বগুড়া শনিবার | ৫ আশ্বিন ১৪২১ | ২৪ জিলকদ ১৪৩৫ হিজরি | ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৪
ব্রেকিং নিউজ
আর্কাইভ
দিন :
মাস :
সাল :
এই সংখ্যার পাঠক
১৫০৮১২
সার্চ
স্বাধীনতা চায় না স্কটল্যান্ড
বিপক্ষে ৫৫ শতাংশ ভোট
করতোয়া ডেস্ক :
গণভোট প্রমাণ করল স্বাধীনতা চান না স্কটিশরা। তারা থাকতে চান যুক্তরাজ্যের সঙ্গেই। গতকাল শুক্রবার গণভোটের প্রাথমিক ফলাফলে জানা গেছে এমনটাই। এতে করে যুক্তরাজ্য অখ ই থাকল। তবে স্কটল্যান্ডের স্বায়ত্তশাসনের দরজা একেবারে বন্ধ হয়নি। কারণ না ভোট জিতলেও স্কটিশদের একটা বড় অংশ হ্যাঁ ভোট দিয়েছেন বা সমর্থন করেছেন। তাই হ্যাঁ ভোটের... বিস্তারিত
গণভোটে জয়ী হওয়ার পর স্কটিশদের উল্লাস -ইন্টারনেট
নির্বাচিত সংবাদ
পিস্তল গুলি ও ইয়াবাসহ গ্রেফতার ৪
বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় ১০ রাউন্ড গুলি ও ২টি পিস্তলসহ দুই ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। জানা গেছে, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ সান্তাহার সার্কেলের পরিদর্শন মনিরুজ্জামানের নেতৃত্বে একটি দল গতকাল শুক্রবার উপজেলার চৌমুহনী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অবস্থান নেয়। এ সময় নওগাঁ থেকে বগুড়াগামী সারোয়ার পরিবহন ঘটনাস্থলে পেঁৗছলে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ টিমটি বাসের গতিরোধ করে তল্লাশি চালিয়ে চাঁপাইনবাগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার মৃত কছের শেখের ছেলে সাফিউল ইসলাম (৪৫) ও ধোবড়া গ্রামের জমোর ছেলে সাইফুল রেন্টু (৪০) কে আটক করে। পরে তাদের হাত ব্যাগ থেকে ১০ রাউন্ড গুলি ও ৪টি ম্যাগজিনসহ ২টি অত্যাধুনিক পিস্তল উদ্ধার করা হয়। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইফুর রহমান খান তাৎক্ষণিকভাবে চৌমুহনী বাসস্ট্যান্ডে যান এবং পিস্তল ও গুলিসহ আটককৃতদের দুপচাঁচিয়া থানায় নিয়ে আসেন। অপরদিকে দুপচাঁচিয়া থানা পুলিশ গত বৃহস্পতিবার ১ হাজার ২৪ পিস ইয়াবাসহ ২ যুবককে আটক করেছে। থানা সূত্রে জানা গেছে, ওইদিন রাত সাড়ে ৯টার দিকে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে থানার এসআই আবু মুসা ফোর্সসহ বগুড়া-নওগাঁ মহাসড়কে চৌমুহনী বাসস্ট্যান্ডের অদূরে ধারসুন ব্রিজের কাছে অবস্থান নেয়। এ সময় নম্বরবিহীন একটি মোটরসাইকেলসহ ২ যুবক বগুড়া যাওয়ার সময় পুলিশ মোটরসাইকেলটি থামানোর জন্য সিগন্যাল দেয়। আরোহীরা সিগন্যাল অমান্য করে দ্রুত চলে যাওয়ার চেষ্টা করলে ধাওয়া করে পুলিশ মোটরসাইকেল চালক চাঁপাইনবাবগঞ্জের বারোরসিয়া ইসলামপুর গ্রামের কায়েম উদ্দিনের ছেলে হুমায়ুন কবির (২২) ও একই জেলার তিনঘড়িয়া গ্রামের আজিনুল হকের ছেলে আনোয়ার হোসেন ভোগা (২৭) কে আটক করে। মোটরসাইকেল থেকে ছিটকে পড়ে আনোয়ার হোসেন আহত হয়। তাকে দুপচাঁচিয়া হাসপাতালে জরুরি বিভাগে চিকিৎসা দেয়া হয়। পরে আটককৃত ২ জনকে মোটরসাইকেলসহ থানায় নিয়ে আসা হয়। এ সময় পুলিশ তাদের কাছ থেকে পাওয়া ৬টি মিনি প্যাকেট থেকে ইয়াবাগুলো উদ্ধার করে। এ ব্যাপারে মাদকদ্রব্য আইনে একটি মামলা হয়েছে। এ ব্যাপারে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ জানান, উদ্ধার করা ইয়াবার মূল্য প্রায় ২ লক্ষ ৫৫ হাজার টাকা। আটক ২ জনকে গতকাল শুক্রবার বগুড়া কোর্ট হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
গাইবান্ধায় যানজটে যাত্রীদের নাভিশ্বাস বাইপাস সড়ক নির্মাণ অনিশ্চিত
সীমাহীন যানজটে গাইবান্ধা জেলা শহরে সাধারণ যাত্রীদের নাভিশ্বাস উঠছে। চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে পথচারীদেরও। প্রতিদিনই বাস ট্রাক ভটভটিসহ অন্যান্য যানবাহনগুলির ধাক্কায় দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে তারা। নির্ধারিত স্ট্যান্ড না থাকায় অপ্রশস্ত সড়কগুলো জবর দখল করে রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকে অবৈধ যানবাহন। কোন নিয়ন্ত্রণই যেন নেই। অসহনীয় এই যানজট নিরসনে বাইপাস সড়ক নির্মাণের প্রকল্পটি ২৫ বছর ধরে ঝুলে রয়েছে। সমপ্রতি এ সমস্যা আরও প্রকট রূপ নেয়ায় বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে সর্বস্তরের মানুষ। জানা গেছে, জেলা শহরের অপ্রশস্ত সড়কগুলো দিয়ে পথচারী ও যানবাহন চলাচলে বিড়ম্বনার শেষ নেই। ফুটপাত দখল এবং সড়ক ঘেঁসে ব্যাপক হারে অবৈধ দোকানপাট গড়ে তোলায় যানজট আরো দুঃসহ করে তুলেছে। এই অবস্থার মধ্যে নিয়ন্ত্রণহীন রিক্সা এবং বাস-ট্রাক, ম্যাজিক, অটোবাইক, ভটভটি, নসিমন-করিমনের অবাধে চলাচল করছে শহরের গলি ও সরু পথ গুলি দিয়ে। ট্রাফিক পুলিশের আশীর্বাদপুষ্ট বালু ও মাটিবাহি ট্রাক্টর-ট্রলির অবাধ চলাচল সড়কের ক্ষতি করছে। প্রতিমুহূর্তে দুর্ঘটনার আশংকা নিয়ে শহরবাসীকে যাতায়াত করতে হচ্ছে আতংকে। যানজট নিরসনে গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলোতে প্রয়োজনীয় ট্রাফিক পুলিশও নেই। দু\'-এক জায়গায় থাকলেও তারা আছে দায়সারা গোছের রোবটের মতো। শহরের ব্রিজ রোডসহ নুতন ও পুরাতন ব্রিজ সংলগ্ন সড়ক, পুরাতন বাজারের গেট থেকে পোস্ট অফিস সড়ক, পুরাতন জেলখানার মোড়, ডিসি অফিস সংলগ্ন সড়ক, বালাসি সড়ক, রেলগেট মোড় থেকে ডাকবাংলা মোড়ের অবস্থা এখন সবচেয়ে ভয়াবহ। রাস্তার দু\'পাশে ব্যাটারিচালিত অটো বাইক, ম্যাজিক গাড়ির অবৈধ স্ট্যান্ড গড়ে উঠেছে একশ\' গজের ব্যবধানে। ফলে ওইপথে অন্য কোন যানবাহন চলাচল করা তো দূরের কথা হেঁটে চলাচল করাও দুঃসাধ্য। বিশেষ করে ঢাকাগামী দূরপাল্লার যানবাহনগুলো টার্মিনাল থেকে সুন্দরগঞ্জ, সাদুল্যাপুর, নলডাঙ্গা, সাঘাটা, ফুলছড়ি, নাকাইহাট সড়কে চলাচল করার ফলে জেলা শহরের এই যানজট সমস্যা এখন গ্রামের রাস্তাগুলো পর্যন্ত বিস্তার লাভ করেছে। ফলে মানুষের দুর্ভোগ যেমন বেড়েছে, দুর্ঘটনাও বৃদ্ধি পাচ্ছে সমহারে। এদিকে জেলা শহরে একাধিক রিক্সা স্ট্যান্ড থাকলেও সেগুলো জবর দখল করে ছোট ছোট ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও অটো বাইকের স্ট্যান্ড করা হয়েছে। রিক্সাগুলো কোন জায়গা না পেয়ে শহরের সংকীর্ণ রাস্তাগুলোর মাঝেই দাঁড়িয়ে থাকে। উল্লেখ্য, জেলাবাসীর দাবির মুখে সড়ক ও জনপথ বিভাগ গাইবান্ধা সড়ক ও জনপথ বিভাগ সমপ্রতি জরিপ কাজ সম্পন্ন করে ৫৬ কোটি ২৬ লাখ ৪৩ হাজার টাকা ব্যয়ে বাইপাস সড়ক নির্মাণের একটি প্রস্তাব দেয়। ওই প্রস্তাবনায় উল্লেখ করা হয়, ৯ কিলোমিটার দীর্ঘ ওই সড়ক নির্মাণ প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ৬০ একর জমি অধিগ্রহণসহ আলাই নদীর উপর ৭৫ মিটার দীর্ঘ একটি আর সিসি সেতু ও বিভিন্ন পয়েন্টে ১৫টি কালভার্ট নির্মাণ করতে হবে। প্রকল্পটি সমাপ্ত হলে গাইবান্ধা শহরের যানজট নিরসনে দীর্ঘস্থায়ী সমাধান সম্ভব হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে কবে নাগাদ এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে তা অনিশ্চিত।
বগুড়ায় চর্চা'র লালন সন্ধ্যা 'অচিন পাখি' অনুষ্ঠিত
সংঘাত বিক্ষুব্ধ এই পৃথিবীতে মানবতাবোধকে জাগিয়ে দিতে বগুড়ার চর্চা সাংস্কৃতিক একাডেমি গতকাল স্থানীয় জেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজন করে লালন সন্ধ্যা \'অচিন পাখি\'। লালন শাঁই\'র জন্ম-মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন বাউল তপন কুমার দাস। অনুষ্ঠানে সংবর্ধনাজানানো হয় বগুড়া জেলা পরিষদের প্রশাসক ডা. মকবুল হোসেনকে। এতে অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বগুড়া জেলা উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান ফিজু, দৈনিক করতোয়ার বার্তা সম্পাদক প্রদীপ ভট্টাচার্য্য শংকর, বিশিষ্ট নাট্যজন বগুড়া থিয়েটারের সাধারণ সম্পাদক তৌফিক হাসান ময়না, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, বগুড়ার সাধারণ সম্পাদক এবিএম জিয়াউল হক বাবলা, বগুড়া নাট্যদলের সভাপতি মীর্জা আহসানুল হক দুলাল ও সংশপ্তক থিয়েটারের সাধারণ সম্পাদক সাদেকুর রহমান সুজন। চর্চা সাংস্কৃতিক একাডেমির পরিচালক আব্দুল আউয়ালের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনাসভা শেষে চর্চা\'র সদস্যদের পরিবেশনায় লালন গীতির অনুষ্ঠান \'অচিন পাখি\' আয়োজন করা হয়।
ঢাকাস্থ বৃহত্তর বগুড়া সমিতির ১৫১ জনকে বৃত্তি প্রদান
ঢাকাস্থ বৃহত্তর বগুড়া সমিতির সহযোগি সংগঠন বৃহত্তর বগুড়া সমিতি শিক্ষা ট্রাস্ট বগুড়ার ১৫১জন গরিব ও মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান গতকাল শুক্রবার ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয়েছে। শিক্ষা ট্রাস্টের চেয়ারম্যান অতিরিক্ত সচিব নাসরিন বেগমের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব আতিকুর রহমান শাহীনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান ও বিশেষ অতিথি ছিলেন যথাক্রমে সমিতির সভাপতি মাসুদুর রহমান রন্টু এবং সেক্রেটারি একেএম কামরুল ইসলাম ও সহ-সভাপতি আব্দুল জব্বার তালুকদার। আলোচনায় অংশ নেন-কুষ্ঠিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নূরুল হক, ঢাবি ছাত্র মো. আব্দুর রহীম এবং শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মো. মতিয়ার রহমান। সমিতির পক্ষে বক্তব্য রাখেন যুগ্মসাধারন সম্পাদক ড. আহসাস হাবিব রুবেল, ক্রীড়া ও আপ্যায়ন সম্পাদক ছালজার রহমান, শিক্ষা ট্রাস্ট্রের কোয়াধ্যক্ষ ড. হালিম-উল-হক লিটন, সেলিনা আক্তার, মোস্তাইন বিল্লাহ, আব্দুর রশীদ, মাসুদ তালুকদার প্রমুখ। উল্লেখ্য, বৃহত্তর বগুড়া সমিতির, ঢাকা প্রতি বছর বগুড়ার ছাত্র-ছাত্রীদের ( স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর পর্যায়ে ছাত্র-ছাত্রীদের) মধ্যে এককালীন বৃত্তি প্রদান করে আসছে। খবর বিজ্ঞপ্তির।
সোনাতলায় বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ
বগুড়ার সোনাতলায় গতকাল শুক্রবার ৩টি ইউনিয়নের বন্যার্তদের মাঝে জিবিএস সৌহার্দ্য প্রকল্পের উদ্যোগে ও কেয়ার বাংলাদেশের সহযোগিতায় ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। উপজেলার পাকুল্লা, মধুপুর ও তেকানীচুকাইনগর ইউনিয়নের বন্যার্তদের প্রত্যেককে শুকনা খাবার হিসেবে চিড়া সাড়ে সাত কেজি, চিনি আড়াই কেজি, লবণ ১ কেজি, ১০ প্যাকেট স্যালাইন, ১৫ প্যাকেট পানি বিশুদ্ধকরণ পাউডার ও ১টি জারিকেন, গম ২০ কেজি, ভোজ্যতেল ১.৮ কেজি, ৩ কেজি ডাল ত্রাণ হিসেবে বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম আহসানুল তৈয়ব জাকির। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানে এনামুল হক মন্ডল। আরও উপস্থিত ছিলেন গ্রাম বিকাশ সংস্থার (জিবিএস) নির্বাহী প্রধান নাজির হোসেন, কেয়ার বাংলাদেশের প্রজেক্ট ম্যানেজার মাহাবুবুর রহমান, জিবিএস সৌহার্দ্য প্রকল্পের প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর শফিকুল ইসলাম, তেকানী চুকাইনগর ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আশরাফ উদ্দিন আকন্দ, তেকানী চুকাইনগর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মোকারম হোসেন মাস্টার, পাকুল্লা ইউপি চেয়ারম্যান একেএম লতিফুল বারী টিম, পাকুল্লা ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি এড. হুমায়ুন কবির, সাবেক সভাপতি জিএম আলী হাসান নারুন, ডা. এমএ হান্নান বাটালু, শরিফুল ইসলাম, টেকনিক্যাল অফিসার আবিদা সুলতানা নিশি, ওয়াদুদ হোসেন, টেকনিক্যাল অফিসার এসএম জাকারিয়া, প্রোগ্রাম অফিসার হাবিবা খাতুন, হারুনর রশিদ প্রমুখ।
স্বাধীনতা চায় না স্কটল্যান্ড
গণভোট প্রমাণ করল স্বাধীনতা চান না স্কটিশরা। তারা থাকতে চান যুক্তরাজ্যের সঙ্গেই। গতকাল শুক্রবার গণভোটের প্রাথমিক ফলাফলে জানা গেছে এমনটাই। এতে করে যুক্তরাজ্য অখ ই থাকল। তবে স্কটল্যান্ডের স্বায়ত্তশাসনের দরজা একেবারে বন্ধ হয়নি। কারণ না ভোট জিতলেও স্কটিশদের একটা বড় অংশ হ্যাঁ ভোট দিয়েছেন বা সমর্থন করেছেন। তাই হ্যাঁ ভোটের সমর্থকেরা মনে করেন স্বাধীনতা লাভের ভবিষ্যৎ এখনো উজ্জ্বল। যুক্তরাজ্যের সঙ্গেই থাকার রায় দিল স্কটল্যান্ডের জনগণ। ঐতিহাসিক গণভোটে প্রত্যাখ্যাত হল ৩০৭ বছরের পুরনো ব্রিটিশ ইউনিয়ন ভেঙে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপ্রকাশের সম্ভাবনা। এই ফলাফল লাখ লাখ ব্রিটনের মতো প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনকেও স্বস্তি এনে দিল। স্কটল্যান্ডের গণভোট নিয়ে ডেভিড ক্যামেরনের প্রধানমন্ত্রিত্ব হুমকির মুখে পড়ে গিয়েছিল। পাশাপাশি দেশটির মিত্ররাও যুক্তরাজ্যের সম্ভাব্য ভাঙ্গনের শঙ্কায় পড়েছিলেন। স্কটল্যান্ডের ৩২টি নির্বাচনী এলাকার মধ্যে ইতোমধ্যে ৩১টির ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। তাতে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে থাকতে চাওয়ার পক্ষে ৫৫ শতাংশ ভোট পড়েছে। আর স্বাধীনতাকামীরা পেয়েছেন ৪৫ শতাংশ ভোট। স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্কটল্যান্ড আত্মপ্রকাশ করবে কি না তা নিয়ে \'হ্যাঁ\' ও না ভোটের আয়োজন করা হয়। বৃহস্পতিবার দিনভর ঐতিহাসিক গণভোটে ভোট দেয়ার জন্য প্রায় ৯৭ শতাংশ ভোটার তালিকাভুক্ত হয়েছিলেন।না ভোট জয়ী হলে স্কটল্যান্ড যুক্তরাজ্যের সঙ্গেই থাকবে, আর হ্যাঁ জয়ী হলে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসাবে আত্মপ্রকাশ হতো স্কটল্যান্ডের। কিন্তু শুক্রবার ৩১টি নির্বাচনী এলাকার ভোটের ফলাফল ঘোষণার পর দেখা যাচ্ছে, \'না\' ভোটই জয়যুক্ত হয়েছে। অর্থাৎ স্কটিসরা যুক্তরাজ্যের সঙ্গেই থাকতে চায়।স্কটল্যান্ডের ৪২,৮৫,৩২৩ জন ভোট দেয়ার জন্য তালিকাভুক্ত হয়েছিলেন যা মোট ভোটের ৯৭ শতাংশ। দেশটির ৩২টি কাউন্সিলের নাগরিকরা এই ভোটে অংশ নিয়েছেন।বৃহস্পতিবার স্কটল্যান্ডের স্থানীয় সময় সকাল ৭টায় ভোট গ্রহণ শুরু হয়। শেষ হয় রাত ১০টায়। দেশটির ২৬০৮টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ চলে। স্কটিস ন্যাশনালিস্ট পাটির্র উপনেতা নিকোলা স্টারগেওন দাবি করেছেন, দেশজুড়ে হাজারো মানুষের মতো আমিও সর্বাত্মকভাবে স্বাধীনতার পক্ষে প্রচারণা চালিয়েছি। কিন্তু হতাশার সঙ্গে জানাতে হচ্ছে আমরা খুব স্বল্প ব্যবধানে হেরে যাচ্ছি। স্বাধীনতার পক্ষগোষ্ঠী যেখানে হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়ছেন বিপরীতে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে থাকতে চাওয়া গোষ্ঠী ফলাফল ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে আনন্দ আর উল্লাসে মেতে উঠছে।আশা করা হচ্ছে যুক্তরাজ্যের রাণী এলিজাবেথ ও প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন এই ফলাফল উপলক্ষ্যে বিবৃতি দেবেন। স্কটল্যান্ডের স্বাধীনতার পক্ষগোষ্ঠী সবচে বড় শহর গ্লাসগোতে জয় লাভ করলেও অন্যান্য নির্বাচনী এলাকায় প্রত্যাশিত ফল লাভে ব্যর্থ হয়। এএফপিতে প্রকাশিত খবরে জানা যায়, স্থানীয় ৩২টি কাউন্সিলের মধ্যে ৩১টির ফলাফলে দেখা গেছে, \'না\' ভোট পড়েছে ৫৫.৪২ শতাংশ। \'হ্যাঁ\' ভোট পড়েছে ৪৪.৫৮ শতাংশ। ফল জানার পরে কান্নায় ভেঙে পড়তে দেখা গেছে \'হ্যাঁ\' ভোটের সমর্থকদের।যেসব স্কটিশ ব্রিটিশ শাসনের অবসান চেয়েছিলেন, গণভোটের এই ফলাফলে তাঁরা অনেকটাই হতাশ। তবে অর্থনৈতিক ঝুঁকি নিয়ে যাঁরা চিন্তিত ছিলেন, এই ফলাফলে তাঁরা অনেকটাই নিশ্চিন্ত হয়েছেন। পরাজয় মেনে নিয়ে স্কটল্যান্ডের ফার্স্ট মিনিস্টার ও স্বাধীনতাকামী নেতা অ্যালেক্স স্যামন্ড এডিনবরায় জানান, বেশির ভাগ মানুষ না ভোট দিয়েছেন। সংখ্যাগরিষ্ঠ স্কটিশ স্বাধীনতা চান না। এই পরিস্থিতিতে স্কটল্যান্ড স্বাধীন দেশ হতে পারবে না। তবে স্যামন্ড মনে করেন, এই ফলাফল স্কটল্যান্ডের স্বাধীনতার ভবিষ্যৎ?কে অনেকটাই উজ্জ্বল করে। কারণ \'হ্যাঁ\' ভোটের সংখ্যাও কম নয়। অর্থাৎ জনগণের একটা বড় তাদেও সঙ্গে আছে। স্কটল্যান্ডের উপফার্স্ট মিনিস্টার নিকোলা স্টারজেনের বাড়ি গ্লাসগোতে বড় জয় পেয়েছে \'হ্যাঁ ভোট। তবে না ভোটের বন্যাকে সেটি রুখতে পারেনি। ধারণা করা হচ্ছে যে গ্রামাঞ্চলে \'না ভোট বেশি পড়েছে। কিন্তু শহরে এবং দরিদ্র এলাকাগুলোতে \'হ্যাঁ\' ভোটের সংখ্যা বেশি। স্ট্রাথক্লাইড বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতিবিষয়ক অধ্যাপক ও নির্বাচন বিশেষজ্ঞ জন কার্টিস বলেন,এটা স্পষ্ট যে না ভোট জিতেছে।ফলাফলের বিষয় বিবিসির পূর্বাভাস দেওয়ার পরে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন টুইটারে দেওয়া বার্তায় না প্রচারাভিযানের অন্যতম নেতা অ্যালিস্টার ডার্লিংকে অভিনন্দন জানান। ভোটের ফলাফলে যুক্তরাজ্যের তিনটি প্রধান রাজনৈতিক দল স্কটিশ পার্লামেন্টকে আরও শক্তিশালী করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। একই সঙ্গে ভোটারদের ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানানো হয়েছে। স্কটল্যান্ডের ডেপুটি ফার্স্ট মিনিস্টার নিকোলা স্টারজন বলেন,গণভোটে এটা প্রমাণ হয়েছে যে বড় একটা অংশ পরিবর্তন চায়। তাই যুক্তরাজ্যের সরকারকে জনগণের প্রতি প্রতিশ্রুতি পালনে আরও তৎপর হতে হবে। তিনি বলেন, স্কটল্যান্ড বদলেছে। এই বদলের ধারণা থেকে পিছু হটার সুযোগ নেই।
জেএমবির ভারপ্রাপ্ত আমিরসহ ৭ জঙ্গি গ্রেফতার : রিমান্ড
বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরকসহ রাজধানীর তুরাগ এলাকা থেকে নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ\'র (জেএমবি) ভারপ্রাপ্ত আমির তাসনিমসহ ৭ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। গতকাল শুক্রবার সকালে ঢাকা মহানগর পুলিশের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ডিএমপির যুগ্ন কমিশনার (ডিবি) মনিরুল ইসলাম। পুলিশ জানায়, গত বৃহস্পতিবার রাতে টঙ্গী থানাধীন তুরাগ এলাকার আশুলিয়া ল্যান্ডিং স্টেশন থেকে গ্রেফতারের পর তাদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবিরোধী ও বিস্ফোরক আইনে দুটি মামলা করা হয়। গতকাল ঢাকা মহানগর আদালতে হাজির করে এ দুই মামলায় রিমান্ডের আবেদন জানালে আদালত ওই ৭ জনের প্রত্যেককে পৃথক দুই মামলায় দু\'দিন করে চারদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছেন- জেএমবির ভারপ্রাপ্ত আমির আবদুল্লাহ আল তাসনিম ওরফে নাহিদ (২৯), নাঈম আলী (২৮), সিকান্দার আলী (২৫), মাহমুদ ইবনে বাশার (২৩), মাসুম বিল্লাহ (২৬), ফুয়াদ হাসান (১৮) ও আলী আহমেদ (২৪)। ডিবি পুলিশ জানায়, তাসনিমের বিরুদ্ধে ২০টিরও বেশি মামলা রয়েছে। জেএমবির আমির কারাবন্দী মাওলানা সাইদুর রহমানের অবর্তমানে জেএমবির নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন তাসনিম। গাজীপুরে আদালতে বোমা হামলার দায়ে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আব্দুল আল সোহেলের ভাই তিনি। পুলিশ কর্মকর্তা মনিরুল দাবি করেন, গ্রেফতারকৃতদের সাথে মধ্যপ্রাচ্যে আধিপত্য বিস্তারকারী সিরিয়া ও ইরাকের বিস্তীর্ণ এলাকা দখল করে খেলাফতের ঘোষণা দেয়া আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস) এর যোগাযোগ রয়েছে। দুটি জঙ্গি সংগঠনের মধ্যে ই-মেইল আদান-প্রদানের তথ্য পাওয়া গেছে। ইতোমধ্যে আইএসের পক্ষে যুদ্ধ করতে জেএমবির কিছু জঙ্গি পাসপোর্টও করেছে। তারা আইএসের কথিত জিহাদে যোগ দিতে যাবে। বান্দরবানে তাদের প্রশিক্ষণ ক্যাম্প রয়েছে। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শাখা খোলাসহ নারী সদস্য সংগ্রহ করছিলো তারা। এ জঙ্গিরা ইসলামী অনুষ্ঠানের উপস্থাপক মাওলানা ফারুকি হত্যা সম্পর্কে জানে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তারা জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের প্রধান মুফতি জসিম উদ্দিনকে পুলিশ হেফাজত থেকে ছিনিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা করেছিলো। ভিভিআইপি, ভিআইপিসহ দেশের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের উপর এবং গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় হামলা চালানোর পরিকল্পনা ছিল তাদের। ডিবি বলছে, ভিভিআইপি ও ভিআইপিদের গাড়ি বহরে হামলা করে বিশ্ব মিডিয়ায় আলোচনায় আসতে চেয়েছিল জেএমবি। আলোচনায় আসতে পারলে জেএমবির ঝিমিয়ে পড়া সদস্যদের উজ্জীবিত করা এবং সিরিয়ার আইএস জঙ্গিদের সহানুভ?ূতি পাওয়ার জন্যই এই পরিকল্পনা করে তা বাস্তবায়নে কাজ করছিল তারা। জেএমবির ভারপ্রাপ্ত প্রধান গ্রেফতারকৃত তাসনিম ওরফে নাহিদকে এ লক্ষ্যেই পলাতক জঙ্গিরা নানা পরামর্শ দিয়ে আসছিল। স্কুল বিশ্ববিদ্যালয়ে জেএমবির আলাদা ইউনিট খুলতেও তারা কাজ করছিল এবং ময়মনসিংয়ের মতো জঙ্গি ছিনতাইয়েরও ছক আঁটছিলো তারা। ডিবি জানায়, গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে মাহমুদ ইবনে বাশার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আর সিকান্দার আলী ওরফে নকি নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। নকিকে ব্লগার রাজিব হায়দার হত্যা মামলার সন্দেহভাজন হিসেবে চিহ্নিত করা হলেও তার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ না হওয়ায় সেই সময় তাকে গ্রেফতার করা হয়নি। তাসনিম তার এই সহযোগিদের নিয়ে আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন আইএসের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করার চেষ্টা করছিলেন। এ কাজে সহায়তা করছে নকি ও বাশার। কারণ তারা টেকনোলজিতে পারদর্শী। তাসনিম রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা জঙ্গিদের একত্রিত করে দেশে ভিআইপি ও ভিভিআইপিদের গাড়ি বহরে হামলা করার পরিকল্পনা করছিল। প্রেস ব্রিফিংয়ে ডিবি জানায়, বৃহস্পতিবার গভীর রাতে টঙ্গীর তুরাগ এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। জেএমবির একটি দল নাশকতার পরিকল্পনা করছে, এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আশুলিয়া ল্যান্ডিং স্টেশন পার্কিং থেকে তাদের গ্রেফতার করেন ডিবি পুলিশের সদস্যরা। তাদের কাছ থেকে ১০ কেজি জেলমিশ্রিত রাসায়নিক পদার্থ, ৪টি পিতলের মূর্তি, জঙ্গিবাদ সংশ্লিষ্ট বই ও কিছু বুকলেট উদ্ধার করা হয়। পুলিশ জানায়, রাসায়নিক পদার্থ ও পিতলের মূর্তির গুঁড়া বিস্ফোরক তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। বইগুলোতে জিহাদি নিয়ম-কানুন সম্পর্কে লেখা রয়েছে এবং বুকলেটগুলো জিহাদে দাওয়াতের কাজে ব্যবহৃত হয় বলেও গ্রেফতারকৃতরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায়। ঢাকা মহানগর পুলিশের মুখপাত্র মনিরুল ইসলাম বলেন, \'ভিভিআইপি, ভিআইপিসহ দেশের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ও স্থাপনায় হামলার পরিকল্পনা ছিল জেএমবি সদস্যদের। মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক সশস্ত্র বিদ্রোহী গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) সঙ্গে তারা যোগাযোগ করছিলো।\' গোয়েন্দা পুলিশ জানিয়েছে, আইএস জঙ্গিদের সাথে সম্পর্ক স্থাপনের বিষয়ে জেএমবি ইন্টারনেটে ই-মেইল প্রদানের মাধ্যমে কিছুদূর এগিয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে জঙ্গিরা ডিবিকে জানিয়েছে, তারা বর্তমানে নারী সদস্য সংগ্রহ করছেন। এই নারী সদস্যরা বিভিন্ন স্থানে তাদের তথ্য আদান প্রদান করবে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ এড়াতে এটাও এক ধরনের কৌশল বলেও জানান গোয়েন্দা কর্মকর্তারা। ডিবি বলছে, ময়মনসিংয়ের ত্রিশালে ছিনিয়ে নেয়া জঙ্গিদের মধ্যে পলাতক থাকা বোমারু মিজানসহ অপর এক জঙ্গি সদস্য তারা দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন। জেএমবির আরেক দুর্ধর্ষ নেতা সোহেল মাহফুজ ওরফে হাতকাটা সোহেল এখন ভারতে পলাতক। এছাড়া সাইদুর রহমানের জামাতা পাকিস্থানে পলাতক রয়েছে। পলাতক জঙ্গিরা তাসনিমকে নানা ধরনের তথ্য ও পরিকল্পনা দিয়ে সাহায্য করে আসছিল। পাশাপাশি বিভিন্ন হামলার পরিকল্পনায় সহায়তা করে আসছিল। ট্রেনিং ক্যাম্প : গোয়েন্দা কর্মকর্তারা বলেছেন, বান্দরবানে জেএমবির ট্রেনিং ক্যাম্প রয়েছে বলে জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানিয়েছে। এই সকল ক্যাম্পগুলোতে জেএমবির নতুন নতুন সদস্যদের কুংফু, কারাতেসহ নানা ধরনের শারীরিক কসরত সম্পকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। সংবাদ সম্মেলনে ডিবির ডিসি (উত্তর) নাজমুল আলম, ডিসি (মিডিয়া) মাসুদুর রহমান, এডিসি আব্দুল আহাদ ও এসি মিনহাজুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।
পর্দা উঠল এশিয়ান গেমসের
এশিয়ার ৪৫টি দেশ একটি জাতি, একটি সত্তা এই উদ্দেশ্য নিয়েই যাত্রা শুরু করেছে এশিয়ার অলিম্পিকখ্যাত ১৭তম এশিয়ান গেমস। ইনচনের এশিয়াড মেইন স্টেডিয়ামে গতকাল উৎসবমুখর অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়েই পর্দা উঠেছে এবারের গেমসের। দুই ঘন্টার জমকালো অনুষ্ঠানের বড় চমক ছিল গ্যাংনাম স্টাইলখ্যাত গায়ক ও ড্যান্সার সাই। নিজের গান গাইলেন। সাথে নাচলেনও। উপস্থিত দর্শকরা পেয়েছেন বিনোদন! উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেশটির ইতিহাস ও ঐতিহ্য তুলে ধরা হয়। এবারের বর্ণাঢ্য এশিয়ান গেমসের অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন দক্ষিণ কোরিয়ার ইনচনের সিটি মেয়র ইং জিওং বাক। স্বাগত বক্তব্য রাখেন আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির (আইওসি) প্রেসিডেন্ট থমাস বাখা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের পতাকা বহন করেন শ্যুটার আবদুল্লাহ হেল বাকী। এ নিয়ে তৃতীয়বারের মতো এশিয়ান গেমসের আয়োজন করছে দক্ষিণ কোরিয়া। ১৯৮৬ সালে সিউলে প্রথমবারের মতো এই গেমসের আয়োজন করে তারা। সেই টুর্নামেন্টে স্বাগতিক হিসেবে মান রেখেছিল। ঝুলিতে জমা করে ৯৩টি স্বর্ণসহ ২২৪টি পদক। আর পদক তালিকায় তাদের অবস্থান দ্বিতীয়। খেলাধুলার মাধ্যমেই সমগ্র এশিয়ার প্রতিটি মানুষ একে অপরের সাথে সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির বন্ধনে আবদ্ধ এমন চিত্রই ফুটে উঠেছে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে। এশিয়ায় জাতিতে জাতিতে, মানুষে মানুষে যে শান্তিপূর্ণ ভবিষ্যৎ গড়ে উঠবে তার সূচনা হবে এই ইনচন সিটি থেকেই এটাই তুলে ধরেছেন হাজার হাজার শিল্পী-কলাকুশলী। পুরো এশিয়াকে এক সুতায় বেঁধেছে ইনচন সিটি। অনুষ্ঠানের শুরুতেই দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। এরপর মঞ্চে আসে স্থানীয় কলাকুশলীরা। দক্ষিণ কোরিয়ার প্রাচীন ঐতিহ্যের প্রদর্শনীর মধ্যদিয়েই শুরু হয় মূল অনুষ্ঠান। হাজার বছরের ইতিহাস, জাতি হিসেবে কোরিয়ার পথচলা এসবই তুলে ধরে শিল্পীরা। মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পর একে একে মার্চপাস্টে অংশ নেয় গেমসে অংশগ্রহণকারী দলগুলো। দক্ষিণ কোরিয়ার বর্ণমালা অনুযায়ী প্রথমেই মাঠে আসে নেপাল। এরপর ম্যাকাও, লাওসের পরই জাতীয় পতাকা হাতে মাঠে প্রবেশ করে বাংলাদেশ। দলের পতাকা বহন করেন কমনওয়েলথ গেমসে বাংলাদেশের একমাত্র রৌপ্য পদক জয়ী শ্যুটার আবদুল্লাহ হেল বাকী। ৪৫টি দেশের অ্যাথলেট কর্মকর্তাদের মার্চপাস্টের পর শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ইনচনের মেয়র। এরপরই অংশগ্রহণকারী দলগুলোর উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন অলিম্পিক কমিটি অব এশিয়ার সভাপতি শেখ আহমেদ আল ফাহাদ আল সাবাহ। সবশেষে গেমসের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট পার্ক জিউন হি। সাথে সাথেই আতশবাজির ঝলকানিতে আলোকিত হয়ে ওঠে পুরো এশিয়াড মেইন স্টেডিয়াম। প্রায় ৬১ হাজার দর্শক স্টেডিয়ামে বসে জমজমাট এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠান উপভোগ করেন। স্থানীয় শিল্পীদের সুরের মূর্ছনায় আন্দোলিত হয়ে ওঠে কোরিয়ানরাসহ উপস্থিত অতিথিরা। সবশেষে ব্যান্ড শিল্পীদের রক সঙ্গীতের মধ্যদিয়ে অাঁধার নেমে আসে এশিয়াড মেইন স্টেডিয়ামে। এখন শনিবার থেকেই পদকের লড়াইয়ে নেমে যাবে অ্যাথলেটরা। উল্লেখ্য, এবারের এশিয়ান গেমসে অংশ নিচ্ছে এশিয়ার ৪৫টি দেশ। ৩৬টি ডিসিপ্লিনে ৪৩৯টি ইভেন্টে পদকের জন্য লড়বেন ৯ হাজার ক্রীড়াবিদ। বাংলাদেশ অংশ নিচ্ছে ১৩টি ডিসিপ্লিনে।
সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের নেতৃত্বে কে এম সফিউল্লাহ
এ কে খন্দকারের পদত্যাগপত্র গ্রহণ করে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সেক্টর কমান্ডার কে এম সফিউল্লাহকে সেক্টর কমান্ডার্স ফোরাম-মুক্তিযুদ্ধ ৭১ এর চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের কার্যনির্বাহী পরিষদের সভায় এ সিদ্ধান্ত হয় বলে ফোরামের নির্বাহী সদস্য তুষার আমিন জানিয়েছেন। তিনি বলেন, এ কে খন্দকার সাহেবের পদত্যাগপত্রও গ্রহণ করেছে ফোরাম। নিজের সদ্য প্রকাশিত বই \'১৯৭১: ভেতরে বাইরে\' নিয়ে তুমুল বিতর্কের মধ্যে গত ১৭ সেপ্টেম্বর সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করেন এ কে খন্দকার। নিজের লেখা বই ১৯৭১: ভিতরে বাইরে নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে গত ১৭ সেপ্টেম্বর ফোরামের চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করেন সাবেক পরিকল্পনা মন্ত্রী এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) এ. কে. খন্দকার বীর উত্তম। গতকালের বৈঠকে এ. কে. খন্দকারের পদত্যাগপত্র গ্রহণ করে কে এম সফিউল্লাহকে নতুন চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত করা হয়। সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের কার্যনির্বাহী পরিষদের বৈঠকে এ. কে. খন্দকারের বইটিকে মুক্তিযুদ্ধের বস্তুনিষ্ঠ ইতিহাসের বিরুদ্ধে পরিকল্পিত অপপ্রচার হিসেবে অভিহিত করা হয়। ফোরামের ভাইস চেয়ারম্যান লে. কর্নেল (অব.) আবু ওসমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন মেজর জেনারেল (অব.) কে এম সফিউল্লাহ বীর উত্তম, কর্নেল (অব.) সামসুল আলম, ডা. সারওয়ার আলী, হারুন হাবীব, ম. হামিদ, মো. নুরুল আলম, মেজর জেনারেল (অব.) শাহজাহান, আনোয়ারুল আলম শহীদ, মেজর (অব.) জিয়াউদ্দিন আহমেদ, ফারজানা শাহনাজ মজিদ, মোহা. আব্দুল হাই, অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ পাটোয়ারী, অ্যাডভোকেট হাবিবুর রহমান শওকত, সৈয়দ দিদারুল আলম, ড. মমতাজউদ্দিন পাটোয়ারী, শাহজাহান মৃধা বেনু, নুরুল আনোয়ার, সদরুজ্জামান হেলাল বীর প্রতীক, সাঈদুজ্জামান তারা, মোশাররফ হোসেন, ডা. এম এস এ মনসুর আহমেদ ও তুষার আমীন। সভায় বলা হয়, \'১৯৭১: ভিতরে বাইরে\' বইটির মাধ্যমে এ. কে. খন্দকার বাংলাদেশ রাষ্ট্রের পবিত্র সংবিধান ও স্বাধীনতার ঐতিহাসিক ঘোষণাপত্রসহ মুক্তিযুদ্ধের সুপ্রতিষ্ঠিত মৌল ঘটনাবলির বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতাবিরোধী দেশি-বিদেশি চক্রকে ইন্ধন জুগিয়েছেন। ফোরামের নীতি ও আদর্শ পরিপন্থি এ কাজের মাধ্যমে এ. কে খন্দকার সেক্টর কমান্ডার্স েেফারামের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বহিষ্কারযোগ্য অপরাধ করেছেন। বইটির মাধ্যমে স্ব-বিরোধী ও বিভ্রান্তিকর তথ্য উপস্থাপন করে এ. কে খন্দকার মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও চেতনানির্ভর সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের মতো একটি জাতীয় প্রতিষ্ঠানের নেতৃত্ব দেওয়ার নৈতিক অধিকার হারিয়েছেন বলেও মত দেওয়া হয় সভায়। এ. কে খন্দকারের তীব্র নিন্দা জানিয়ে সভায় আরো বলা হয়, বইটিতে এ. কে খন্দকার মুক্তিযুদ্ধের প্রতিষ্ঠিত মৌল বিষয়গুলিকে প্রায় পুরোটাই নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিতে উপস্থাপন করেছেন। যা বস্তুনিষ্ঠ ইতিহাসের বিকৃতি। বইটিতে তিনি (এ. কে. খন্দকার) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রেসকোর্সের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ, ২৬ মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণাসহ অন্যান্য সুপ্রতিষ্ঠিত ঐতিহাসিক সত্য নিয়েও বিভ্রান্তিকর বক্তব্য দিয়েছেন। যা চরম দুর্ভাগ্যজনক ও নিন্দনীয়। বইটি প্রকাশনা সংস্থা, এর সম্পাদক ও বাজারজাতকরণের সঙ্গে জড়িতরা পরিকল্পিত ইতিহাস বিকৃতির দায়ভার এড়াতে পারবেন না বলেও মন্তব্য করা হয়।
সারিয়াকান্দির কৃষকরা এখন বালির আস্তরণ সরিয়ে জমিকে চাষের উপযোগী করতে ব্যস্ত
বন্যায় উজান থেকে পলির সাথে বালির মোটা আস্তরণে ঢাকা পড়েছে বগুড়ার সারিয়াকান্দির চরের কৃষি জমি। বালির মোটা আস্তরণ তুলে পলি বের করে চাষের উপযোগী করতে এখন ব্যস্ত চরের কৃষকরা। বন্যা তাদের আমন ধানের স্বপ্ন গুড়িয়ে দিয়েছে। সারিয়াকন্দির বোহাইল ইউনিয়নের চর মাঝিরা, শংকরপুর, কেষ্টপুর, ধারাবরষা ও কোমরপুর চর, কামালপুর ইউনিয়নের রৌহাদহ, কাচাহার, চন্দনবাইশা ইউনিয়েনের ঘুঘুমারি, কুতুবপুর ইউনিয়নের বয়রাকান্দি কুতুবপুর পূর্বপাড়ায় বিস্তীর্ণ মাঠ জুড়ে পলি মাটির ওপর শুধু বালি আর বালি। কিন্তু সারিয়াকান্দির কৃষকরা প্রকৃতির সাথে যুদ্ধ করতে জানে। প্রকৃতি যতবারই তাদের ক্ষতি করেছে, তারাও সে ক্ষতিকে পরাস্ত করে মাথা তুলে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছে। এবারও বন্যার পর ক্ষতি পুষিয়ে নিতে উজান থেকে বয়ে আসা পলির সাথে বালির আস্তরণ সরিয়ে জমিকে চাষ উপযোগী করার চেষ্টা করছে। সায়িাকান্দির বোহাইল ইউনিয়নের চর মাঝিরা গ্রামের কৃষক নবীর উদ্দিন ও কসিম উদ্দিন জানান, বছরের আগস্ট ও সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত বন্যা আসবে কি না এর জন্য তাদের অপেক্ষা করতে হয়। বন্যা না হলে তারা স্থানীয় জাতের আমন চাষ করে থাকে। গত কয়েক বছর বন্যা না হওয়ায় ভাগ্য তাদের সহায়তা করেছে। তারা আমন ধান উৎপাদন করেছে। সারিয়াকান্দি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সোহেল মোঃ সামছুদ্দিন ফিরোজ জানান, বন্যায় তলিয়ে যাওয়া সারিয়াকান্দির বিভিন্ন চরের ২৫০ একর জমিতে পড়েছে বালির মোটা আস্তরণ। চরের জমিতে পলির ওপর প্রায় ১ থেকে দেড় ফুট বালির আস্তরণ পড়েছে। এই জমিতে ধান উৎপাদনের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। তাই কোন কোন চরে কৃষকরা বালির আস্তরণ তুলে শীতকালিন সবজি চাষের উপযোগী করে তুলছে। আবার কোন কোন কৃষক বালির আস্তরণ সরিয়ে না ফেলে মিষ্টি কুমড়া, চিনা বাদাম উৎপাদনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। চর মাঝিরা গ্রামের কৃষক নবীর উদ্দিন জানালেন, পলি আর বালিতে তাদের জমি একাকার হয়ে গেছে। তারা এ বছর মিষ্টি কুমড়া লাগাবে। যেহেতু আমন ধান রোপণের সময় নেই তাই মিষ্টি কুমড়া চাষে খরচ কম হবে এবং ফলনও ভাল পাওয়া যাবে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ফিরোজ জানান, যাদের সামর্থ আছে তারা বন্যায় যমুনার বুক চিরে বয়ে আসা বালির আস্তরণ সরিয়ে নিচ্ছে। আর যারা বালি সরাতে পারছে না তাদের কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে মরিচ, চিনা বাদাম, ভূট্টা, পেঁয়াজ লাগানোর পরামর্শ দিচ্ছেন। চরের কৃষকরা জানিয়েছে রিলিফের পাশাপাশি তাদের মাথা তুলে দাঁড়াতে আর্থিক সহায়তা প্রয়োজন।
 
 
 
শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগ
রুয়েটে সংঘর্ষের ঘটনায় দুই মামলা
রাবি প্রতিনিধি :
রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (রুয়েট) পুলিশ-ছাত্রলীগের সাথে শিবিরের নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনায় দুটি মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। নগরীর মতিহার থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মাসুদুর রহমান বাদী হয়ে মামলা দুটি করেছেন। এছাড়াও হরতালে সহিংসতার ঘটনায় মতিহার থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ওয়াহিদুর রহমান বাদী হয়ে পুলিশের কাজে বাধা দান... বিস্তারিত
 
ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি ছাত্রলীগ নেতাসহ গ্রেফতার ১১ উত্তর পেতে লাখ টাকার চুক্তি
স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস :
ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির অভিযোগে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মেহেদী হাসান লেলিন সহ ১১ জন গ্রেফতার হয়েছেন। গতকাল শুক্রবার তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা বিশেষ ডিভাইসের মাধ্যমে মোবাইল ব্যবহার করে উত্তর জালিয়াতি করছিলো। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে একজন শিক্ষার্থী এক লাখ টাকার বিণিময়ে চক্রের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়েছিলো।... বিস্তারিত
 
যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশ সম্পর্ক উন্নয়নে একযোগে কাজ করবে : ওবামা
করতোয়া ডেস্ক :
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক উন্নয়ন এবং নিজেদের অভিন্ন লক্ষ্যে পেঁৗছতে একযোগে কাজ করে যাবে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট হোয়াইট হাউসের ওভাল অফিসে গত বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় সকাল সোয়া ১১টায় (বাংলাদেশ সময় রাত সোয়া ন'টায়) বাংলাদেশের নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মুহাম্মদ জিয়াউদ্দিনের পরিচয়পত্র... বিস্তারিত
 
আজ জেসিসি বৈঠক ভারত সবসময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে : প্রণব
করতোয়া ডেস্ক:
ভারত সব সময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে। বাংলাদেশ ভারতের ভালো বন্ধু বলে মন্তব্য করেছেন সে দেশের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি। গতকাল শুক্রবার বাংলাদেশ সময় দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে একটা পর্যন্ত নয়াদিলি্লর রাষ্ট্রপতির ভবনে প্রণব মুখার্জির সঙ্গে বৈঠক শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এ সব কথা জানান।... বিস্তারিত
 
বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা, শেখ হাসিনা রক্ষক : মোদি সফরের আমন্ত্রণপত্র গ্রহণ
করতোয়া ডেস্ক :
পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলীর সঙ্গে বৈঠকে সব ধরনের সহযোগিতা অব্যাহত রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর প্রতিষ্ঠা করা বাংলাদেশকে শেখ হাসিনাই রক্ষা করেছেন। নয়া দিলি্ল সফররত মাহমুদ আলী শুক্রবার বিকালে সাক্ষাৎ করতে গেলে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী ওই মন্তব্য করেন বলে পরারাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক... বিস্তারিত
 
 
ভিডিও
রাশিচক্র আজ ঢাকায় আজ বগুড়ায়
 
অনলাইন জরিপ
আজকের প্রশ্ন
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের চরমপন্থিরা আত্মসমর্পণের আহ্বানে সাড়া দেবে বলে মনে করেন কি?
হ্যাঁ
উত্তর নেই
না
 
 
 
আজকের ভিউ
নামাজের সময়সূচী
ওয়াক্ত
সময়
ফজর
03:50
জোহর
12:7
আছর
04:42
মাগরিব
06:54
এশা
08:20
 
 

সম্পাদকঃ মোজাম্মেল হক, সম্পাদক কর্তৃক ন্যাশনাল প্রিন্টিং প্রেস, শিল্পনগরী বিসিক বগুড়া এবং ১৬৭ ইনার সার্কুলার রোড, (আরামবাগ) ইডেন কমপ্লেক্স, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও চকযাদু রোড, বগুড়া হতে প্রকাশিত।
ফোন ৬৩৬৬০,৬৫০৮০, সার্কুলেশন বিভাগঃ ০১৭১৩২২৮৪৬৬, বিজ্ঞাপন বিভাগঃ ৬৩৩৯০, ফ্যাক্সঃ ৬০৪২২। ঢাকা অফিসঃ স্বজন টাওয়ার, ৪ সেগুন বাগিচা। ফোনঃ ৭১৬১৪০৬, ৯৫৬০৬৬৯, ৯৫৬৮৮৪৬, ফ্যাক্সঃ ৯৫৬৮৫২২ E-mail : dkaratoa@yahoo.com . . . .

Powered By: