তো কাটছেই। যেন দম ফেলারও সময় নেই। আর পিছনে দর্জিরা পোশাক সেলাইয়ে ব্যস্ত। সহস্রাধিক কারিগর (দর্জি) সেহরির খাওয়ার পর থেকে কাপড় সেলাই করছে তো করছেই। তাদের মেশিনের খট খট শব্দে এলাকা মুখরিত হয়ে থাকছে। এ ব্যাপারে কাটার মাস্টার আব্দুল মান্নান, লুৎফর রহমান ও কারিগর আব্দুল জলিল, মানিক মিয়া, আবুল হোসেন জানান, সারা বছর খুব একটা কাজ কাম হয় না। এই রমজান মাসেই একটু কাজ হয়। অনেক কারিগরই এই রমজান মাসের জন্য অপেক্ষায় থাকে। আর তাই কিছু টাকা বেশি আয় করতেই একটু বেশি পরিশ্রম করছে। যত পরিশ্রম করবে তত আয় হবে এই আশায় অনেক কারিগরই অর্ডার নেয়া কাপড়গুলো নির্ধারিত সময়ে টেইলার্স মালিকের কাছে সরবরাহ করতে নির্ঘুম রাতও পার করছে।
এসএসসিতে কৃতি শিল্পীদের আমরা ক'জনের সংবর্ধনা
আমরা ক\'জন শিল্পী গোষ্ঠির উদ্যোগে গতকাল সকালে সংগঠনের অস্থায়ী কার্যালয়ে এসএসসি তে জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিল্পীদের সংবর্ধনা দেয়া হয়। আব্দুস সামাদ পলাশের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ কর্পোরেশনের পরিচালক শুভাশীষ পোদ্দার লিটন। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নজরুল পরিষদের সাধারণ সম্পাদক হাকিম মজিদ মিয়া। সংবর্ধিতদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মৃত্তিকা মোস্তফা জীম, সুরাইয়া মোস্তারী অন্তি, মোঃ জিহাদুল ইসলাম জিতু, তাসনিম ত্রয়ী এবং স্বপ্নীল প্যাট্রিক রোজারিও। অভিভাবকের মধ্যে বক্তব্য রাখেন স্বপ্না রহমান, আরেফা খাতুন, রুমা রোজারিও। আরও বক্তব্য রাখেন নৃত্য শিল্পী নেকনূর খাতুন আনিকা ও শামিল রহমান। সমগ্র অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন লায়ন আব্দুল মোবিন জিন্নাহ। খবর বিজ্ঞপ্তির।
সোনাতলায় মহিলা আওয়ামী লীগের সংগঠনকে করতে হবে শক্তিশালী সাবেক এমপি শেফালী
বগুড়া জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও সাবেক সংসদ সদস্য খাদিজা খাতুন শেফালী বলেছেন, আগামী দিনে সোনাতলায় মহিলা আওয়ামী লীগের সংগঠন আরও শক্তিশালী করতে হবে। নেতৃত্বে এগিয়ে আসতে হবে মহিলাদের। তিনি গতকাল শুক্রবার বগুড়ার সোনাতলা পৌর অডিটোরিয়ামে উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জান্নাতুল ফেরদৗসি রুম্পার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদিকা সুরাইয়া লিগার সুলতানা ডরোথী, সোনাতলা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জিয়াউল করিম শ্যাম্পু, সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী সাহাদারা মান্নান, সোনাতলা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ এড. মিনহাদুজ্জামান লিটন, অধ্যক্ষ আব্দুল মালেক, নবীন আনোয়ার কমরেড, শহিদুল বারী খান রব্বানী, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহজাহান আলী খন্দকার, সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান রানা, শাহনেওয়াজ তালুকদার বাবু, ফিদা হাসান খান টিটো, মানিক সরকার, আলী আজম প্রমুখ।
বগুড়ায় হঠাৎ বেড়েছে মরিচের দাম
মরিচ উৎপাদনের জেলা বগুড়ায় হঠাৎ করে কাঁচা মরিচের ঝাল বেড়ে গেছে। গত দ\'ুদিন আগে কাঁচা মরিচের দাম ছিল ৬০ টাকা কেজি। গতকাল বাজারে কাঁচা মরিচ বিক্রি হয়েছে ১০০ টাকা থেকে ১২০ টাকা। গতকাল দুপুরের মধ্যে বগুড়ার বাজার থেকে গাঢ় সবুজ ধরনের যার নাম দেয়া হয়েছে \'বিন্দি\' তা বাজার থেকে উধাও হয়ে গেছে এমনটি জানালেন খুচরা ব্যবসায়ীরা। তারা আরও জানালেন বগুড়ার কৃষকদের পাইকারি বাজার অথবা হাটে কাঁচা মরিচ নিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে উধাও হয়ে যাচ্ছে। খুচরা বিক্রেতারা জানান, ঢাকার ব্যবসায়ীরা পাইকারি বাজার অথবা হাট থেকে মরিচ চিলের মত ছোঁ দিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। দামের কথাও জিজ্ঞাসা করছে না। তাদের সাথে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা ক্রয় প্রতিযোগিতায় পেরে উঠতে পারছে না। দু\'দিনের ব্যবধানে কেন এতো দাম বাড়ল এর উত্তরে বগুড়া জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক চন্ডি দাস কুন্ডু জানান, এটা মরিচের মৌসুম নয় । এবার মার্চ পর্যন্ত ৪৮৩ হেক্টর জমিতে মরিচ চাষ হয়েছিল। কিন্তু এখন মাত্র ১শ\' থেকে দেড়শ\' হেক্টর জমিতে কাঁচা মরিচ হচ্ছে। তা ছাড়া গত কয়েকদিনের অবিরাম বর্ষণে মরিচের গাছ নষ্ট হয়েছে। বাজারে সরবরাহ কমে গেছে। এ দিকে গতকাল বগুড়ার পাইকারি বাজার ঘুরে দেখা গেছে বিন্দি মরিচ ৭০ টাকা কেজি এবং দেশী কাঁচা মরিচ ৮০ টাকা কেজি। খুচরা ব্যবসায়ীরা তাদের ইচ্ছা মত দাম বাড়িয়ে দিলেও তাদের নিয়ন্ত্রন করার মত কেউ নাই। রমজানে বাজার মনিটরিং করার জন্য টাস্কফোর্স গঠন করা হলেও তার শতভাগ প্রয়োগ না থাকায় কাঁচা মরিচসহ কয়েকটি নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে খুচরা বিক্রেতারা।
বিএসএফ সদস্য খালাস রায় প্রত্যাখ্যান বাবার
আমার মেয়ে হত্যার ন্যায় বিচার তারা দিল না। এখন মনে হচ্ছে আত্মস্বীকৃত খুনি অমিয় ঘোষকে বাঁচাতে তারা এ প্রহসনের বিচার বসিয়েছে। এ জন্যই তারা বার বার বিচার কার্যক্রম শুরু করে বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে কয়েকদিন পরই তা স্থগিত করেছে। এবারও তারা তাদের আদালতে অমিয় ঘোষকে বেকসুর খালাস দিল। কিন্তু আল্লাহর দরবারে একদিন এর বিচার হবেই। গতকাল শুক্রবার বিভিন্ন মিডিয়ায় ফেলানী হত্যা মামলার আসামি আত্মস্বীকৃত খুনি চৌধুরীহাট বিএসএফ ক্যাম্পের সদস্য অমিয় ঘোষের বেকসুর খালাসের খবর শুনে ক্ষোভ ও হতাশায় নিজ বাড়িতে এ কথাই বলেন ফেলানীর বাবা নূর ইসলাম। কান্না জড়িত কন্ঠে মা জাহানারা বেগম বলেন, মানুষের আদালতে দেয়া ফেলানী হত্যা মামলার বিচারের এ রায় আমারা মানি না। আবুল হোসেন, জাবেদ আলী, মালেক হোসেনসহ প্রতিবেশীরা বলেন, খুনি তার দোষ স্বীকার করার পরও খুনিকে যদি খালাসই দেয়া হয় তাহলে এ বিচার কি তবে লোক দেখানো? ফেলানীর বাবা মার সাথে আমরাও এ বিচার মেনে নিতে পারিনি। পর পর তিনবার স্থগিতের পর গত ৩০ জুন মঙ্গলবার চতুর্থবারের মত ভারতের কোচবিহার জেলার বিএসএফ\'র ১৮১ সদর দপ্তরে স্থাপিত জেনারেল সিকিউরিটি ফোর্সেস কোর্টে এ মামলার পুনঃবিচার কার্যক্রম শুরু হয়। আসাম ফ্রন্টিয়ারের ডিআইজি (কমিউনিকেশনস) সিপি ত্রিবেদীর নেতৃত্বে ৫ সদস্যের বিচারক বেঞ্চ শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার রাতে অমিয় ঘোষকে নির্দোষ ঘোষণা করে বেকসুর খালাসের রায় দেন। এর আগে ২০১৩ সালের ৫ সেপ্টেম্বর এই আদালত একই রায় দিয়েছিলেন। উল্লেখ্য, ২০১১ সালের ৭ জানুয়ারি ফুলবাড়ী উপজেলার উত্তর অনন্তপুর সীমান্তে ৯৪৭নং আন্তর্জাতিক পিলার ৩নং সাব পিলারের পাশ দিয়ে মই বেয়ে কাঁটাতার ডিঙ্গিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশের সময় টহলরত চৌধুরীহাট ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষ কিশোরী ফেলানীকে গুলি করে হত্যা করে। বাংলাদেশ সরকার ও মানবাধিকার সংস্থাগুলো এ ব্যাপারে সোচ্চার হয়ে উঠলে ২০১৩ সালের ১৩ আগস্ট ওই কোর্টে ফেলানী হত্যা মামলার বিচার কাজ শুরু হয়। সাক্ষী দিতে এদেশ থেকে ফেলানীর বাবা নূর ইসলাম, মামা আ. হানিফ ১৮ আগস্ট লালমনিহাটের বুড়িমারী সীমান্ত দিয়ে ভারতের কুচবিহারে যান। ১৯ আগস্ট তারা ওই কোর্টে সাক্ষী দেন। আসাম ফ্রন্টিয়ারের ডিআইজি (কমিউনিকেশনস) সিপি ত্রিবেদীর নেতৃত্বে ৫ সদস্যের বিচারক বেঞ্চ কঠোর গোপনীয়তায় এ বিচার পরিচালনা শেষে ৫ সেপ্টেম্বর অভিযুক্ত চৌধুরীহাট ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষকে নির্দোষ ঘোষণা করে মামলা থেকে অব্যাহতি দেন। রায় প্রত্যাখ্যান করে ১১ সেপ্টেম্বর ফেলানীর বাবা ভারতীয় হাইকমিশনের মাধ্যমে সে দেশের সরকারকে ন্যায় বিচারের আশায় পত্র দেন। গত বছরের ২২ সেপ্টেম্বর পুনঃবিচার কার্যক্রম শুরু হলেও ২৬ সেপ্টেম্বর আকস্মিকভাবে আদালত মুলতবি করা হয়। আবারো ১৭ নভেম্বর পুনঃবিচারের কার্যক্রম শুরু হলে বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষ হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ায় ২২ নভেম্বর তা স্থগিত করা হয়। এ বছরের ২৫ মার্চ পুনঃবিচার কার্যক্রম শুরুর কথা থাকলেও বিএসএফ এর সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর অসুস্থ থাকায় তা হয়নি। অবশেষে ওই আদালতে তা শুরু হয় গত ৩০ জুন মঙ্গলবার। ফেলানী হত্যা মামলার বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলের সদস্য মানবাধিকার কর্মী, কুড়িগ্রাম জেলা জর্জ কোর্ট পাবলিক প্রসিকিউটর এডভোকেট আব্রাহাম লিংকন বলেন, এটা খুনের বৈধতা দেয়া হল। এতে সীমান্তে বিএসএফ সদস্যরা আরও উৎসাহিত হলো নতুন নতুন খুনে।
ভোগান্তি আর অভিযোগ
স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস : রোজার ঈদ সামনে রেখে ঢাকা থেকে উত্তর ও দক্ষিণ জনপদের বিভিন্ন গন্তব্যে বাসের আগাম টিকেট বিক্রি শুরু হয়েছে প্রতিবারের মতোই বিড়ম্বনা আর বাড়তি ভাড়া আদায়ের অভিযোগের মধ্য দিয়ে। ভোর থেকে কঠিন সংগ্রাম করে যারা টিকেট পাচ্ছেন, তারা ঘরে ফিরছেন আনন্দ নিয়ে। আর যারা কাউন্টারে গিয়ে কাঙি্ক্ষত দিনের টিকেটের \'নেই\' শুনছেন, তাদের মুখে নামছে আঁধার। প্রতি ঈদেই বাসের আগাম টিকেট কিনতে সবচেয়ে বেশি ভিড় দেখা যায় গাবতলী বাস টার্মিনালে। শুক্রবার আগাম টিকেট বিক্রির প্রথম দিনও সেখানে দেখা গেল একই চিত্র। গাবতলী বালুরমাঠে হানিফ কাউন্টারের সামনে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়ানো কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেল, টিকেটের জন্য কাউন্টারের সামনে লোক আসা শুরু হয়েছে রাত আড়াইটা থেকে। ভোর সাড়ে ৫টা থেকে যখন বিক্রি শুরু হল, ততক্ষণে লাইনে কয়েকশ মানুষ টিকেটের অপেক্ষায়। গাবতলী থেকে মূলত উত্তর ও দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন গন্তেব্যের বাস ছাড়ে। বিভিন্ন কাউন্টারে কথা বলে জানা গেলে, হাতে টিকিট থাকলে শনি ও রোববারও আগাম টিকেট বিক্রি চলবে। আশুলিয়া থেকে দিনাজপুরের টিকেট কিনতে আসা গার্মেন্ট কর্মী গোলাম রব্বানী হানিফ কাউন্টারের সামনে লাইনে দাঁড়িয়েছিলেন সেহেরির পরপরই। বেলা ১১টায় টিকেট পাওয়ার পর তার চোখেমুখে ফুটে বেরুচ্ছিল আনন্দ। তিনি বলেন, পাঁচটা চাইছিলাম, তিনটা পাইছি। ঈদে বাড়ি যাব। যাত্রীদের চাহিদাকে পুঁজি করে বাড়তি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে অভিযোগ করে রব্বানী বলেন, ৬০০ টাকার টিকেট ৮৫০ টাকা নিচ্ছে। দিনাজপুরের বালিয়াডাঙ্গির জন্য টিকেট নিলেও ভাড়া নেওয়া হচ্ছে ঠাকুরগাঁওয়ের। একই অভিযোগ পাওয়া গেল কল্যাণপুরে হানিফ কাউন্টারে আসা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র অর্ণবের কাছে। তিনি জানান, এমনিতে যশোরের টিকেট ৪৮০ টাকা হলেও এখন নেওয়া হচ্ছে ৬৫০ টাকা। হানিফ পরিবহনের ম্যানেজার (উত্তরাঞ্চল) মো. ওয়াহিদুজ্জমানের সঙ্গে কথা বলে অভিযোগের কিছুটা সত্যতাও পাওয়া গেল। তিনি বলেন, আমরা টিকেটের গায়ের যে মূল্য সেটাই নিচ্ছি। তবে যে যেখানেই নামুক, টিকেটে লাস্ট স্টপেজের ভাড়া নেওয়া হচ্ছে। ১৫ ও ১৬ জুলাইয়ের টিকেটের চাপ বেশি। আমরা চেষ্টা করছি সবাই যাতে টিকেট পায়। আমাদের পর্যাপ্ত গাড়ি আছে। রাজশাহীর টিকেট নিতে কল্যাণপুরে আসা ইডেন কলেজের ছাদ্রী তাসলিমা আক্তার অভিযোগ করেন, মেয়েদের জন্য আলাদা কোনও লাইন না থাকায় সকাল ৬টায় এসে টিকেট কেনা নিয়ে তাকে যথেষ্ট ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে। এ বিষয়ে ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, মহিলাদের জন্য আলাদা লাইন সম্ভব না। এ কারণে ভীড় বেশি। গাবতলীতে ভীড় থাকলেও মহাখালী বাস টার্মিনালের চিত্র প্রতিদিনের মতোই। মূলত ঢাকার পাশের জেলাগুলোর জন্য এই টার্মিনাল হওয়ায় এখানে আগাম টিকিটের ব্যবস্থা নেই। তবে সিলেট, বিয়ানীবাজার, রংপুর, দিনাজপুর, রাজশাহীসহ দূর পাল্লার কয়েকটি পথে মহাখালীতেও ঈদের আগে আগাম টিকিট ছাড়া হয়েছে বলে মহাখালী বাস টার্মিনালের সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি আবুল কালাম জানান। মহাখালীতে অগ্রিম টিকিট ৮ জুলাই : ঈদ উপলক্ষে দূরপাল্লার বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়ে গেছে গতকাল শুক্রবার থেকে। কিন্তু রাজধানীর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বাস টার্মিনাল মহাখালীতে বিভিন্ন রুটের অগ্রিম টিকিট পাওয়া যাবে অঅগামী বুধবার (৮ জুলাই) থেকে। মহাখালী বাস টার্মিনাল মালিক সমিতি বাংলানিউজকে জানিয়েছে, ওইদিন থেকে রাজশাহী, রংপুর, বগুড়া, নওগাঁ, সিলেট, বিয়ানিবাজার, চট্টগ্রাম রুটে অগ্রিম টিকিট বিক্রি হবে। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ থাকার পরও টিকিট বিক্রির না করার কারণ সম্পর্কে মহাখালী বাস টার্মিনাল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক বলেন, \'মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কথা বলেই আমরা এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি। টিকিট বাণিজ্য বন্ধে ১৯৮৪ সালে টার্মিনাল প্রতিষ্ঠার পর থেকেই এ কৌশল অবলম্বন করছি আমরা।\' তিনি বলেন, রোজার মাঝে অগ্রিম টিকিট বিক্রি হলে কালোবাজারিরা তা দ্রুত কিনে ফেলে। পরবর্তীতে সে টিকিট অধিক দামে বিক্রি করেন তারা। ফলে পরিবহণের সুনাম নষ্ট হয়। মালেক দাবি বলেন, গাবতলী ও সায়েদাবাদ বাস টার্মিনালে আজ অগ্রিম টিকেট ছাড়লে কালকেই পাওয়া যাবে না। কালোবাজারিদের কারণে দেখা যাবে, সাধারণ মানুষ ১০০ টাকার টিকেট ৫০০ টাকায় কিনছে। এদিকে এবারও যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের কথা অবলীলায় স্বীকার করেছেন কাউন্টার ম্যনেজার আসলাম (ছদ্মনাম)। তিনি বলেন, অগ্রিম টিকেট বিক্রির একদিন আগে ভাড়া বৃদ্ধির চার্ট টানিয়ে দেওয়া হবে। বাড়তি টাকা আদায়ের কারণ সম্পর্কে তিনি বলেন, ঈদের আগে ঢাকা থেকে যাত্রীবোঝাই গাড়ি ছাড়ে। জ্যামের কারণে সকালের গাড়ি রাতে পৌঁছায়। তার ওপর ঢাকায় ফিরতে হয় খালি গাড়ি নিয়ে। এসব কারণেই বাড়তি টাকা রাখা হয়। ব্যস্ততা নেই সায়েদাবাদে : এদিকে সায়েদাবাদ বাস টার্মিনালে গিয়ে দেখা গেলো ভিন্ন চিত্র। ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ঘরমুখো যাত্রীদের আগাম টিকিট বিক্রি শুরু হয়নি। কাউন্টারে বসে অলস সময় পার করছেন টিকিট বিক্রেতারা। গতকাল শুক্রবার ভোরে সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল ঘুরে দেখা যায়, কোনো কাউন্টারেই ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের টিকিটের জন্য নেই কোনো আনাগোনা। সকালের দিকে নিয়মিত যাতায়াতের জন্য আসছেন সাধারণ যাত্রী। টিকিট নিচ্ছেন আর বাসে উঠে রওয়ানা করছেন গন্তব্যের উদ্দেশ্যে। বিভিন্ন রুটের কাউন্টারে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সায়েদাবাদ থেকে ঈদের স্পেশাল টিকিট তেমন বিক্রি হয় না। তবে ২০/২২ রোজার পরে হানিফ, শ্যামলী, ইউনিক, ঈগল পরিবহনের মতো বড় বড় কোম্পানিগুলো কিছু টিকিট বিক্রি করে। সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে দেশের প্রায় সব অঞ্চলেরই পর্যাপ্ত সংখ্যক বাস থাকায় সাধারণত দিনের যে কোনো সময় এলেই টিকিট পাওয়া যায়। ঢাকা-খুলনা রুটের ফাল্গুনী পরিবহনের ম্যানেজার রফিকুল ইসলাম বলেন, সায়দাবাদ থেকে সবসময়ই টিকিট পাওয়া যায়। তবে ঈদের ৪-৫ দিন আগে ভিড় বাড়লে কিছু অগ্রিম টিকিট বিক্রি হয়। ঈদ উপলক্ষে ঢাকা-খুলনা বাসের ভাড়া বাড়ানো হয় না বলেও জানান রফিকুল। হানিফ পরিবহনের কাউন্টার ম্যানেজার আব্দুর রাজ্জাক বলেন, নির্দিষ্ট দিন থেকে নয়, যাত্রী যখন আসবেন তখনই সিট খালি থাকা সাপেক্ষে টিকিট বিক্রি করা হয়। তবে ২৫-২৬ রমজানের দিকে কিছু অগ্রিম টিকিট বিক্রি হয়। ভাড়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটের কোনো পরিবহনের ভাড়াই ঈদ উপলক্ষে বাড়ানো হয় না। নিয়মিত যে ভাড়া ঈদের সময়ও সেটাই নেওয়া হয়। একটাকাও বেশি নেওয়া হয় না। ঢাকা থেকে চট্টগ্রামগামী শ্যামলী পরিবহনের যাত্রী আবু আল নাহিয়ান বলেন, এখান থেকে বাসের টিকিট পেতে কোনো সমস্যা হয় না। টার্মিনালে এলেই একটা না একটা বাস পাওয়া যায়। তবে ঈদের দু\'একদিন আগে একটু ভিড় থাকে।
দিনাজপুরে ডাকাতি আতঙ্ক কাটেনি স্বর্ণের দোকান বন্ধ
দিনাজপুর শহরে স্বর্ণপট্টিতে ককটেল বিস্ফোরণ ও ফাঁকা গুলিবর্ষণ করে ডাকাতির ঘটনায় স্বর্ণশিল্পী, কারিগর ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে আতঙ্ক এখনও কাটেনি। ঈদের বাজার হওয়া সত্ত্বেও গতকাল শুক্রবার সকল স্বর্ণের দোকান বন্ধ রাখা হয়। স্বর্ণপট্টিতে সার্বক্ষণিক পুলিশ মোতায়েন রাখা হয়েছে। ডাকাতি সংঘটিত অভিজাত স্বর্ণের শো\'রুম জড়োয়া ঘরের লুন্ঠিত মালামালের হিসাব নিকাশ এখনও চলছে। শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে জড়োয়া স্বর্ণের দোকান দেখার জন্য উৎসুক মানুষের ভিড় ছিল দিনব্যাপী। পুলিশ সুপার মোঃ রুহুল আমীন বৃহস্পতিবার রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এসময় জড়োয়া ঘরের মালিক জগরাম ও অনিল পুলিশ সুপারকে জানান, তাদের সিসি ক্যামেরা ১০-১২ দিন পূর্বেই খারাপ হয়ে যায়। ফলে দুর্বৃত্তদের সিসি ক্যামেরায় শনাক্ত করা সম্ভব হচ্ছে না। পুলিশ সুপার দুর্বৃত্তদের গ্রেফতার ও ব্যবসায়ীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের আশ্বাস দেন। অপরদিকে ডাকাতির পরপরই চকবাজারে হোটেল মৃগয়ায় হামলাকারীদের সিসি ক্যামেরায় শনাক্ত করার কাজ চলছে। হোটেল মৃগয়ার মালিক মনোজ কুমার দাস সিসি ক্যামেরার যাবতীয় ডকুমেন্ট পুলিশের কাছে দেয়া হয়েছে দাবি করে বলেন, আমার দুটি হোটেলে এধরনের হামলা কেন তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। দিনাজপুর স্বর্ণশিল্পি মালিক সমিতির সভাপতি মোফাজ্জল হোসেন দাবি করেন ডাকাত দলটি ককটেল বিস্ফারণে পুরো স্বর্ণপট্টি অন্ধকারাচ্ছন্ন করে দিয়েছিল। বিকট শব্দে ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। এধরনের একটি ভয়াবহ ঘটনার পর আমাদের দাবি ছিল ১০ জন পুলিশের, কিন্তু পুলিশ দেয়া হয়েছে ৩ জন। তিনি বলেন, স্বর্ণপট্টিতে স্থায়ীভাবে পুলিশ মোতায়েন এবং স্বর্ণশিল্পী ও কারিগরদের জীবনের নিরাপত্তা না দেয়া হলে অনির্দিষ্টকালের জন্য ব্যবসা বন্ধ করে দেয়া হবে। ন্বর্ণশিল্পী মালিক সমিতি আজ শনিবার সকাল ১০টায় জরুরি সভায় বসবেন। দিনাজপুর চেম্বার অব কমার্সের সহ-সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম জানান, এঘটনার মধ্যদিয়ে ব্যবসায়ী ও কর্মচারীদের নিরাপত্তার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে চেম্বার। দিনাজপুর কোতোয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম খালেকুজ্জামান পিপিএম জানান, মামলার প্রস্তুতি চলছে। দুর্বৃত্তদের গ্রেফতারে ব্যপক অভিযান শুরু হয়েছে। এ ঘটনায় দিনাজপুর শহর জুড়ে আতঙ্ক ও ভীতি বিরাজ করছে। উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার মাগরিবের আজানের সময় দিনাজপুরে ফিল্মি কায়দায় ককটেল বিস্ফোরণ ও ফাঁকা গুলিবর্ষণ করে জড়োয়া ঘর স্বর্ণের দোকানের লক্ষাধিক টাকার স্বর্ণালঙ্কার লুট করা হয়।
 
 
 
ছুটির দিনে সারাদেশে জমজমাট ঈদের কেনাকাটা
করতোয়া ডেস্ক : ঈদের আরো দুই সপ্তাহ বাকি। এরই মধ্যে জমে উঠেছে ঈদের কেনাকাটা। গতকাল শুক্রবার ছুটির দিন থাকায় সারাদেশের মার্কেট গুলোতে জমে ওঠে ঈদের কেনাকাটা। একদিকে যেমন বিলাসবহুল শপিংমলে উচ্চ ও মধ্যবিত্তদের ভিড়, তেমনি ফুটপাতের দোকানগুলোও জমজমাট হয়ে উঠছে নিম্ন ও নিম্ন-মধ্যবিত্তদের পদচারণায়। নামিদামি... বিস্তারিত
 
গ্রেফতার না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন : হেফাজত
লতিফ সিদ্দিকীর মুক্তির প্রতিবাদে সারাদেশে বিক্ষোভ
প্রস্তুতি ম্যাচ জিতে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে দিল দ. আফ্রিকা
স্পোর্টস রিপোর্টার :বাংলাদেশের সামনে কী চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে প্রস্তুতি ম্যাচেই তা জানিয়ে দিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। অতিথিদের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি ইমরুল কায়েসের নেতৃত্বাধীন বিসিবি একাদশ। বিসিবি একাদশকে টি-টোয়েন্টি প্রস্তুতি ম্যাচে সহজেই ৮ উইকেটে হারিয়েছে অতিথিরা। তবে তাদের কোনো উইকেট নিতে পারেননি স্বাগতিক বোলাররা। স্বেচ্ছায় মাঠ ছাড়েন... বিস্তারিত
 
তেল মসলার দাম বৃদ্ধি কমেছে সবজির
সহকর্মীর গুলিতে আনসার নিহত
খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি : খাগড়াছড়ির দিঘীনালায় কথা কাটাকাটির মধ্যে সহকর্মীর গুলিতে খুন হয়েছেন এক আনসার সদস্য। দিঘীনালা থানার ওসি মো. শাহদাত হোসেন টিটু জানান, শুক্রবার বিকাল ৪টার দিকে দিঘীনালা উপজেলার হেডম্যানপাড়া আনসার ক্যাম্পে এ ঘটনা ঘটে। নিহত নায়েক আমির হোসেন (৫৫) জেলার পানছড়ি উপজেলার রজব আলীর... বিস্তারিত
 
 
ভিডিও
রাশিচক্র আজ ঢাকায় আজ বগুড়ায়
 
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের চরমপন্থিরা আত্মসমর্পণের আহ্বানে সাড়া দেবে বলে মনে করেন কি?
হ্যাঁ
উত্তর নেই
না
 
 
 
আজকের ভিউ
নামাজের সময়সূচী
ওয়াক্ত
সময়
ফজর
08:50
জোহর
1:15
আছর
05:00
মাগরিব
06:38
এশা
08:30
 
 

সম্পাদকঃ মোজাম্মেল হক, সম্পাদক কর্তৃক ন্যাশনাল প্রিন্টিং প্রেস, শিল্পনগরী বিসিক বগুড়া এবং ১৬৭ ইনার সার্কুলার রোড, (আরামবাগ) ইডেন কমপ্লেক্স, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও চকযাদু রোড, বগুড়া হতে প্রকাশিত।
ফোন ৬৩৬৬০,৬৫০৮০, সার্কুলেশন বিভাগঃ ০১৭১৩২২৮৪৬৬, বিজ্ঞাপন বিভাগঃ ৬৩৩৯০, ফ্যাক্সঃ ৬০৪২২। ঢাকা অফিসঃ স্বজন টাওয়ার, ৪ সেগুন বাগিচা। ফোনঃ ৭১৬১৪০৬, ৯৫৬০৬৬৯, ৯৫৬৮৮৪৬, ফ্যাক্সঃ ৯৫৬৮৫২২ E-mail : dkaratoa@yahoo.com . . . .

Powered By: